লেবাননী রন্ধনশৈলী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
লেবাননী খাবার
কিব্বেত বাতারা (আলু কিব্বেহ)

লেবাননী রন্ধনশৈলী হচ্ছে একটি লেভান্তিন রন্ধনপ্রণালী। এটি শস্য, ফল, সবজি, শর্করা, তাজা মাছ এবং সীফুড দিয়ে সমৃদ্ধ। প্রচুর পরিমাণে প্রাণীজ চর্বি খাওয়া হয়। তবে লাল মাংসের চেয়ে হাঁস মুরগী বেশি করে খাওয়া হয়। লাল মাংসের মধ্যে সাধারণত উপকূল অঞ্চলে ভেড়া এবং পার্বত্য অঞ্চলে ছাগলের মাংস খাওয়া হয়। প্রচুর পরিমাণে রসুন এবং জলপাই তেল ব্যবহার করা হয়, যাতে প্রায়ই লেবুর রস মেশানো হয়। এছাড়াও, তাদের খাদ্য তালিকায় প্রচুর পরিমাণে ছোলার ডাল থাকে।[১] জলপাই তেল, গুল্ম, রসুন এবং লেবু সাধারণ মশলা উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

আরাক (عرق) হচ্ছে লেবাননের জাতীয় পানীয় এবং সাধারণত এটি ঐতিহ্যগত লেবাননি খাবারের সাথে পরিবেশন করা। লেবাননের আরেকটি ঐতিহাসিক এবং ঐতিহ্যবাহী পানীয় হচ্ছে ওয়াইন (نبيذ)।

লেবাননে কিছু বিশেষ অনুষ্ঠানের কিছু খাবার বিশেষভাবে প্রস্তুত করা হয়: উদাহরণস্বরূপ মেঘলি পরিবারের নবজাত শিশুর আগমন উদযাপনে তৈরী করা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

লেবাননের রন্ধনপ্রণালী খুব প্রাচীন এবং এটি লেভান্তনীয় রন্ধনপ্রণালীর অংশ। লেবাননের রন্ধনপ্রণালীর অনেক খাবার রোমান ও ফিনিশীয় শাসন যুগের হাজার হাজার বছর পুরাতন বলে চিহ্নিত করা যায়। সম্প্রতি লেবাননের রন্ধনপ্রণালী বিভিন্ন বিদেশী সভ্যতা দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে যারা এখানকার ক্ষমতার অধিকারী ছিল। ১৫১৬ থেকে ১৯১৮ সাল পর্যন্ত, অটোমান তুর্কীরা লেবাননকে নিয়ন্ত্রণ করে এবং লেবাননের খাবারগুলিতে বিভিন্ন রকমের নতুন খাবার উপাদান নিয়ে আসে যেমন ভেড়ার মাংস রান্না করা।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের (১৯১৪-১৯১৮) পর অটোমানগণ পরাজিত হওয়ার পর, ফ্রান্স ১৯৪৩ সালে লেবাননের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে। ফরাসিরা ফ্ল্যানের মতো খাদ্যগুলি প্রবর্তন করে, যা ১৬ শতকের খ্রিস্টাব্দে একটি কারমেল কাস্টার্ড ডেজার্ট।

খাদ্যাভ্যাস[সম্পাদনা]

বেশিরভাগ সময়ই খাবারগুলো জলপাই তেলে রান্না করা হয়; কিছু কিছু ডেজার্টের মাঝেমধ্যে মাখন অথবা ক্রিম ব্যবহার করা হয়। সবজি প্রায়ই কাঁচা, পাকানো, বা রান্না করে খাওয়া হয়। গুল্ম ও মশলা প্রায়শই এবং প্রচুর পরিমাণে ব্যবহৃত হয়। অন্যান্য ভূমধ্যসাগরীয় দেশগুলির মতো, লেবাননের খাওয়াগুলির বেশিরভাগ ঋতু দ্বারা প্রভাবিত হয় এবং যা পাওয়া যায় তার উপর। লেবাননের রন্ধনপ্রণালী অঞ্চল দ্বারাও পরিবর্তিত হয়।

লেবাননে, খুব কমই খাবার ছাড়া পানীয় পরিবেশন করা হয়। ছাড়াই পরিবেশিত পানীয়। স্পেনের তাপা, রোমানিয়ায় মেজুলুরি এবং ইতালির অ্যাপেরিতিভোর মতো হালকা খাবার মেহমানদের সম্মুখে পরিবেশন করা হয়। খাদ্য সরবরাহের এই শৈলীটি পারিবারিক জীবনে ক্যাফের তুলনায় কম ব্যায়বহুল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Middle western cuisines: gain ground"