লিভারপুল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
লিভারপুল
মহানাগরিক পৌরসভা এবং শহর
উপরের বাম থেকে: কেভের্ন ক্লাব, থ্রি গ্রাসেস  Pier Head (লিভার বিল্ডিং, কুনার্ড বিল্ডিং এবং লিভারপুল পোর্ট বিল্ডিং), লিভারপুল এর বাণিজ্যিক জেলার দিগন্ত, আলবার্ট ডক এবং সেন্ট জর্জেস হল
উপরের বাম থেকে: কেভের্ন ক্লাব, থ্রি গ্রাসেস Pier Head (লিভার বিল্ডিং, কুনার্ড বিল্ডিং এবং লিভারপুল পোর্ট বিল্ডিং), লিভারপুল এর বাণিজ্যিক জেলার দিগন্ত, আলবার্ট ডক এবং সেন্ট জর্জেস হল
লিভারপুলের অফিসিয়াল লোগো
লিভারপুল সিটি কাউন্সিলের কুলচিহ্ন
নাম: পুল, জীবনের পুল, প্রতিভার পুল, একটি শহরে পৃথিবী[১]
মারসিসাইড ব্যতীত লিভারপুল প্রদর্শিত
মারসিসাইড ব্যতীত লিভারপুল প্রদর্শিত
স্থানাঙ্ক: ৫৩°২৪′ উত্তর ২°৫৯′ পশ্চিম / ৫৩.৪০০° উত্তর ২.৯৮৩° পশ্চিম / 53.400; -2.983
সার্বভৌম রাষ্ট্র যুক্তরাজ্য
সাংবিধানিক দেশ ইংল্যান্ড
অঞ্চল উত্তর পশ্চিম ইংল্যান্ড
আনুষ্ঠানিক কাউন্টি মারর্সিসাইড
ঐতিহাসিক কাউন্টি ল্যাঙ্কাশায়ার
প্রশাসন দপ্তর লিভারপুল সিটি সেন্টার
প্রতিষ্ঠিত ১২০৭
শহরের অবস্থা ১৮৮০
সরকার
 • ধরন মেট্রোপলিটন বরো, শহর
 • Governing body লিভারপুল সিটি কাউন্সিল
 • Leadership: Mayor and Cabinet
 • Executive: Labour
 • Mayor Joe Anderson (Lab)
 • MPs: Steve Rotherham (Lab),
Stephen Twigg (Lab),
Louise Ellman (Lab),
Luciana Berger (Lab),
Maria Eagle (Lab)
আয়তন
 • মহানাগরিক পৌরসভা এবং শহর ৪৩.১৮ বর্গমাইল (১১১.৮৪ কিমি)
উচ্চতা ২৩০ ফুট (৭০ মিটার)
জনসংখ্যা (২০১২)
 • মহানাগরিক পৌরসভা এবং শহর ৫,৫২,২৬৭[২]
 • ঘনত্ব ১০০৭০/বর্গমাইল (৩৮৮৯/কিমি)
 • মহানগর ১৩,৮১,২০০
 • Ethnicity
(June 2009 estimates)[৩]
<.০
সময় অঞ্চল Greenwich Mean Time (ইউটিসি+0)
 • Summer (ডিএসটি) British Summer Time (ইউটিসি+1)
Postal Code L postcode area
এলাকা কোড 0151
ISO 3166-2 GB-LIV
ONS code 00BY (ONS)
E08000012 (GSS)
OS grid reference SJ3490
NUTS 3 UKD52
Demonym Scouser/Liverpudlian
ওয়েবসাইট http://www.liverpool.gov.uk/

লিভারপুল /ˈlɪvərpl/ (ইংরেজি: Liverpool) মারর্সি মোহনার পূর্বাঞ্চলীয় মারর্সিসাইড, ইংল্যান্ড, যুক্তরাজ্যের একটি শহর এবং মহানাগরিক পৌরসভা। ১২০৭ সালে এটি পৌরসভা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল এবং ১৮৮০ সালে একে শহরের মর্যাদা দেয়া হয়। ২০১১ সালে লিভারপুল সিটি কাউন্সিল দ্বারা পরিচালিত হিসেবে জনসংখ্যা ছিল ৪৬৬.৪১৫[৪] এবং এটি লিভারপুল শহর অঞ্চলের বৃহত্তর শহুরে এলাকার কেন্দ্র।[৫]

ঐতিহাসিকভাবে, লিভারপুল ল্যাঙ্কাশায়ারের একটি অংশ ছিলো। প্রধান বন্দর হিসেবে শহরের অবস্থা দ্বারা মূলত এর নগরায়ন এবং সম্প্রসারণ সঙ্ঘটিত ​​হয়। ১৮ শতক থেকে, আটলান্টিক দাসব্যবসার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সংযোগগুলির সাথে মিলিত ওয়েস্ট ইন্ডিজ, আয়ারল্যান্ড এবং মূল ভূখন্ড ইউরোপ থেকে বাণিজ্য, লিভারপুলের অর্থনৈতিক সম্প্রসারণ ঘটায়। এছাড়াও বিশেষ করে অবকাঠামোগত পরিপ্রেক্ষিতে উদ্ভাবন এবং প্রবর্তিন, পরিবহন, সাধারণ নির্মাণ, এবং জনস্বাস্থ্যসামাজিক সংস্কারের জন্যে লিভারপুল পরিচিত। লিভারপুল প্রবর্তন ঘটেছে রেলওয়ে, ফেরি এবং গগনচুম্বী অট্টালিকার, পাশাপাশি একসঙ্গে প্রাণী ও শিশু সুরক্ষার প্রথম বিদ্যালয়, অন্ধদের প্রথম বিদ্যালয় এবং কর্মরত মানুষদের এবং মেয়েদের জন্যে। লিভারপুল ছিল সমুদ্রে মাছ ধরার নৌকার নিবন্ধিত বন্দর। আরএমএস টাইটানিক, এবং টাইটানিক শব্দ, জাহাজের স্টার্নে লিভারপুল দেখা যেতে পারে।

লিভারপুলের অধিবাসীদের লিভারপুডলিয়ান হিসাবে উল্লেখ করা হয়, কিন্তু কথ্য ভাষায় তারা "স্কোসার" নামে পরিচিত, এক্ষেত্রে স্থানীয় খাবার স্ট্যুর একটি ধরণ "স্কোস" উল্লেখ করা যায়। "স্কোস" শব্দটি এছাড়াও লিভারপুলের স্বরাঘাতে এবং উপভাষার সঙ্গে সমার্থক হয়ে উঠেছে।[৬]

সরকার[সম্পাদনা]

মেয়র এবং স্থানীয় কাউন্সিল[সম্পাদনা]

  1. Allerton and Hunts Cross
  2. Anfield
  3. Belle Vale
  4. Central
  5. Childwall
  6. Church
  7. Clubmoor
  8. County
  9. Greenbank
  10. Croxteth
  11. Everton
  12. Fazakerley
  13. Greenbank
  14. Kensington and Fairfield
  15. Kirkdale
  1. Knotty Ash
  2. Mossley Hill
  3. Norris Green
  4. Old Swan
  5. Picton
  6. Princes Park
  7. Riverside
  8. Speke-Garston
  9. St Michaels
  10. Tuebrook and Stoneycroft
  11. Warbreck
  12. Wavertree
  13. West Derby
  14. Woolton
  15. Yew Tree

ভূগোল[সম্পাদনা]

আবহাওয়া[সম্পাদনা]

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি[সম্পাদনা]

লিভারপুল সম্পর্কে উদ্ধৃতসমূহ[সম্পাদনা]

  • "Lyrpole, alias Lyverpoole, a pavid towne, hath but a chapel... The king hath a castelet there, and the Earl of Darbe hath a stone howse there. Irisch merchants cum much thither, as to a good haven... At Lyrpole is smaul custom payed, that causith marchantes to resorte thither. Good marchandis at Lyrpole, and much Irish yarrn that Manchester men do buy there..." – John Leland (antiquary), Itinery, c. 1536–39
  • "Liverpoole is one of the wonders of Britain... In a word, there is no town in England, London excepted, that can equal [it] for the fineness of the streets, and the beauty of the buildings." Daniel DefoeA tour thro' the Whole Island of Great Britain, 1721–26
  • "[O]ne of the neatest, best towns I have seen in England." – John Wesley. Journal, 1755
  • "I have not come here to be insulted by a set of wretches, every brick in whose infernal town is cemented with an African's blood." Actor George Frederick Cooke (1756–1812) responding to being hissed when he came on stage drunk during a visit to Liverpool.[৭]
  • "That immense City which stands like another Venice upon the water...where there are riches overflowing and every thing which can delight a man who wishes to see the prosperity of a great community and a great empire... This quondam village, now fit to be the proud capital of any empire in the world, has started up like an enchanted palace even in the memory of living men." Thomas Erskine, 1st Baron Erskine, 1791
  • "I have heard of the greatness of Liverpool but the reality far surpasses my expectation" – Prince Albert, speech, 1846
  • "Liverpool…has become a wonder of the world. It is the New York of Europe, a world city rather than merely British provincial." – Illustrated London News, 15 May 1886
  • "Liverpool is the 'pool of life' " – C.G. Jung, Memories, Dreams, Reflections, 1928
  • "The centre is imposing, dignified and darkish, like a city in a rather gloomy Victorian novel...We had now arrived in the heart of the big city, and as usual it was almost a heart of darkness. But it looked like a big city, there was no denying that. Here, emphatically, was the English seaport second only to London. The very weight of stone emphasised that fact. And even if the sun never seems to properly rise over it, I like a big city to proclaim itself a big city at once..." – J.B. Priestley, English Journey, 1934
  • "...if Liverpool can get into top gear again there is no limit to the city's potential. The scale and resilience of the buildings and people is amazing – it is a world city, far more so than London and Manchester. It doesn't feel like anywhere else in Lancashire: comparisons always end up overseas – Dublin, or Boston, or Hamburg. The city is tremendous, and so, right up to the First World War, were the abilities of the architects who built over it…… The centre is humane and convenient to walk around in, but never loses its scale. And, in spite of the bombings and the carelessness, it is still full of superb buildings. Fifty years ago it must have outdone anything in England." – Ian Nairn, Britain's Changing Towns, 1967

আন্তর্জাতিক সংযোগগুলি[সম্পাদনা]

যমজ শহর[সম্পাদনা]

লিভারপুলের যমজ শহর[৮][৯] শহর:

বন্ধুত্ব সংযোগসমূহ[সম্পাদনা]

লিভারপুলের বন্ধুত্ব সংযোগ রয়েছে (আনুষ্ঠানিক সংবিধান ছাড়াই)[১০] নিম্নলিখিত শহরের সাথে:

কনস্যুলেট[সম্পাদনা]

১৭৯০ সালে লিভারপুলে সর্বপ্রথম যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস খোলা হয়, এবং এটি প্রায় দুই শতাব্দী ধরে কর্মক্ষম ছিল। লিভারপুলে নিম্নলিখিত দেশগুলির দূতাবাস পরিচালিত হয়:

  • হাঙ্গেরি হাঙ্গেরি
  • ইতালি ইতালি
  • নেদারল্যান্ডস নেদারল্যান্ড
  • নরওয়ে নরওয়ে
  • সুইডেন সুইডেন
  • থাইল্যান্ড থাইল্যান্ড

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. "Is Liverpool still the world in one city?"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৩-২২ 
  2. nomis – official labour market statistics. Nomisweb.co.uk. Retrieved on 17 July 2013.
  3. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; ethnicity নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  4. Bartlett, David (১৭ জুলাই ২০১২)। "Census data shows Liverpool's population has risen by 5.5% to 466,400"Liverpool Daily Post। Liverpool। 
  5. "CITY LEADERSHIP: GIVING CITY-REGIONS THE POWER TO GROW ADAM MARSHALL AND DERMOT FINCH/LIVERPOOL BRIEFING/Liverpool and its City-Region" (PDF)। London: Centre for Cities। ২০০৬। পৃষ্ঠা 1। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১২ 
  6. Many people "self-identify" as Liverpudlians or Scousers without actually being born or living within the city boundaries of Liverpool. Many people from within the greater Merseyside area consider themselves thus, although many do not. Conversely, a number of people from Liverpool itself may not consider themselves Scousers, since the term for them may have pejorative overtones.
  7. "Time Team | Archaeology | Channel 4 | Tony Robinson"। Channel 4। ২১ এপ্রিল ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ এপ্রিল ২০১০ 
  8. "Liverpool City Council: twinning"। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০০৭ 
  9. "Declara cidades-irmãs as cidades do Rio de Janeiro e de Liverpool" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১১ 
  10. "Liverpool City Council: Twinning – Friendship links" 

গ্রন্থতালিকা[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Liverpool related articles টেমপ্লেট:Liverpool টেমপ্লেট:Merseyside টেমপ্লেট:NW England টেমপ্লেট:UK cities টেমপ্লেট:Metropolitan districts of England টেমপ্লেট:European Capital of Culture

টেমপ্লেট:Liverpool B&S স্থানাঙ্ক: ৫৩°২৪′ উত্তর ৩°০০′ পশ্চিম / ৫৩.৪° উত্তর ৩° পশ্চিম / 53.4; -3