রেশম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নারীরা আঘাত করে রেশম বের করছে (সম্রাট Huizong, চীন, ১২তম খ্রিস্টাব্দে)

রেশম (ইংরেজি: Silk) একধরনের প্রাকৃতিক প্রোটিন তন্তু, যার কয়েকটি ধরন বস্ত্রশিল্প বয়নের কাজে ব্যবহার করা হয়। রেশমের সর্বাধিক পরিচিত ধরন বম্বিক্স মোরি নামের রেশম পোকার লার্ভার গুটি থেকে সংগ্রহ করা হয়। এক ধরণের রেশম পোকার গুটি থেকে এ ধরণের সূতা পাওয়া যায়। বিশেষ ব্যবস্থায় রেশম পোকা চাষের মাধ্যমে বাণিজ্যিকভাবে এই সূতা প্রস্তুত করা হয়। রেশম পোকার গুটি চাষের পদ্ধতিকে সেরিকালচার বলা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

চীন[সম্পাদনা]

প্রাচীনকাল সর্বপ্রথম চীনে রেশমগুটির চাষ করা হয়।[১] রেশমের জন্য চীনের সম্রাটের স্ত্রী লেই চু (চৈনিক: 嫘祖 ফিনিন: Léi Zǔ লেইৎসু) এর অনেক ভূমিকা বয়েছে। সম্ভবত খ্রিস্টপূর্ব ৩,৫০০ আগে থেকেই চীনারা রেশমের ব্যবহার করতে জানতো।[২] প্রথম দিকে রেশমের জামা চীনা সম্রাটের জন্য সংরক্ষণ করা হতো। পরে এটি সে সময় সামাজের ধনী শ্রেণীর তোষাখানাতে স্থান পায় এবং এর সৌন্দর্য্য ও হালকা গুণগত মানের জন্য পরে এটি চীনা ব্যবসায়ীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। রেশমের ব্যবহার বাড়ার সাথে সাথে এটি একটি আন্তজার্তিক ব্যবসায় পরিণত হয় এবং একে শিল্পায়ন ভাবে চাষ করা শুরু হয়। চীনা সম্রাটরা রেশমগুটির চাষের উৎপাদন পদ্ধতি গোপনা রাখার জন্য অনেক সর্তকতা অবলম্বন করেন, কিন্তু এর চাষ পরে জাপান, কোরিয়া এবং ভারতে আবির্ভূত হতে শুরু হয়।

রেশম বাণিজ্যের প্রথম প্রমাণ পাওয়া যায় মিশরের ২১তম রাজবংশের (সি. ১০৭০ খ্রিস্টপূর্ব) একটি মমির চুলে পাওয়া রেশম থেকে।[৩]

ইউরোপ[সম্পাদনা]

ইউরোপে, যদিও রোমান সাম্রাজ্য রেশমের চাষ জানাতো এবং সমাদর করতো, কিন্তু শুধু খ্রিস্টপূর্ব ৫৫০, বাইজেন্টাইন সাম্রাজের সময় রেশমগুটির চাষ শুরু হয়েছে। উপকথা কথা থেকে জানা যায় যে, সন্ন্যাসীরা আদেশে সম্রাট জাস্টেনিয়ান প্রথম কন্সটান্টিনোপলতে রেশম পোকা ডিমগুলো আনে। ১২০০ খ্রিস্টাব্দে ইতালির পালেরমো, কাতানযারো এবং কোমো ছিল ইউরোপের সর্বাধিক রেশম উৎপাদন শহর।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Silk: History"Columbia Encyclopedia Sixth Edition। 
  2. "Textile Exhibition: Introduction"। Asian art। 
  3. Lubec, G.; J. Holaubek, C. Feldl, B. Lubec, E. Strouhal (1993-03-04)। "Use of silk in ancient Egypt"Nature 362 (6415): 25। ডিওআই:10.1038/362025b0। সংগৃহীত 2010-07-24  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য) (also available here)
  • Good, Irene. 1995. “On the question of silk in pre-Han Eurasia” Antiquity Vol. 69, Number 266, December 1995, pp. 959–968
  • Hill, John E. 2004. The Peoples of the West from the Weilüe 魏略 by Yu Huan 魚豢: A Third Century Chinese Account Composed between 239 and 265 AD. Draft annotated English translation. Appendix E.
  • Kuhn, Dieter. 1995. “Silk Weaving in Ancient China: From Geometric Figures to Patterns of Pictorial Likeness.” Chinese Science 12 (1995): pp. 77–114.
  • Liu, Xinru. 1996. Silk and Religion: An Exploration of Material Life and the Thought of People, AD 600-1200. Oxford University Press.
  • Sung, Ying-Hsing. 1637. Chinese Technology in the Seventeenth Century - T'ien-kung K'ai-wu. Translated and annotated by E-tu Zen Sun and Shiou-chuan Sun. Pennsylvania State University Press, 1966. Reprint: Dover, 1997. Chap. 2. Clothing materials.
  • Kadolph, Sara J. Textiles. 10th ed. Upper Saddle River: Pearson Prentice Hall, 2007. 76-81.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]