রয়েল বেঙ্গল এয়ারলাইন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রয়্যাল বেঙ্গল এয়ারলাইনস
রয়্যাল বেঙ্গল এয়ারলাইনসের লোগো.png
আইএটিএ আইসিএও কলসাইন
4A RRY রয়েল বেঙ্গল
প্রতিষ্ঠাকাল৩০ মে ২০০৬ (2006-05-30)
(যুক্তরাজ্য)
কার্যক্রম শুরু৩১ জানুয়ারি ২০০৮ (2008-01-31)
কার্যক্রম শেষ২০০৯
হাবঢাকা
বিমানবহরের আকার
গন্তব্য
প্রধান কোম্পানিএভিয়ানা এয়ারওয়েজ লিমিটেড
প্রধান কার্যালয়লন্ডন, যুক্তরাজ্য
গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিএকে চৌধুরী (চেয়ারম্যান)

এভিয়ানা এয়ারওয়েজ লিমিটেড যা রয়্যাল বেঙ্গল এয়ারলাইনস হিসেবে পরিচালিত একটি বিমান সংস্থা। সংস্থাটি বাংলাদেশে বিমান পরিচালনা করতো, এর সদর দপ্তর লন্ডনে অবস্থিত। এই এয়ারলাইন্সের সম্পূর্ণ মালিকানা ছিল আর বি এয়ারলাইন ইউকে লিমিটেডের।[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

রয়্যাল বেঙ্গল এয়ারলাইন্স ২০০৬ সালের জুন মাসে ব্রিটেনে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয় এবং নভেম্বর ২০০৬ সালে এটি আনুষ্ঠানিকভাবে জনসাধারণের জন্য চালু করা হয়।[৩] এটি বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলের ব্রিটিশ বংশোদ্ভূত বাংলাদেশীদের মালিকানাধীন ও পরিচালিত প্রথম বিমান সংস্থা। এটি মধ্যপ্রাচ্যে যাত্রাবিরতি সহ যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের মধ্যে দীর্ঘ পথের ফ্লাইট পরিচালনা করতো।[৪][৫]

যুক্তরাজ্য থেকে সিলেটের ওসমানি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সরাসরি ফ্লাইট প্রদানের ভিত্তিতে এই বিমান সংস্থাটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। প্রাথমিক পরিচালনায় সংস্থার স্লোগান ছিল "দ্য জার্নি বিগিনস হেয়ার"। তবে রয়্যাল বেঙ্গল এয়ারলাইন্সকে (বা অন্য কোনো বিমান সংস্থাকে) এই লাভজনক রুটে প্রবেশাধিকার দেওয়া হবে বলে বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ সেসময় নিশ্চিত করেনি।

জুন ২০০৭ সালের মধ্যে, বিমান সংস্থাটি স্থানীয় ব্যবসা এবং স্টক ব্রোকারদের কাছ থেকে জিবিপি £৫.৫ মিলিয়ন বিনিয়োগ সংগ্রহ করেছিল এবং দুটি ড্যাশ ৮-১০০ বিমান কিনেছিল।[৬] ২০০৭ সালের শেষে সংস্থাটি লন্ডন স্ট্যানস্টেড, ম্যানচেস্টার এবং বার্মিংহাম বিমানবন্দর থেকে যুক্তরাজ্য থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ সেবা শুরুর প্রচেষ্টা করেছিল।[৭]

বিমান সংস্থাটি আনুষ্ঠানিকভাবে ৩১ জানুয়ারি ২০০৮ সালে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করে এবং পরে তা বিক্রি হয়ে যায়।[১]

গন্তব্য[সম্পাদনা]

রয়্যাল বেঙ্গল এয়ারলাইন প্রাথমিকভাবে ঢাকাচট্টগ্রাম এবং ঢাকা ও সিলেট এর মধ্যে দিনে তিনটি নির্ধারিত অভ্যন্তরীন ফ্লাইট পরিচালনা করে।[৮] ২০০৯ এর সেপ্টেম্বরের মধ্যে ঢাকা এবং কক্সবাজার কেও পরিষেবায় যুক্ত করা হয়েছিল।[৯]

বিমান বহর[সম্পাদনা]

রয়্যাল বেঙ্গল এয়ারলাইন মধ্যম পরিসীমার বোম্বার্ডিয়ার ড্যাশ ৮-১০২ এ টার্বোপ্রপ এয়ারলাইনার পরিচালনা করতো যা ৩৭ জন যাত্রী বহনে সক্ষম ছিল।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ch-aviation.com – Royal Bengal Airline retrieved 20 September 2016
  2. "Bangladesh gets fourth private passenger airline"The Economic Times। ১৩ অক্টোবর ২০০৭। 
  3. "Flight Plan"The Sunday Times। London। ৪ মার্চ ২০০৭। ২০০৭-০৩-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "Royal Bengal Airlines plans routes to Dhaka"CheapFlights। ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৭। ২০০৭-০২-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. "British Bangladeshis launch Manchester to Dhaka link"The Asian News। Guardian Media Group। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০০৭। ২০০৮-০৯-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  6. "Flying high to Dhaka"BBC News। ২ জুন ২০০৭। 
  7. "Royal Bengal Airlines plans flights to Dhaka from Stansted, Birmingham and Manchester"। UK Airport News। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৭। ২০ মার্চ ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  8. "Fourth private airline takes off"The Daily Star। ১ ফেব্রুয়ারি ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  9. Leung, Mikey; Meggitt, Belinda (২১ সেপ্টেম্বর ২০০৯)। Bangladesh (First সংস্করণ)। Bradt Travel Guides। পৃষ্ঠা 108আইএসবিএন 978-1-84162-293-4 
  10. "Bangladesh gets fourth private passenger airline"The Economic Times। ১৩ অক্টোবর ২০০৭। "Bangladesh gets fourth private passenger airline". The Economic Times. 13 October 2007.