ম্যানচেস্টার বিমানবন্দর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ম্যানচেস্টার বিমানবন্দর
ম্যানচেস্টার বিমানবন্দরের লোগো.svg
Manchester Airport.jpg
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
বিমানবন্দরের ধরনসরকারি
মালিকম্যান চেস্টার এয়ারপোর্ট হোল্ডিংস
পরিচালকম্যানচেস্টার এয়ারপোর্ট পিএলসি
সেবা দেয়গ্রেটার ম্যানচেস্টার
অবস্থানরিংওয়ে, ম্যানচেস্টার, ইংল্যান্ড
মনোনিবেশ শহর
এএমএসএল উচ্চতা২৫৭ ফুট / ৭৮ মি
স্থানাঙ্ক৫৩°২১′১৪″ উত্তর ০০২°১৬′৩০″ পশ্চিম / ৫৩.৩৫৩৮৯° উত্তর ২.২৭৫০০° পশ্চিম / 53.35389; -2.27500স্থানাঙ্ক: ৫৩°২১′১৪″ উত্তর ০০২°১৬′৩০″ পশ্চিম / ৫৩.৩৫৩৮৯° উত্তর ২.২৭৫০০° পশ্চিম / 53.35389; -2.27500
ওয়েবসাইটmanchesterairport.co.uk
মানচিত্র
ইজিসিসি ম্যানচেস্টার-এ অবস্থিত
ইজিসিসি
ইজিসিসি
ইজিসিসি ইংল্যান্ড-এ অবস্থিত
ইজিসিসি
ইজিসিসি
ইজিসিসি যুক্তরাজ্য-এ অবস্থিত
ইজিসিসি
ইজিসিসি
ইজিসিসি ইউরোপ-এ অবস্থিত
ইজিসিসি
ইজিসিসি
রানওয়েসমূহ
দিকনির্দেশনা দৈর্ঘ্য পৃষ্ঠতল
মি ফুট
০৫এল/২৩আর ৩,০৪৮ ১০,০০০ কংক্রিট
০৫আর/২৩এল ৩,০৫০ ১০,০০৭ কংক্রিট/
খাঁজকাটা অ্যাসফল্ট
পরিসংখ্যান (২০১৯)
যাত্রী সংখ্যা২,৯৩,৭৪,২৮২
যাত্রী সংখ্যার পরিবর্তন ১৮-১৯বৃদ্ধি৩.৯%
উড়ান সংখ্যা২,০১,২৩৯
উড়ান সংখ্যার পরিবর্তন ১৭-১৮হ্রাস১.২%
সূত্র:সূত্র: এমএজি ম্যানচেস্টার এয়ারপোর্ট গ্রুপের ওয়েবসাইট, এনএটিএস-এ ইউএন এআইপি[১]
যুক্তরাজ্যের সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের পরিসংখ্যান[২]

ম্যানচেস্টার বিমানবন্দর (আইএটিএ: এমএএনআইসিএও: ইসিজিসি) ম্যানচেস্টার সিটি সেন্টারের ৭.৫ নটিক্যাল মাইল দক্ষিণ-পশ্চিমে (১৩.৯ কিমি; ৮.৬ মাইল) ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার শহরের রিংওয়েতে অবস্থিত একটি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর[১][৩] ২০১২ সালে যাত্রী সংখ্যার দিক থেকে এটি যুক্তরাজ্যের তৃতীয় ব্যস্ততম বিমানবন্দর এবং লন্ডনের বাইরে পরিষেবা পরিবেশনকারীদের মধ্যে সবচেয়ে ব্যস্ততম বিমানবন্দর।[২][৪] বিমানবন্দরটিতে তিনটি যাত্রীবাহী টার্মিনাল ও একটি কার্গো টার্মিনাল রয়েছে এবং হিথ্রো বিমানবন্দর ছাড়া যুক্তরাজ্যের একমাত্র বিমানবন্দর, যেটি ৩,২৮০ ইয়্ড (২,৯৯৯ মি) দৈর্ঘ্যের দুটি রানওয়ে পরিচালনা করে। ম্যানচেস্টার বিমানবন্দরটি ৫৬০ হেক্টর (১,৪০০একর) এলাকা নিয়ে গঠিত এবং এখান থেকে ১৯৯ টি গন্তব্যে উড়ান চলাচল করে ও বিমানবন্দরটি পরিষেবা প্রদানকারী গন্তব্যের সংখ্যার নিরিখে বিশ্বব্যাপী ত্রয়োদশতম স্থানে রয়েছে।[৫]

আনুষ্ঠানিকভাবে ১৯৩৮ সালের ২৫ জুন খোলা হয়,[৬] এটি প্রাথমিকভাবে রিংওয়ে বিমানবন্দর হিসাবে পরিচিত ছিল এবং এখনও এটি স্থানীয়ভাবে একই নামে ডাকা হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে আরএএফ রিংওয়ে হিসাবে এটি রয়্যাল এয়ার ফোর্সের একটি ঘাঁটি ছিল। বিমানবন্দরটি অস্ট্রেলিয়ান ফিনান্স হাউস আইএফএম বিনিয়োগকারী ও ম্যানচেস্টার সিটি কাউন্সিলের সাথে গ্রেটার ম্যানচেস্টারের দশটি মেট্রোপলিটন বরো কাউন্সিলের একটি হোল্ডিং সংস্থা ম্যানচেস্টার বিমানবন্দর হোল্ডিংসের (এমএজি হিসাবে ব্যবসা) মালিকানাধীন ও পরিচালিত। রিংওয়ের নাম থেকে বিমানবন্দরটির নামকরণ করা হয়েছিল, এটি এমন একটি গ্রাম যা বিমানবন্দরটির দক্ষিণ প্রান্তে কয়েকটি ভবন ও গির্জা নিয়ে গঠিত।

ভবিষ্যতের উন্নয়নের মধ্যে বিমানবন্দরের পাশে £৮০০ মিলিয়ন মূল্যের এয়ারপোর্ট সিটি ম্যানচেস্টার লজিস্টিকস, উৎপাদন, কার্যালয় এবং হোটেলের স্থান অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। চলমান ও ভবিষ্যতের পরিবহন উন্নতির মধ্যে রয়েছে £২৯০ মিলিয়ন মূল্যের ইস্টার্ন লিংক রিলিফ রোড, যা অক্টোবর ২০১৮ সালে খোলা হয়। ম্যানচেস্টার ইন্টারচেঞ্জ নামে পরিচিত হাই স্পিড ২ রেলপথের একটি স্টেশন ২০৩৩ সালে খোলার জন্য নির্ধারিত রয়েছে। ম্যানচেস্টার থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত জাতীয় রেল নেটওয়ার্কের অন্যতম যানজটযুক্ত পথ স্টিয়াল লাইনের উপর চাপকে মুক্তি দিতে কেন্দ্রীয় ম্যানচেস্টার ও বিমানবন্দরের মধ্যে রেল যাত্রীদের সংযোগের জন্য নিয়মিত সাব-১০ মিনিটের শাটল পরিষেবা প্রদান করা হবে।[৭]

২০১৭ সালে ২৭.৮ মিলিয়ন যাত্রী পরিচালিত করে।[২] বর্তমানে বিমানবন্দরটি ২০১৯ সালে প্রথম উপাদানগুলির উদ্বোধনের সাথে সাথে টার্মিনাল ২ এর আকার দ্বিগুণ করার জন্য একটি বিস্তৃত কার্যক্রমের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত।[৮] ১ বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে সম্প্রসারণ ২০২৪ সালে সম্পন্ন হবে এবং টার্মিনাল ২ ৩৫ মিলিয়ন যাত্রী পরিচালনা করতে সক্ষম হবে।[৯] দুই রানওয়ে দিয়ে বছরে পাঁচ মিলিয়ন যাত্রী পরিবহনের ক্ষমতা বিদ্যমান,[১০] যাইহোক, এই সম্ভাব্য পরিস্থিতি বিমানবন্দরকে প্রতি ঘণ্টা ৬১ টি বিমান পরিচালনা করার পাশাপাশি বিদ্যমান টার্মিনালের আয়তন কার্যকরভাবে আগমন ও প্রস্থানের কার্যক্রমকে সীমাবদ্ধ করে।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Manchester – EGCC"Nats-uk.ead-it.com। সংগ্রহের তারিখ ৪ এপ্রিল ২০১০ 
  2. "Aircraft and passenger traffic data from UK airports"UK Civil Aviation Authority। ১১ মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১১ মার্চ ২০১৭ 
  3. "Live Search Maps"। Microsoft। 
  4. "Manchester Airport is 'ready' for A380 Super Jumbo"। BBC News। ১৯ আগস্ট ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  5. "Frankfurt with almost 300 destinations and Paris CDG with over 100 airlines lead global analysis of airport operations in S17"anna aero। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৭ 
  6. Scholefield 1998, পৃ. 10
  7. "Timetable recast: too much, too quickly"Railway Gazette। ৪ জুন ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  8. "Two years on Site | Manchester Airport Transformation Programme"Manchester Airport (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ আগস্ট ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১ নভেম্বর ২০১৯ 
  9. "One Year on Site"Manchester Airport। ১৭ আগস্ট ২০১৮। 
  10. "Transport Committee Written evidence from Manchester Airports Group (AS 44)"। Parliament of the United Kingdom। ১৯ অক্টোবর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৩ 
  11. "Wayback Machine"। ১৯ মার্চ ২০১৫। ১৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]