যুক্তিবিদ্যার ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ্যারিস্টটল

যুক্তিবিদ্যার ইতিহাস গ্রহণযোগ্য সিদ্ধান্তের উন্নয়ন বিষয়ক চর্চার সাথে জড়িত।আনুষ্ঠানিকভাবে যুক্তিবিদ্যার উন্নতি হয় ভারত,চীন এবং গ্রীস-এ আদিযুগে। গ্রিক পদ্ধতি যা মূলত এরিষ্টটটেলীয় যুক্তিবিদ্যা(বা শর্তাধীন যুক্তিবিদ্যা) তা একটি এমন পদ্ধতি যার সুদূরপ্রসারী ব্যবহার ও গ্রহণযোগ্যতা পাওয়া যায় পশ্চিমা বিজ্ঞান এবং গণিতে সহস্র বছর যাবৎ।স্টোইকস্,বিশেষত চাইরাসিপাস প্রমূখ বিধেয় যুক্তিবিদ্যার উন্নয়ন শুরু করেন।
খ্রিষ্টীয় এবং ইসলামীয় দার্শনিকগণ যেমন বইথিয়াম(মৃত্যু ৫২৪ অব্দ) এবং উইলিয়াম অব ওকহেম(মৃত্যু ১৩৪৭ অব্দ) মধ্যযুগে আরিষ্টটটেলীয় যুক্তিবিদ্যার প্রভূত উন্নয়ন করেন যা ১৪-শতকের মাঝথানে উচ্চ অবস্থানে পৌঁছে যায়।১৪-শতকের এর মাঝ থেকে ১৯-শতকের প্রারম্ভ পর্যন্ত সময়কালে যুক্তিবিদ্যাকে বহুলভাবে অগ্রাহ্য করা হয় যার জন্য একে একজন ইতিহাসবিদ বন্ধ্যা সময়কাল হিসেবে আখ্যা দেন। সাম্রাজ্যীয় প্রথাই তখন চলত যার তথ্যসূত্র পাওয়া যায় ১৬২০ সালে স্যার ফ্রান্সিস ব্যারন-এর নোভাস অরগানন থেকে।
যুক্তিবিদ্যা ১৯-শতকের মাঝামাঝি সময়ে যাকে পরিবর্তনের সময়কাল বলা হয় তথন আনুষ্ঠানিক ও কঠোর শৃঙ্খলায় উন্নীত হতে থাকে যার আদর্শ হলো গাণিতিক প্রমাণ-এর সঠিক পদ্ধতি যা গণিতে ব্যবহৃত হয়।এটি যেন একটি নব্য সুর যা গ্রিক পদ্ধতির দিকে মনোযোগ ফিরিয়ে নিয়ে যায়।আধুনিক যতিচিহ্নিক বা গাণিতিক যুক্তিবিদ্যার এই সময়কার উন্নয়ন বস্তুত মানবসভ্যতার প্রজ্ঞাব্যাঞ্জক ইতিহাস-এর একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা যাতে অবদান রাথেন বোলি,ফ্রিজ্,রাসেল এবং পিয়ান্ওগাণিতিক যুক্তির উন্নয়ন বিংশ শতকের প্রথমদিকের কিছু দশকে হয় যা মূলত গোডডেলটারস্কীর কাজের দ্বারা উদ্ভূত হয় যার তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব ছিল বিশ্লেষণী দর্শন এবং দার্শনিক যুক্তিবিদ্যায়।আরো সুনির্দিষ্টভাবে ১৯৫০-এর অগ্রবর্তী সময়কালে কিছু বিষয় যেমন কাঠামোগত যুক্তিবিদ্যা,ক্ষণস্থায়ী যুক্তিবিদ্যা,আনুসঙ্গিক যুক্তিবিদ্যা এবং আইনগত যুক্তিবিদ্যার ওপর প্রভাব ছিল।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]