মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া
মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া.png
চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
১৯৮৮ – ১৯৯০
পূর্বসূরীসুলতান আহমেদ চৌধুরী
উত্তরসূরীলিয়াকত আলী
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১ মে ১৯৩২
আগ্রাবাদ, চট্টগ্রাম
মৃত্যু২৪ জুলাই ২০১৭
ম্যাক্স হাসপাতাল, চট্টগ্রাম
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
দাম্পত্য সঙ্গীমুসলিমা বেগম
সন্তান৩ ছেলে ও ৭ মেয়ে

মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া (১ মে ১৯৩২–২৪ জুলাই ২০১৭) বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার রাজনীতিবিদ ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক যিনি সাবেক তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের গণপরিষদ সদস্য ও চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন।[১]

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া ১ মে ১৯৩২ সালে চট্টগ্রামের উত্তর আগ্রাবাদের হাজী পাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা জনাব আলী ও মাতা তামিজা খাতুন। তার স্ত্রী মুসলিমা বেগম। ৩ ছেলে ও ৭ মেয়ের জনক তিনি।[২]

রাজনৈতিক ও কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ছিলেন। দীর্ঘ সময় চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। তিনি ১৯৫৪ সালে আওয়ামীলীগে যোগদেন। ১৯৫৬ সালে আগ্রাবাদে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। ১৯৬২ সালে আগ্রাবদ ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার নির্বাচিত হন। ১৯৬৪ সালে চট্টগ্রাম মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের দক্ষিণ আগ্রাবাদ ওয়ার্ডের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

১৯৫২ সালের বাংলা ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ১৯৫৮ সালের সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন, ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন সহ ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন।

তিনি ১৯৭০ সালের তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে গণপরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭০ সালের সংসদ সদস্য হিসেবে ১৯৭২ সালে জাতীয় সংসদে যোগদান করেন এবং চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরের প্রশাসক নিযুক্ত হন।[৩]

১৯৮৬ সালের তৃতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী সম্মিলিত বিরোধী দলের হয়ে চট্টগ্রাম-৮ আসন থেকে তৎকালীন ডেপুটি স্পিকার ও পরিকল্পনা মন্ত্রী সুলতান আহমেদ চৌধুরীকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[১][৩] তিনি ১৯৭৯ সালের দ্বিতীয় ও ১৯৯১ সালের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৮ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে পরাজিত হয়েছিলেন।[২][৪]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া ২৪ জুলাই ২০১৭ সালে চট্টগ্রামের ম্যাক্স হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত কারণে চিকিৎসাধীন মৃত্যুবরণ করেন।[২][৩][৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "৩য় জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "ইসহাক মিয়ার জীবন বৃত্তান্ত"বাংলাপোস্টবিডি.কম। ২৪ জুলাই ২০১৭। ১৩ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০২০ 
  3. নিউজ ডেস্ক (২৪ জুলাই ২০২০)। "ইসহাক মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকীতে নওফেলের শ্রদ্ধা"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ১৩ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০২০ 
  4. "ইসহাক মিঞা, আসন নং: ২৮৫, চট্টগ্রাম-৮, দল: আওয়ামী লীগ (নৌকা)"দৈনিক প্রথম আলো। ১৩ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০২০ 
  5. "আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য, ইসহাক মিয়ার মৃত্যু, প্রধানমন্ত্রীর শোক"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ২৪ জুলাই ২০১৭। ১৩ আগস্ট ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ আগস্ট ২০২০