বৃহত্তর মুম্বাই পৌর নিগম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বৃহত্তর মুম্বাই পৌর নিগম
বৃহন্মুম্বাই মহানগর পালিকা

बृहन्मुंबई महानगरपालिका
বৃ.মু.পৌ.নি-এর প্রতীকচিহ্ন
ধরন
ধরন
ইতিহাস
শুরু১৮৮৮
নেতৃত্ব
পৌরপ্রধানকিশোরী পেড়নেকর (শিব সেনা)[১][২]
উপ-পৌরপ্রধানসুহাস ওয়াডকর(শিব সেনা)[১]
পৌর অধ্যক্ষআই. এস চহল, আই.এ.এস
পুলিশ কমিশনারহেমন্ত নগরালে, আইপিএস
গঠন
আসন২২৭
চিত্র:File:BMC after 2017 election.svg
রাজনৈতিক দল
  শি.সে: ৯৭টি আসন
  ভাজপা: ৮২টি আসন
  কংগ্রেস: ৩০টি আসন
  এনসিপি: ৯টি আসন
  স.পা: ৬টি আসন
  মিম: ২টি আসন
  মনসে: ১টি আসন
নির্বাচন
সর্বশেষ নির্বাচন২০১৭
পরবর্তী নির্বাচন২০২২
নীতিবাক্য
यतो धर्मस्ततो जय: (সংস্কৃত)
যেখানে ধর্মনিষ্ঠা, সেখানে বিজয়
সভাস্থল
Bombay Municipal Corporation.JPG
পৌর নিগম ভবন
ওয়েবসাইট
portal.mcgm.gov.in

বৃহত্তর মুম্বাই মহানগর পালিকা পূর্বে বিএমসি নামে পরিচিত, মহারাষ্ট্রের রাজধানী মুম্বাইয়ের নাগরিক পরিচালনা পর্ষদ। এটি ভারতের সবচেয়ে ধনী পৌর নিগম।[৩][৪] এমসিজিএম-এর বার্ষিক বাজেট ভারতের কয়েকটি ছোট রাজ্যের তুলনায় বেশি হয়ে থাকে। ১৮৮৮ সালে বোম্বাই পৌর নিগম আইনের অধীনে সংস্থাটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।[৫] মুম্বাই শহর এবং এর কয়েকটি শহরতলির নাগরিক অবকাঠামো এবং প্রশাসনের দায়িত্ব এই সংস্থাটির।

পরিচালনা[সম্পাদনা]

এমসিজিএম-এর নেতৃত্বে একজন আইএএস আধিকারিক থাকেন, যিনি কার্যনির্বাহী পৌর অধ্যক্ষ হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। বুনিয়াদি নাগরিক অবকাঠামো এবং অন্যান্য প্রাথমিক দায়িত্ব পালনের দায়িত্বপ্রাপ্ত নগরসেবকদের নির্বাচিত করার জন্য একটি পঞ্চমবার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। মেয়র সাধারণত সসংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া দল থেকে নির্বাচিত হন এবং সংস্থাটির প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। বিএমসির সমস্ত প্রশাসনিক কাজ ২০০৮ সালের জুন পর্যন্ত মারাঠি ভাষায় পরিচালিত হয়, যার কারণে বিতর্ক ছাড়িয়ে পড়ে,[৬] যার কারণে বিএমসির ভাষানীতিতে কিছুটা শিথিলতা আনা হয় এবং ইংরেতি ভাষাতেও ফর্ম গ্রহণ করা শুরু হয়[৭]

পৌর কর্মকর্তাগণ
মেয়র কিশোরী পেড়নেকর[৮] ২২ নভেম্বর ২০১৯
উপ-পৌরপ্রধান সুহাস ওয়াড়কর ২২ নভেম্বর ২০১৯
পৌর অধ্যক্ষ ইকবাল সিং চহল [৯] ০৮ মে ২০২০
পুলিশ কমিশনার হেমন্ত নগরালে ১৭ মার্চ ২০২১

ব্যবস্থাপক-সভা[সম্পাদনা]

২০১৭ সাল পর্যন্ত, এমসিজিএম-এর ব্যবস্থাপক-সভা ২২৭ জন সদস্য নিয়ে গঠিত। ২০১৭ সালেই সর্বপ্রথম কোনও একটি ওয়ার্ড (১৬৪) থেকে ৩০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ২১ বছর বয়সী রাঘবেন্দ্র সিং ছিলেন সবচাইতে কম বয়সী নির্দল প্রার্থী। এমসিজিএম এশিয়ার অন্যতম ধনী পৌর নিগম।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

[১]

  1. "Shiv Sena's Kishori Pednekar named Mumbai mayor" 
  2. "किशोरी पेडणेकर मुंबईच्या नव्या महापौर" 
  3. "BMC to open green channel for octroi"। Financialexpress.com। ২০০৭-০৯-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-২৫ 
  4. "Gold & beautiful, News - Cover Story"। Mumbai Mirror। ২০১২-০৯-০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৭-২১ 
  5. "BMC-Act-1888.pdf" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০১-১২ 
  6. "From today. MCGM will do business only in Marathi"The Times of India। ২০০৮-০৬-২৫। ২০১১-০৮-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-২৫ 
  7. "BMC drops only marathi clause, to accept forms in english"Hindustan Times। ২৮ জানুয়ারি ২০১২। 
  8. "Shiv Sena leader Kishori Pednekar elected Mayor of BMC"DDNews.Gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১৯ 
  9. "BMC Commissioner Praveen Pardeshi Replaced; Iqbal Chahal Becomes The New Commissioner Of Mumbai"MumbaiLive। সংগ্রহের তারিখ ৮ মে ২০২০ 
  10. Mishra, Sohit (২০১৭-০২-২১)। "BMC Elections 2017: Complete fact sheet of Asia's richest civic corporation"India.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-৩১