ভারতে সন্ত্রাসবাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

'ভারতে সন্ত্রাসবাদ তার সীমান্ত রেখা নিয়ে অনেক অল্পবিস্তর সংঘাতকে মূল উৎস রূপে গণ্য করা যায়।বর্তমানে ভারতে জম্মু এবং কাশ্মীর, মুম্বাই, মধ্য ও মধ্য-পূর্ব ভারতের(নকশাল) এবং উত্তর-পূর্ব ভারতের সপ্ত কন্যার রাজ্য অঞ্চলেতে প্রধান উগ্রপন্থী বা সন্ত্রাসবাদী ক্রিয়াকলাপ হচ্ছে।[১][২] অতীতে, পাঞ্জাবে খালিস্থানী সন্ত্রাস ও রাজধানী দিল্লীর ( শিখ-বিরোধী দাঙ্গা) উগ্রপন্থী বা সন্ত্রাসবাদী ক্রিয়াকলাপ হয়েছে। বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন, অতি-মৌলবাদী ধারমিক সন্ত্রাসবাদী (প্রধানত মুসলিম সন্ত্রাসবাদী ) , বামপন্থী সন্ত্রাসবাদী ও তস্কর তথা চোরাচালানকারী সন্ত্রাসবাদী মুলতঃ এই চারপ্রকারে ভারতীয় সন্ত্রাসবাদীদের চিহ্নিত করা হয়ে থাকে। ২০১৩ সালের হিসেবে, দেশের ৬০৮ জেলার মধ্যে ২০৫ জেলায় বিভিন্ন বিদ্রোহ এবং উগ্রপন্থী আন্দোলনের ফলে বিভিন্ন মানুষ পীড়িত ছিল। ২০১২ সালে ভারতে সন্ত্রাসী হামলায় ২৩১ জন নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে যেখানে বিশ্বজুড়ে সৃষ্ট সন্ত্রাসী হামলায় ১১০৯৮জন ব্যাক্তির মৃত্যু ঘটেছে। অর্থাৎ বিশ্বের ১৭'৫% জনসংখ্যা বিশিষ্ট দেশে সন্ত্রাসের ফলে মৃতের সংখ্যা সারা বিশ্বে সন্ত্রাসের ফলে মৃতের সংখ্যার ২%। [৩]

সন্ত্রাসবাদের সংঙ্গা[সম্পাদনা]

ভারত সরকার, সন্ত্রাসবাদের নিম্নলিখিত সংজ্ঞা ব্যবহার করে যা বেশীর ভাগ দেশেও ব্যবহৃত হয় এবং যার খসড়া জাতিসংঘ-এ ১৯৮৮ সালে সিমিড ও জঙ্গম্যান (Schmid & Jongman) বানিয়েছিলেন-"সন্ত্রাসবাদ হল এমন এক উদ্বেগ-তারিত হিংস্র বর্বর পন্থা যার উদ্দেশ্য হল ছদ্মগোপনে থেকে ব্যাক্তিগত ভাবে, বা দলগত ভাবে বা সন্মিলিত ভাবে কোনো স্বৈরাচারী ব্যাক্তির জন্য বা অপরাধীমুলক কা‌‌‍র্যসিদ্ধির জন্য বা রাজনৈতিক কারনের জন্য সরাসরি প্রধান উদ্দেশ্যকে ব্যাতিরেকে হিংসা ছড়ানো। সাধারনতঃ নিজের বা নিজেদের কোনো উদ্দেশ্য প্রকাশের জন্য যথেচ্ছভাবে ( সুযোগবুঝে) বা বেছেবেছে (সাংকেতিক হিষাবে) একটি জনসমূহকে বেছে নেওয়া হয়৷ সন্ত্রাসবাদীদের পক্ষ থেকে হুমকি, বলপ্রয়োগ বা স্ব-প্রচারের উদ্দেশ্যে ভয় এবং হিংসা-মিশ্রিত এমন এক সংবাদ পাঠানোর চেষ্টা চলে যাতে প্রধান উদ্দেশ্যকে (নাগরিক সমাজ) তাদের(সন্ত্রাসবাদীদের) দাবির প্রতি মনোনিবেশ করে।"[৪]

ভারতের সন্ত্রাসবাদী সংগঠন[সম্পাদনা]

ভারতের নিষিদ্ধ সংগঠনগুলির তালিকা

SATP (South Asian Terror Portal) র ঘোষনা অনুসারে ভারতে প্রায় ১৮০ টির ও বেশী সন্ত্রাসবাদী সংগঠন সক্রিয় আছে। এদের বেশীরভাগ ভারতের প্রতিবেশী রাষ্ট্রের মধ্যে থেকে সক্রিয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. John Philip Jenkins (সম্পাদক)। "Terrorism"Encyclopædia Britannica। সংগৃহীত ১১ আগস্ট ২০০৬ 
  2. "Terrorism"The American Heritage Dictionary of the English Language (4th edition সংস্করণ)। Bartleby.com। ২০০০। সংগৃহীত ১১ আগস্ট ২০০৬ 
  3. http://www.state.gov/documents/organization/210288.pdf
  4. Schmid & Jongman (1988), Political terrorism: a new guide to actors, authors, concepts, data bases, theories and, literature; ISBN 0-444-85659-5

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]