বিভাস রায়চৌধুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বিভাস রায়চৌধুরী
২০১৮ সালে বিভাস রায়চৌধুরী
২০১৮ সালে বিভাস রায়চৌধুরী
জন্ম (1968-08-01) ১ আগস্ট ১৯৬৮ (বয়স ৫১)
বনগাঁ, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত
পেশাকবি, ঔপন্যাসিক, প্রাবন্ধিক
ভাষাবাংলা
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগোবরডাঙ্গা হিন্দু কলেজ
উল্লেখযোগ্য পুরস্কারকৃত্তিবাস পুরস্কার (১৯৯৭), বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার (২০১৩), নির্মল আচার্য স্বর্ণপদক
দাম্পত্যসঙ্গীকাকলি রায়চৌধুরী
সন্তানমৃত্তিকা শবনম রায়চৌধুরী

স্বাক্ষরBibhas Roychowdhury

বিভাস রায়চৌধুরী (জন্ম: ১ আগস্ট ১৯৬৮) একজন বাঙালি কবি, ঔপন্যাসিক এবং প্রাবন্ধিক। তিনি বিভিন্ন বাংলা সাহিত্য পত্রিকায় পাঁচটি উপন্যাস এবং অসংখ্য প্রবন্ধসহ কুড়িটিরও বেশি গ্রন্থের রচয়িতা। তিনি ২০১৩ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার (পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমি) সহ,[১] কৃত্তিবাস পুরস্কার (১৯৯৭) এবং কবিতার জন্য নির্মল আচার্য স্বর্ণপদক পেয়েছেন। তাঁর কয়েকটি কবিতা ইংরেজিতে অনুবাদ করেছেন সুপরিচিত কবি ও অনুবাদক ডঃ কিরীটী সেনগুপ্ত। হাওয়াকাল পাবলিশার্স (কলকাতা) এর সহযোগিতায় ইনার চাইল্ড প্রেস (নিউ জার্সি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) প্রকাশ করেছে পোয়েম কন্টিনিউয়াস: রিইনকারনেটেড এক্সপ্রেশন (২০১৪)।[২] তিনি কবিতা আশ্রম নামে বাংলা সাহিত্য পত্রিকার অন্যতম প্রধান উপদেষ্টা, এবং বঙ্গ নাট্য চর্চা কেন্দ্র 'নামে একটি থিয়েটার দলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও পরিচালক। তিনি এখন একটি প্রকাশনা সংস্থায় কাজ করেন।

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

রায়চৌধুরী ১৯৬৮ সালের ১লা আগস্ট ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার সীমান্ত শহর বনগাঁর বিহুতিপল্লীতে একটি শরণার্থী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার বাবা-মা শ্যামদুলাল রায় চৌধুরী এবং বিথিকা রায় চৌধুরী ছিলেন মূলত বাংলাদেশের মানুষ। বঙ্গভঙ্গের পর, অবিভক্ত বাংলাদেশে ধনী পরিবার হয়েও, তারা ঘরছাড়া ও নিঃস্ব হয়ে পড়েছিলেন, এবং পূর্ণ-সময়ের শ্রমিক হয়ে বনগাঁতে বসবাস করতে থাকেন। রায়চৌধুরী বনগাঁ উচ্চ বিদ্যালয়, এবং গোবরডাঙ্গা হিন্দু কলেজে পড়াশুনো করেন। স্নাতক হবার পরে, চরম দারিদ্র্যের কারণে তিনি তার উচ্চশিক্ষা চালিয়ে যেতে পারেননি। শৈশবকাল থেকেই তিনি সংগীত, নাটক এবং কবিতায় গভীরভাবে আগ্রহী ছিলেন। তিনি গোবরডাঙা হিন্দু কলেজের বাংলা সাহিত্যের একজন শিক্ষক ঊষাপ্রসন্ন মুখোপাধ্যায়ের কাছ থেকে এবং কবি শুভঙ্কর পাত্রের কাছ থেকে কবিতা শিখেছিলেন। পরে বিনয় মজুমদার তার পরামর্শদাতা ছিলেন।

বিভাস রায়চৌধুরী ২০১৮ সালে উত্তরবঙ্গে

পেশাগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৮০-এর দশকে রায়চৌধুরীর কবিতা নিয়মিতভাবে দৈনিক বসুমতী, কৃত্তিবাস, কবিসম্মেলন এবং দেশের মতো বেশ কয়েকটি বাংলা সাহিত্যে প্রকাশিত হত।[৩] তার প্রথম কবিতা সংগ্রহ, নষ্ট প্রজন্মের ভাষণ, ১৯৯৬ সালে কলকাতা বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছিল। তিনি উদ্বস্তু শিবিরের পাখি (১৯৯৬), শিমুল ভাষা, পলাশ ভাষা (১৯৯৯), জীবনান্দের মেয়ে (২০০২), চণ্ডালিকা গাছ (২০০৬), অনন্ত আশ্রম (২০১৫) ইত্যাদি অনেক কবিতার বই প্রকাশ করেছেন। তার উপন্যাস অশ্রূধারা প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ২০০২ সালের ৪ নভেম্বর দেশ পত্রিকায়। তার কবিতাগুলি কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী সম্পাদিত হীরক খণ্ডে সংকলিত হয়েছে।[৪]

শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের সাথে বিভাস রায়চৌধুরী

লিখন শৈলী[সম্পাদনা]

রায়চৌধুরী বলিষ্ঠ ভাষায় জীবন থেকে লেখেন, তিনি ছন্দোময় এবং গদ্যকবিতা উভয় মাধ্যমেই সিদ্ধহস্ত। তার কবিতায়, তিনি প্রায়শই জীবনের আনন্দ এবং দুঃখ অন্বেষণ করেন, যার মধ্যে থাকে বঙ্গভঙ্গের পরিণতি, শরণার্থী-জীবনের সংগ্রাম, মাতৃভাষার জন্য ভালবাসা এবং তার নিজের মানুষের কষ্ট। তার সাম্প্রতিক কবিতার বই, যশোর রোডের গাছ (যশোরের রাস্তার উভয় পাশের গাছগুলি), স্বার্থপরতা ও লোভের কারণে গাছের পতন, দূষণ এবং ধ্বংসের বর্ণনা দেয়। তিনি 'সাধারণ মানুষের ভাষা' ব্যবহার করেন তবে তার রূপকগুলি পাঠকদের উপর এক গা ছমছমে প্রভাব ফেলে।[৫] তিনি মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্যে জনপ্রিয় একটি একটি ছন্দোবদ্ধ ধরন, পয়ার ছন্দসহ সকল ধরনের কাব্যিক আকারে লেখেন। তার কাব্যিক যাত্রার প্রথম দিকে তিনি জয় গোস্বামী, শ্যামল কান্তি দাস, মৃদুল দাশগুপ্ত এবং নির্মল হালদার প্রভৃতি ১৯৭০ এর প্রখ্যাত বাঙালি কবি দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন।[৬]

আন্তর্জাতিক কবিতা দিবসে কলকাতার জীবনান্দ শব্দঘরে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিভাস রায়চৌধুরী (ডানে)
২০১৮ সালের কলকাতা গ্রন্থ মেলায় পঠনরত বিভাস রায়চৌধুরী

সমালোচকদের প্রশংসা[সম্পাদনা]

রায়চৌধুরীর রচনাগুলি প্রথম দিকে তাকে ব্যাপক প্রশংসা দিয়েছে। বাঙালি কবি জয় গোস্বামী তার প্রশংসা করে বলেছিলেন যে "তিনি নতুন ক্ষমতায়নের কবি", এবং সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় বলেছিলেন যে "বিভাসের কবিতা জীবিকা ও সংগ্রামকে অনেক সহায়তা করেছে। তাঁর কবিতায় বাংলাদেশ সমৃদ্ধ হয়েছে ”।[৭]

একটি মিউজ ইন্ডিয়া পর্যালোচনা (সংখ্যা ৫৮, নভেম্বর-ডিসেম্বর ২০১৪) বলেছে, "রায়চৌধুরীর বিষয় সংক্রান্ত পথ মৃত্যু চিন্তার মাইলফলককে স্পর্শ করে, যা প্রতিভাত হয় বিশাল, প্রতীয়মান স্মরণবেদনা এবং প্রয়োজনীয় কাব্যিক দুঃখের আনন্দ থেকে, সমস্তটা আলোকিত থাকে বাঙালীত্ব দিয়ে পাঠকদের সাথে তাদের সৃষ্টি এবং সম্ভাব্য গন্তব্য সম্পর্কে যোগাযোগ করার দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে। রায়চৌধুরী কোনও একঘেয়ে কাব্যিক ভিত্তির উপর জোর দেন না: পরিবর্তে তাঁর স্বাচ্ছন্দ্যময় মেজাজ পাঠকদের সাথে একটি দ্রুত বন্ধন তৈরি করে, এবং কেনই বা নয়? বাঙালিরা যেভাবে ভাবে তিনি সেভাবেই চিন্তা করেন, তিনি বাঙালির অভ্যাসগত কবিতা চিন্তায় কণ্ঠ দেন। এই বিরল শ্রেষ্ঠত্ব তাঁর রচনার প্রতিটি অংশকেই বৈশিষ্ট্যযুক্ত করেছে যা কবিতাপ্রেমীদের আনন্দ দেয়"।[৮]

ফক্স চেজ রিভিউ বলছে, "বিভাসের কণ্ঠটি অন্তর্নিহিত আবেগের সাথে স্পন্দিত হয়... এটি বিষাদগ্রস্থ হলেও আশায় আচ্ছন্ন... বলিষ্ঠ কথা তবে সংবেদনশীলতায় ভরা... এটি কবির হৃদয়ের একাকীত্ব এবং ব্যথার প্রতিচ্ছবি। কাফকার উদ্ধৃতি মত, “(তার) কলম হ'ল (তার) হৃদয়ের ভূকম্পলিক।” আমি বুঝতে পারি যে এই কবিতাগুলি অলস পাঠের জন্য নয়। আমি সেগুলি একবার পড়েছি, আমি এগুলি আবার পড়ি এবং তারপরে আবারও প্রত্যেকবার তাদের অসামান্যতা সম্পর্কে আরও গভীরভাবে ডুবে যাই, তাদের স্পর্ধিত জটিলতা এবং একটি ‘আহা’ অনুভূতি নিয়ে সামনে আসে। এটিই এই কবিতাগুলির সৌন্দর্য... এগুলি আপনাকে ডগা ছাড়িয়ে নিজের অভ্যন্তরীণ মূলটিতে পিষে ফেলে এবং এর ফলে আপনার নিজের গভীর বিবেচনায় নিয়ে যায় এবং নিজের আত্মার সংজ্ঞা দিয়ে কথোপকথন করে।"[৯][ভাল উৎস প্রয়োজন]

রেড ফেজ ম্যাগাজিন বলছে (৩ সংখ্যায়), "এই পাঠ্যে প্রদত্ত কবিতাগুলিতে বিষন্নতার অন্তর্নিহিত উপস্থিত রয়েছে। তবে কবির উচ্ছ্বসিত আশাবাদ মনোমুগ্ধকরভাবে সামনে আসে। বিষন্নতার উৎস আশার উদ্দীপনাকে মেঘাবৃত করেনা যা এখানে প্রমাণিত। এই বইটি কেন এত আবেদনময়, সম্ভবত, এটি সেটিকে ব্যাখ্যা করে। কোথাও উপস্থাপনাটিতে ব্যঙ্গ বা একঘেয়েমি নেই।[১০]

কলকাতার মহেশতলা কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রধান এবং সহযোগী অধ্যাপক রুম্পা দাস লিখেছেন (কালি ঘাম এবং অশ্রু সম্বন্ধে), "রায়চৌধুরীর কবিতা পড়া যা তাঁর চিন্তাভারাক্রান্ত আত্মার গন্ধ - বিভাজনের ব্যাপক হত্যাকাণ্ডের প্রতি তাঁর বিরক্ত প্রতিক্রিয়া (ভাটিয়ালীতে), আজকের সমাজে কবির দুর্দশা সম্পর্কে তাঁর বেদনাদায়ক সচেতনতা এবং প্রাক-শর্তযুক্ত ভূমিকা অনুসারে প্রত্যাখ্যান (বিভাসে) বা তার সম্পর্কের ব্যাখ্যা যেমন অন্তরঙ্গ অভিজ্ঞতা হিসাবে স্নান করার সময় শরীরে জলের ফোঁটার সোহাগ (আশ্রমে) – এই সব আমাদের জাগিয়ে তোলে, তাঁর পাঠকরা, যেমন সম্ভবত কিরীটী [সেনগুপ্ত] অনুভব করেছিলেন, সামনে জীবনের তীব্র রোমাঞ্চ … এমন একটি জীবনের যেখানে প্রতিটি মুহুর্ত অগণিত জীবনকে ঘিরে থাকে, কিছু বেদনার মতো গাঢ় রঙের, আবার কিছু সন্ধ্যা বৃষ্টির মতো রহস্যময়।"[১১]

২০১৩ সালের একটি সেমিনারে রায়চৌধুরী, কবি সুবোধ সরকারের ঠিক পাশে, বামদিক থেকে দ্বিতীয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. see Hirak Sangraha by Nirendranath Chakraborty, Kabi Porichiti, page-154
  2. Roychowdhury, Bibhas। "Poem continuous:Reincarnated Expression"The telegraph। Inner Child Press। ৪ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১৮ 
  3. Desh, Magazine। "Desh Mgazine"ABP। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১৮ 
  4. Chakraborty, Nirendranath। Hirak Sangraha (first সংস্করণ)। Kolkata: Ananda। পৃষ্ঠা 137। আইএসবিএন 978-93-5040-829-2 
  5. Goswami, Joy। Gonsaibagan,Vol.2। Kolkata: Prativas। পৃষ্ঠা see page–193। 
  6. Roychowdhury, Bibhas। Poem Continuous:Reincarnated Expression। New Jersey,U.S.A: Inner Child Press Lmt.। পৃষ্ঠা see -68। 
  7. Halder, Santanu (২০১৪-০৭-১১)। "Bibhas Roy Chowdhury's Poetic Journey Continues"Boloji। ২০১৮-০৬-১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-০৮ 
  8. Poem Continuous:Reincarnated Expression review, by Muse India। at epilogue of the book ,issue58 ,2014 (second সংস্করণ)। U.S.A: Inner Child Press। পৃষ্ঠা see 71–72। আইএসবিএন 978-0692529874 
  9. Roy Chowdhury, Bibhas। Poem Continuous:Reincarnated Expression। U.S.A: Inner Child Press। পৃষ্ঠা 76। আইএসবিএন 978-0692529874 
  10. Mouli, T.S.Chandra (নভেম্বর ২০১৪)। "BOOKS: Poem Continuous by Bibhas Roy Chowdhury"Red Fez (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-০৮ 
  11. Roy Chowdhury, Bibhas। "Poem continuous"ink sweat and tears। IST। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৮