ফারুক আহমেদ চৌধুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফারুক আহমেদ চৌধুরী
ফারুক আহমেদ চৌধুরী.jpg
ভারতে বাংলাদেশী হাই কমিশনের রাষ্ট্রদূত
কাজের মেয়াদ
১৯৮৬ – ১৯৯২
Foreign Secretary
কাজের মেয়াদ
১০ অক্টোবর ১৯৮৪ – ১৭ জুলাই ১৯৮৬
পূর্বসূরীএ এইচ আতাউল করিম
উত্তরসূরীFakhruddin Ahmed
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম(১৯৩৪-০১-০৪)৪ জানুয়ারি ১৯৩৪
সিলেট,আসাম,ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যুমে ১৭, ২০১৭(2017-05-17) (বয়স ৮৩)
ঢাকা, বাংলাদেশ
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
দাম্পত্য সঙ্গীজিনাত চৌধুরী
সন্তানপুত্র ও কন্যা
বাসস্থানDhaka & Sylhet

ফারুক আহমেদ চৌধুরী (৪ জানুয়ারি ১৯৩৪[১] - ১৭ মে ২০১৭) ছিলেন একজন বাংলাদেশী কূটনীতিক[২] তিনি ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের প্রথম প্রধান প্রোটোকল, ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত পররাষ্ট্রসচিব এবং ১৯৮৬ থেকে ১৯৯২ পর্যন্ত ভারতে হাই কমিশনার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।[৩] সাহিত্যে অসামান্য অবদান রাখায় ২০১৫ সালে তিনি বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারে ভূষিত হন।

প্রাথমিক ও কর্মজীবন[সম্পাদনা]

চৌধুরী ১৯৩৪ সালের ৪ জানুয়ারি ব্রিটিশ ভারতের আসামের করিমগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈতৃক নিবাস সিলেট জেলায়[১][৪] ১৯৫৬ সালে, চৌধুরী কূটনীতিক হিসাবে পাকিস্তানের ফরেন সার্ভিসে প্রবেশ করেন (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান নামে পরিচিত বাংলাদেশ তখন দেশের অংশ ছিল)। [৩] তিনি পররাষ্ট্র অফিস এবং পার্কস্থানীয় বেশ কয়েকটি দূতাবাসের মধ্যে বেশ কয়েকটি অ্যাপয়েন্টমেন্ট রেখেছিলেন।

বাংলাদেশ ফরেন সার্ভিস[সম্পাদনা]

১৯৭২ সালে, চৌধুরী পাকিস্তানের কাছ থেকে দেশটির স্বাধীনতার পর, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরে বাংলাদেশের প্রথম প্রোটোকল প্রধান হিসাবে নিযুক্ত হন।[৩]

১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত চৌধুরী যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের ডেপুটি হাই কমিশনার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন, যেখানে তিনি ১৯৭২ সালে কমনওয়েলথে বাংলাদেশের প্রবেশের জন্য আলোচনায় অংশ নিয়েছিলেন।[৩] এরপরে চৌধুরী ১৯৭৬ থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত বাহরাইনসংযুক্ত আরব আমিরাতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসাবে নিযুক্ত হন। এরপরে তিনি ১৯৭৮ সাল থেকে ১৯৮২ অবধি ইউরোপীয় অর্থনৈতিক সম্প্রদায় (ইসি) এবং বেনেলাক্স দেশগুলি - বেলজিয়াম, লাক্সেমবার্গ এবং নেদারল্যান্ডস - উভয়ের পক্ষে স্বীকৃত রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

চৌধুরী ১৯৮২ সালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে স্বরাষ্ট্র দফতরে ফিরে আসেন।[৩] তিনি ১৯৮২ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত ১৩ তম ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সভার প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন। এরপরে তিনি ১৯৮৩ থেকে ১৯৮৪ পর্যন্ত অতিরিক্ত পররাষ্ট্রসচিবের পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন।

ফারুক চৌধুরীকে ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত পররাষ্ট্র সচিব হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল, পররাষ্ট্র মন্ত্রকের সর্বোচ্চ পদস্থ অ-রাজনৈতিক কর্মকর্তা ছিলেন।[৩]

চৌধুরী ১৯৯২ সালে পররাষ্ট্র মন্ত্রক থেকে অবসর গ্রহণ করেন। [৩] তিনি অবসর গ্রহণের সময় বেশ কয়েকটি বই লিখেছিলেন এবং সামাজিক কারণগুলিতে মনোনিবেশ করেছিলেন। তিনি ১৯৯২ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিশ্বের বৃহত্তম বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা বাংলাদেশ পল্লী অগ্রগতি কমিটিতে (ব্র্যাক) দায়িত্ব পালন করেছিলেন।[১]

২০১৪ সালে, চৌধুরী সামাজিক এবং রাজনৈতিক বিষয়ে লেখার জন্য আইএফআইসি ব্যাংক সাহিত্য পুরষ্কারে ভূষিত হন। [১] তিনি ২০১৫ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরষ্কারও পেয়েছিলেন।[৪]

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

ফারুক চৌধুরী রচিত উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে-

  • মহাক্ষুধা
  • অনাবিল মুখচ্ছবি
  • গতকাল সমকাল
  • বিপন্ন পৃথিবী
  • সময়ের আবর্তে
  • অদ্ভুত সৃজনশীলতা
  • স্বদেশ স্বকাল স্বজন
  • স্মরণে বঙ্গবন্ধু
  • দেশ দেশান্তর
  • জানালায় নানা ছবি
  • জীবনের বালুকাবেলায়
  • রবীন্দ্রনাথ:শান্তির দূত
  • আমার কৈশোর আমার তারুণ্য
  • প্রিয় ফারজানা
  • দ্য এইজ অব ক্রাইসিস
  • নানাক্ষণ নানা কথা
  • বিজ্ঞান দেখি চারধার
  • ভেনিজুয়েলা:রূপান্তরের লড়াই
  • মহা আর্থিক সংকট:কারণ ও পরিণতি
  • বাজার ও গণতন্ত্র
  • বাজার ও বৈষম্য
  • গ্রাম বাংলার অর্থনীতি পুনর্গঠন
  • Micro Credit Myth Manufacturer

মৃত্যু[সম্পাদনা]

চৌধুরী ২০১৭ সালের ১৭ মে স্কয়ার হাসপাতালে[৩] ৮৪ বছর বয়সে মারা যান।[৩][৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Faruq Ahmed Choudhury obituary"Bangladesh Rural Advancement Committee। ২০১৭-০৫-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-০৩ 
  2. name="dtribune">"Diplomat Faruq Ahmed Choudhury passes away"Dhaka Tribune। ২০১৭-০৫-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-০৩ 
  3. "Diplomat Faruq Ahmed Choudhury passes away"Dhaka Tribune। ২০১৭-০৫-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-০৩ 
  4. "Former foreign secy Faruq Chowdhury dies"News Bangladesh। ২০১৭-০৫-১৭। ২০১৭-০৫-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-০৩