ফাই ডি'সুজা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ফাই ডি'সুজা
Faye D'Souza (cropped).jpg
২০১৭ সালে ফাই ডি'সুজা
জন্ম
ফাই ডি'সুজা

৮ অক্টোবর ১৯৮১
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাসংবাদ উপস্থাপক
কর্মজীবন২০০৩–বর্তমান
প্রতিষ্ঠানবুম

ফাই ডি'সুজা (জন্ম: ৮ই অক্টোবর ১৯৮১) হলেন একজন ভারতীয় সাংবাদিক এবং একজন টেলিভিশন সংবাদ উপস্থাপক। তিনি দ্য টাইমস গ্রুপের মালিকানাধীন চ্যানেল মিরর নাউ-এর নির্বাহী সম্পাদক হিসাবে কাজ করেছেন।[১] তিনি দ্য আরবান ডিবেট অন মিরর নাউ অনুষ্ঠানটির উপস্থাপনার করার মধ্য দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন, যেখানে তিনি দুর্নীতি, সাম্প্রদায়িক সহিংসতা এবং স্বতন্ত্র মাধ্যমে বিষয়গুলোতে আলোকপাত করেছেন।[২] ডি'সুজা এর আগে সিএনবিসি টিভি১৮-এর নিউজরুমের একজন সদস্য ছিলেন। এছাড়াও তিনি ইটি নাউ চ্যানেলে প্রচারিত ইনভেস্টর'স গাইড নামক অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করার পাশাপাশি উক্ত অনুষ্ঠানের সম্পাদকীয় কাজে সহায়তা করেছেন।[৩]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ফাই ডি'সুজা ১৯৮১ সালের ৮ই অক্টোবর তারিখে ভারতের কর্ণাটকের চিকমাগালুরে জন্মগ্রহণ করেছেন। তাঁর জন্মস্থান ম্যাঙ্গালোর হলেও তিনি বেঙ্গালুরুতে তাঁর শৈশব অতিবাহিত করেছেন। তিনি বেঙ্গালুরুর মাউন্ট কার্মেল কলেজ হতে সাংবাদিকতা বিষয়ে অধ্যয়ন করেছেন[৪] এবং সাংবাদিকতা এবং ইংরেজি সাহিত্য বিভাগ হতে স্নাতক এবং গণ যোগাযোগে বিভাগ হতে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তিনি বেঙ্গালুরুতে কমিটস থেকে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেছেন।[৫][৬]

পেশা[সম্পাদনা]

ডি'সুজা পড়াশোনা করার সময়েই অল ইন্ডিয়া রেডিও-এ সাংবাদিকতা কাজ দিয়ে তাঁর কর্মজীবন শুরু করেছিলেন।[২] এরপরে তিনি ২০০৩ সালে সিএনবিসি টিভি ১৮-তে একজন স্নাতকোত্তর সাংবাদিক হিসাবে কাজ করা শুরু করেন এবং পরবর্তীতে মিউচুয়াল ফান্ড, বীমা এবং ব্যক্তিগত অর্থ-এর মতো বিষয়ে সংবাদ প্রচার শুরু করেন।[৪] তিনি ইটি নাউ-এ তিনটি সাপ্তাহিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেছেন; যেগুলো হচ্ছে: ইনভেস্টর'স গাইড, অল অ্যাবাউট স্টকস এবং দ্য প্রপার্টি গাইড[৫]

দ্য টাইমস নেটওয়ার্ক ২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে একটি ইংরেজি নিউজ চ্যানেল মিরর নাউ উদ্বোধন করেছে। ডি'সুজাকে উক্ত চ্যানেলের বরিষ্ঠ সম্পাদক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। তিনি মিরর নাউ-এর অন্যতম জনপ্রিয় অনুষ্ঠান, দ্য আরবান ডিবেট-এর উপস্থাপনা করেছেন। তাঁর মতে "আমাদের সকলের উচিত উদাসীনতা, অদক্ষতা এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে অস্বস্তিকর স্পটলাইট জ্বালানো, যার জন্য আজ আমরা ভারতীয় হিসাবে সবচেয়ে বেশি সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছি"।[৭]

২০২০ সালের জানুয়ারি মাসে, ফাই ডি'সুজা ফায়ারওয়ার্ক নামে একটি অনলাইন ভিডিও প্ল্যাটফর্মের সাথে দল গঠন করেছিলেন, যেখানে তিনি একটি ছোট ভিডিও ক্লিপ প্রযোজনা এবং প্রকাশ করতে পারেন, যার মাধ্যমে তিনি ঘটমান বিষয় নিয়ে কথা বলতে পারেন।[৮] এই সকল ভিডিও ক্লিপের মাধ্যমে তিনি ভারতের মানুষের কাছে বিশেষত তরুণ সমাজের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন। অতঃপর তিনি তার ইনস্টাগ্রাম পেজের মাধ্যমে একটি নতুন সংবাদ অনুষ্ঠান "নিউজ দ্যাট শুড বি হেডলাইনস" চালু করে, এখানে তিনি একাধারে কয়েকটি পোস্ট প্রকাশ করেন, যেখানে তিনি সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া বেশ কিছু ঘটনা তুলে ধরেন, যেগুলো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান টেলিভিশনে প্রচার করতে দেয় না।[৯]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

২০১৮ সালে তিনি 'বর্ষসেরা সাংবাদিক' হিসেবে রেড ইঙ্ক পুরস্কার লাভ করেছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Expert profile – Faye D'Souza"। Times Now। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  2. Menon, Shruti (২০ জুন ২০১৭)। "This TV news anchor is trying to rescue news from noise"newslaundry.com। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  3. "Faye D'Souza – The times of India blog"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  4. Bhavya Dore (৩ অক্টোবর ২০১৭)। "How an anchor is winning Indian TV news without yelling"Quartz। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৭ – scroll.in-এর মাধ্যমে। 
  5. "Inspirational Women – Faye D'Souza"wearethecity.in। ৭ নভেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  6. DSouza, Faye (২০১৯-০৪-১৩)। "I was born in Chikmagalur, and I grew up in Bangalore. Mangalore is my native place"@fayedsouza (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০২-১১ 
  7. "Times network launches second general news channel"www.afaqs.com। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১৭ 
  8. "Faye D'Souza launches news channel on FireWork"INDIANtelevision। ২০২০-০১-২৩। ২০২০-০৩-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-০৪ 
  9. Upadhyay, Karishma (২০২০-০১-৩১)। "Straight talk with Faye D'Souza"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-০৪