দেপোর্তিবো লা করুনিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দেপোর্তিবো লা করুনিয়া
দেপোর্তিবো লা করুনিয়া.svg
পূর্ণ নামরিয়াল ক্লাব দেপোর্তিবো দে লা করুনিয়া, এসএডি
ডাকনামব্রাঙ্কিয়াজুইস (নীল এবং সাদা)
দেপোর্তিবো / দেপোর
তুর্কোস (টার্ক)[১][২]
এরকুলিনোস[৩]
সুপার দেপোর
প্রতিষ্ঠিত২ মার্চ ১৯০৬; ১১৪ বছর আগে (1906-03-02)
মাঠআবাঙ্কা-রিয়াজোর
ধারণক্ষমতা৩২,৬৬০[৪]
সম্মানিত সভাপতিস্পেন আদোলফো সুয়ারেস
সভাপতিস্পেন ফের্নান্দো বিদাল
প্রধান কোচস্পেন ফের্নান্দো বাসকেস
লীগসেহুন্দা দিবিসিওন বি – গ্রুপ ১
২০১৯–২০১৯তম (অবনমিত)
ওয়েবসাইটক্লাব ওয়েবসাইট
বর্তমান মৌসুম

রিয়াল ক্লাব দেপোর্তিবো দে লা করুনিয়া এসএডি (স্পেনীয় উচ্চারণ: [reˈal ˈkluβ ðepoɾˈtiβo ðe la koˈɾuɲa],[৫] ইংরেজি: Deportivo de La Coruña; এছাড়াও দেপোর্তিবো লা করুনিয় অথবা শুধুমাত্র দেপোর্তিবো করুনিয়া নামে পরিচিত) হচ্ছে গালিথিয়া ভিত্তিক একটি স্পেনীয় পেশাদার ফুটবল ক্লাব। এই ক্লাবটি বর্তমানে স্পেনের চতুর্থ স্তরের ফুটবল লীগ সেহুন্দা দিবিসিওন বি-এর গ্রুপ ১-এ খেলে। এই ক্লাবটি ১৯০৬ সালের ২রা মার্চ তারিখে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। দেপোর্তিবো লা করুনিয়া তাদের সকল হোম ম্যাচ গালিথিয়ার আবাঙ্কা-রিয়াজোরে খেলে থাকে; যার ধারণক্ষমতা হচ্ছে ৩২,৬৬০।[৬] বর্তমানে এই ক্লাবের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন ফের্নান্দো বাসকেস এবং সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন ফের্নান্দো বিদাল। স্পেনীয় মধ্যমাঠের খেলোয়াড় আলেক্স বের্গান্তিনিয়োস এই ক্লাবের অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন।

ঘরোয়া ফুটবলে, দেপোর্তিবো লা করুনিয়া এপর্যন্ত ১২টি শিরোপা জয়লাভ করেছে; যার মধ্যে ১টি লা লিগা, ২টি কোপা দেল রে এবং ৩টি স্পেনীয় সুপার কাপ শিরোপা রয়েছে। অন্যদিকে ইউরোপীয় এবং আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায়, এপর্যন্ত ১টি শিরোপা জয়লাভ করেছে; যা হচ্ছে ২০০৮ উয়েফা ইন্টারটোটো কাপ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯০২ সালে জোসে মারিও আবালা নামক এক বালক ইংল্যান্ড থেকে এসে আ করুনিয়ায় ফুটবল খেলা চালু করে, যা অচিরেই বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করে। ১৯০৬ সালে আলা কালবেত জিমনেশিয়ামের সদস্যরা এই ক্লাবটি গঠন করে। এর পর থেকে ক্লাবটি বেশ কিছু প্রীতি ও কোপা দেল রে-এর ম্যাচে অংশ নেয়। তবে ১৯২৮ সালে লীগ পদ্ধতি চালু হলে প্রথম কয়েক বছর তারা লা লিগায় উন্নিত হতে ব্যর্থ হয়। অতঃপর ১৯৪১ সালে প্রথম বারের মতো লা লিগায় উত্তীর্ণ হয়। সর্বোচ্চ স্তরে থাকাকালীন সময় ১৯৪৪ সালে তারা নিজেদের স্টেডিয়াম তৈরি করে। তার পরের বেশ কিছু বছর তারা সাফল্যের দেখা পায়নি। ১৯৪৬–৪৭ মৌসুমে তারা ২য় স্তরে অবনমিত হয়, তবে পরের বছর আবার শীর্ষ স্তরে ফিরে আসে। তারপরের দশক থেকে তাদের উত্থান-পতন চলতে থাকে। ১৯৭৩ সালে ক্লাবটি ২য় স্তরে এবং পরবর্তীতে ৩য় স্তরে অবনমিত হয়। ১৯৯১ সালে তারা পুনরায় লা লিগায় ফিরে আসে। ২০০০ সালে তাদের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় সাফল্য অর্জন করে, যেখানে তারা প্রথম বারের মতো লা লিগা শিরোপা জয় করে। প্রায় ২০ বছর সর্বোচ্চ পর্যায়ে থাকার পর ২০১০–১১ মৌসুমে তারা দ্বিতীয় স্তরে অবনমিত হয়। পরবর্তী মৌসুমগুলোতে ক্লাবটি লা লিগা এবং সেহুন্দা দিবিসিওনে অংশগ্রহণ করেছে।

সাফল্য[সম্পাদনা]

জাতীয়[সম্পাদনা]

বিজয়ী (১): ১৯৯৯-০০
বিজয়ী (২): ১৯৯৪-৯৫, ২০০১-০২
বিজয়ী (৩): ১৯৯৫, ২০০০, ২০০২
বিজয়ী (৫): ১৯৬১-৬২, ১৯৬৩-৬৪, ১৯৬৫-৬৬, ১৯৬৭-৬৮, ২০১১-১২

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Nilsson, Leonard Jägerskiöld (২০১৮)। World Football Club Crests। London: Bloomsbury Sport। পৃষ্ঠা 72। আইএসবিএন 9781472954251 
  2. Jean Michel De Waelle, Suzan Gibril, Ekaterina Gloriozova, Ramon Spaaij (২০১৮)। The Palgrave International Handbook of Football and Politics। Cham, Switzerland: Palgrave Macmillan। পৃষ্ঠা 135। আইএসবিএন 978-3-319-78777-0 
  3. "Why are RC Deportivo de La Coruña players called 'herculinos'?"laliga.com (ইংরেজি ভাষায়)। ১৮ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১২ আগস্ট ২০২০ 
  4. https://www.rcdeportivo.es/en/anosacasa/abanca-riazor
  5. In isolation, Deportivo and de are pronounced, respectively, [depoɾˈtiβo] and [de].
  6. "ABANCA-RIAZOR | Página Oficial del R.C. Deportivo de La Coruña"ABANCA-RIAZOR | Página Oficial del R.C. Deportivo de La Coruña (স্পেনীয় ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-০৫ 
  7. Spain – List of Second Division Champions

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]