ঢাকায় পানি সরবরাহ ব্যবস্থা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

ঢাকা বাংলাদেশের রাজধানী এবং ২০ মিলিয়ন জনসংখ্যার একটি শহর। যেখানে এর বাসিন্দারা বন্যা, সেবার স্বল্প গুণমান, নর্দমা নিষ্কাশন, দূষণযোগ্য নদীভাণ্ডার, অপরিকল্পিত শহুরে উন্নয়ন এবং বিভিন্ন দুর্ভোগের সম্মুখীন হয়। তাছাড়া এর জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশেরও বেশি মানুষ বস্তিতে বসবাস করে। ঢাকার পানি ও নিষ্কাশনের দায়িত্বে থাকা ঢাকা ওয়াসা বেশ কয়েকটি পদক্ষেপের সাথে এই দূর্যোগের মোকাবিলা করেছে। ২০১১ সাল থেকে এটি প্রতিবছর সপ্তাহে ৭ দিন ২৪ ঘন্টা প্রতিনিয়ত পানি সরবরাহ করে, এবং আয় বৃদ্ধি করে পরিচালন খরচ আরো কমিয়ে আনে, এতে পানি অপচয় ২০০৩ সালে ৫৩% থেকে ২০১০ সালে ২৯% হারে হ্রাস পায়।[১] এই অর্জনের জন্য ঢাকা ওয়াসা বার্লিনে গ্লোবাল ওয়াটার সামিট ২০১১ এ "বছরের সেরা পারফরমার" অর্জন করেছে।[২] ভবিষ্যতে ঢাকা ওয়াসা নগর থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরে কম দূষিত নদী থেকে শোধিত পানির সঙ্গে স্থল ভূগর্ভস্থ পানি প্রতিস্থাপনের জন্য বিশাল বিনিয়োগের পরিকল্পন করে|[১] ২০১১ সালে বাংলাদেরেশ রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ রাজউক, নতুন বাড়িতে পানি ঘাটতি এবং বন্যা হ্রাসের জন্য বৃষ্টির পানি সংগ্রহের ব্যবস্থা করেন।[১][৩]

২০০৪ সালে বন্যায় কবলিত ঢাকার একটি রাস্তা

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ঢাকায় প্রথম খাবার পানীয় ব্যবস্থাপণা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৭৪ সালে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক কর্তৃপক্ষের অধীন শাসিত শাসক খাজা আব্দুল গণির মাধ্যমে। বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে চাদনিঘাটের একটি পানি শোধন কেন্দ্র বসানো হয়েছিল। ব্রিটিশদের থেকে স্বাধীনতার পর ১৯৪৮ সালে পাকিস্তানি সরকারের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর পানি সরবরাহের পাশাপাশি নর্দমা নিষ্কাশন এবং ঝড়-পানি নিষ্কাশনের দায়িত্বে ছিল। ঢাকা ওয়াসা (পানি সরবরাহ ও নর্দমা ব্যবস্থা অথরিটি) ১৯৬৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৮৯ সালে ঢাকার ঝড়-পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থাটি ঢাকা ওয়াসা কে হস্তান্তর করা হয়। ১৯৯০ সালে নারায়ণগঞ্জ শহর পর্যন্ত সেবাটি বর্ধিত করা হয়। ১৯৯০ সালের প্রথম দিকে বিশ্ব ব্যাংক বলেছিল ঢাকায় জল সরবরাহের জন্য একটি ঋণ প্রদান করবে, যদি এটি একটি আন্তর্জাতিক পানিসম্পদের সাথে পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপের মাধ্যমে প্রবেশ করে। তখন এটি প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল, জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল যে রাজস্ব বিলিং এবং সংগ্রহ একটি প্রাইভেট কোম্পানীকে কমপক্ষে একটি সার্ভিস এলাকায় পাইলট ভিত্তিতে আউটসোর্স করতে হবে এবং এটি একটি বাণিজ্যিকভাবে ভিত্তিক উপযেগে রূপান্তরিত হবে। এক পরিষেবা এলাকায় আউটসোর্সিং ট্রেনিং ১৯৯৭ সালে সম্পন্ন হয়, কিন্তু পাইলট প্রকল্প সফল বলে গণ্য করা হয় নি এবং থামানো হয়। ঢাকা ওয়াসা অ্যাক্ট, 1996 দ্বারা ডিডাব্লিউএএসএ এর কার্যক্রমগুলি পুনর্গঠন করে এটিকে পরিষেবা ভিত্তিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠাএন রূপান্তরিত করা হয়।[৪]

পরিষেবা এলাকা[সম্পাদনা]

DWASA এর পরিষেবা এলাকা ৩৬০ বর্গ কিলোমিটার জুড়ে যেখানে প্রায় ১২ মিলিয়ন জনসংখ্যার বাস। এটি দক্ষিণে মিরপুর এবং উত্তরে নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত বিস্তৃত। বুড়িগঙ্গা নদী সহ অনেক খাল শহরের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়।[৫] যা সমতলে গ্রীষ্মমন্ডলীয় গাছপালা এবং মাটিকে উর্বর করে। বৃহত্তর ঢাকা এর অবস্থান সমুদ্রতল থেকে ২ থেকে ১৩ মিটার উপরে এবং অধিকাংশ শহুরে এলাকায় ৬-৮ মিটার। যার জন্য বর্ষা ঋতুতে বৃষ্টিপাত ও ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ঢাকার আশেপাশে বন্যার হয়।[৬]

ঢাকার বাংলাদেশে কেন্দ্রে বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত।

সমস্যা[সম্পাদনা]

ঢাকার পানি ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন সমস্যা মুখোমুখি হয় যেমন বন্যা, দরিদ্র পরিষেবা গুণমান, ভূগর্ভস্থ হ্রাস, অপর্যাপ্ত স্যানিটেশন, দূষিত নদীভাণ্ডার, অপরিকল্পিত নগর উন্নয়ন, এবং বড় জলাভূমির অস্তিত্ব যেখানে তার জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশেরও বেশি মানুষ জীবিত থাকে। শুষ্ক মৌসুমে প্রতিবছর, শুকনো জলের নির্বীজিত সরবরাহের দাবিতে মানুষ ঢাকার রাস্তায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। ২০১০ সালে, ক্রুদ্ধ বিক্ষোভের পরেও বাংলাদেশের পানির পাম্প রক্ষা করার জন্য সৈন্য নিয়োগের প্রয়োজন ছিল।[৩]

বন্যা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ বারবার তীব্র বন্যা হয়। ১৯৭০, ১৯৭৪, ১৯৮০, ১৯৮৭, ১৯৮৮, ১৯৯৬, ১৯৯৮, ২০০৪, ২০০৭ এবং ২০০৯ এর বন্যা বিশেষভাবে আঘাত হানে। ১৯৮৮ ও ১৯৯৮ সালের মধ্যে বন্যার মাত্রা ছিল ৪.৫ মিটার পর্যন্ত।১৯৯৮ সালের বন্যার সময় শহরটির ৫৬ শতাংশ এলাকাতে এবং শহরের পশ্চিম অংশগুলির ২৩ শতাংশ অংশ বন্যায় কবলিত ছিল। আতঙ্কজনক বন্যার সময় কয়েকটি রাস্তা ৬০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত ডুবে যায়।১৯৮৮ সালের বন্যার পরে গড়ে ওঠা সড়ক এবং একটি ঘের বাঁধ দিয়ে নদী বন্যার কারণে ঢাকার পশ্চিমা এবং সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ অংশটি সুরক্ষিত ছিল। যখন উচ্চ বৃষ্টিপাত নদীতে একটি উচ্চ জল স্তরের সঙ্গে মিলিত হয়, তুষারপাত প্রাকৃতিকভাবে ড্রেনেজ সিস্টেমের মাধ্যমে নির্গত করা যায় না।[৭] বন্যা পানি ধারণক্ষমতাসম্পন্ন এলাকায় রাখা এবং বন্যার পানি নির্গমনের জন্য পাম্পিং স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে। যাইহোক, প্রাকৃতিক জলবায়ুর অতিরিক্ত সময় স্থায়ী, ঝড়গাঁও জলাশয় ও পাম্পের রক্ষণাবেক্ষণের অভাব এবং সংস্থাগুলোর মধ্যে সমন্বয়হীনতার অভাবে বন্যার ব্যবস্থাপনার অবনতি হয়। চারটি প্রতিষ্ঠান ঢাকার ঝড় ব্যবস্থাপনা পরিচালনার বিভিন্ন দিকের দায়িত্বে রয়েছে: বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (বিডব্লিউডিবি) বাঁধের নিয়ন্ত্রক ও গেটগুলি পরিচালনা করে থাকে; ডিডব্লিউএএসএ বৃহত্তর নিষ্কাশন খাল এবং পাইপের দায়িত্বে; ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডি.সি.সি.) ছোট ভূগর্ভস্থ এবং পৃষ্ঠের ড্রেন পরিচালনা করে এবং রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) নতুন রাস্তা নির্মাণের সময় ভূগর্ভস্থ রাস্তাঘাটের নিষ্কাশন খাল নির্মাণ করে।

বিভিন্ন আকারের স্টর্মওয়াটার পাম্পিং স্টেশনগুলি বিডব্লিউডিবি, ডিডব্লিউএএসএ এবং ঢাকা সিটি করপোরেশন দ্বারা পরিচালিত হয়। ১৯৯৮ সালের আগস্টে বৃষ্টির কারণে নদীর উচ্চতা এত বেড়ে যায় যে, যার কোনও সীমা ছিল না এবং রামপুরা রেগুলেটর অনিয়ন্ত্রত হয়ে পড়ে। অনেকগুলি গেট যেগুলি নদী প্রবাহ থেকে পানি ধরে রাখতে বন্ধ করা উচিত ছিল তা বন্ধ করা যায়নি। অধিকন্তু ২০০২ সালে এটি উল্লেখ করা হয় যে বাঁধটিতে বাঁক ছিল এবং বৃহত অংশে ফাঁটল দেখা যায়। এছাড়াও পর্যাপ্ত নিষ্কাশন ব্যবস্থা প্রদান না করে নিম্নভূমির মধ্য দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করা ঐ বন্যার কারণ ছিল।

অনুন্নত পরিষেবা[সম্পাদনা]

২০০৫ সালে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের পরিচালিত একটি জরিপের তথ্য অনুযায়ী, ডিডব্লিউএএসএ ঢাকার ১২ মিলিয়ন বাসিন্দাদের মধ্যে ৯ মিলিয়ন বাসিন্দাকে হাউস সংযোগের মাধ্যমে পানি প্রদান করে। যেখানে বাকিরা ৬০,০০০ থেকে ১৭০০ টি স্ট্যান্ডপাইপ এবং বাল্ক সংযোগের মাধ্যমে ১০০,০০০ টি পানি পেয়ে থাকেন। বাল্ক সংযোগগুলি বস্তিতে অবস্থিত এবং "ওয়াটার পয়েন্টস" নামে পরিচিত। এনজিও এই সংযোগগুলি থেকে ইনস্টলেশন, অপারেশন, রক্ষণাবেক্ষণ এবং রাজস্ব সংগ্রহ করে। মাত্র ৩২% আবাসিক গ্রাহকরা একটানা পানির সরবরাহ পান।.[৮] গড়ে গ্রাহকরা প্রতিদিন ১৫ ঘণ্টা পানি পান। ৭৫% আবাসিক এবং ৮৫% আনাবাসিক গ্রাহকরা জানান যে তাদের পানি সংরক্ষণের সুবিধা রয়েছে। ৬২% আবাসিক গ্রাহকরা পানির গুণগত মান ভাল যেমন, দূষিত বা ময়লা নয়। শুধুমাত্র ১০% আবাসিক গ্রাহকরা সরাসরি পানি পান। তখন পর্যন্ত সবচেয়ে সাধারণ পানি শোধন পদ্ধতি ফুটন্ত ছিল। ৭৫% আবাসিক এবং ৬৪% আনাবাসিক ভাল সেবার জন্য আরো দাম দিতে ইচ্ছুক ছিল।[৯]

জরিপকারীরা উপযোগের তথ্য এবং জরিপের ফলাফলগুলির মধ্যে বেশ কিছু বৈষম্য লক্ষ করেন। উপযোগে সেই সময়ে নির্দেশিত ছিল যে ৭০% গ্রাহকের ক্রমাগত সরবরাহ ছিল, ৬৩% মিটার ছিল এবং ৯৭% মিটার কাজের অবস্থায় ছিল। যাইহোক, জরিপ থেকে বোঝা যায় যে ৪২% অব্যাহত সরবরাহ ছিল, ৭৬% শর্তাধীন অবস্থায় ছিল।[১০]

ভূগর্ভস্থ পানি[সম্পাদনা]

যদিও ঢাকা বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত, সরবরাহের মাত্র ১৮% পানি পৃষ্ঠ থেকে আসে কারণ এটি অত্যন্ত দূষিত।

শহরটির পানির সরবরাহের ৮২% ভূগর্ভস্থ পানি থেকে ৫৭৭ গভীর নলকূপের মাধ্যমে বিমূর্ত হয়, তবে চারটি অপেক্ষাকৃত ছোট পৃষ্ঠতলের পানি শোধন কেন্দ্র অবশিষ্ট ১৮% প্রদান করে।[১১] গত চার দশকে শহরটির পানির স্তর ৫০ মিটারের নিচে ডুবে গেছে এবং নিকটতম ভূগর্ভস্থ পানি এখন ভূগর্ভস্থ স্তর থেকে ৬০ মিটারের নীচে।[৩][১২] ২০০৭ সালে এশিয়ার ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক এর মতে, আনুমানিকভাবে ২০১৫ সাল নাগাদ ভূগর্ভস্থ বিমূর্ততা হ্রাস না করলে একটি গুরুতর সরবরাহ ঘাটতি দেখা দেবে।[১৩] যাইহোক, ডিডব্লিউএএসএ ২০১২ সালে ঘোষণা দিয়েছিল যে এটি ৪৬ কিল দিয়ে একটি নতুন নলকূপ গড়ে তুলবে যা প্রতিদিন ৩ কোটি ৩০ লক্ষ ইউরো খরচ করে ১৫০,০০০ কিউবিক মিটার পানি সরবরাহ করবে, যার মধ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার ৪০ কোটি ডলার অর্থায়ন করবে।[১৪]

অপর্যাপ্ত স্বাস্থ্যব্যবস্থা[সম্পাদনা]

ঢাকায় প্রায় এক-তৃতীয়াংশের গার্হস্থ্য বর্জ্যগুলি শোধন করা হয় না। জনসংখ্যার প্রায় ৩৮% একটি নিকাশী পদ্ধতি দ্বারা আচ্ছাদিত করা হয়।[১] এখনে ১২০,০০০ m³ মিটার ধারণক্ষমতা সম্পন্ন একটি পানি শোধন কেন্দ্র আছে। জনসংখ্যার প্রায় ৩০% প্রচলিত সেপ্টিক ট্যাঙ্ক ব্যবহার করে এবং অন্য ১৫% বালতি ও কূপ শৌচাগার ব্যবহার করে। সচারাচর বর্ষার সময় ড্রেনে ময়লা ভর্তি থাকে।[১৫]

অন্যান্য[সম্পাদনা]

নিম্ন শুল্ক এবং খরচ কমানো[সম্পাদনা]

ঢাকার বাসিন্দারা বিশ্বের সর্বনিম্ন পানি শুল্ক ভোগ করে। ঢাকা ওয়াসা এর নির্বাহী প্রধান কম খরচে পানি সরবরাহ উপযোগ ব্যবস্থটি কৃতিত্ব হিসাবে মনে করেন। যাইহোক, কম রাজস্ব বিনিয়োগের উপযোগ বাড়ায়।[১]

ডিডাব্লিউএএসএ'র অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের মতে, ২০১১ সালের নভেম্বরে মিটারকৃত আবাসিক শুল্ক ছিল ৬.৬ টাকায় (মার্কিন ০.০৯ ডলার) প্রতি ঘনমিটার। নর্দমা সংযোগের সাথে পরিবারের জন্য মূল্য ১৫৫ টাকা (মার্কিন $ ০.২১) প্রতি ঘন মিটার। প্রতি মাসে মিটার ছাড়া আবাসিক পানি সংযোগের জন্য ১২৮ টাকা (১.৭২ মার্কিন ডলার)দিতে হয়। বাণিজ্যিক, শিল্প ও প্রাতিষ্ঠানিক শুল্ক তিন গুণ বেশি।[১৬] মোট রাজস্ব ২০১০ সালে প্রতি বছরে $৭০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের সমতুল্য এবং, DWASA ব্যবস্থাপনা অনুযায়ী, উপযোগ পরিচালনা খরচ এর তুলনায় প্রায় ২৫% বেশি আয় (০.৭৯ অনুপাত)।[১]

তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখানো হয়েছে যে ঢাকা মেট্রোপলিটন এরিয়াতে ঘনবসতিপূর্ণ পানি ব্যবহার করার জন্য ডিডাব্লিউএএসএ কর্তৃক প্রণীত আইনী সংযোগধারীদের চেয়ে ৭ থেকে ১৪ গুণ বেশি আয় করা হয়। জলাভূমির বাসিন্দা গার্হস্থ্য পানি সরবরাহের জন্য তাদের গড় মাসিক আয়ের প্রায় ১২ থেকে ১৫% খরচ করে থাকে, যদিও বেশিরভাগ দেশে আইনী সংযোগকারীরা তাদের গড় মাসিক আয়ের ৫% এরও কম খরচ করে।[১৭]

কর্মীবৃদ্ধি[সম্পাদনা]

In Dhaka a single water connection often serves an entire high-rise building.

পানি অতিশয় সরবরাহের একটি সাধারণ নির্দেশক হল প্রতি ১,০০০ টি সংযোগে কর্মচারীদের অনুপাত। এই সূচক ব্যবহার করে, DWASA কর্মী নিয়োগ করে: DWASA অনুযায়ী, ২০১৩ সালে ৩,৫৬৬ জন কর্মচারী ৩২৫,৭১৭ সংযোগ পরিসেবা করেন, যার ফলে প্রতি ১,০০০ সংযোগে ১০.৯ জন কর্মী পরিসেবা করেন।[১৮] এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের মতে ১৮ টি প্রধান এশিয়ান শহরগুলির তুলনায় ৩০ শতাংশের বেশি, যা ২০০১ সালে ৮.৩ শতাংশ ছিল।যাইহোক, ঢাকায় প্রতি সংযোগ ৪০ জনের বেশি লোক ব্যবহার করে, যা অস্বাভাবিক বেশি অনুপাত। সুতরাং, ১২ মিলিয়ন বসতিপূর্ণ একটি শহরের জন্য প্রয়োজনীয় কর্মী উপযোগ হয় না।[১১] উদাহরণস্বরূপ, বার্লিনে, জার্মানিতে ২০০৯ সালে ৩,৯৪৮ জন কর্মচারী ছিল, কিন্তু ৪ মিলিয়নেরও কম লোককে পরিসেবা করেন।[১৯] বাংলাদেশে কম বেতন দিয়ে ধনী দেশগুলির তুলনায় শ্রম-নিবিড় করা উপযুক্ত পন্থা এবং এইভাবেই কর্মীবৃদ্ধ সম্ভবত অত্যধিক প্রয়োজন বলে বিবেচিত হবে না।

সাফল্য[সম্পাদনা]

ডিডব্লিউএএসএ ২০১৫-র সময়ের জন্য "ঘূর্ণন পরিকল্পনা" চালু করে। ঘূর্ণন পরিকল্পনাটিতে ক্ষমতা বাড়ানো, আরও স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা এবং আরও ভাল গ্রাহক অনুভূতি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ডিডব্লিউএএস এর নির্বাহী প্রধানের মতে, ২০১১ সালের শুরুর দিকে যেহেতু প্রাথমিক পর্যায়ে সরবরাহ করা হয় প্রতি সপ্তাহে ২৪ ঘন্টা , আয় বৃদ্ধি করা যাতে পরিচালনা খরচগুলি আচ্ছাদিত থেকে বেশি এবং পানির অপচয় হ্রাস পায়।[১] এই সাফল্যগুলির জন্য ডিডব্লিউএএস, একটি শিল্প পত্রিকা দ্বারা সংগঠিত একটি ইভেন্ট, বার্লিনে গ্লোবাল ওয়াটার সামিট ২০১১ এ "বছরের সেরা পারফরমার" পেয়েছে। আলজেরিয়া, বাংলাদেশ, ব্রাজিল, পোল্যান্ড, রোমানিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র থেকে সাতজন আমন্ত্রিত পরিচালকদের পরিচালনার ও উপস্থাপনার ভিত্তিতে অংশগ্রহণকারীদের মনোনীত করা হয়েছিল।[২]

ঢাকায় একটি পানি সংযোগ প্রায় একটি সম্পূর্ণ বহুতলবিশিষ্ট ভবন পরিবেশন করে।

পানি ক্ষতি হ্রাস[সম্পাদনা]

ঢাকায়, অ-রাজস্ব পানি (এনআরডব্লিউ) মতে, পানি বিল না দেওয়া ভাগ, যেমন, ফুটো ও অবৈধ সংযোগের কারণে, যথেষ্ট পরিমাণে হ্রাস পেয়েছে। ডিডব্লিউএএস অনুযায়ী, ২০০৭-0৮ অর্থবছরে ক্ষতি ৩৮% থেকে কমিয়ে ২৭% হয়েছে। তাদের লক্ষ্য প্রতি বছর প্রতি দুই শতাংশ ক্ষতি হ্রাস করা চালিয়ে যাওয়া।২০০৪ সালে এডিবি'র ১৭ টি প্রধান এশিয়ান শহরে গড় এনআরডব্লিও ছিল ৩৪ শতাংশ।

বিলিং এবং গ্রাহক সেবা[সম্পাদনা]

এসএমএস এর মাধ্যমে বিল পরিশোধের জন্য ডিজিইএসএ একটি কম্পিউটারাইজড বিলিং সিস্টেম চালু করেছে। এই পদ্ধতি এবং অন্যান্য আধুনিক ব্যবস্থায় রাজস্বের হার বছরে ২০% বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং ২০০৯ সালে অর্ধেক, যখন জুলাই ২০১০ সালে মাত্র ৫% বেড়েছিল।[২০]

DWASA এর ১১ টি রাজস্ব অঞ্চল রয়েছে। এটি অ-রাজস্ব পানি সরবারহ হ্রাসের জন্য একটি অঞ্চল-ভিত্তিক বার্ষিক বিলিং লক্ষ্য নির্ধারণ করে। কমপক্ষে তিনটি রাজস্ব জোন ইউটিলিটির কর্মীরা সরাসরি বিলিং ও সংগ্রহস্থলের দায়িত্ব পালন করে থাকে, অন্য রাজস্ব অঞ্চলগুলিতে একটি কর্মচারী সমবায় এটি পালন করে, কর্মচারী কনজ্যুমার্স সরবরাহ কোঅপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড (ইসিএসসিএসএল) ইউটিলিটির চুক্তির অধীনে । ইসিএসএসএলএলে কর্মরত বেশিরভাগ শ্রমিক ঢাকা ওয়াসার। তারা ঢাকা ওয়াসার চেয়ে তিনগুণ বেশি বেতন পাচ্ছে। ইসিএসসিএসএলে নন পারফর্মিং কর্মীরা ঢাকা ওয়াসায় ফিরে আসতে পারে এবং ইসিএসসিএসএল নতুন কর্মীদের নিজস্বভাবে নিয়োগ করতে পারে। এর শ্রমিকরা অনানুষ্ঠানিক বাড়িগুলিতে পানি সংযোগ করেন, যা সাধারণত ঢাকা ওয়াসার নিয়ময়ে অনুমতি নেই।

বেসরকারীকরণ প্রচেষ্টার ১৯৯৭ সালে পদ্ধতিটি চালু করা হয়েছিল। প্রাইভেট কোম্পানী এবং ইসিএসএসএসএল সেপ্টেম্বর ১৯৯৭ সালে শুরু হয়। ১৯৯৮ সালে একটি পর্যবেক্ষণ কমিটি জানায় যে ইসিএসসিএল রাজস্ব সংগ্রহ বৃদ্ধি করেছে। পরবর্তীতে ঢাকা ওয়াসা ইসিএসএসএলকে আরও দুটি রাজস্ব অঞ্চলের দায়িত্ব দেয়। সমবায়টি প্রতি বছর তার চুক্তিগত লক্ষ্য পূরণ করেছে। যাইহোক, ২০০৪ সালে পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা যায় যে, ঢাকা ওয়াসা সমবায় অঞ্চলগুলিতে ইচ্ছাকৃতভাবে কম আর্থিক লক্ষ্যমাত্রা নির্বাচন করতে থাকে। তাছাড়া, সমবায় অঞ্চলের রাজস্ব সংগ্রহের খরচ প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।[২১]

দরিদ্র পর্যায়[সম্পাদনা]

এই প্রকল্পটি এনজিও দূত স্বাস্থ্য কেন্দ্র (ডিএসকে) এবং ইউকে থেকে পানি এইড এর সহায়তায় কমিউনিটি-ভিত্তিক সংস্থাগুলির মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করে।[২২][২৩] এরা প্রাথমিকভাবে পানি সংযোগ প্রদান করতে অস্বীকার করে, কারণ বস্তিবাসীরা পানির বিল পরিশোধ করতে পারবে না বা সক্ষম হবে না। ডিএসকে, যা স্বাস্থ্য বিষয়গুলির উপর তার পূর্ববর্তী কাজের কারণে বস্তুতে সম্প্রদায়-ভিত্তিক সংগঠনগুলি জানত, সম্প্রদায়টি অর্থ প্রদান করতে ব্যর্থ হলে আর্থিক গ্যারান্টি প্রদান করে। যে ভিত্তিতে, ইউটিলিটি জল পয়েন্ট প্রদান সম্প্রদায়গুলি তাদের বিলগুলি সময়মত পরিশোধ করে, যাতে গ্যারান্টিটি কখনও বলা না হয়। ২০০৮ সাল থেকে, ইউটিলিটি একটি গ্যারান্টি প্রয়োজন ছাড়া জলাভূমিতে পানি প্রদান করে।[২৪]

ঢাকার মিরপুর এলাকায় এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক থেকে অর্থায়নে ছোটো-বোরো নর্দমা সিস্টেমের জন্য একটি পাইলট প্রকল্প কয়েক বছর আগে বাস্তবায়িত হয়েছিল। এই পরিকল্পনা চালু করা হয় নি এবং এখন সম্পূর্ণভাবে বন্ধ।

পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

ভূপৃষ্ঠ পানি উন্নয়ন[সম্পাদনা]

২০২০ সালের মধ্যে ১.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার (সায়েদাবাদ ফেজ ২ এবং তৃতীয় এবং খিলক্ষেত) পর্যন্ত চারটি বড় পানি শোধন সরঞ্জাম নির্মাণের মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ পৃষ্ঠের পানি পরিবর্তনের পরিকল্পনা করছে। এখান থেকে ১৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত আরও দূরবর্তী ও কম দূষিত নদীগুলির পানি শোধন করা হবে। ২০১৩ সালের প্রতিবছর ২১.১ মিলিয়ন ঘন মিটার সরবরাহের তুলনায় প্রতিবছর ১.৬৩ মিলিয়ন ঘন মিটার মিলিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, যা মূলত ভূগর্ভস্থ পানি। ২০১১ সালের হিসাবে, ড্যানিশ উন্নয়ন সহায়তা থেকে ২৫৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অবদান রাখার জন্য প্রথম প্ল্যান্ট নির্মাণের জন্য অর্থায়ন করা হয়েছে।[১] ২০১২ সালে সরকার মুন্সিগঞ্জে পদ্মা নদীতে একটি পানি শোধন কারখানা নির্মাণের জন্য একটি চীনা কোম্পানির সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। প্রকল্পটি ৪০৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, এর মধ্যে ২৯০.৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার চীনা সরকার থেকে নরম ঋণ দিয়ে অর্থায়ন করা হয়, অবশিষ্ট বাংলাদেশী সরকার থেকে আসে।[২৫]

বৃষ্টির পানি সংগ্রহের সম্প্রচার[সম্পাদনা]

পানি সংকট দূর করতে ২০১১ সালে ঢাকার শহর ঘোষণা করেছিল যে, নতুন ভবনগুলিতে ছাদের বর্ষাকালীন বৃষ্টিপাতের প্রয়োজনে তার বিল্ডিং কোডটি সংশোধন করা হবে। এই পরিমাপটি শহরটির দুর্গন্ধযুক্ত পানি সংকটের মোকাবেলা এবং ভূগর্ভস্থ স্তরে ক্ষয়ক্ষতি কমানোর লক্ষ্যে কাজ করে। বৃষ্টির পানি সংগ্রহ করাও বর্ষা মৌসুমে ঢাকায় বন্যা সমস্যা মোকাবেলা করতে সাহায্য করবে।[৩]

পরিচালন প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

DWASA বা ঢাকা ওয়াসা স্থানীয় সরকারি মন্ত্রণালয়, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত হয়। ঢাকা ওয়াসা বা ডিডাব্লিউএএসএ'র বোর্ড ১৩ সদস্য নিয়ে গঠিত এবং প্রতিনিধিগণ সভাপতিত্ব করেন। স্থানীয় সরকার বিভাগের একজন যুগ্ম সচিব মন্ত্রিপরিষদের প্রতিনিধিত্ব করেন। পৌর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক দুই বোর্ড সদস্যদের নিযুক্ত করা হয় এবং একজন অর্থমন্ত্রী। ডিডব্লিউএএসএ নির্বাহী প্রধান ছাড়াও বোর্ডের একজন প্রাক্তন সদস্য থাকেন। অন্যান্য বোর্ড সদস্যদের সমিতি এবং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি দ্বারা নিযুক্ত করা হয়।[২৬]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Taqsem Khan:The performance challenges of Dhaka WASA, in Global Water Intelligence:Focusing on performance, Global Water Summit 2011, p. 50-52.
  2. "Wasa awarded for improved management"The Daily Star। Dhaka। ২৬ এপ্রিল ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৩ অক্টোবর ২০১১ 
  3. Wadud, Mushfique (১৫ আগস্ট ২০১১)। "Dhaka turns to rainwater harvesting to ease water crisis"Thomson Reuters Foundation। সংগ্রহের তারিখ ২৪ আগস্ট ২০১১ 
  4. DWASA। "History"। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  5. DWASA। "Dhaka Water Supply and Sewer Authority"। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  6. Saleemul Huq; Mozaharul Ala (২০০৩)। "Flood Management and Vulnerability of Dhaka City" (PDF)Alcira Kreimer; Margaret Arnold and Anne Carlin (eds.) Building Safer Cities: The Future of Disaster Risk। World Bank। পৃষ্ঠা 121–135। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  7. Chusit Apirumanekul; Ole Mark (২০০১)। "Modelling of Urban Flooding in Dhaka City" (PDF)4 th DHI Software Conference। পৃষ্ঠা 102। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  8. "Dhaka Water Services Survey" (PDF)Asian Development Bank। অক্টোবর ২০০৫। পৃষ্ঠা 5–6। ৮ জুলাই ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  9. "Dhaka Water Services Survey" (PDF)Asian Development Bank। অক্টোবর ২০০৫। পৃষ্ঠা 13–22। ৮ জুলাই ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  10. "Dhaka Water Services Survey" (PDF)Asian Development Bank। অক্টোবর ২০০৫। পৃষ্ঠা 30। ৮ জুলাই ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  11. Azharul Haq, Khondaker (জুন ২০০৬)। "Water Management in Dhaka"। Water Resources Development22 (2): 291–311। doi:10.1080/07900620600677810  , p. 296
  12. Institute for Water Modelling, 2009
  13. Asian Development Bank (ADB) (নভেম্বর ২০০৭)। "Proposed Loans and Technical Assistance Grant. People's Republic of Bangladesh: Dhaka Water Supply Sector Development Program" (PDF)। ২৮ মে ২০০৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ এপ্রিল ২০০৮  , p. 34-35
  14. OOSKAnews, 19 October 2012, reporting about a decision by Bangladesh's Executive Committee of National Economic Council (ECNEC) on 16 October 2012.
  15. Azharul Haq, Khondaker (জুন ২০০৬)। "Water Management in Dhaka"। Water Resources Development22 (2): 291–311। doi:10.1080/07900620600677810  , p. 301
  16. DWASA:Water tariffs, retrieved on 17 October 2011
  17. Muhammad Mizanur Rahaman, Tahmid Saif Ahmed (২০১৬)। "Affordable Water Pricing for Slums Dwellers in Dhaka Metropolitan Area: The Case of Three Slums"Journal of Water Resource Engineering and Management3 (1): 15-33। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১৬ 
  18. "Annual Report 2012-2013" (PDF)Dhaka Water Supply and Sewerage Authority। ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৬ 
  19. Joerg Simon, Berliner Wasserbetriebe: Delivering performance amidst austerity, in:Global Water Summit 2011, p. 39
  20. DWASA। "Water tariff:Metered connections"। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 
  21. Our Water Commons:Water Solutions – Case 12: Employee Cooperatives in Water: The Case of Dhaka WASA, retrieved on 7 November 2010
  22. "MDGs in focus – MDG 4: Reduce child mortality: How a slum community in Bangladesh has improved access to clean water and sanitation and reduced killer diseases"Department for International Development (DFID)। ৭ সেপ্টেম্বর ২০১০। 
  23. Jacobs, Bel (২০ মার্চ ২০০৮)। "Slums top water agenda" (PDF)Metro। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ নভেম্বর ২০১০ 
  24. Albuquerque, Catarina; Virginia Roaf (২০১২)। "On the Right Track. Good practices in realising the rights to water and sanitation."। UN Special Rapporteur on the Human Right to Safe Drinking Water and Sanitation। পৃষ্ঠা 123–124। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০১২ 
  25. OOSKAnews, 19 October 2012
  26. DWASA। "Members of Dhaka WASA Board"। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]