টেরেসা মে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
অত্র নিবন্ধটি বিশিষ্ট ব্রিটিশ প্রমিলা রাজনীতিবিদ ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী সম্পর্কিত। অন্য ব্যবহারের জন্য দেখুন - তেরেসা মে (দ্ব্যর্থতা নিরসন)
মাননীয়া
টেরেসা মে
এমপি
Theresa May 2015.jpg
যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী
অধিকৃত অফিস
১৩ জুলাই, ২০১৬
রাষ্ট্রশাসক দ্বিতীয় এলিজাবেথ
পূর্বসূরী ডেভিড ক্যামেরন
রক্ষণশীল দলের নেতা
অধিকৃত অফিস
১১ জুলাই, ২০১৬
পূর্বসূরী ডেভিড ক্যামেরন
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
অফিসে
১২ মে, ২০১০ – ১৩ জুলাই, ২০১৬
প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন
পূর্বসূরী অ্যালান জনসন
উত্তরসূরী অ্যাম্বার রাড
মহিলা ও সমতায়ণবিষয়ক মন্ত্রী
অফিসে
১২ মে, ২০১০ – ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১২
প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন
পূর্বসূরী হ্যারিয়েট হারম্যান
উত্তরসূরী মারিয়া মিলার
কর্ম ও অবসর ভাতাবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
১৯ জানুয়ারি, ২০০৯ – ১১ মে, ২০১০
নেতা ডেভিড ক্যামেরন
পূর্বসূরী ক্রিস গ্রেলিং
উত্তরসূরী ইয়েত্তে কুপার
মহিলা ও সমতায়ণবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
২ জুলাই, ২০০৭ – ১১ মে, ২০১০
নেতা ডেভিড ক্যামেরন
পূর্বসূরী এলিয়ানর লেইং
উত্তরসূরী ইয়েত্তে কুপার
অফিসে
১৫ জুন, ১৯৯৯ – ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০০১
মহিলাবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
নেতা উইলিয়াম হগ
পূর্বসূরী জিলিয়ান শেফার্ড
উত্তরসূরী ক্যারোলিন স্পেলম্যান
কমন্স সভার ছায়া নেতা
অফিসে
৬ ডিসেম্বর, ২০০৫ – ১৯ জানুয়ারি, ২০০৯
নেতা ডেভিড ক্যামেরন
পূর্বসূরী ক্রিস গ্রেলিং
উত্তরসূরী অ্যালান ডানকান
সংস্কৃতি, গণমাধ্যম ও ক্রীড়াবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
৬ মে, ২০০৫ – ৮ ডিসেম্বর, ২০০৫
নেতা মাইকেল হাওয়ার্ড
পূর্বসূরী জন হুইটিংডেল
উত্তরসূরী হুগো সু্ইর
পরিবারবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
১৫ জুন, ২০০৪ – ৮ ডিসেম্বর, ২০০৫
নেতা মাইকেল হাওয়ার্ড
পূর্বসূরী সৃষ্ট পদ
উত্তরসূরী পদ বিলুপ্ত
পরিবেশপরিবহণবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
৬ নভেম্বর, ২০০৩ – ১৪ জুন, ২০০৪
নেতা মাইকেল হাওয়ার্ড
পূর্বসূরী ডেভিড লিডিংটন (পরিবেশ, খাদ্য ও গ্রাম্যবিষয়ক)
টিম কলিন্স (পরিবহণ)
উত্তরসূরী টিম ইও
রক্ষণশীল দলের চেয়ারম্যান
অফিসে
২৩ জুলাই, ২০০২ – ৬ নভেম্বর, ২০০৩
নেতা আয়ান ডানকান স্মিথ
পূর্বসূরী ডেভিড ডেভিস
উত্তরসূরী লিয়াম ফক্স
দ্য লর্ড সাটচি
পরিবহণবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
৬ জুন, ২০০২ – ২৩ জুলাই, ২০০২
নেতা আয়ান ডানকান স্মিথ
পূর্বসূরী স্বয়ং (পরিবহণ, স্থানীয় সরকার ও অঞ্চল)
উত্তরসূরী টিম কলিন্স
পরিবহণ, স্থানীয় সরকার ও অঞ্চলবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
১৮ সেপ্টেম্বর, ২০০১ – ৬ জুন, ২০০২
নেতা আয়ান ডানকান স্মিথ
পূর্বসূরী আর্চি নরম্যান (পরিবেশ, পরিবহণ ও অঞ্চল)
উত্তরসূরী স্বয়ং (পরিবহণ)
এরিক পিকলস (স্থানীয় সরকার ও অঞ্চল)
শিক্ষাকর্মসংস্থানবিষয়ক ছায়ামন্ত্রী
অফিসে
১৫ জুন, ১৯৯৯ – ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০০১
নেতা উইলিয়াম হগ
পূর্বসূরী ডেভিড উইলেটস
উত্তরসূরী ড্যামিয়ান গ্রীন (শিক্ষা ও দক্ষতা)
ডেভিড উইলেটস (কর্ম ও অবসর ভাতা)
মেইডেনহেডের
সংসদ সদস্য
অধিকৃত অফিস
১ মে, ১৯৯৭
পূর্বসূরী সংসদীয় আসন প্রতিষ্ঠা
সংখ্যাগরিষ্ঠ ২৯,০৫৯ (৫৪.০০%)
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম টেরেসা মেরি ব্রাসিয়ার
(১৯৫৬-১০-০১) ১ অক্টোবর ১৯৫৬ (বয়স ৬১)
ইস্টবোর্ন, ইংল্যান্ড, যুক্তরাজ্য
রাজনৈতিক দল রক্ষণশীল
দাম্পত্য সঙ্গী ফিলিপ মে (বি. ১৯৮০)
পিতামাতা হুবার্ট ব্রাসিয়ার
জাইদি বার্নস
প্রাক্তন ছাত্র সেন্ট হিউজেস কলেজ, অক্সফোর্ড
ধর্ম অ্যাংলিকানবাদ[১][২]

টেরেসা মেরি মে, এমপি (ইংরেজি: Theresa May; জন্ম: ১ অক্টোবর, ১৯৫৬) সাসেক্সের ইস্টবোর্ন এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট ব্রিটিশ প্রমিলা রাজনীতিবিদ ও যুক্তরাজ্যের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী। ১১ জুলাই, ২০১৬ তারিখে রক্ষণশীল দলের প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন টেরেসা মে। এছাড়াও, ২০১০ থেকে ২০১৬ মেয়াদে বর্তমান রক্ষণশীল সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ১৯৯৭ সাল থেকে মেইডেনহেড সংসদীয় এলাকা থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্যরূপে কমন্স সভায় প্রতিনিধিত্ব করছেন তিনি। একদেশীয় রক্ষণশীল দৃষ্টিভঙ্গীতে চিহ্নিত ও উদার রক্ষণশীল চরিত্রের অধিকারী তিনি।

১৩ জুলাই, ২০১৬ তারিখে রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের কাছ থেকে প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের স্থলাভিষিক্ত হন।[৩]

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

সাসেক্সের ইস্টবোর্নে জন্মগ্রহণকারী মে একমাত্র সন্তানরূপে জাইদি মেরি ও হাবার্ট ব্রাসিয়ার দম্পতির কোলে আসেন তিনি। বাবা হাবার্ট ইংল্যান্ড চার্চের পাদ্রী ছিলেন।[৪][৫][৬][৭]

রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রণাধীন অক্সফোর্ডশায়ার প্রাইমারী ও গ্রামার স্কুলে পড়াশোনা করেন। এরপর সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য স্বায়ত্ত্বশাসিত ক্যাথলিক স্কুলে চলে যান। এরপর অক্সফোর্ডশায়ারের হেথ্রপ প্রাইমারী স্কুলের[৮] পর বেগব্রোকের রোমান ক্যাথলিক স্বায়ত্ত্বশাসিত স্কুল হিসেবে পরিচিত বালিকাদের সেন্ট জুলিয়ানাস কনভেন্ট স্কুলে[৯] পড়াশোনা করেন যা ১৯৮৪ সালে বন্ধ হয়ে যায়।[১০] ১৩ বছর বয়সে হুইটলির সাবেক হোল্টন পার্ক গার্লস গ্রামার স্কুলে স্থান লাভে সক্ষম হন। ১৯৭১ সালে বিদ্যালয়টির বিলুপ্তি ঘটে ও ছাত্রাবস্থাতেই নিউ হুইটলি পার্ক কম্প্রিহেনসিভ স্কুলে একীভূত হয়।[৯][১১] এরপর তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সেন্ট হিউজেস কলেজে ভূগোল বিষয়ে অধ্যয়ন করেন। ১৯৭৭ সালে সেখান থেকে দ্বিতীয় শ্রেণীতে বিএ ডিগ্রী লাভ করেন।[১২]

১৯৮১ সালে গাড়ী দূর্ঘটনায় তাঁর বাবা নিহত হন ও পরের বছরই তাঁর মা মারা যান।[১৩][১৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৯৭৭ থেকে ১৯৮৩ সময়কালে ব্যাংক অব ইংল্যান্ডে কাজ করেন। এরপর ১৯৮৫ থেকে ১৯৯৭ মেয়াদে অর্থ ছাড়সংক্রান্ত বিভাগের কাউন্সিলর হিসেবেও কাজ করেন তিনি।[১৫] পাশাপাশি মারটন্স ড্রান্সফোর্ড ওয়ার্ডের অধীনে লন্ডন বোরার কাউন্সিলররূপে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯২ ও ১৯৯৪ সালের কমন্স সভায় যোগদানকল্পে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে পরাজিত হন।

১৯৯৭ সালের সাধারণ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো মেইডেনহেড নির্বাচনী এলাকা থেকে রক্ষণশীল দলের সংসদ সদস্য হন।[১৫] এরপর ১৯৯৯ সালের ছায়া মন্ত্রীপরিষদে যোগ দেন। উইলিয়াম হগ, আয়ান ডানকান স্মিথ, মাইকেল হাওয়ার্ড ও ডেভিড ক্যামেরনের ছায়া মন্ত্রীপরিষদে থাকাকালীন বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ পদের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।[১৬] এছাড়াও, কমন্স সভার ছায়ানেতা ও কর্ম এবং অবসর ভাতা সংক্রান্ত ছায়ামন্ত্রী মনোনীত হন। তন্মধ্যে, জুলাই, ২০০২ থেকে নভেম্বর, ২০০৩ সাল পর্যন্ত রক্ষণশীল দলের চেয়ারম্যান এবং ডিসেম্বর, ২০০৫ থেকে জানুয়ারি, ২০০৯ সাল পর্যন্ত কমন্স সভায় ছায়ামন্ত্রী ছিলেন তিনি।

২০১০ সালের সাধারণ নির্বাচনের পর জোট সরকার গঠিত হলে ১২ মে, ২০১০ তারিখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও ২০১২ সালে মহিলা এবং সমতায়ণ মন্ত্রী হন তিনি। ২০১৫ সালের নির্বাচনের পর তিনি পুণরায় ঐ দায়িত্বে থাকেন। এরফলে ৬০ বছর পূর্বেকার জেমস চাটার এডের পর সর্বাধিক সময়ের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হন। পুলিশ বাহিনীর পুণর্গঠন, মাদকদ্রব্য নীতি বাস্তবায়নে অটুঁটসহ অভিবাসনে সীমাবদ্ধতার উপর জোর দেন তিনি।[১৭]

মে, ২০১২ সালে তিনি সম-লিঙ্গের বিবাহ সম্পর্কীয় বিষয়ে স্বীয় সমর্থন ব্যক্ত করেন। এরই ধারাবাহিকতায় আউট৪ম্যারিজ প্রচারণার অংশ হিসেবে ভিডিও ধারণ করেন।[১৮] এরফলে রক্ষণশীল এমপিদের উচ্চ পর্যায়ের নেতাদের একজন হিসেবে ব্যক্তিগতভাবে সমলিঙ্গের বিবাহের বিষয়ে নিজ সমর্থন ব্যক্ত করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,[১৯]

আমি বিশ্বাস করি যে দুইজন ব্যক্তি যদি একে-অপরের যত্ন নেয়, যদি তারা একে-অপরকে ভালোবাসে, যদি তারা একে-অপরের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করে ... তাহলে তারা বিবাহ করতে পারে এবং বিবাহ প্রত্যেকের জন্যেই প্রযোজ্য।

প্রধানমন্ত্রী[সম্পাদনা]

রক্ষণশীল দলের নেতৃত্বের বিষয়ের নির্বাচনে তাঁর প্রার্থীতার কথা ঘোষণা করেন। নিজেকে তিনি ব্রেক্সিট বিষয়ে দ্বিধাবিভক্ত দলকে একত্রিত করার বিষয়ে তাঁর আগ্রহের কথা জানান।[২০][২১] জুন, ২০১৬ সালে ক্যামেরনের পদত্যাগের পর মে রক্ষণশীল দলে তাঁর নেতৃত্বের কথা ঘোষণা করেন ও দ্রুত পাদপ্রদীপে চলে আসেন। ৫ জুলাই, ২০১৬ তারিখে প্রথম দফার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে রক্ষণশীল দলের এমপিদের মোট ভোটের ৫০% ব্যবধানে জয়ী হন। দুই দিন পর ৭ জুলাই, তিনি ১৯৯ এমপি'র ভোট পান। এরফলে আন্দ্রিয়া লিডসমের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সুযোগ পান ও রক্ষণশীল দলের সদস্যদের প্রাপ্ত ভোটের মুখোমুখি হন।[২২] কিন্তু ১১ জুলাইয়ের নির্বাচনে লিডসমের প্রার্থীতা প্রত্যাহারের প্রেক্ষিতে মেকে ঐ দিনই দলীয় প্রধান হিসেবে দলীয় নেতৃত্বভার প্রদানের কথা ঘোষণা করা হয়। এর ফলে ১৩ জুলাই যুক্তরাজ্যের ৭৬ তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাঁকে নিযুক্ত করা হয়।[২৩][২৪]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৮০ তারিখে ক্যাপিটাল ইন্টারন্যাশনালে কর্মরত বিনিয়োগকারী ব্যাংকার ফিলিপ জন মে'র সাথে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হন। এ দম্পতি নিঃসন্তান।[২৫] স্বাস্থ্যজনিত কারণে তিনি সন্তান ধারণে অক্ষমতার কথা জানিয়েছেন। এক স্বাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, পরিবারে আপনাকে সার্বক্ষণিক সময় দিতে হবে এবং সেখানে দেখবেন যে অনেক কিছুই রয়েছে যা আপনার নেই।[২৬][২৭] ২০১৩ সালে তাঁর টাইপ ১ ডায়াবেটিসের কথা জানা যায়।[২৮]

সম্মাননা[সম্পাদনা]

সরকারের মনোনয়ন ও এর পূর্ব থেকেই মে নীতি-নির্ধারণী বিভিন্ন বিষয়ে নিজ সংসদীয় আসনে ও জাতীয় পর্যায়ের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত রাখেন। লিঙ্গ সমতায়ণে ফসেট সোসাইটি কর্তৃক ২০০৬ সালে বর্ষসেরা উজ্জ্বয়িনী নারী মনোনীত হন।[২৯]

বার্কশায়ারের বৃহত্তম রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন রিডিং ইউনিভার্সিটি কনজারভেটিভ অ্যাসোসিয়েশনের পরামর্শক তিনি।[৩০] ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ সালে বিবিসি রেডিও ফোরের ওম্যান্স আওয়ারে তাঁকে ব্রিটেনের দ্বিতীয় সর্বাধিক প্রভাবশালী নারীরূপে চিহ্নিত করা হয়েছে।[৩১]

পদবী[সম্পাদনা]

টেরেসা মে
-এর রীতি
Royal Coat of Arms of the United Kingdom (HM Government).svg
উদ্ধৃতিকরণের রীতি প্রধানমন্ত্রী
কথ্যরীতি প্রধানমন্ত্রী
বিকল্প রীতি মিসেস মে বা মেম
  • মিস টেরেসা ব্রাসিয়ার (১৯৫৬-১৯৮০)
  • মিসেস ফিলিপ মে (১৯৮০-১৯৯৭)
  • টেরেসা মে, এমপি (১৯৯৭-২০০৩)
  • মাননীয়া টেরেসা মে, এমপি (২০০৩-বর্তমান)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gimson, Andrew (২০ অক্টোবর ২০১২)। "Theresa May: minister with a mind of her own"The Observer (London)। "May said: 'I am a practising member of the Church of England, a vicar's daughter.'" 
  2. Howse, Christopher (২৯ নভেম্বর ২০১৪)। "Theresa May's Desert Island hymn"The Daily Telegraph (London)। "The Home Secretary declared that she was a 'regular communicant' in the Church of England" 
  3. MacLellan, Kylie; James, William (১৩ জুলাই ২১০৬)। "Cameron bows out with jokes, May to take over as British PM"Reuters। Thomson Reuters। সংগৃহীত ১৩ জুলাই ২০১৬ 
  4. The International Who's Who। Europa Publications। ২০০৪। পৃ: ১১১৪। 
  5. Davies, Ben (২২ মে ২০০১)। "Vote 2001: Key People Theresa May Education and Employment"। BBC News। সংগৃহীত ২০ অক্টোবর ২০১০ 
  6. "Index entry"FreeBMD। ONS। 
  7. "Famous family trees: Theresa May"। Blog.findmypast.co.uk। ১৯ মার্চ ২০১৩। সংগৃহীত ১ জুলাই ২০১৬ 
  8. "Screaming arrival"। BBC News। ৮ মে ২০০০। সংগৃহীত ২০ অক্টোবর ২০১০ 
  9. Kite, Melissa (১৫ মে ২০১১)। "How clashes with Theresa May led Dame Pauline Neville Jones to quit"The Sunday Telegraph। সংগৃহীত ৫ জুলাই ২০১৬ 
  10. The Little Book of Oxfordshire – Paul Sullivan। New York: History Press। ২০১২। আইএসবিএন 0000000000000। সংগৃহীত ৫ জুলাই ২০১৬ 
  11. "Girls were taught in idyllic surroundings at Holton Park"Oxford Mail। ৮ জুন ২০০৯। সংগৃহীত ২৮ জুলাই ২০১০ 
  12. "Oxford University class list." The Times (London). 11 July 1977. p.14.
  13. Day, Elizabeth। "Theresa May – what lies beyond the public image?"The Guardian। সংগৃহীত ১০ জুলাই ২০১৬ 
  14. Mendick, Robert। "The Oxford romance that has guided Theresa May from tragedy to triumph"Daily Telegraph। সংগৃহীত ১২ জুলাই ২০১৬ 
  15. "As Theresa May makes a bid for prime minister we look at her first foray into politics"। সংগৃহীত ২০১৬-০৭-০৯ 
  16. "Howard unveils his top team"BBC News Online (BBC)। ১০ নভেম্বর ২০০৩। সংগৃহীত ৯ জুন ২০১১ 
  17. "Boring and competent Theresa May is what the nation needs after shock Brexit vote"The Independent। ১ জুলাই ২০১৬। সংগৃহীত ১১ জুলাই ২০১৬ 
  18. Home Secretary Theresa May comes @Out4Marriage retrieved 24 May 2012
  19. Mulholland, Hélène (২৪ মে ২০১২)। "Theresa May records video in support of gay marriage"The Guardian। সংগৃহীত ১১ জুলাই ২০১৬ 
  20. "Theresa May's Tory Leadership Launch Statement"The Independent (London, UK)। ৩০ জুন ২০১৬। সংগৃহীত ৩০ জুন ২০১৬ 
  21. Elgot, Jessica (৩০ জুন ২০১৬)। "Theresa May launches Tory leadership bid with pledge to unite country"The Guardian (London, UK)। সংগৃহীত ৩০ জুন ২০১৬ 
  22. "Theresa May v Andrea Leadsom to be next prime minister"। BBC News। ৮ জুলাই ২০১৬। সংগৃহীত ৮ জুলাই ২০১৬ 
  23. "Theresa May to succeed Cameron as UK PM on Wednesday"BBC। BBC। ১৩ জুলাই ২০১৬। সংগৃহীত ১১ জুলাই ২০১৬। "The timing of the handover of power from David Cameron looks set to be after PM's questions on Wednesday." 
  24. "Theresa May gives first speech as leader of the Conservative party"The Telegraph (London, UK)। ১১ জুলাই ২০১৬। সংগৃহীত ১১ জুলাই ২০১৬ 
  25. Orr, Deborah (১৪ ডিসেম্বর ২০০৯)। "Theresa May: David Cameron's lady in waiting"The Guardian। সংগৃহীত ৯ জুন ২০১১ 
  26. "I was probably goody two-shoes: Theresa May interviewed"Daily Telegraph। সংগৃহীত ৩ জুলাই ২০১৬ 
  27. "Philip May (LinkedIn page)"LinkedIn। সংগৃহীত ৩ জুলাই ২০১৬ 
  28. Theresa May diagnosed with diabetes
  29. "Fawcett Society"। Fawcett Society। সংগৃহীত ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১০ 
  30. "Friends"। Reading University Conservative Association। সংগৃহীত ৩০ নভেম্বর ২০১২ 
  31. "BBC Radio 4 – Woman's Hour – The Power List 2013"। BBC। 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]