জন গাই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জন গাই
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামজন উইলিয়াম গাই
জন্ম (1934-08-29) ২৯ আগস্ট ১৯৩৪ (বয়স ৮৫)
নেলসন, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনবামহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি স্লো-মিডিয়াম
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৭৬)
৭ নভেম্বর ১৯৫৫ বনাম পাকিস্তান
শেষ টেস্ট২৬ ডিসেম্বর ১৯৬১ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১২ ৯০
রানের সংখ্যা ৪৪০ ৩,৯২৩
ব্যাটিং গড় ২০.৯৫ ২৫.৮০
১০০/৫০ ১/৩ ৩/২৪
সর্বোচ্চ রান ১০২ ১১৫
বল করেছে ৯০
উইকেট
বোলিং গড় ৮২.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/০
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ৩২/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৫ জুলাই ২০১৯

জন উইলিয়াম গাই (ইংরেজি: John Guy; জন্ম: ২৯ আগস্ট, ১৯৩৪) নেলসনে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১][২] নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫৫ থেকে ১৯৬১ সময়কালে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে ওতাগো, ওয়েলিংটন, নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টস, সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টস ও ক্যান্টারবারি এবং ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে নর্দাম্পটনশায়ার দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, দলের প্রয়োজনে ডানহাতে স্লো-মিডিয়াম বোলিংয়ে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন জন গাই

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৫৩-৫৪ মৌসুম থেকে ১৯৭২-৭৩ মৌসুম পর্যন্ত জন গাইয়ের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে ১৯ বছর বয়সে ৫৭ ও ১১৫ রান তুলেন। তন্মধ্যে, অ্যালেক্স মইরের চার ওভারে ৩৬ রান নিয়েছিলেন। দ্রুত পদচালনার অধিকারী জন গাই খাঁটিমানের আত্মরক্ষামূলকপন্থা অবলম্বনসহ অসীম ধৈর্য্য নিয়ে ব্যাটিং কর্মে অগ্রসর হতেন। সুযোগের সদ্ব্যবহার করে বলকে সজোরে আঘাত করে রান সংগ্রহ করতেন। ১৯৫৮ সালে নর্দাম্পটনশায়ারের পক্ষে খেলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে বারো টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন জন গাই। ৭ নভেম্বর, ১৯৫৫ তারিখে ঢাকায় স্বাগতিক পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২৬ ডিসেম্বর, ১৯৬১ তারিখে জোহেন্সবার্গে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

১৯৫৫-৫৬ মৌসুমে ভারত ও পাকিস্তান গমন করেন। এ সফরে ৩৪.৭৭ গড়ে ৩১৩ রান তুলেন। হায়দ্রাবাদে দীর্ঘ সাত ঘন্টা ক্রিজে অবস্থান করে ১০২ রানের ইনিংস উপহার দেন। এরপর আরও একবার ১৯৬১-৬২ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকা গমন করেন। টেস্টগুলোয় নিদারুণভাবে ব্যর্থ হন। তবে সমগ্র সফরে ৫৩৩ রান তুলেছিলেন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৬০-এর দশকের শুরুরদিকে শেল অয়েলে কাজ করতেন।[৩] ক্রিকেট খেলোয়াড়ী জীবন থেকে অবসর নেয়ার পর জাতীয় দল নির্বাচকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন জন গাই। নিউবারির পক্ষে ব্যাট হাতে প্রতিনিধিত্বমূলক খেলায় অংশ নিতেন। সতীর্থ নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটার ল্যান্স কেয়ার্নসের ন্যায় তিনিও কম হাতলের এক্সক্যালিবার ব্যাট ব্যবহার করতেন।[৪][৫] বর্তমানে তিনি অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে বসবাস করছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of New Zealand Test Cricketers
  2. "New Zealand Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৯ 
  3. NZ Cricketer Comes to Gisborne
  4. Coverdale, Brydon। "The man behind Excalibur"ESPNcricinfoESPN Inc.। সংগ্রহের তারিখ ৭ মে ২০১৯ 
  5. [১] Eva, B. "Kiwi Cairns' six sixes in 1983", The Sunday Age, 3 February 2013, Sport section, p. 20.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]