অ্যালেক্স মইর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অ্যালেক্স মইর
অ্যালেক্স মইর.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামআলেকজান্ডার ম্যাকেঞ্জি মইর
জন্ম(১৯১৯-০৭-১৭)১৭ জুলাই ১৯১৯
ডুনেডিন, ওতাগো, নিউজিল্যান্ড
মৃত্যু১৭ জুন ২০০০(2000-06-17) (বয়স ৮০)
ডুনেডিন, ওতাগো, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগ ব্রেক, গুগলি
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৫৩)
১৭ মার্চ ১৯৫১ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৪ মার্চ ১৯৫৯ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ১৭ ৯৭
রানের সংখ্যা ৩২৭ ২,১০২
ব্যাটিং গড় ১৪.৮৬ ১৬.৪২
১০০/৫০ ০/০ ০/৮
সর্বোচ্চ রান ৪১* ৭০
বল করেছে ২৬৫০ ১৮,৬৪৮
উইকেট ২৮ ৩৬৮
বোলিং গড় ৫০.৬৪ ২৪.৫৬
ইনিংসে ৫ উইকেট ২৫
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৬/১৫৫ ৮/৩৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/- ৪৪/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৫ নভেম্বর ২০১৮

আলেকজান্ডার ম্যাকেঞ্জি মইর (ইংরেজি: Alex Moir; জন্ম: ১৭ জুলাই, ১৯১৯ - মৃত্যু: ১৭ জুন, ২০০০) ওতাগোর ডুনেডিনে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫১ থেকে ১৯৫৯ সময়কালে নিউজিল্যান্ড দলের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে ওতাগো দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ লেগ স্পিনার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও নিচেরসারিতে ডানহাতে ব্যাটিং করতেন অ্যালেক্স মইর

ঘরোয়া ক্রিকেট[সম্পাদনা]

৩০ বছর বয়সে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ওতাগোর পক্ষে অভিষেক ঘটে তার। ১৯৪৯-৫০ মৌসুম থেকে ১৯৬১-৬২ মৌসুম পর্যন্ত ওতাগোর প্রতিনিধিত্ব করেছেন। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে দলটির পক্ষে ৫৪টি খেলায় অংশগ্রহণের সুযোগ হয় তার। এ সময়ে ২১.০১ গড়ে ২৮২ উইকেট পেয়েছিলেন অ্যালেক্স মইর।

১৯৫৩-৫৪ মৌসুমে নিউ প্লাইমাউথে ওতাগোর সদস্যরূপে সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টসের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত খেলায় ২০৩ রান খরচায় ১৫ উইকেট দখল করে সবিশেষ কৃতিত্বের পরিচয় দেন।[১]

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৫১ সালে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে অ্যালেক্স মইরের। ক্রাইস্টচার্চে অনুষ্ঠিত সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ছয় উইকেট পেয়েছিলেন তিনি।[২]

দুইজন বোলারের একজন হিসেবে এক টেস্টের উভয় ইনিংসে বোলিং করার কীর্তিগাঁথা রচনা করেছেন। ২৮ মার্চ, ১৯৫১ তারিখে ওয়েলিংটন টেস্টের চতুর্থ দিন চাবিরতির আগে-পাছে এ ঘটনার সাথে জড়িত হয়ে পড়েন।[৩] অপর ঘটনাটি ১৯২১ সালে ওয়ারউইক আর্মস্ট্রং ক্রিকেটের আইনভঙ্গ করে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন।

১৭ জুন, ২০০০ তারিখে ৮১ বছর বয়সে ওতাগোর ডুনেডিনে অ্যালেক্স মইরের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Central Districts v Otago 1953-54
  2. "1st Test: New Zealand v England at Christchurch, Mar 17-21, 1951"espncricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১৩ 
  3. Martin-Jenkins, C. (1983) The Cricketer Book of Cricket Disasters and Bizarre Records, Century Publishing: London. আইএসবিএন ০৭১২৬ ০১৯১ ০.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]