কৎ বেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

কৎবেল
Limonia acidissima
Wood-apple dec2007.jpg
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Plantae
(শ্রেণীবিহীন): Angiosperms
(শ্রেণীবিহীন): Eudicots
(শ্রেণীবিহীন): Rosids
বর্গ: Sapindales
পরিবার: Rutaceae
উপপরিবার: Aurantioideae
গোত্র: Citreae
গণ: Limonia
L.
প্রজাতি: L. acidissima
দ্বিপদী নাম
Limonia acidissima
L.
প্রতিশব্দ[১][২]
  • Schinus limonia L.
  • Ferronia elephantum Corrêa
গাছে পাকা কৎ বেল

কৎবেল বা কদবেল বা কয়েত বেল এক ধরনের ফল। এর খোলস শক্ত ও বেলের মত খসখসে। গাছ ২০-৫০ ফুট উঁচু হয়। কাঠ শক্ত ও পর্ণমোচীি বা পাতা ঝরা বৃক্ষপাতা কামিনী ফুলের পাতার মত। পত্রদন্ডের ২ দিকে ৫-৭ পাতা থাকে। ২-৫ইঞ্চি ব্যাস বিশিষ্ট টেনিস বলের আকারের কৎবেল টক স্বাদের ফল। গাছে ছোট কাঁটা থাকে। আগস্ট-নভেম্বর মাসে ফল পাকে। কাঠ শক্ত; ঘরবাড়ি তৈরিতে ব্যবহার করা যায়। সংস্কৃত ভাষায় এর নাম কপিত্থ (সংস্কৃত: कपित्थ)। সাদা রঙের ফুল হয়। পাকা কতবেলে পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকে আমিষ, শর্করা, চর্বি, ক্যালসিয়াম , ভিটামিন বিসি। লঙ্কা, লবণচিনি দিয়ে মেখে সুস্বাদু আচার বানিয়ে খাওয়া হয়। প্রতি একশো গ্রাম মন্ডে ৪৯ ক্যালোরি শক্তি বিদ্যমান।

Coth bael.jpg

কৎবেল গাছের বৈজ্ঞানিক নাম Limonia acidissima। এটি রুটেসি গোত্রের উদ্ভিদ। ইংরেজিতে কৎবেলকে Elephant Apple[৩] বা Monkey fruit নামে ডাকা হয়।

বিবরণ[সম্পাদনা]

কয়েতবেল বড় ধরনের গাছ। গাছের ছাল খসখসে এবং কাঁটাযুক্ত হয়। গাছগুলি ৯ মিটার (৩০ ফুট) পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে। কয়েতবেল গাছের পাতাগুলি পক্ষল এবং এতে ৫ থেকে ৭ টি করে পাতা থাকে। প্রতিটি পাতা ২৫ থেকে ৩৫ মিলিমিটার লম্বা এবং ১০ থেকে ২০ মিলিমিটার চওড়া হয়। পাতাগুলিকে পিষলে লেবুর মতো গন্ধ পাওয়া যায়। গাছে সাদা ফুল ফোটে এবং প্রতিটি ফুলে পাঁচটি পাপড়ি থাকে। ফলটি ৫ থেকে 9 সেমি ব্যাসের হয়া এটি টক বা এটি মিষ্টি স্বাদের হতে পারে। এটির বাইরের আবরণ খুব শক্ত, তাই খোলাটি ফাটানো সহজ হয় না। ফলের বাইরের রঙ সবুজাভ বাদামী রঙের হয়। ভেতরের শাঁসটি আঠালো এবং বাদামি রঙের দেখতে। শাঁসের মধ্যে ছোট সাদা বীজ থাকে।

কয়েতবেল ফল

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

কয়েতবেলের আদি নিবাস ভারত (আন্দামান দ্বীপপুঞ্জ সহ), বাংলাদেশ এবং শ্রীলঙ্কা[৪][৫] এই প্রজাতিটির চাষ ইন্দোচিন এবং মালয়েশিয়াতেও চালু করা হয়েছে।[৫]

ব্যবহার[সম্পাদনা]

কয়েতবেলের শাঁস থেকে ফলের রস তৈরি করা হয়। কয়েতবেলের শাঁস থেকে জ্যাম তৈরি হয়। এই ফলের রসে অ্যাস্ট্রিজেন্ট ধর্ম রয়েছে। পাকা ফলে কেবল সবুজ মরিচ, চিনি এবং লবণ ছড়িয়ে আচার হিসাবে ব্যবহার হয়।[৬]

পুষ্টিগুণ[সম্পাদনা]

কয়েতবেলে যথেষ্ট পরিমাণে প্রোটিন, শ্বেতসার, আয়রন, স্নেহ পদার্থ, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন-বি এবং সি ইত্যাদি রয়েছে।

কয়েতবেলের পুষ্টিগুণ(অপ্রক্রিয়াকরণ অবস্থায়)
প্রতি ১০০ গ্রাম (৩.৫ আউন্স)-এ পুষ্টিমান
শক্তি৫১৮.৮১৬ কিজু (১২৪.০০০ kcal)
১৮.১ g
চিনি০ g
খাদ্য আঁশ৫ g
৩.৭ g
৭.১ g
ভিটামিনপরিমাণ দৈপ%
থায়ামিন (বি)
৩%
০.০৪ মিগ্রা
রিবোফ্লাভিন (বি)
১৪১৭%
১৭ মিগ্রা
নায়াসিন (বি)
৫৩%
৮ মিগ্রা
ভিটামিন সি
৪%
৩ মিগ্রা
খনিজপরিমাণ দৈপ%
ক্যালসিয়াম
১৩%
১৩০ মিগ্রা
লৌহ
৪৬%
৬ মিগ্রা
ম্যাঙ্গানিজ
৮৫৭%
১৮ মিগ্রা
জিংক
১০৫%
১০ মিগ্রা
অন্যান্য উপাদানপরিমাণ
পানি৬৪.২ g

in Fruit Wood Apple values are for edible portion
প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য মার্কিন সুপারিশ ব্যবহার করে শতাংশ অনুমান করা হয়েছে।
উৎস: 1

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Plant List: A Working List of All Plant Species"। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১৫ 
  2. B. C. Stone, D. H. Nicolson (নভেম্বর ১৯৭৮)। "Arguments for Limonia acidissima L. (Rutaceae) and against Its Rejection as a nomen ambiguum"। Taxon। Taxon। 27 (5/6): 551–552। জেস্টোর 1219924ডিওআই:10.2307/1219924 
  3. "Limonia acidissima"জার্মপ্লাজম রিসোর্স ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক (জিআরআইএন)কৃষি গবেষণা পরিসেবা (এআরএস), মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগ (ইউএসডিএ)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০৩ 
  4. "Limonia acidissima L."Plants of the World OnlineRoyal Botanic Gardens, Kew। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৫ 
  5. Smith, Albert C. (১৯৮৫)। Flora Vitiensis nova : a new Flora of Fiji (spermatophytes only)3। Lawaii, Hawaii: Pacific Tropical Botanical Garden। পৃষ্ঠা 526–527। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-২৫Biodiversity Heritage Library, digitized by Smithsonian Libraries-এর মাধ্যমে। 
  6. Jaya Surya Kumari Manthena and K. Mythili (2004). "Development of wood apple pickle". Int. J. Food Safety, Nutrition and Public Health, Vol. 5, No. 1, 2014. Retrieved 2019-06-09.


বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]