কায়েস ইবনে সাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কায়েস ইবনে সাদ
আরবি: قيس بن سعد‎‎
উপাধি: আল আনসারি
জন্মস্থানমদিনা, হেজাজ
নৃতাত্ত্বিক পরিচয়হেজাজি আরব
পরিচিতিমুহাম্মাদ স. এর অনুগত সাহাবী
প্রভাবমুহাম্মাদ, আলী ইবনে আবু তালিব
মৃত্যু৫৯ হিজরি (৬৭৮/৭৯ খ্রিস্টাব্দ)
কবরমদিনা, হেজাজ
পিতাসাদ ইবনে উবাইদাহ
ভাইবোনভাই: সাইদ ইবনে সাদ
ধর্মইসলাম

কায়েস ইবনে সাদ (আরবি: قيس بن سعد‎‎ ) মুহাম্মাদের সাহাবাদের মধ্যে অবস্থান দখল করে আছেন। তাকে মুসলিম সেনাবাহিনীর অন্যতম প্রধান নেতা হিসাবে দেখা হয়। কয়েস ইবনে সাদ যুদ্ধে অটল প্রতিরক্ষার জন্য পরিচিত ছিলেন। তিনি ইসলামী নবী মুহাম্মদের অন্যতম সাহাবী হওয়ার গৌরব অর্জন করেছিলেন। কায়েস আলী ইবনে আবি তালিবেরও অন্যতম অনুগত সাথী ছিলেন। [১][২]

জন্ম এবং প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

কায়েস ইবনে সাদ মদিনা নগরীতে মুহাম্মদ স. এর সময়ে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা সাদ ইবনে উবাদাহকাজরজা গোত্রের নেতা ছিলেন (যে গোত্র তাদের উদারতার জন্য পরিচিত ছিল)। [২]

ইসলাম ধর্ম গ্রহণের আগে কায়েস ইবনে সা'দ এতই ছিলো কৌশলী ছিলো যে কেউ তাকে হারাতে পারতো না। [২] তিনি তার চতুরতা দিয়ে মদীনা ও এর আশেপাশের লোকদের দ্রুত-পরিবর্তনের জন্য ব্যবহার করতেন।

ইসলামে রূপান্তর[সম্পাদনা]

সা'দ ইসলাম গ্রহণের পরে তিনি মুহাম্মদের সাথে কয়েসের পরিচয় করিয়ে দেন। [২] সা'ম মুহাম্মদকে বলে,

"এখন থেকে এ আপনার চাকর" " [২]

কয়েস যে গুণাবলীর অধিকারী ছিলেন তাতে মুহাম্মদ খুশী হন। [২] কায়েস তখন তার পাশে বসেছিল। মুহাম্মদ তখন কয়েসকে বললেন,

"এই জায়গাটি সারা জীবন আপনার জন্য থাকবে" [২]

কায়েস যখন ইসলাম গ্রহণ করেছিলেন, তখন তিনি তার জীবন, দৃষ্টিভঙ্গি, দৃষ্টি এবং দৃষ্টিভঙ্গি পুরোপুরি পরিবর্তন করেছিলেন। [২] ইসলামের মাধ্যমে কায়েস শিখেছে কীভাবে লোকদের সাথে আন্তরিকতার সাথে আচরণ করা যায় এবং প্রতারণার আশ্রয় না নিতে শেখেন। তিনি লোকদের সাথে আচরণের ক্ষেত্রে তাঁর সমস্ত চতুরতা ত্যাগ করেন এবং একজন সত্য ও আন্তরিক মুসলমান হওয়ার জন্য নিজেকে নিবেদিত করেন। যাইহোক, তাঁর জীবনের এমন কিছু মুহূর্ত ছিল (কঠিন পরিস্থিতিতে) যেখানে তিনি মানুষকে ধোকা দেওয়ার জন্য তাঁর ধূর্ত ক্ষমতাগুলি ব্যবহার করার জন্য প্রলুব্ধ হন। কিন্তু, ইসলাম ধর্মের প্রতি কায়েসের আন্তরিকতা তাকে প্রলোভনগুলিকে কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করেছিল। তিনি নিজেই বলেছেন,

"যদি এটি ইসলাম না থাকত তবে আমি আমার কূটকৌশলটি সমস্ত আরবকে পরাভূত করতে ব্যবহার করতাম।" [২]
"আমি যদি নবীকে কূটকৌশল ও ছলনা জাহান্নামে বাস করতে না শুনতাম তবে আমি জাতির কূটকৌশলী মানুষ হতাম।"

কায়েসের উপাধি[সম্পাদনা]

কায়েসকে আল-আনসারী উপাধি দেওয়া হয়েছিল। [৩] আল-আনসারী অর্থ সাহায্যকারী।

কায়েসের বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

কিসের পরিবার তাদের উদারতার জন্য সুপরিচিত ছিল। এমনকি মুহাম্মদ তাদের বক্তব্য দিয়ে প্রশংসা করেছেন,

"উদারতা এই পরিবারের প্রভাবশালী বৈশিষ্ট্য" " [২]

প্রাক-ইসলামী আরবীয় রীতি ছিল ধনী ব্যক্তিরা দিনের বেলা অনুসন্ধান ও যাত্রীদের তাদের বাড়িতে খাবার ও বিশ্রাম খেতে আসার জন্য ডাকার জন্য একটি উচু স্থানে জন্য একজন আহবানকারীকে (ঘোষককে) দাঁড় করে রাখতেন। [২] অপরিচিতদের যেখানে খাবার পরিবেশন করা হত সেখানে দেখাশোনা করার জন্য রাতের বেলা আহবানকারীরা আগুন জ্বালাত। প্রাক-ইসলামী আরবের সময় লোকেরা বলত,

"যিনি চর্বিযুক্ত মাংস পছন্দ করেন তাকে অবশ্যই দুলাইম ইবনে হারতিথনের বাড়িতে যেতে হবে।" [২]

দুলাইম কায়েসের দাদা ছিলেন। [২] উদারতার জন্য খ্যাতিমান পরিবারে বেড়ে ওঠা কায়েসও উদারতার বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হন। কায়েসের উদারতা তার চতুরতাকেও গেল। কয়েস তাঁর দাতব্য কাজের জন্যও পরিচিত ছিলেন। এটি নথিভুক্ত আছে যে একদিন আবু বকর এবং উমর রা বললেন,

"আমরা যদি এই ছেলেটিকে উদার ভাবে খরচ করতে দেই তবে সে তার বাবার সম্পদ নিঃশেষ করবে।" যখন তার পিতা, সা'দ ইবনে উবাদাহ তাদের মন্তব্য শুনে উত্তর দিলেন যে, "আবু কুহাফা এবং ইবনে আল-খাত্তাবকে আমার ছেলেকে কৃপণ হতে উত্সাহিত করার চেষ্টা করা উচিত হয়নি।" [২]

কায়েসের উদারতা বোঝাতে, কায়েস কোনও ব্যক্তিকে (বাজে সময়ের মুখোমুখি হয়েছিলো সে) প্রচুর পরিমাণে

ঋণ দিয়েছিল। যখন ঋণ পরিশোধের সময় এল তখন লোকটি কায়েস তাকে যে টাকা ধার দিয়েছিল তা ফেরত দিতে গেল। তবে কয়েস এই টাকা ফেরত নিতে অস্বীকার করে বলেছিল,

"আমি যা দেই তা আমি কখনই ফিরিয়ে নিই না।" [২]

এটি জানা যায় যে কায়েস তীক্ষ্ণ বুদ্ধিমান এবং সম্পদশালীও ছিলেন। [২] কায়েসের ঐতিহ্যবাহী আরব নেতার বৈশিষ্ট্য ছিল কিন্তু দাঁড়ি ছিলো না। আনসাররা কয়েসকে মজা করে এই কথাটি বলেছিল:

"কেবল যদি আমরা তাকে দাড়ি কিনে দিতে পারতাম।" [২]

মিশরের গভর্নর[সম্পাদনা]

ইমাম আলী মিশরের গভর্নর হওয়ার জন্য কায়েস ইবনে সা'দকে বেছে নিয়েছিলেন। [১][৪] উইলফার্ড মাদেলুঙ তাঁর মুহাম্মাদ: এ স্ট্যাডি অভ দ্য আর্লি খিলাফত গ্রন্থে কায়েস ইবনে সা'দকে মিশরের গভর্নর হিসাবে নিযুক্ত করার বিষয়ে আলোচনা করেছেন।

ইমাম আলি মুহাম্মদ ইবনে আবু হুদায়েফার উপরে কয়েসকে বেছে নিয়েছিলেন, যাকে মিশরীয় বিদ্রোহীরা তাদের নেতা হিসাবে দেখেছিল এবং আল ফুস্তাতের নিয়ন্ত্রণ ছিল। [১]

সামরিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

শুরতা আল-খামিস[সম্পাদনা]

কায়েস ইবনে সাদ ইরাকের ইমাম আলী এবং আহলে বাইতকে সমর্থনকারী সামরিক ইউনিট শুরতা আল-খামিসের সেনাপতি ছিলেন। [৫] শুরতা আল-খামিস চল্লিশ হাজার লোকের সমন্বয়ে গঠিত হয়েছিল যারা ব্যক্তিগতভাবে ইমাম আলীর অনুগত ছিল।

সিফফিনের যুদ্ধ[সম্পাদনা]

সিফফিনের যুদ্ধে কায়েস মুয়াবিয়ার বিরুদ্ধে ইমাম আলীর পক্ষে ছিলেন[২] কায়েস সিফফিনের যুদ্ধে ইমাম আলীর সাথে যোগ দিতে যাওয়ার সময় ইমাম আলীর অন্যতম গভর্নর সাহল ইবনে হুনাইফের সাথে যোগ দিয়েছিলেন। [১] কয়েস ইমাম আলীর সেনাবাহিনীর অন্যতম কমান্ডার নিযুক্ত হন; তিনি বসরার পদাতিক সৈন্যদের পরিচালনা করেন। [৪] কায়েসকে ১০,০০০ এরও বেশি লোকের একটি বাহিনী দেওয়া হয়েছিল। সিফফিনের যুদ্ধের ষষ্ঠ দিন কায়েস ইবনে সা'দ আল-আনসারী যুদ্ধ করার জন্য সেনাবাহিনীর সাথে ইবনে ধিল-কালা এবং তাঁর দলটির বিরুদ্ধে এগিয়ে আসেন। তীব্র লড়াই শুরু হয়। যুদ্ধের সময় কায়েস বসে থাকতেন এবং মানসিকভাবে মুয়াবিয়া এবং তার সেনাবাহিনীকে সবচেয়ে খারাপভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করে তোলার উপায় ভাবতেন। তিনি কৌশলগুলো সম্পর্কে যত বেশি চিন্তা করেছিলেন, ততই তিনি উপলব্ধি করেছিলেন যে সেগুলি মন্দ এবং বিপজ্জনক। কয়েস নিজেকে আল্লাহর পবিত্র বাণী স্মরণ করিয়ে দিয়েছে:

"তবে দুষ্ট চক্রান্ত কেবলমাত্র তাকে ঘিরে রাখে যিনি এটি তৈরি করেন।" (সুরা ফাতির ৩৫:৪৩)

ফলস্বরূপ, কায়েস চক্রান্তগুলি বাতিল করে দিয়ে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন। [২]

আলী-এর শাহাদাতের পর[সম্পাদনা]

সুলাইম ইবনে কয়েস বলেছেন:

"মুয়াবিয়া তাঁর খিলাফতের সময় হজ্ব পালন করতে এসেছিলেন। সেটা ছিল ইমাম আলী হত্যার পরে এবং ইমাম হাসানের সাথে শান্তিচুক্তির পরে। মদীনাবাসীরা (মদিনার লোকেরা) তাকে গ্রহণ করেছিল। তাদের মধ্যে ছিলেন কায়েস ইবনে সাদ, যিনি আনসার (সহায়ক) এবং তাদের প্রধানের পুত্র ছিলেন। সুতরাং তাদের মধ্যে (কায়েস ইবনে সা'দ ও মুআবিয়া) একটি আলোচনা হয়েছিল । [৬]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

কয়েস ৫৯ হিজরিতে (৬৭৮-৬৭৯ খ্রিস্টাব্দ) মদীনায় মারা যান।

উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

মুহাম্মদ স. এর সাথী আনাস ইবনে মালিক বলেছেন, "কায়েস ইবনে সা'দ ইবনে উবদাহ নবীজীর কাছে ছিলেন একজন সেনাপতি কাছে একজন শীর্ষ কর্মকর্তার মতো ।" [২]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Madelung, Wilferd. The Succession to Muḥammad: A Study of The Early Caliphate. Cambridge: Cambridge University Press, 1997. Print. আইএসবিএন ০৫২১৬৪৬৯৬০ pp. 152, 153, 190, 191, and 192 উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Cambridge University Press" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Cambridge University Press" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Cambridge University Press" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  2. Khalid, Muhammad Khali, and Khalid Muhammad Khalid. Men Around The Messenger. Kuala Lumpur: Islamic Book Trust, 2005. Print. আইএসবিএন ৯৮৩৯১৫৪৭৩৭ pp. 276–280 উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Islamic Book Trust" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  3. Daly, M. W., and Carl F. Petry, eds. The Cambridge History of Egypt. United Kingdom: Cambridge UP, 1998. Print. আইএসবিএন ০৫২১৪৭১৩৭০ p. 68
  4. Ibn Abu Talib, Ali. Sermons from Imam Ali, Nahj al-Balagha. N.p.: Sohale Sizar, n.d. Print. pp. 67, 123, 124, and 181
  5. Morony, Michael G. Iraq after the Muslim Conquest. Piscataway, New Jersey: Gorgias Press LLC, 2005. Print. আইএসবিএন ১৫৯৩৩৩৩১৫৩ p. 94
  6. Aal-Yasin, Radi. Sulh Al-Hasan: The Peace Treaty of Al-Hasan. Qum, Iran: Ansariyan, 2000. Print. Ch. 21

গ্রন্থ-পঞ্জী[সম্পাদনা]