এম মোজাম্মেল হক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বিচারপতি মোঃ মোজাম্মেল হক
এম মোজাম্মেল হক.jpeg
সাবেক সংসদ সদস্য ও বিচারপতি
কাজের মেয়াদ
২০০১ – ২০০৬
প্রধানমন্ত্রীখালেদা জিয়া
সিরাজগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
২০০১ – ২০০৬
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১ ডিসেম্বর ১৯৩৫
বেলকুচি সিরাজগঞ্জ
মৃত্যু১৭ অক্টোবর ২০১৮
ইব্রাহিম কার্ডয়াক হাসপাতাল ঢাকা
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল
পেশারাজনীতিবিদ ও আইনজীবী

বিচারপতি মোঃ মোজাম্মেল হক ছিলেন একজন বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী। তিনি ছিলেন বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের সাবেক বিচারপতি এবং সিরাজগঞ্জ-৫ আসন থেকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপির) প্রার্থী হিসেবে ২০০১-এর নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। [১]

জন্ম ও শিক্ষা জীবন[সম্পাদনা]

বিচারপতি মোজাম্মেল হক ১৯৩৫ সালের ১ ডিসেম্বর সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি থানার সুবর্ণসারা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগ থেকে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভ করেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন।[২]

কর্ম জীবন[সম্পাদনা]

বিচারপতি মোজাম্মেল হক ১৫ সেপ্টেম্বর ১৯৬২ সালে হাইকোর্টের সনদ এবং সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হন।

১৯৮৮ সালের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি পদে নিয়োগ পান এবং ২০০০ সাল পর্যন্ত বিচারপতি হিসাবে নিযুক্ত ছিলেন।[৩] ২০০০-২০০৭ পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত চার দলীয় জোট মনোনীত (বিএনপির) সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচির আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন।[৪]

পারিবারিক পরিচয়[সম্পাদনা]

এএম মোজাম্মেল হকের ছেলে ও এক মেয়ে আমেরিকা প্রবাসী। তার বড় মেয়ে জেবুন্নেসা সহকারী মতিঝিল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সহকারী শিক্ষক। অপর মেয়ে কামরুন্নেসা গৃহিণী।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

বিচারতি মোঃ মোজাম্মেল হক ১৭ অক্টোবর ২০১৮ সাল বুধবার ভোর ৪টার দিকে রাজধানীর ইব্রাহিম কার্ডয়াক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। বার্ধক্যজনিত কারণ ছাড়াও বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন তিনি।[৫][৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]