ইস্টবেঙ্গল মাঠ

স্থানাঙ্ক: ২২°৩৩′৩৪″ উত্তর ৮৮°২০′৩৮″ পূর্ব / ২২.৫৫৯৪৭৯° উত্তর ৮৮.৩৪৩৮৫৪° পূর্ব / 22.559479; 88.343854
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইস্ট বেঙ্গল গ্রাউন্ড
East Bengal ground.jpg
ইস্ট বেঙ্গল গ্রাউন্ড
প্রাক্তন নামন্যাশনাল এস গ্রাউন্ড
অবস্থানময়দান (কলকাতা)
স্থানাঙ্ক২২°৩৩′৩৪″ উত্তর ৮৮°২০′৩৮″ পূর্ব / ২২.৫৫৯৪৭৯° উত্তর ৮৮.৩৪৩৮৫৪° পূর্ব / 22.559479; 88.343854
গণপরিবহনKolkata bus.png এসপ্ল্যানেড বাস টার্মিনাস
Indian Railways Suburban Railway Logo.svg ইডেন গার্ডেন
Kolkata Metro Logo.svg Kolkata Metro Rail Corporation Logo.svg এসপ্ল্যানেড
মালিকএসসি ইস্টবেঙ্গল
ধারণক্ষমতা২৩,৫০০[১] (সর্বাধিক অনুমোদন ৪০,০০০ জন)
আয়তন১০০ মিটার বাই ৬০ মিটার
(১০৯.৪ ইয়াড x ৬৫.৬ ইয়াড)
উপরিভাগঘাস
স্কোরবোর্ডহ্যাঁ (ম্যানুয়াল)
নির্মাণ
পুনঃসংস্কার১২ জুলাই ১৯৯৬
১ অগাস্ট ২০১৬
ভাড়াটে

ইস্টবেঙ্গল গ্রাউন্ডটি এসসি ইস্টবেঙ্গলের ঘরের মাঠ বা স্টেডিয়াম। স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা ২৩,৫০০ জন। এটি কলকাতা ফুটবল লীগের অন্যতম একটি মাঠ।

স্টেডিয়ামটি ফোর্ট উইলিয়ামের উত্তর পাশের কলকাতা ময়দান অঞ্চলে ও এটি ইডেন গার্ডেনের কাছে অবস্থিত। কলকাতা মেট্রোর উত্তর-দক্ষিণ করিডোরের এসপ্ল্যানেড মেট্রো স্টেশনটিও নিকটেই অবস্থিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯২০ সালে যখন ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবটি গঠিত হয়, তখন তারা প্রাথমিক দিনগুলিতে কুমোরটুলি পার্ক মাঠে খেলত। ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবটি ১৯২২ সালে কলকাতা ফুটবল লীগের দ্বিতীয় বিভাগে খেলতে শুরু করে। বেশিরভাগ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় কলকাতা এফসি গ্রাউন্ডে। ১৯২৩ মরসুমের পরে ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবের মালিকরা তাদের নিজস্ব একটি ক্লাব মাঠের সন্ধানে শুরু করেন, যেখানে দলটি তাদের ম্যাচ খেলতে পারবে। মায়দানের বিদ্যমান নিয়ম অনুসারে, দুটি ক্লাব একটি সাধারণ মাঠে ব্যবহার করত। ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ও তৎকালীন সহ-রাষ্ট্রপতি শ্রী সুরেশচন্দ্র চৌধুরী এবং রায়বাহাদুর তরীভূষণ রায় জানতে পেরেন যে মোহনবাগান তার মাঠ জাতীয় সংস্থার সাথে ভাগ করে নিয়েছে, যা তৎক্ষণাৎ সেই সময়ে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। তারা এই তাৎপর্যকে পুলিশ কর্তৃপক্ষের কাছে উল্লেখ করে এবং পরবর্তীকালে ইস্ট বেঙ্গলের অংশীদার দাবি করে। এরপরেই পুলিশ কমিশনার চার্লস টেগার্ট মোহনবাগানকে তার মাঠটি ইস্ট বেঙ্গলের সাথে ভাগ করে নেওয়ার নির্দেশ দেন। হঠাৎ করে এই সিদ্ধান্তে মোহনবাগান কর্মকর্তারা ক্ষুব্ধ হন। যাইহোক, তাদের প্রতিবাদ সত্ত্বেও, ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবটি ১৯২৪ সালে নিজস্ব জমি পায়, যা তারা ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত তাদের চিরো-প্রতিদ্বন্দ্বী মোহনবাগানের সাথে একসাথে ভাগ করে নিয়েছিল, অবশেষে মোহনবাগান তাদের নিজস্ব মোহনবাগান মাঠে চলে আসে। সেই দিনগুলিতে, গোলপোস্টগুলি পূর্ব-পশ্চিমে স্থাপন করা হয় এবং ইস্ট বেঙ্গল রেড রোডের দিকে অর্ধেকটি দখল করে নিয়েছিল।[২] আর এক শতাব্দী প্রাচীন কলকাতা ক্লাব এরিয়ান এফ.সি. তখন থেকেই ক্লাবের মাঠটি ভাগাভাগি করে ব্যবহার শুরু করে।

সম্বন্ধে[সম্পাদনা]

কলকাতা ফুটবল লিগের সময় ২০১৯ সালে ইস্টবেঙ্গল মাঠ
ইস্টবেঙ্গল গ্রাউন্ড সদস্য গ্যালারি

ইস্টবেঙ্গল মাঠে তিন দিকে গ্যালারি রয়েছে। পশ্চিম দিকে আধুনিক সুবিধা যেমন বালতি সিট ও লিফটের সাথে সদস্য গ্যালারি রয়েছে। পশ্চিম দিকের অর্ধেক এরিয়ান এফ.সি এর সাথে ভাগাভাগি করা হয়েছে, যেখান তাদের বালতির আসনে আবৃত সদস্যদের গ্যালারিও আছে, যা ইস্ট বেঙ্গল এফ.সি এর ম্যাচের জন্য একটি অ্যাওয়ে গ্যালারি হিসেবে কাজ করে। পূর্ব পার্শ্ব ও উত্তর দিকের গ্যালারি এখনও অস্থায়ী কাঠ ও ইস্পাত কাঠামো দিয়ে তৈরি এবং অ-সদস্য সমর্থকদের বসার জন্য ব্যবহৃত হয়। খেলার পিচের মাত্রা বা পরিমাপ প্রায় ১০০ মিটার x ৬০ মিটার। স্টেডিয়াম সংলগ্ন সদস্য গ্যালারির নিচে ক্লাব তাঁবু এবং প্রধান কার্যালয় অবস্থিত। ২০১৪ সালে ক্লাব তাঁবু সদস্যদের গ্যালারির ঠিক পাশে সমর্থকদের জন্য তাদের নিজস্ব ক্যাফে লাউঞ্জ খুলে দেওয়া হয়।[৩]

সংস্কার[সম্পাদনা]

১৯৯৬ সালে প্রথম সংস্কার[সম্পাদনা]

১৯৯৬ সালের ১২ জুলাই কলকাতা ময়দানে পরিচিত নতুন ক্লাব অফিস বা তাঁবুর উদ্বোধন করেন ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের প্রবীণতম সদস্য। তৎকালীন ক্লাব সচিব শ্রী দীপক "পোল্টু" দাস শ্রী শঙ্কর পিল্লাইকে (শঙ্কর মালি নামে পরিচিত) এই সম্মান প্রদান করেন, যিনি ক্লাবের প্রবীণতম গ্রাউন্ডসম্যান এবং তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন। তিনি আহমেদ খান ও ব্যোমকেশ বসুর মত ক্লাব কিংবদন্তিদের উপস্থিতিতে নতুন ক্লাব তাঁবুর উদ্বোধন করেন।

ক্লাব মাঠ সংস্কার করা হয় এবং একটি নতুন অফিস স্থাপন করা হয়। খেলার মাঠ পুনরায় উত্তর থেকে দক্ষিণে করা হয় এবং নতুন সমর্থক গ্যালারি নির্মিত হয়।

২০১৬ সালের পরে দ্বিতীয় সংস্কার[সম্পাদনা]

পুরো খেলার মাঠ পুনর্নির্মাণ করার সময় ২০১৬ সালে মাঠের সংস্কার করা হয় এবং সদস্যদের গ্যালারি লাল ও সোনালী রঙের বালতি আসন স্থাপনের সাথে গ্যালারি সংস্কার করা হয়।


২০১৯ সালে কলকাতা ফুটবল লীগের সময় ইস্টবেঙ্গল গ্রাউন্ডের একটি প্যানোরামা দৃশ্য। ছবিতে সদস্যদের গ্যালারি ও উত্তর গ্যালারি দেখাচ্ছে।

অন্যান্য ব্যবহার[সম্পাদনা]

ইস্ট বেঙ্গল গ্রাউন্ডের বিন্যাসট

ইস্ট বেঙ্গল গ্রাউন্ডে আইএফএ শিল্ড, কলকাতা ফুটবল লিগ এবং বিভিন্ন অনূর্ধ্ব-লিগের বিভিন্ন ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়ছে। এটি ২০১৯ ডুরান্ড কাপের জন্য বেশ কয়েকটি ম্যাচের আয়োজন করেছে।

এটি ১৯৮৪ সালে নেহেরু কাপ খেলতে আসা আর্জেন্টিনা ফুটবল দলের অনুশীলনের ক্ষেত্র হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

খেলাধুলার ছাড়া অনুষ্ঠান[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Home Ground"East Bengal FC। ৯ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৯ 
  2. "History"East Bengal FC। ৯ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৯ 
  3. "Slice of Heaven opens East Bengal Cafe Lounge in Kolkata"Retail 4 Growth। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৪। ৯ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৯ 
  4. "Dilwale East Bengal let SRK host event at their ground for free"The Fan Garage। ১০ ডিসেম্বর ২০১৫। ৯ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]