ইস্কান্দার মির্জা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
Iskander Mirza
ইস্কান্দার মীর্জা
اسکندر مرزا
Iskander Mirza.jpg
পাকিস্তানের ১ম রাষ্ট্রপতি
অফিসে
২৩ মার্চ ১৯৫৬ – ২৭ অক্টোবর ১৯৫৮
প্রধানমন্ত্রী চৌধুরী মুহাম্মদ আলি
হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী‌
ইবরাহিম ইসমাইল চুন্দ্রিগড়
ফিরোজ খান নুন
পূর্বসূরী দ্বিতীয় এলিজাবেথ
পাকিস্তানের রাণী হিসেবে
উত্তরসূরী আইয়ুব খান
পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল
অফিসে
৭ আগস্ট ১৯৫৫ – ২৩ মার্চ ১৯৫৬
ভারপ্রাপ্ত: ৭ আগস্ট ১৯৫৫ – ৬ অক্টোবর ১৯৫৫
রাষ্ট্রশাসক দ্বিতীয় এলিজাবেথ
প্রধানমন্ত্রী চৌধুরী মুহাম্মদ আলি
পূর্বসূরী মালিক গোলাম মুহাম্মদ
উত্তরসূরী বিলুপ্ত
অভ্যন্তরীণ মন্ত্রী
অফিসে
২৪ অক্টোবর ১৯৫৪ – ৭ আগস্ট ১৯৫৫
প্রধানমন্ত্রী মুহাম্মদ আলি বগুড়া
পূর্বসূরী মুশতাক আহমেদ গুরমানি
উত্তরসূরী এ কে ফজলুল হক
পূর্ব বাংলার গভর্নর
অফিসে
৩১ মার্চ ১৯৫০ – ৩১ মার্চ ১৯৫৩
Chief Minister নুরুল আমিন
পূর্বসূরী চৌধুরী খালিকুজ্জামান
উত্তরসূরী মুহাম্মদ শাহাবউদ্দিন (ভারপ্রাপ্ত)
পাকিস্তানের ১ম প্রতিরক্ষা সচিব
অফিসে
২৩ অক্টোবর ১৯৪৭ – ৬ মে ১৯৫৪
প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলি খান
খাজা নাজিমুদ্দিন
মোহাম্মদ আলী বগুড়া
পূর্বসূরী বিলুপ্ত
উত্তরসূরী আকতার হুসাইন
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (১৮৯৯-১১-১৩)১৩ নভেম্বর ১৮৯৯
মুর্শিদাবাদ, বাংলা প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
(বর্তমান পশ্চিমবঙ্গ, ভারত)
মৃত্যু ১৩ নভেম্বর ১৯৬৯(১৯৬৯-১১-১৩) (৭০ বছর)
লন্ডন, ইংল্যান্ড, যুক্তরাজ্য
রাজনৈতিক দল স্বতন্ত্র
দাম্পত্য সঙ্গী রিফাত বেগম (১৯২২-১৯৬৭)
নাহিদ আমিরতিমুর(১৯৫৪-১৯৬৯)
সন্তান
প্রাক্তন ছাত্র এলফিনস্টোন কলেজ
রয়েল মিলিটারি একাডেমি সেন্ডহার্স্ট‌
ধর্ম ইসলাম
সামরিক পরিষেবা
কার্যকাল ১৯২০–১৯২৮
পদ US-O8 insignia.svg মেজর জেনারেল
কমান্ড সেনা পুলিশ শাখা (মিলিটারী পুলিশ কোর)
যুদ্ধ ওয়াজিরিস্তান যুদ্ধ
ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ ১৯৪৭

সাহেবজাদা সাইয়িদ ইস্কান্দার আলি মির্জা CIE, OBE English IPA: ɪskɑndæɾ əɪiː mi(ə)ɹzə (বাংলা: ইস্কান্দার মীর্জা; উর্দু: اسکندر مرزا‎‎; ১৩ নভেম্বর ১৮৯৯ – ১৩ নভেম্বর ১৯৬৯) ছিলেন পাকিস্তানের প্রথম রাষ্ট্রপতি। তিনি ১৯৫৬ থেকে ১৯৫৮ সাল পর্যন্ত এই পদে দায়িত্বপালন করেন। এর পূর্বে ১৯৫৫ থেকে ১৯৫৬ সাল পর্যন্ত তিনি পাকিস্তানের শেষ গভর্নর জেনারেল হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন।[১] পিতার দিক থেকে ইস্কান্দার মির্জা মীর জাফরের বংশধর ছিলেন।[২] তিনি সেনাবাহিনীতে যোগ দেন এবং পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে মেজর জেনারেল পদে অবসর নেন।

ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কিছুকাল অবস্থান করার পর ইস্কান্দার মির্জা ইন্ডিয়ান পলিটিকাল সার্ভিসে যোগ দেন। ১৯৪৬ সালে তিনি ভারতের জয়েন্ট সেক্রেটারি হন। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলি খান তাকে প্রতিরক্ষা সচিব হিসেবে নিয়োগ দেন। বাংলা ভাষা আন্দোলনের পর পূর্ব পাকিস্তানে অস্থিরতা দেখা দিলে খাজা নাজিমুদ্দিন তাকে প্রদেশের গভর্নর নিযুক্ত করেন। ১৯৫৫ সালে মালিক গোলাম মুহাম্মদের পর তিনি পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেলের দায়িত্ব লাভ করেন। ১৯৫৬ সালে সংবিধান প্রণয়নের পর তিনি প্রথম রাষ্ট্রপতি হন। তার রাষ্ট্রপতিত্বকালে রাজনৈতিক অস্থিরতা বিরাজ করছিল। ১৯৫৮ সালে তিনি সংবিধান স্থগিত করে সামরিক আইন জারি করেন। সেনাপ্রধানকে প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক নিযুক্ত করা হয়। রাজনীতিতে সামরিক বাহিনীর প্রভাব তার সময়ে শুরু হয়। সামরিক আইন জারির বিশ দিন পর প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক আইয়ুব খান তাকে ক্ষমতা থেকে অপসারণ করেন। ইস্কান্দার মির্জা লন্ডনে নির্বাসিত হন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Story_of_Pakistan_.28Part-I.29 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; Westview_Press.2C_1997 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি


অফিস[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক দপ্তর
নতুন অফিস পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা সচিব
১৯৪৭–১৯৫৪
উত্তরসূরী
আকতার হুসাইন
পূর্বসূরী
চৌধুরী খালিকুজ্জামান
পূর্ব বাংলার গভর্নর
১৯৫৪–১৯৫৫
উত্তরসূরী
মুহাম্মদ শাহাবউদ্দিন
ভারপ্রাপ্ত
পূর্বসূরী
মুশতাক আহমেদ গুরমানি
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী
১৯৫৪–১৯৫৫
উত্তরসূরী
এ কে ফজলুল হক
পূর্বসূরী
মালিক গোলাম মুহাম্মদ
পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল
১৯৫৫–১৯৫৬
বিলুপ্ত
নতুন অফিস পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি
১৯৫৬–১৯৫৮
উত্তরসূরী
আইয়ুব খান

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]