আল-ওয়ালা ওয়াল-বারা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

আল-ওয়ালা ওয়া-ল-বারা (আরবি: ٱلْوَلَاءُ وَٱلْبَرَاءُ‎‎) হল ইসলামের সাথে যুক্ত একটি ধারণা, বিশেষ করে সালাফী এবং ওয়াহাবি চিন্তাধারায়। এর আক্ষরিক অর্থ হল "আনুগত্য এবং অস্বীকৃতি", যা আল্লাহর জন্য ভালবাসা এবং ঘৃণাকে বোঝায়।[১][২][৩]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

আল-ওয়ালা 'ওয়া-ল-বারা'কে বলা হয় আল্লাহর সন্তুষ্টিজনক সবকিছুকে দৃঢ়ভাবে ধরে রাখা এবং আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য যা কিছু আল্লাহর অপছন্দনীয় তা থেকে সরে আসা এবং বিরোধিতা করা। সরে আসা ও বিরোধিতার কারণ হল তাদের আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণ ব্যতীত অন্য কিছুর দিকে আহ্বান করার জন্য, তা ইচ্ছাকৃতভাবে হোক বা অবিশ্বাসের প্রকৃতির দ্বারা হোক। আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য ভালবাসার অর্থ হল আল্লাহকে ভালবাসা এবং তাঁর শরিয়াহ অনুসরণ করে তাঁর প্রতি আনুগত্য প্রদর্শন করা। এর অর্থ হল কুরআন এবং সুন্নাহ-এ যা কিছু ভালো এবং অনুমোদিত সব কিছুকে ভালোবাসা। এই ধরনের ভালবাসার জন্য একজনকে আল্লাহর দ্বীনকে বিরোধীদের আক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করতে হয় এবং তা সংরক্ষণ করতে হয়। এর মানে হলো যারা আল্লাহর আনুগত্য করে তাদের ভালবাসা এবং তাদের রক্ষা ও সাহায্য করা। আল্লাহর জন্য ঘৃণা করা মানে যারা আল্লাহ, তাঁর রাসূল, তাঁর দ্বীন এবং মুমিনদের বিরোধিতা করে তাদের প্রতি ক্রোধ প্রকাশ করা।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ধারণাটি কোরআন থেকে উদ্ভূত হয়েছে, এবং ওয়েজমেকারসের মতে প্রথম দিকের গোষ্ঠীগুলো, বিশেষ করে ইবাদি এবং খাওয়ারিজ আন্দোলন থেকে এর উদ্ভব হয়। পরবর্তীতে এটি শিয়াদের সাথেও যুক্ত হয়। সুন্নিরা এমন একটি ধারণা সম্পর্কে কম উত্সাহী ছিল কারণ এ ধারণার প্রবক্তারা প্রচলিত ধর্মমতের বিরোধী গোষ্ঠীর সাথে যুক্ত ছিল এবং হাম্বলি মাযহাবের প্রতিষ্ঠাতা, আহমদ ইবনে হাম্বল (মৃত্যু ২৪১ হি/৮৫৫ খ্রি) নির্দিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি "আনুগত্য এবং অস্বীকৃতি"কে প্রত্যাখ্যান করেছেন এবং এটিকে বিদআত হিসাবে ঘোষণা করেছেন। যাইহোক, কয়েকশ বছরের মধ্যে, হাম্বলী পন্ডিত ইবনে তাইমিয়া (মৃত্যু. ৭২৮ হি/১৩২৮ খ্রি.) এই ধারণাটি গ্রহণ করেন যাতে নিশ্চিত করার জন্য যে মুসলমানরা স্থানীয় অমুসলিমদের ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানগুলিকে অস্বীকার করে সরল পথে অটল রয়েছে। মুহাম্মদ ইবনে আবদ আল-ওয়াহহাব (মৃত্যু ১৭৯২ খ্রিস্টাব্দ) ইবনে তাইমিয়ার শিক্ষার দ্বারা প্রভাবিত হয়ে এই মতবাদ শিক্ষা দেন যা পরবর্তীকালে ওয়াহাবিবাদ এবং আধুনিক সালাফিবাদ-এ একটি কেন্দ্রীয় স্থান লাভ করে।[৫][৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bin Ali, Mohamed. "The Islamic Doctrine of Al-Wala'wal Bara'(Loyalty and Disavowal) in Modern Salafism." (2012).
  2. Brachman, Jarret. "The threat of international terrorism: Trends and challenges." III Jornadas internacionales sobre terrorismo y antiterrorismo. Fundación Manuel Giménez Abad de Estudios Parlamentarios y del Estado Autonómico, 2008.
  3. Wagemakers, Joas. "Revisiting Wiktorowicz." Cavatorta, Francesco und Fabio Merone (Hg.) (2017): 7-24.
  4. Al-Qahtani, Muhammad Saeed. Al-Wala'Wa'l-Bara According To The Aqeedah Of The Salaf. sb, 1999.
  5. Brachman, Jarret. "The threat of international terrorism: Trends and challenges." III Jornadas internacionales sobre terrorismo y antiterrorismo. Fundación Manuel Giménez Abad de Estudios Parlamentarios y del Estado Autonómico, 2008.
  6. Wagemakers, Joas. "Revisiting Wiktorowicz." Cavatorta, Francesco und Fabio Merone (Hg.) (2017): 7-24.