অনিলচন্দ্র রায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অনিলচন্দ্র রায়
জন্ম(১৯০১-০৫-২৬)২৬ মে ১৯০১
মানিকগঞ্জ, বয়রা, ঢাকা, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু৬ জানুয়ারি ১৯৫২(1952-01-06) (বয়স ৫০)[১]
জাতীয়তাভারতীয়
প্রতিষ্ঠানশ্রীসঙ্ঘ, ফরওয়ার্ড ব্লক
আন্দোলনভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন
দাম্পত্য সঙ্গীলীলা রায়

অনিলচন্দ্র রায় (জন্ম: মে ২৬, ১৯০১ - মৃত্যু:জানুয়ারি ৬ ১৯৫২) একজন বাঙালি রাজনীতিবিদস্বাধীনতা সংগ্রামী ছিলেন। তিনি একজন প্রখর বিপ্লবী, উগ্র রাজনৈতিক চিন্তাবিদ, নিঃস্বার্থ সমাজকর্মী, দার্শনিক এবং ব্যতিক্রমী দক্ষতার সাহিত্যিক ছিলেন।[২]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

অনিলচন্দ্র রায় ঢাকার, মানিকগঞ্জ, বয়রা গ্রামের এক বাঙালি হিন্দু মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, যা বর্তমানে বাংলাদেশে। তাঁর পিতা-মাতা অরুণচন্দ্র এবং শরতকুমারী দেবী ছিলেন।[৩] অরুণচন্দ্র রায় সরকারি শিক্ষাবিভাগে উচ্চ পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। তাদের পৈতৃক বাড়ি নবাবগঞ্জ থানার গোবিন্দপুর গ্রামে অরুণচন্দ্র তাঁর চাকরির জায়গায় ঢাকা শহরের বক্সী বাজারে একটি বাড়ি কিনেছিলেন। অনিলচন্দ্র রায় ১৯১৭ সালে ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল থেকে পাস করেন। ১৯২১ সালে তিনি ঢাকা কলেজ থেকে স্নাতক পাস করেন এবং ১৯২৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজিতে এমএ পাস করেন। তিনি ছাত্র থাকাকালীন বিপ্লবী হেমচন্দ্র ঘোষের দলে যোগদান করেছিলেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

প্রথমে তিনি রামকৃষ্ণ মিশনের স্বামী ব্রাহ্মানন্দ ও স্বামী প্রেমানন্দের সংস্পর্শে এসেছিলেন এবং স্বামী বিবেকানন্দের অনুপ্রাণিত হয়ে তিনি সমাজ কল্যাণলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। সমাজসেবায় তিনি দরিদ্র প্রাপ্তবয়স্ক এবং মুসলমানদের রাতের বেলা পড়াতেন। অনিলচন্দ্র রায় ও ডঃ জ্ঞানচন্দ্র ঘোষ সমাজ কল্যাণলীগের সেক্রেটারি এবং চেয়ারম্যান ছিলেন।ছাত্রাবস্থায় বিপ্লবী ‘শ্রীসংঘ’ দলে যোগ দেন ও পরে তিনি নেতৃত্ব দেন। তিনি মহিলাসংগঠনের জন্য রাজনৈতিক দিকটিকে অবহেলা করেননি। বিপ্লবী নেতাদের মধ্যে সম্ভবত তিনিই প্রথম কল্পনা করেছিলেন যে আমাদের স্বাধীনতা-সংগ্রামে নারীদেরও স্বতন্ত্র ভূমিকা রয়েছে এবং একটি রাজনৈতিক সংগঠনে তাদের পুরুষ প্রতিপক্ষ হিসাবে গুরুত্বপূর্ণ। তাঁর মাধ্যমে শ্রীসংঘে একগুচ্ছ মহিলারা যোগদান করেছিলেন। ১৯৩০ সালে প্রথম কারারুদ্ধ হন। মুক্তিলাভের পর তিনি সুভাষচন্দ্রর প্রতিষ্ঠিত ফরওয়ার্ড ব্লক-এর সদস্য হন। সুভাষচন্দ্র পরিচালিত হলওয়েল মনুমেণ্ট অপসারণ আন্দোলনে যোগদান করেন। ১৩ ই মে ১৯৩৯ সালে লীলা নাগ (লীলা রায়) নামে শীর্ষস্থানীয় নারী বিপ্লবীকে বিয়ে করেছিলেন। ১৯৪০ সালে আবার কারারুদ্ধ হন এবং মুক্তি পাবার সঙ্গে সঙ্গেই ভারতরক্ষাবিধানে পুনরায় গ্রেফতার হন। ফরওয়ার্ড ব্লক বিভক্ত হয় তাতে অনিলচন্দ্র সুভাষবাদী দলের সদস্য ও নেতা হন। তাঁর রচিত নেতাজীর জীবনবাদ’, ‘ধর্ম ও বিজ্ঞান’, ‘সমাজতন্ত্রীর দৃষ্টিতে মার্কসবাদ’ প্রভৃতি গ্রন্থে পাণ্ডিত্যের পরিচয় পাওয়া যায়। ইতিহাস ও ঐতিহ্যের পরিপ্রেক্ষিতে জাতীয়তাবাদ ও সমাজবাদের সমন্বয়ের প্রচেষ্টক ছিলেন। তিনি 'নেতাজির ডাক' নামে একটি নৃত্যনাট্য রচনা ও পরিচালনা করেছিলেন, নবগিতিকা - তাঁর রচনাবলীর একটি সংকলন ছিল। তিনি ১৯৫২ সালের ৬ই জানুয়ারি ক্যান্সারে মারা যান।[৪]

সাহিত্যকর্ম[সম্পাদনা]

  • নেতাজীর জীবনবাদ
  • ধর্ম ও বিজ্ঞান
  • সমাজতন্ত্রীর দৃষ্টিতে মার্কসবাদ

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, সম্পাদনাঃ সুবোধচন্দ্র সেনগুপ্ত এবং অঞ্জলি বসু, ১ম খণ্ড, সংশোধিত পঞ্চম সংস্করণ, সাহিত্য সংসদ, ২০১০, কলকাতা
  2. peoplepill.com। "About Anil Chandra Roy: Bengali freedom fighter (1901 - 1952) | Biography, Facts, Career, Wiki, Life"peoplepill.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২৩ 
  3. রায়, প্রকাশ (২০২১)। বিস্মৃত বিপ্লবীচেন্নাই: নোশনপ্ৰেস, চেন্নাই, তামিলনাড়ু। 
  4. "Revolutionary Anil Roy – Jayasree Patrika" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৩-২৩