এসপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এসপ
Αἴσωπος
Aesop pushkin01.jpg
রোমের ভিলা আলবানি’র চিত্র সংগ্রহশালায় হেলেনীয় ভাস্কর্য্যে এসপ
জন্ম আনুমানিক খ্রিস্ট-পূর্ব ৬২০
মৃত্যু আনুমানিক খ্রিস্ট-পূর্ব ৫৬৪
জাতি প্রাচীন গ্রীক অথবা, সম্ভবতঃ ইথিওপিয়ার কৃষ্ণাঙ্গ আফ্রিকান[১]
ধরণ উপ-কথা
উল্লেখযোগ্য রচনাসমূহ অনেকগুলো উপ-কথা যা একত্রিত হয়ে এসপের উপ-কথা নামে পরিচিত

এসপ (/ˈsɒp/ EE-sop; প্রাচীন গ্রিকΑἴσωπος; জন্ম: খ্রিস্টপূর্ব ৬২০ - খ্রিস্টপূর্ব ৫৬৪) বিখ্যাত ও প্রাচীন গ্রীক লেখক ছিলেন। খ্রিস্ট-পূর্ব ষষ্ঠ শতকে তিনি পশু-প্রাণীদের ঘিরে অনেকগুলো উপ-কথা বা কল্পকাহিনী মুখে বলার মাধ্যমে অনেকগুলো নীতি-কথা ব্যক্ত করে আধুনিক বিশ্বে অমর হয়ে রয়েছেন। একসময় তিনি থ্রাসে দাসত্ব থেকে মুক্তি লাভ করেছিলেন। প্রাণীসম্পর্কীয় চরিত্র, স্থির বিষয়াবলীকে ঘিরে রচিত উপ-কথা ব্যক্ত করে মানবচরিত্রের সমস্যার সমাধান করতে পারঙ্গমতা প্রদর্শন করেছেন। এ উপ-কথাগুলোর সাথে তাঁর নামও যুক্ত হয়ে আছে এবং মৌখিকভাবে দীর্ঘ সময় ধরে প্রবাহিত হচ্ছে। ইন্দো-ইউরোপীয় জনগোষ্ঠীর সাধারণ জীবনধারায় এ উপ-কথাগুলোর ভূমিকা অপরিসীম। এছাড়াও বিশ্বসাহিত্য অঙ্গনেও এর জনপ্রিয়তা অসম্ভব আকারে রয়েছে। রহস্যাবৃত চরিত্রের অধিকারী এসপকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ উপ-কথাসাহিত্যিক হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়।[২]

গ্রীক ও রোমান লেখকেরা এসপের উপ-কথাগুলোকে গদ্য কিংবা পদ্যে ধারাবাহিকভাবে লিখে গেছেন। তন্মধ্যে, এসপের উপ-কথাগুলো কবি বাব্রিয়াস কর্তৃক হেলেনীয় রোমান সময়কালে ১ম অথবা ২য় শতকে গ্রীক শ্লোকে পুণঃলিখিত হয়। রোমান কবি ফায়েদ্রাস ল্যাটিন ভাষার শ্লোকে ১ম শতকে রচনা করেছেন। বাব্রিয়াসের উপ-কথাগুলোও এসপের নামধারণ করেছে।

আধুনিক ইউরোপে প্রচলিত উপ-কথাগুলো বাইজেন্টাইন সন্ন্যাসী ম্যাক্সিমাস প্ল্যানুডেসের ল্যাটিন সংস্করণ থেকে আহুত। সংস্কৃত ভাষায় পঞ্চতন্ত্র শিরোনামে খ্রীস্ট-পূর্ব ৩য় শতক থেকে খ্রীষ্ট পরবর্তী ৪র্থ শতকের মধ্যে ভারতীয় লেখক বিষ্ণুশর্মা লিখেছেন। পঞ্চতন্ত্র কমপক্ষে ৫০টি ভাষায় দুই শতাধিক সংস্করণে লিখিত হয়েছে।

জীবনী[সম্পাদনা]

বাস্তবিক অর্থে জনপ্রিয় গ্রীক উপ-কথা লেখক এসপের জীবন সমন্ধে কোনকিছুই জানা যায়নি বা খুব কমই জানা গেছে। তাঁকে উপ-কথার জনক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। যে-কোন ধরনের তথ্য বিভিন্ন পৌরাণিক উপাখ্যান ও লোকমুখে তাঁর সম্বন্ধে তুলে ধরা হয়েছে। তিনি খুব সহজেই সাধারণ জনগণের কাছাকাছি চলে এসেছেন এবং নিজস্ব প্রজ্ঞা ও বুদ্ধিমত্তা তুলে ধরেছেন বিভিন্ন হাস্য উদ্দীপক ও মজাদার গল্প বলার মাধ্যমে। ইউরোপের উপ-কথাগুলোয় এসপের সৃষ্ট উপ-কথাগুলোকে ঘিরে রচিত হয়েছে। তবে, তাঁর জীবনভিত্তিক তথ্যগুলোর তেমন কোন ভিত্তি নেই।

খুব সম্ভবতঃ খ্রিস্ট-পূর্ব ৬০০ সালে তিনি জীবিত ছিলেন। এসপের জন্মস্থান নিয়ে বেশ বিতর্ক রয়েছে। থ্রেস, ফ্রিজিয়া, এথিওপিয়া, সামোস, এথেন্স এবং সার্দিস - শহরগুলোর প্রত্যেকেই তাঁর জন্মস্থানের সম্মাননার দাবীদার।[৩] মনে করা হয় যে, তিনি দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের থ্রেস অঞ্চলে জন্মগ্রহণ করেছেন যা বর্তমান গ্রীস ও তুরস্কের মধ্যবর্তী অংশে অবস্থিত। তিনি জীবনের অধিকাংশ সময়ই এশিয়া মাইনর উপকূলের নিকটবর্তী সামোস দ্বীপে দাসত্বজীবনে আবদ্ধ ছিলেন। সচরাচর জান্থাস নামীয় এক ব্যক্তিকে তাঁর প্রভু হিসেবে মনে করা হয়।[৪] দাসজীবন স্বত্ত্বেও তিনি তাঁর প্রভুর ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে আবির্ভূত হতেন ও স্বাধীনতা বিষয়ে ব্যাপক আলোচনায় লিপ্ত হতেন। আদালতে তিনি তাঁর সহজাত উপ-কথা বলার দক্ষতা ও বিভিন্ন বিষয়ের যুক্তিসঙ্গতা নিরূপণ করতে পারঙ্গমতা প্রদর্শন করেছেন।

বলা হয়ে থাকে যে, তিনি ফ্রিজিয়া থেকে এসেছেন। এসপ গ্রীক দাস ছিলেন। বিভিন্ন ব্যক্তিকে প্রভু মেনে তাদের সেবা করেছেন। তিনি সামোসের সামিয়ান ইয়াদমন নামীয় এক প্রভুর ক্রীতদাস ছিলেন ও তাঁর কাছ থেকে অবশেষে মুক্তি লাভ করেন।[৫] পরবর্তীতে তিনি রাজা ক্রোইসাসের দরবার আনীত হন। রাজা ক্রোইসাস এসপের ব্যক্তিত্বের প্রখরতা ও বুদ্ধিমত্তা যাঁচাই করে আশ্চর্যান্বিত হন এবং তাঁকে বিভিন্ন জায়গায় প্রেরণ করেন। ডেলফি গমনের একপর্যায়ে স্থানীয় পুরোহিতদের নিজস্ব মনগড়া আইনের মাধ্যমে তাঁকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

বিখ্যাত ইতিহাসবেত্তা হিরোডোটাসও তাঁর হত্যার বিষয়ে কোন কারণ উল্লেখ করেননি। পরবর্তীকালে অনেক লেখকই তাঁর অবজ্ঞাসূচক দৃষ্টিভঙ্গী, ডেলফিতে টাকা ছড়ানো, রৌপ্যনির্মিত পেয়ালা চুরি ইত্যাদি বিষয়াবলী এ হত্যাকাণ্ডে ইন্ধন জুগিয়েছে বলে ধারণা করেছেন।

এসপের উপ-কথা[সম্পাদনা]

এসপের উপ-কথা বা এসপিকায় এসপের উপ-কথাগুলোকে সংরক্ষিত রাখা হয়েছে। এ উপ-কথাগুলো অদ্যাবধি জনপ্রিয় হয়ে আছে ও শিশুদেরকে নৈতিক শিক্ষা দিয়ে থাকে। অনেক গল্প এসপের উপ-কথায় স্থান পেয়েছে। এসপের বিখ্যাত অনেকগুলো উপ-কথার একটি উপ-কথা হচ্ছে খেঁকশিয়াল ও আঙ্গুর। এতে একটি ক্ষুধার্ত খেঁকশিয়াল কিছু পাকা আঙ্গুরের সন্ধান পায়। কিন্তু নাগালের বাইরে থাকায় টক ঘোষণা করে খেঁকশিয়ালটি চলে যেতে বাধ্য হয়। ১৮৭৯ সালে এ উপ-কথার স্থিরচিত্র অঙ্কন করা হয়েছিল। এ নীতি-কথার মাধ্যমে তিনি বোঝাতে চেয়েছেন যে, কোন কিছু আমাদের আয়ত্বের বাইরে থাকলে প্রায়শই তা ঘৃণা বা অবজ্ঞা প্রদর্শন করে চলে যেতে বাধ্য হই। এছাড়াও, এ উপ-কথা থেকেই আঙ্গুর ফল টক প্রবাদ-প্রবচনটি উদ্ভূত হয়েছে।

রাজহাঁস ও সোনার ডিম উপ-কথায় ব্যক্তি কর্তৃক রাজহাঁস হত্যার বিষয়ে বর্ণিত হয়েছে। প্রতিদিন সকালে এক ব্যক্তির রাজহাঁস একটি করে সোনার ডিম পাড়ে। গৃহকর্তা ডিমগুলো বিক্রয় করে ধনী হতে থাকে। যতই সে ধনী হয়, ততোই সে লোভী হতে থাকে। একবারে সকল ডিম সংগ্রহের লোভে রাজহাঁসটিকে হত্যা করে। কিন্তু সে রাজহাঁসের মধ্যে কোন ডিমই খুঁজে পায়নি।

এছাড়া, কচ্ছপ ও খরগোশের উপ-কথাটি বিশ্বে অন্যতম উপ-কথা হিসেবে পরিচিত।

প্রভাব[সম্পাদনা]

এসপের উপ-কথাগুলো আজো নৈতিক শিক্ষা প্রদান করে থাকে। বিভিন্ন বিনোদনধর্মী ব্যবস্থা বিশেষতঃ শিশুদের খেলাধূলায় ও কার্টুনের বিষয়বস্তু হিসেবে এ উপ-কথাগুলো প্রয়োগ করা হয়।[৩] এসপ অত্যন্ত প্রতিভাবাপন্ন ব্যক্তি হিসেবে তাঁর এ সকল উপকথাগুলোকে উপস্থাপন করেছেন। এগুলোর মাধ্যমে তিনি অনেকগুলো স্মরণীয় উদাহরণের স্বাক্ষর রেখেছেন যাতে তাঁর নাম স্থান, কাল, পাত্রভেদে স্বর্ণালী অক্ষরে লিপিবদ্ধ হয়ে রয়েছে। পরবর্তীকালের লেখকগণ তাঁর এ সকল উপ-কথাগুলো সংগ্রহ করে বিশ্বসাহিত্যকে সমৃদ্ধ করে রেখে গেছেন যা নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবীদার। এ সকল উপকথাগুলোই পাশ্চাত্য সাহিত্য ও পল্লীসাহিত্যের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  • Adrado, Francisco Rodriguez, 1999-2003. History of the Graeco-Latin Fable (three volumes). Leiden/Boston: Brill Academic Publishers.
  • Anthony, Mayvis, 2006. The Legendary Life and Fables of Aesop.
  • Cancik, Hubert, et al., 2002. Brill's New Pauly: Encyclopaedia of the Ancient World. Leiden/Boston: Brill Academic Publishers.
  • Cohen, Beth (editor), 2000. Not the Classical Ideal: Athens and the Construction of the Other in Greek Art. Leiden/Boston: Brill Academic Publishers. Includes "Aesop, Between Man and Beast: Ancient Portraits and Illustrations" by François Lissarrague.
  • Dougherty, Carol and Leslie Kurke (editors), 2003. The Cultures Within Ancient Greek Culture: Contact, Conflict, Collaboration. Cambridge University Press. Includes "Aesop and the Contestation of Delphic Authority" by Leslie Kurke.
  • Driberg, J.H., 1932. "Aesop", The Spectator, vol. 148 #5425, June 18, 1932, pp. 857–8.
  • Hansen, William (editor), 1998. Anthology of Ancient Greek Popular Literature. Bloomington: Indiana University Press. Includes The Aesop Romance (The Book of Xanthus the Philosopher and Aesop His Slave or The Career of Aesop), translated by Lloyd W. Daly.
  • Hägg, Tomas, 2004. Parthenope: Selected Studies in Ancient Greek Fiction (1969-2004). Copenhagen: Museum Tusculanum Press. Includes Hägg's "A Professor and his Slave: Conventions and Values in The Life of Aesop", first published in 1997.
  • Hansen, William, 2004. Review of Vita Aesopi: Ueberlieferung, Sprach und Edition einer fruehbyzantinischen Fassung des Aesopromans by Grammatiki A. Karla. Bryn Mawr Classical Review 2004.09.39.
  • Holzberg, Niklas, 2002. The Ancient Fable: An Introduction, translated by Christine Jackson-Holzberg. Bloomington & Indianapolis: Indiana University press.
  • Keller, John E., and Keating, L. Clark, 1993. Aesop's Fables, with a Life of Aesop. Lexington: University of Kentucky Press. English translation of the first Spanish edition of Aesop from 1489, La vida del Ysopet con sus fabulas historiadas including original woodcut illustrations; the Life of Aesop is a version from Planudes.
  • Kurke, Leslie, 2010. Aesopic Conversations: Popular Tradition, Cultural Dialogue, and the Invention of Greek Prose. Princeton University Press.
  • Leake, William Martin, 1856. Numismata Hellenica: A Catalogue of Greek Coins. London: John Murray.
  • Loveridge, Mark, 1998. A History of Augustan Fable. Cambridge University Press.
  • Lobban, Richard A., Jr., 2002. "Was Aesop a Nubian Kummaji (Folkteller)?", Northeast African Studies, 9:1 (2002), pp. 11–31.
  • Lobban, Richard A., Jr., 2004. Historical Dictionary of Ancient and Medieval Nubia. Lanham, Maryland: Scarecrow Press.
  • Panofka, Theodor, 1849. Antikenkranz zum fünften Berliner Winckelmannsfest: Delphi und Melaine. Berlin: J. Guttentag.
  • Papademetriou, J. Th., 1997. Aesop as an Archetypal Hero. Studies and Research 39. Athens: Hellenic Society for Humanistic Studies.
  • Penella, Robert J., 2007. Man and the Word: The Orations of Himerius." Berkeley: University of California Press.
  • Perry, Ben Edwin (translator), 1965. Babrius and Phaedrus. Cambridge: Harvard University Press.
  • Philipott, Tho. (translator), 1687. Aesop's Fables with His Life: in English, French and Latin. London: printed for H. Hills jun. for Francis Barlow. Includes Philipott's English translation of Planudes' Life of Aesop with illustrations by Francis Barlow.
  • Reardon, B.P. (editor), 1989. Collected Ancient Greek Novels. Berkeley: University of California Press. Includes An Ethiopian Story by Heliodorus, translated by J.R. Morgan, and A True Story by Lucian, translated by B.P. Reardon.
  • Snowden, Jr., Frank M., 1970. Blacks in Antiquity: Ethiopians in the Greco-Roman Experience. Cambridge: Harvard University Press.
  • Temple, Robert and Olivia (translators), 1998. Aesop: The Complete Fables. New York: Penguin Books.
  • van Dijk, Gert-Jan, 1997. Ainoi, Logoi, Mythoi: Fables in Archaic, Classical, and Hellenistic Greek. Leiden/Boston: Brill Academic Publishers.
  • West, M.L., 1984. "The Ascription of Fables to Aesop in Archaic and Classical Greece", La Fable (Vandœuvres–Genève: Fondation Hardt, Entretiens XXX), pp. 105–36.
  • Wilson, Nigel, 2006. Encyclopedia of Ancient Greece. New York: Routledge.
  • Zanker, Paul, 1995. The Mask of Socrates: The Image of the Intellectual in Antiquity. Berkeley: University of California Press.

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Anonymous, 1780. The History and Amours of Rhodope. London: Printed for E.M Diemer.
  • Caxton, William, 1484. The history and fables of Aesop, Westminster. Modern reprint edited by Robert T. Lenaghan (Harvard University Press: Cambridge, 1967). Includes Caxton's Epilogue to the Fables, dated March 26, 1484.
  • Compton, Todd, 1990. "The Trial of the Satirist: Poetic Vitae (Aesop, Archilochus, Homer) as Background for Plato's Apology", The American Journal of Philology, Vol. 111, No. 3 (Autumn, 1990), pp. 330–347. Baltimore: The Johns Hopkins University Press.
  • Daly, Lloyd W., 1961. Aesop without Morals: The Famous Fables, and a Life of Aesop, Newly Translated and Edited. New York and London: Thomas Yoseloff. Includes Daly's translation of The Aesop Romance.
  • Gibbs, Laura. "Life of Aesop: The Wise Fool and the Philosopher", Journey to the Sea (online journal), issue 9, March 1, 2009.
  • Sluiter, Ineke and Rosen, Ralph M. (editors), 2008. Kakos: Badness and Anti-value in Classical Antiquity. Mnemosyne: Supplements. History and Archaeology of Classical Antiquity; 307. Leiden/Boston: Brill Academic Publishers. Includes "Ugliness and Value in the Life of Aesop" by Jeremy B. Lefkowitz.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

এসপ সম্পর্কে আরও তথ্য পেতে হলে উইকিপিডিয়ার সহপ্রকল্পগুলোতে অনুসন্ধান করে দেখতে পারেন:

Wiktionary-logo-en.svg সংজ্ঞা, উইকিঅভিধান হতে
Wikibooks-logo.svg পাঠ্যবই, উইকিবই হতে
Wikiquote-logo.svg উক্তি, উইকিউক্তি হতে
Wikisource-logo.svg রচনা সংকলন, উইকিউৎস হতে
Commons-logo.svg ছবি ও অন্যান্য মিডিয়া, কমন্স হতে
Wikivoyage-Logo-v3-icon.svg ভ্রমণ নির্দেশিকা, উইকিভয়েজ হতে
Wikinews-logo.png সংবাদ, উইকিসংবাদ হতে

টেমপ্লেট:Aesop