১৯৯২ সালের বাংলাদেশের হিন্দু নির্যাতন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
১৯৯২’র বাংলাদেশ প্রোগ্রাম
স্থানবাংলাদেশ
তারিখ১৯৯২
লক্ষ্যবাঙালি হিন্দু
হামলার ধরনহত্যাযজ্ঞ, জোরপূর্বক ধর্মান্তর, লুটপাট, অপহরণ, অগ্নিসংযোগ,ধর্ষণ
হামলাকারী দলস্থানীয় মুসলিম জনগোষ্ঠী
কারণধর্মীয় অসহিষ্ণুতা, মুসলিম জনগোষ্ঠী দ্বারা হিন্দু জনগোষ্ঠীর উপর নির্মম হত্যাযজ্ঞ ধর্মীয় কারণে

১৯৯২’র বাংলাদেশ প্রোগ্রাম হল ভারতের বাবরী মসজিদ ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু হিন্দু ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের উপর ইসলামী মনোভাব সম্পন্ন মুসলিমদের সুপরিকল্পিত ভাবে চালানো একটি ধারাবাহিক নিপীড়ন ও নির্যাতন।এই ঘটনাক্রমের সূত্রপাত ঘটেছিল ১৯৮৯ সালে এবং ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত এর স্পষ্টতা লক্ষ্য করা যায়।তবে ১৯৯২ ও ১৯৯৩ সালের এর মাত্রা ছিল সবচেয়ে তীব্র।[১]

১৯৯২ সালের ৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশের জাতীয় মন্দির ঢাকেশ্বরী মন্দিরে হামলা করে মুসলিমরা।বাবরী মসজিদ ভাঙ্গার গুজবকে কেন্দ্র করে ১৯৯০ সালেও এই মন্দিরে হামলা করেছিল মুসলিমরা।এছাড়া দুর্বিত্তরা ঢাকার ভোলানাথগিরি আশ্রমেও আক্রমণ,লুটপাট ও ভাংচুর চালায়।[২]পুরনো ঢাকার হিন্দু মালিকানাধীন স্বর্ণের দোকানগুলোতে লুটপাট করে মুসলিমরা।রায়েরবাজারের হিন্দু বাড়িঘর লুট করে আগুন ধরিয়ে দেয় তারা।[৩]

সার্ক চার জাতির ক্রিকেট টুর্নামেন্ট সমাপ্ত করা সম্ভব হয়নি।৭ ডিসেম্বর,বাংলাদেশ-এ এবং ভারতীয়-এ দলের মধ্যকার খেলা চলাকালীন সময়ে ঢাকা জাতীয় স্টেডিয়ামে (বর্তমান বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম) প্রায় ৫,০০০ উন্মত্ত মুসলিম জনতা লোহার রড,বাঁশের লাঠি,ছুরি, রাম দা নিয়ে আক্রমণ করে।[৪] পুলিশ কাঁদানে গ্যাস এবং রবার বুলেট ছুড়েও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেনি।ফলে ৮.১ ওভার খেলার পরেই খেলা পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয়।আয়োজকেরা ১০ ডিসেম্বরে পুনরায় খেলার সময়সূচী ঘোষণা করে। ১১ ডিসেম্বরে ভারতীয়-এ দল এবং পাকিস্তান- এদলের মধ্যে ফাইনাল ম্যাচ হবার কথা ছিল।কিন্তু উভয় খেলাই পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয়।[৫][৬]

৮ ডিসেম্বরে কক্সবাজার জেলার কুতুবদিয়া উপজেলার হিন্দুরা আক্রান্ত হয়।১৪ টি হিন্দু মন্দির লুটপাট,অগ্নিসংযোগ ও ধ্বংসের শিকার হয়। ৫১ টি হিন্দু বাড়ি ধ্বংস করা হয় আলী আকবর ডালে ও ৩০ টি ধ্বংস করা হয় চৌফলদানিতে। [৭] চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি ও মীরেরসরাইয়ের প্রত্যেকটি হিন্দু অধ্যুষিত গ্রাম সম্পূর্ণরূপে পুড়িয়ে দেয়া হয়।পঞ্চাননধাম এবং তুলসীধাম সহ পাঁচটি হিন্দু মন্দির ভাংচুর ও ধ্বংস করে দেয় মুসলিমরা।চট্টগ্রামে বাচুলিয়া এবং ইলিয়াস কলোনির হিন্দু মহিলাদেরকে ধর্ষণ ও অপহরণ করে মুসলিমরা। [২]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ghosh Dastidar, Sachi (2008). Empire's Last Casualty: Indian Subcontinent's vanishing Hindu and other Minorities. Kolkata: Firma KLM. p. 209. ISBN 81-7102-151-4.
  2. Amor, Abdelfattah (January 20, 1994). "Application de la Declaration sur l'Elimination de toutes le formes d'Intolerance et de Discrimination Fondees sur la Religion ou la Conviction". Vietnam Human Rights Network. Retrieved October 5, 2012.
  3. Kemp, Jeff (2004). Make or Break: Bangladesh in the 1990s. Edinburgh: Lame Duck Press. p. 13. ISBN 1-904896-02-2.
  4. "Bangladesh v India 'A' at Dhaka, 7 Dec 1992". cricinfo.com. Wisden CricInfo. Retrieved October 5, 2012.
  5. "Bangladesh v India 'A' at Dhaka, 10 Dec 1992". cricinfo.com. Wisden CricInfo. Retrieved October 5, 2012.
  6. "India 'A' v Pakistan 'A' at Dhaka, 11 Dec 1992". cricinfo.com. Wisden CricInfo. Retrieved October 5, 2012.
  7. Sarkar, Bidyut (1993). Bangladesh 1992 : This is our home : Sample Document of the Plight of our Hindu, Buddhist, Christian and Tribal Minorities in our Islamized Homeland : Pogroms 1987-1992. Bangladesh Minority Hindu, Buddhist, Christian, (and Tribal) Unity Council of North America. p. 67.