হিন্দুকুশ পর্বতমালা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হিন্দুকুশ পর্বতমালা
Range
আফগানিস্তানের হিন্দুকুশ পর্বতমালা
আফগানিস্তানের হিন্দুকুশ পর্বতমালা
দেশসমূহ আফগানিস্তান, পাকিস্তান
অঞ্চল পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয়
অংশ হিমালয়
সর্বোচ্চ বিন্দু Tirich Mir
 - উচ্চতা ৭,৬৯০ মিটার (২৫,২৩০ ফিট)
 - স্থানাঙ্ক ৩৬°১৪′৪৫″ উত্তর ৭১°৫০′৩৮″ পূর্ব / ৩৬.২৪৫৮৩° উত্তর ৭১.৮৪৩৮৯° পূর্ব / 36.24583; 71.84389
হিন্দুকুশের টপোগ্রাফিক চিত্র [১]
হিন্দুকুশের টপোগ্রাফিক চিত্র [১]

হিন্দুকুশ পর্বতমালা আফগানিস্তান এবং পাকিস্তানে অবস্থিত একটি পর্বতমালা। [২][৩] এটির পামির পর্বতমালা এবং কারাকোরাম পর্বতমালার একটি অংশ এবং হিমালয় পর্বতমালার একটি উপ-পর্বতমালা।[৪][৫][৬]

ফারসি অভিধান অনুযায়ী কুশ শব্দটির অর্থ মেরে ফেলা।[৭] প্রাচীনকালে হিন্দু ক্রীতদাসদেরকে এই পর্বতমালার মধ্য দিয়ে মধ্য এশিয়ার দিকে নিয়ে যাওয়ার সময় অধিকাংশ ক্রীতদাস রুক্ষ ও বৈরী আবহাওয়া সহ্য করতে না পেরে মারা যেত। সে জন্যই ধারণা করা হয়, এই পর্বতমালার নাম রাখা হয়েছে হিন্দুকুশ।[৮] এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকার মতে, হিন্দুকুশ শব্দটি প্রথম ব্যবহার করেন মধ্যযুগীয় পরিব্রাজক ইবন বতুতা। তবে এখনও আফগান পর্বতবাসীরা এই শব্দটি ব্যবহার করে থাকে।[৯]

মধ্য এশিয়ার এই পর্বতমালাটি মোটামুটি দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে প্রায় ১০০০ কিলোমিটার ধরে, আফগানিস্তানের সীমান্তে পামির পর্বতমালা থেকে শুরু হয়ে পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ এবং তাজিকিস্তান পর্যন্ত বিস্তৃত। পর্বতমালাটির বেশির ভাগ উত্তর-পূর্ব আফগানিস্তানে অবস্থিত।[১০] সর্বোচ্চ শৃঙ্গ তিরিচমির (৭,৩৯০ মিটার) পাকিস্তানে পড়েছে। গিরিসঙ্কট খাইবার পাস পাকিস্তান ও আফগানিস্তানকে সংযুক্ত করেছে। এই পথ দিয়েই ভারতীয় উপমহাদেশে বহিরাগত সেনারা সবচেয়ে বেশি আক্রমণ করেছে [১১][১২] এবং আফগানিস্তানে আধুনিক যুগের যুদ্ধের সময়ও গুরুত্ব অব্যাহত রয়েছে।[১৩][১৪] হিন্দুকুশ থেকে পারোপামিসুস পর্বতমালাসাফেদ কোহ পর্বতমালা আফগানিস্তানের ভেতর দিয়ে প্রসারিত প্রায় ইরান সীমান্ত পর্যন্ত চলে গেছে। গ্রানাইট ও কেলাসিত শিলাময় এই পর্বতমালাগুলি সম্ভবত টারশিয়ারি যুগে ভূমি থেকে উত্থিত হয়েছিল। এগুলির কিছু কিছু অংশে ক্রিটেশাস যুগের চুনাপাথর এবং সেনোজোয়ীয় যুগের কর্দমশিলার দেখা পাওয়া যায়।

পামিরের পশ্চিমে প্রথম ১৬০ কিমি হিন্দুকুশ পর্বতমালাটি দক্ষিণ দিকে অগ্রসর হয়েছে। এখানে পর্বতমালাটির শীর্ষ বেশ চওড়া, অনেকটা মালভূমির মত এবং এখানে অনেক হিমবাহজাত হ্রদ এবং সমুদ্র সমতল থেকে ৩,৮০০ থেকে ৫,৩০০ মিটার উচ্চতায় অনেক গিরিপথ দেখতে পাওয়া যায়। এরপর পর্বতমালাটি দক্ষিণ-পশ্চিমে মোড় নিয়েছে এবং এর উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এখানে মালভূমির পরিবর্তে খাড়া পর্বতশৃঙ্গের আবির্ভাব ঘটেছে। তিরিচমির ছাড়াও এখানকার আরও অনেকগুলি শৃঙ্গ ৬,১০০ মিটারেরও বেশি উচ্চতাবিশিষ্ট। এখানে রয়েছে বারোগিল, দোরাহ, এবং খাভাক গিরিপথ।

হিন্দুকুশ পর্বতমালা অনেক নদীর উৎসস্থল। এদের মধ্যে উত্তর ঢাল থেকে উৎপন্ন আমু দরিয়া নদী, এবং দক্ষিণ ঢাল থেকে উৎপন্ন হেলমান্দ নদী, কাবুল নদী,[১৫] কোনার নদী এবং সিন্ধু নদের অনেকগুলি উপনদী উল্লেখযোগ্য।

বামিয়ান বুদ্ধের মতো সাইটগুলির সাথে হিন্দু কুশ অঞ্চলটি বৌদ্ধ ধর্মের ঐতিহাসিকভাবে উল্লেখযোগ্য কেন্দ্র ছিল।[১৬] উনিশ শতক পর্যন্ত এটি বহুঈশ্বরবাদী বিশ্বাসের একটি শক্তিশালী দুর্গ ছিল।[১৭] এতে বিস্তৃত পরিসীমা এবং সম্প্রদায়গুলি প্রাচীন বিহার, গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য নেটওয়ার্ক এবং মধ্য এশিয়া এবং দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ভ্রমণকারীদের ধারণ করতো।[১৮][১৯]

গঠন[সম্পাদনা]

ভূতাত্ত্বিকভাবে, এই অঞ্চলটি গন্ডোয়ানা একটি অঞ্চল থেকে উপমহাদেশ গঠনের সময়ে পূর্ব আফ্রিকা থেকে প্রায় ১৬০ মিলিয়ন বছর আগে মধ্য জুরাসিক সমযলে সরে আসে[২০][২১] ভারতীয় উপমহাদেশ, অস্ট্রেলিয়া এবং ভারত মহাসাগরের দ্বীপগুলি আরও ছড়িয়ে পড়ে উত্তর-পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়, ভারতীয় উপমহাদেশ প্রায় ৫৫ মিলিয়ন বছর আগে প্যালেওসিনের শেষের দিকে ইউরেশিয়ান প্লেটের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।[২০] এই সংঘর্ষ হিন্দু কুশ সহ হিমালয়ের সৃষ্টি করেছিল।[২২]

হিন্দু কুশের পরিসীমা ভূতাত্ত্বিকভাবে সক্রিয় রয়েছে এবং এখনও বাড়ছে।[২৩] এটি ভূমিকম্পের ঝুঁকিপূর্ণ।[২৪][২৫]

নামের উৎপত্তি[সম্পাদনা]

ফার্সিতে "কুশ" (শোনা যায় কোশ) এর অর্থ একটি খোলা বা উন্মুক্ত অংশ।  হিন্দুস্তান হিন্দু কুশ পর্বতশ্রেণী অতিক্রম করার পরে শুরু হয়েছিল, এ কারণেই তারা এটিকে "হিন্দু কুশ" বলে ডাকে।  মুশকিল-কুশার অর্থ, অসুবিধা সমাধান করা।  "কোশ" এবং এর প্রকরণ "কুশ" এর অর্থ "খোলা", "কাশ" এর অর্থ পিষ্ট হওয়া বা হত্যা করা।[২৬][২৭][২৮][২৯][৩০][৩১][৩২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hindu Kush, Encyclopedia Iranica
  2. Mike Searle (২০১৩)। Colliding Continents: A geological exploration of the Himalaya, Karakoram, and Tibet। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 157। আইএসবিএন 978-0-19-165248-6 , Quote: "The Hindu Kush mountains run along the Afghan border with the North-West Frontier Province of Pakistan".
  3. George C. Kohn (২০০৬)। Dictionary of Wars। Infobase Publishing। পৃষ্ঠা 10। আইএসবিএন 978-1-4381-2916-7 
  4. "Hindu Kush Himalayan Region"। ICIMOD। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১৪ 
  5. "Mapping the vulnerability hotspots over Hindu-Kush Himalaya region to flooding disasters"Weather and Climate Extremes8: 46–58। ডিওআই:10.1016/j.wace.2014.12.001। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-০৬ 
  6. "Development of an ASSESSment system to evaluate the ecological status of rivers in the Hindu Kush-Himalayan region" (PDF)assess-hkh.at। ২০১৫-০৯-২২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৯-০৬ 
  7. Boyle, J.A. (১৯৪৯)। A Practical Dictionary of the Persian Language। Luzac & Co.। পৃষ্ঠা 129। 
  8. Encyclopedia Americana14। ১৯৯৩। পৃষ্ঠা 206। 
  9. Encyclopædia Britannica14 (15 সংস্করণ)। জুলাই ১৯৮৭। পৃষ্ঠা 238–240। 
  10. Heuberger, Stefan (২০০৪)। The Karakoram-Kohistan Suture Zone in NW Pakistan - Hindu Kush Mountain Range (ইংরেজি ভাষায়)। vdf Hochschulverlag AG। আইএসবিএন 978-3-7281-2965-9 
  11. Kinzl, Konrad H. (২০১০-০১-১১)। A Companion to the Classical Greek World (ইংরেজি ভাষায়)। John Wiley & Sons। আইএসবিএন 978-1-4443-3412-8 
  12. Wink, André (২০০২)। Al-Hind: The Slavic Kings and the Islamic conquest, 11th-13th centuries (ইংরেজি ভাষায়)। BRILL। আইএসবিএন 978-0-391-04174-5 
  13. Clements, Frank; Adamec, Ludwig W. (২০০৩)। Conflict in Afghanistan: A Historical Encyclopedia (ইংরেজি ভাষায়)। ABC-CLIO। আইএসবিএন 978-1-85109-402-8 
  14. Ryan, Michael (২০১৩-০৭-০৯)। Decoding Al-Qaeda's Strategy: The Deep Battle Against America (ইংরেজি ভাষায়)। Columbia University Press। আইএসবিএন 978-0-231-16384-2 
  15. Bloom, Jonathan; Blair, Sheila S.; Blair, Sheila (২০০৯-০৫-১৪)। Grove Encyclopedia of Islamic Art & Architecture: Three-Volume Set (ইংরেজি ভাষায়)। OUP USA। আইএসবিএন 978-0-19-530991-1 
  16. Battuta, Ibn (২০১০-০১-০১)। The Travels of Ibn Battuta: In the Near East, Asia and Africa (ইংরেজি ভাষায়)। Cosimo, Inc.। আইএসবিএন 978-1-61640-262-4 
  17. Cacopardo, Augusto S. (২০১৭-০২-১৫)। Pagan Christmas: Winter Feasts of the Kalasha of the Hindu Kush (ইংরেজি ভাষায়)। Gingko Library। আইএসবিএন 978-1-909942-85-1 
  18. Neelis, Jason (২০১০-১১-১৯)। Early Buddhist Transmission and Trade Networks: Mobility and Exchange Within and Beyond the Northwestern Borderlands of South Asia (ইংরেজি ভাষায়)। BRILL। আইএসবিএন 978-90-04-18159-5 
  19. Battuta, Ibn (২০১০-০১-০১)। The Travels of Ibn Battuta: In the Near East, Asia and Africa (ইংরেজি ভাষায়)। Cosimo, Inc.। আইএসবিএন 978-1-61640-262-4 
  20. Jones, Robert Wynn (২০১১-০৮-১৮)। Applications of Palaeontology: Techniques and Case Studies (ইংরেজি ভাষায়)। Cambridge University Press। আইএসবিএন 978-1-139-49920-0 
  21. van Hinsbergen, D. J. J.; Lippert, P. C.; Dupont-Nivet, G.; McQuarrie, N.; Doubrovine, P. V.; Spakman, W.; Torsvik, T. H. (২০১২-০৫-১৫)। "Greater India Basin hypothesis and a two-stage Cenozoic collision between India and Asia"Proceedings of the National Academy of Sciences (ইংরেজি ভাষায়)। 109 (20): 7659–7664। আইএসএসএন 0027-8424ডিওআই:10.1073/pnas.1117262109পিএমআইডি 22547792পিএমসি 3356651অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2012PNAS..109.7659V 
  22. Mukherjee, Soumyajit, editor. Carosi, R. (Rodolfo), editor. Beek, Peter van der, 1967- editor. Mukherjee, B. K. (Barun Kumar), editor. Robinson, D. M. (Delores M.), editor.। Tectonics of the Himalayaআইএসবিএন 978-1-86239-703-3ওসিএলসি 918876486 
  23. Beniston, Martin (২০০২)। Mountain Environments in Changing Climates (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। আইএসবিএন 978-1-134-85236-9 
  24. Clements, Frank; Adamec, Ludwig W. (২০০৩)। Conflict in Afghanistan: A Historical Encyclopedia (ইংরেজি ভাষায়)। ABC-CLIO। আইএসবিএন 978-1-85109-402-8 
  25. "Cause of Afghan Quake Is a Deep Mystery"National Geographic News (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-১০-২৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৭-২৫ 
  26. The National Geographic Magazine (ইংরেজি ভাষায়)। National Geographic Society। ১৯৫৮। 
  27. Metha, Arun (২০০৪)। History of Medieval India (ইংরেজি ভাষায়)। ABD Publishers। 
  28. McColl, R. W. (২০১৪-০৫-১৪)। Encyclopedia of World Geography (ইংরেজি ভাষায়)। Infobase Publishing। আইএসবিএন 978-0-8160-7229-3 
  29. Allan, Nigel J. R. (২০০১)। "Defining Place and People in Afghanistan"Post-Soviet Geography and Economics (ইংরেজি ভাষায়)। 42 (8): 545–560। আইএসএসএন 1088-9388ডিওআই:10.1080/10889388.2001.10641186 
  30. Runion, Meredith L. (২০১৭-০৪-২৪)। The History of Afghanistan, 2nd Edition (ইংরেজি ভাষায়)। ABC-CLIO। আইএসবিএন 978-1-61069-778-1 
  31. Weston, Christine (১৯৬২)। Afghanistan (ইংরেজি ভাষায়)। Scribner। 
  32. Knox, Barbara (২০০৪)। Afghanistan (ইংরেজি ভাষায়)। Capstone। আইএসবিএন 978-0-7368-2448-4 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

সম্পর্কিত পাঠ[সম্পাদনা]

  • Drew, Frederic (1877). The Northern Barrier of India: A Popular Account of the Jammoo and Kashmir Territories with Illustrations. Frederic Drew. 1st edition: Edward Stanford, London. Reprint: Light & Life Publishers, Jammu, 1971
  • Gibb, H. A. R. (1929). Ibn Battūta: Travels in Asia and Africa, 1325–1354. Translated and selected by H. A. R. Gibb. Reprint: Asian Educational Services, New Delhi and Madras, 1992
  • Gordon, T. E. (1876). The Roof of the World: Being the Narrative of a Journey over the High Plateau of Tibet to the Russian Frontier and the Oxus Sources on Pamir. Edinburgh. Edmonston and Douglas. Reprint: Ch’eng Wen Publishing Company. Tapei, 1971
  • Leitner, Gottlieb Wilhelm (1890). Dardistan in 1866, 1886 and 1893: Being An Account of the History, Religions, Customs, Legends, Fables and Songs of Gilgit, Chilas, Kandia (Gabrial) Yasin, Chitral, Hunza, Nagyr and other parts of the Hindukush, as also a supplement to the second edition of The Hunza and Nagyr Handbook. And An Epitome of Part III of the author's 'The Languages and Races of Dardistan'. Reprint, 1978. Manjusri Publishing House, New Delhi. আইএসবিএন ৮১-২০৬-১২১৭-৫