সুলায়মান খান কররানী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সুলায়মান খান কররানী (শাসনকাল ১৫৬৬-১৫৭২) ছিলেন বাংলার সুলতান। তার বড় ভাই তাজ খান কররানীর মৃত্যুর পর তিনি সুলতান হন।[১] রিয়াজুস সালাতিন অনুযায়ী তিনি গৌড় থেকে তান্ডায় রাজধানী সরিয়ে আনেন।[২]

সুলায়মান খান, তার ভাই তাজ খান কররানী ও সুলায়মান খানের দুই পুত্র বায়েজিদ খান কররানীদাউদ খান কররানী মোগলদের অনুগত একটী স্বল্পস্থায়ী রাজ্য শাসন করেন। আকবরের প্রতি আনুগত্য প্রদর্শনপূর্বক সুলায়মান খান অত্র এলাকায় কর্তৃত্ব স্থাপন করেন। আফগানরা আকবরের কাছে পরাজিত হওয়ার তার পতাকার অধীনে অবস্থান করে।

আকবরের সাথে সম্পর্ক[সম্পাদনা]

সুলায়মান খান তার শাসনামলে নিজ নামে মুদ্রা চালু করেননি। এই কাজের মাধ্যমে মোগলদের কাছ থেকে স্বাধীনতা ঘোষণা করা হত।[১] মসজিদে আকবরের নামে জুমার খুতবা পাঠের মাধ্যমে তিনি আকবরকে বাংলার সর্বোচ্চ শাসক হিসেবে মেনে নেন।[১] ইতিহাসবিদরা এই ঘটনাকে বাংলা ও মোগল সাম্রাজ্যের মধ্যকার কূটনৈতিক শান্তি স্থাপন হিসেবে দেখেন।[১]

উড়িষ্যা জয়[সম্পাদনা]

উত্তর ভারত ও দক্ষিণ ভারতের অংশবিশেষ মুসলিম শাসকদের অধীনে ছিল। তবে উড়িষ্যা তখনও মুসলিম শাসনের অধীনে আসেনি। ১৫৬৮ সালে সুলায়মান খান তার পুত্র বায়েজিদ খান কররানী ও তার বিখ্যাত সেনাপতি কালাপাহাড়কে উড়িষ্যা আক্রমণের জন্য পাঠান। কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ের পর উড়িষ্যা সুলায়মান খানের আওতায় আসে। কালাপাহাড় জগন্নাথ মন্দির আক্রমণ করেন ও পুরীর নিয়ন্ত্রণ লাভ করেন। সুলায়মান কররানী লোদি খান ও কুতলু খানকে যথাক্রমে উড়িষ্যা ও পুরীর গভর্নর নিয়োগ করেন।[৩]

কুচবিহার জয়[সম্পাদনা]

সুলায়মান খান কররানী এরপর তার সেনাপতি কালাপাহাড়কে কামতা (পরবর্তীতে মোগলদের অধীনে কুচ বিহার) প্রেরণ করেন। কালাপাহাড় ব্রহ্মপুত্র নদী অতিক্রম করেন এবং তেজপুর (বর্তমান দিনাজপুর জেলা) পর্যন্ত পৌছান। কালাপাহাড় কামতার সেনাপতি শুক্লধজকে পরাজিত ও বন্দী করেন।

মৃত্যু ও উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

সুলায়মান কররানী ৭ বছর শাসন করার পর ১৫৭২ সালের ১১ অক্টোবর মৃত্যুবরণ করেন। তার পুত্র বায়েজিদ খান কররানী এরপর সুলতান হন।

ধর্ম[সম্পাদনা]

সুলায়মান খান কররানী একজন ধার্মিক মুসলিম ছিলেন। পুরনো মালদার সোনা মসজিদ তিনি নির্মাণ করেন।[৩]

ইতিহাসবিদ আবদুল কাদির বাদাউনি উল্লেখ করেছেন যে সুলায়মান খান প্রতিদিন সকালে ১৫০ জন আলেমের সাথে ধর্মীয় আলাপ করতেন। এরপরই তিনি অন্যান্য বৈষয়িক বিষয়ে মনোনিবেশ করতেন।[৪]

পূর্বসূরী
তাজ খান কররানী
কররানী রাজবংশ
১৫৬৬-১৫৭২
উত্তরসূরী
বায়েজিদ খান কররানী

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hasan, Perween; Grabar, Oleg (২০০৭)। Sultans and Mosques: The Early Muslim Architecture of Bangladesh। I. B.Tauris & Company, Limited। আইএসবিএন 978-1-84511-381-0 
  2. Eaton, Richard M. (১৯৯৩)। The Rise of Islam and the Bengal Frontier, 1204-1760। Berkeley: University of California Press। পৃষ্ঠা 140–2। আইএসবিএন 0-520-20507-3  line feed character in |শিরোনাম= at position 33 (সাহায্য)
  3. "Sulaiman Khan Karrani in Banglapedia"। ৩০ নভেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জুলাই ২০১৪ 
  4. Abul Fazl Allami (translated by H. Blochman) (১৮৭৩)। Ain i Akbari। Calcutta।