সহিফা বানু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সহিফা বানু
জন্ম১৮৫৪
মৃত্যু১৯১২
যেখানের শিক্ষার্থীগভর্নিস পি. ব্যানার্জীর কাছে শিক্ষা লাভ করেন
পেশাকবি
যে জন্য পরিচিতসিলেট জেলার প্রথম কবি
দাম্পত্য সঙ্গীমোজাফফর চৌধুরী
সন্তাননিঃসন্তান
পিতা-মাতা
  • দেওয়ান আলী রাজা (পিতা)
  • নূরজাহান বিবি (মাতা)

হাজী সহিফা বিবি বা হাজী বিবি (১৮৫৪-১৯১২) সিলেট জেলার প্রথম মহিলা কবি। তিনি একাধিক গ্রন্থ রচনা করেছেন। প্রাকযুগের মুসলিম নারী গীতিকার হিসেবেও তিনি পরিচিত ছিলেন। [১]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

হাজী সহিফা বিবি বেগম রোকেয়ার জন্মের আনুমানিক প্রায় দুই যুগ আগে ১৮৫১ সালে সিলেট শহরের কুয়ারপারে অবস্থিত আধ্যাত্মিক মহিমান্ডিত এবং অতি প্রাচীনতম তার নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা ছিলেন সিলেটের বিশ্বনাথ থানার রামপাশার জমিদার দেওয়ান আলী রাজা এবং মাতা বালাগঞ্জ থানার সুলতানপুর নিবাসী নূরজাহান বিবি। সহিফা বিবি ছিলেন হাছন রাজার বৈমাত্রেয় বোন। তার স্বামী হাজী মোজাফফর চৌধুরী। দাম্পত্য জীবনে নিঃসন্তান ছিলেন। তাঁর সময়ে কঠোর পর্দাপ্রথার কারণে মুসলিম মহিলারা বোরখা পরতেন। কিন্তু তিনি বোরখা পরতেন না, তবে ইসলামী পোশাক পরিধান করতেন যা ছিল শালীনতার ও আধুনিকতার পরিচায়ক। তিনি উচ্চ বিত্ত নারীদের মতো মাথায় টুপি পরতেন এবং নিজস্ব ঘোড়ার গাড়িতে চলাচল করতেন।[২]

শিক্ষা ও কর্মজীবন[সম্পাদনা]

সহিফা বানু সঙ্গীতে পারদর্শী ছিলেন। কবি সহিফা বানুর কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা না থাকলেও নিজের আগ্রহ ও চেষ্টায় তিনি বিভিন্ন ভাষা শিখেছিলেন। তিনি ঘরে বসে উর্দু, ফার্সী, হিন্দি, নাগরী, বাংলাইংরেজি ভাষা চর্চা করতেন। গভর্নিস পি. ব্যানার্জীর কাছে পারিবারিক পরিবেশে সহিফা শিক্ষা লাভ করে। নারীদের শিক্ষার জন্য তাঁর কবিতা ও গানে নারীদের জীবনের অনেক অবহেলিত ও সামাজিক চিত্র ফুটে উঠেছে। তিনি একজন বিচক্ষণ মহিলা ছিলেন। তাই তাঁর পরামর্শ নেওয়ার জন্য সেই সময়কার সিলেটের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার তাঁকে প্রায়ই আমন্ত্রণ জানাতেন এবং সে দেশের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি এবং দেশের সার্বিক উন্নয়নের বিষয় নিয়ে তার সাথে পরামর্শ করতেন।

সঙ্গীত ও গ্রন্থ রচনা[সম্পাদনা]

সহিফা বিভিন্ন গ্রন্থও লিখেছেন। তন্মধ্যে ৩টি গ্রন্থের নাম পাওয়া যায়। সহিফা সঙ্গীত, ইয়াদ গাওে, সইফাও ছাহেবানের জারি। এর মধ্যে ‘সহিফা সঙ্গীত' বইখানিই সমধিক পরিচিত। বিবি সহিফা বানুর উর্দু বাংলার বেপরোয়া মিশ্রণে কাব্য রচনা অনেকেই চমকে যেতেন। ছহিফা সঙ্গীত ১৯০৭ খ্রিষ্টাব্দে সিলেট থেকে আব্দুল জব্বার কর্তৃক প্রকাশিত হয়। এতে ৪৮টি গান স্থান পেয়েছে। তাঁর গ্রন্থে হিন্দু-বৌদ্ধ-মুসলিম সকল সম্প্রদায়ের ধর্মীয় ভাবের প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। তিনি উর্দু, হিন্দী ও বাংলা ভাষায় সমান পারদর্শী ছিলেন। একমাত্র সহিফা সঙ্গীত ছাড়া তাঁর অন্য দুটি গ্রন্থের সন্ধান পাওয়া যায়না।

উপাধি[সম্পাদনা]

সাতবার হজ্ব পালন করেছেন তাই সবাই তাকে ‘হাজী বিবি’ বলে সম্বোধন করতো এবং এ কারণেই তার বাড়ির নামকরণ হয় ‘হাজী বিবি হাউস।’ সিলেট অঞ্চলে সহিফা বানুই প্রথম মুসলিম মহিলা কবি। [৩]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

সহিফা বিবি ১৯১৮ সালে মৃত্যুবরণ করেন।

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বাংলা ভাষা আন্দোলনে নারী

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "প্রাক যুগের মুসলিম মহিলা গীতিকার"দৈনিক সংগ্রাম। ১ জানুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৯ 
  2. "মহিলা সমাজ সহিফা বানু ও প্রাসঙ্গিক কথকতা"। সিলেটর ঢাক। ২০ আগস্ট ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৯ 
  3. "বাংলা সাহিত্যে মুসলমান নারী"দৈনিক সংগ্রাম। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৯