সময়রেখা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ক্রোনোজুম হলো একটি ক্রিয়াশীল, জুমযোগ্য সময়রেখা সফটওয়্যারের উদাহরণ।
ব্রোঞ্জ-নির্মিত সময়রেখা "ফিফটিন মিটার্স অফ হিস্টোরি" সঙ্গে অলক্ষ্যিত তথ্যবোর্ড, ওরেব্রো, সুইডেন

একটি সময়রেখা (অন্যান্য নাম: রূপরেখা, কালপঞ্জি, কালক্রম, ঘটনাপঞ্জি, ঘটনাপ্রবাহ, দিনপঞ্জি) হলো কালানুক্রমিকভাবে ঘটনাসমূহের একটি তালিকা প্রদর্শন।[১] এটি সাধারণত একটি চিত্রলৈখিক নকশা যেটি তারিখগুলোর সাথে সমান্তরালভাবে আঁটানো একটি দীর্ঘ বার এবং এটি সাধারণত সমসাময়িক ঘটনাগুলো প্রদর্শন করে।

সময়রেখা বিষয় ও তথ্য অনুসারে সময় উপস্থাপন করতে উপযুক্ত যেকোনো মাত্রা ব্যবহার করতে পারে; অনেকে একটি রৈখিক মাত্রা ব্যবহার করেন, যেখানে দূরত্বের একক হলো একটি নির্দিষ্ট সময়ের সমান। এই সময়েরসীমাটি সময়রেখার ঘটনাগুলোর উপর নির্ভরশীল। একটি বিবর্তনের সময়রেখা লক্ষ লক্ষ বছরের হতে পারে, যেখানে ১১ সেপ্টেম্বরের হামলার দিনের জন্য একটি সময়রেখাতে কয়েক মিনিটের মধ্যে এবং মিলিসেকেন্ডের উপরে বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।[২] যদিও অনেক সময়রেখা একটি রৈখিক সময়সীমা ব্যবহার করে, বিশেষ করে যেখানে খুব বড় বা ছোট সময়কালসমূহ প্রাসঙ্গিক - যেমন, লগারিদমিক সময়রেখাগুলোতে সময়ের একটি লগারিদমিক মাত্রা প্রয়োজন; কিছু "দ্রুত করো ও অপেক্ষা করো" শ্রেণির কালানুক্রমসমূহ জুম লেন্স রূপক দিয়ে চিত্রায়িত করা হয়।

প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

বিভিন্ন ধরনের সময়রেখা রয়েছে।

  • পাঠ্য সময়রেখা, পাঠ্য হিসাবে আঁটানো।
  • সংখ্যা সময়রেখা, লেবেল হলো সংখ্যা, সাধারণত লাইন গ্রাফ
  • ক্রিয়াশীল, ক্লিকযোগ্য, জুমযোগ্য
  • ভিডিও সময়রেখা

সময়রেখা দৃষ্টিগোচর বা দেখার জন্য অনেকগুলো পদ্ধতি রয়েছে। ঐতিহাসিকভাবে, সময়রেখাগুলো স্থির চিত্র ছিল এবং সাধারণত কাগজে আঁকা বা মুদ্রিত হতো। বর্তমানে সময়রেখাগুলোকে দেখা, চিত্রলৈখিক নকশা ও শিল্পীর তথ্য কল্পনা করার ক্ষমতার উপর নির্ভর করে।

যেই সময়রেখাগুলো এখন আর পূর্বের স্থান ও কার্যকরী সীমাবদ্ধতা দ্বারা আবদ্ধ নয়, সেগুলো এখন সাধারণত কম্পিউটার সফটওয়্যার দ্বারা নির্মিত এবং ডিজিটাল ও ক্রিয়াশীল হয়। ক্রোনোজুম (ChronoZoom) হলো কম্পিউটার-নির্ভর একটি ক্রিয়াশীল সময়রেখা সফটওয়্যারের একটি উদাহরণ।

ব্যবহার[সম্পাদনা]

শিক্ষার্থী ও গবেষকদের ঐতিহাসিক ঘটনাবলী এবং একটি বিষয়ের প্রবণতা বা কালানুক্রম বুঝার জন্য প্রায়ই শিক্ষায় সময়রেখা ব্যবহার করা হয়। একটি অক্ষের উপর একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় সময় দেখানোর জন্য, একটি সময়রেখা ঘটনা, সময়কাল (যেমন জীবনকাল বা যুদ্ধ) এবং একযোগে বিঘত ও ঘটনাসমূহের জুড়ে থাকার মধ্যে সময়ের ব্যবধান কল্পনা করতে পারে।

ইতিহাস অধ্যয়ন[সম্পাদনা]

তাইওয়ানের ইতিহাসের একটি চিত্রলৈখিক সময়রেখা।

শিক্ষার ক্ষেত্রে প্রায়শই সময়রেখা ব্যবহার করা হয়। কারণ এটি শিক্ষার্থী ও গবেষকদের একটি বিষয়ের ঐতিহাসিক ঘটনার ক্রম বা কালানুক্রম বুঝতে সাহায্য করে।[৩] একটি সময়রেখা ঘটনা, সময়কাল (যেমন জীবনকাল বা যুদ্ধ) ও ঘটনাগুলোর মধ্যে জুড়ে থাকা সময় কল্পনা করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।[৪]

প্রকল্প ব্যবস্থাপনা[সম্পাদনা]

প্রকল্প ব্যবস্থাপনার জন্য আরেক ধরনের সময়রেখা ব্যবহার করা হয়। সময়রেখাগুলো দলের সদস্যদের জানতে সাহায্য করে যে কোন মাইলফলক অর্জন করতে হবে এবং কোন সময়সূচির অধীনে। এর একটি উদাহরণ হলো, একটি কম্পিউটার সিস্টেমের জীবনচক্রের বাস্তবায়ন পর্যায়ে একটি প্রকল্পের সময়রেখা স্থাপন করা।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. গ্রাফটন, অ্যান্থনি; রোজেনবার্গ, ড্যানিয়েল (২০১০), কার্টোগ্রাফিস অফ টাইম: এ হিস্টোরি অফ দ্য টাইমলাইন (ইংরেজি ভাষায়), প্রিন্সটন আর্কিটেকচারাল প্রেস, পৃষ্ঠা ২৭২, আইএসবিএন 978-1-56898-763-7 
  2. প্লারসন (২০১৬-০৯-০১)। "Anomaly Updates" [অসঙ্গত হালনাগাদ]। স্পেস এক্স (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০২-১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৭-১৬ 
  3. গ্রেগ মস্কাল, দ্য হিস্টোরি অফ স্পেস এক্সপ্লোরেশন: সিকুয়েন্স ইভেন্ট্‌স ক্রোনোলজিক্যালি অন এ (নিউইয়র্ক: পাওয়ারকিড্‌স প্রেস, ২০০৪), পৃ. ২৫ (ইংরেজি ভাষায়)
  4. ভোল্ফগাং এইগনার; et al., ভিজুয়ালাইজেশন অফ টাইম-অরিয়েন্টেড ডেটা (লন্ডন; নিউইয়র্ক: স্প্রিঞ্জার, ২০১১), পৃ. ১৬৬ (ইংরেজি ভাষায়)