রোহিঙ্গা প্যাট্রিয়টিক ফ্রন্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
রোহিঙ্গা প্যাট্রিয়টিক ফ্রন্ট
সংক্ষেপেআরপিএফ
প্রেসিডেন্টমুহাম্মদ জাফর হাবিব[১][২]
মহাসচিবমুহাম্মদ ইউনুস
প্রতিষ্ঠা১২ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩ (1973-09-12)
ভাঙ্গন১৯৮৬ (1986)
পরবর্তীরোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন,
আরাকান রোহিঙ্গা ইসলামিক ফ্রন্ট
সদর দপ্তরকক্স বাজার, বাংলাদেশ
ভাবাদর্শরোহিঙ্গা জাতীয়তাবাদ
আঞ্চলিক স্বায়ত্তশাসন
ধর্মইসলাম

রোহিঙ্গা প্যাট্রিয়টিক ফ্রন্ট (আরপিএফ) একটি রাজনৈতিক সংগঠন ছিল, যার সদর দপ্তর ছিল বাংলাদেশের কক্সবাজারে। আরপিএফ এর ৭০ জন যোদ্ধার একটি ছোট এবং দুর্বল সশস্ত্র বিদ্রোহী বাহিনী ছিল, যারা বাংলাদেশ-বার্মা সীমান্তে এবং উত্তর আরাকানে, বার্মার (বর্তমান রাখাইন রাজ্য, মায়ানমার ) সক্রিয় ছিল। আরপিএফ-এর লক্ষ্য ছিল রোহিঙ্গাদের জন্য একটি স্বায়ত্তশাসিত মুসলিম অঞ্চল তৈরি করা।[৩]

রেঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন স্নাতক এবং বুথিডাং শহরের স্থানীয় বাসিন্দা মুহম্মদ জাফর হাবিব ছিলেন এর নেতা। তিনি এর আগে রোহিঙ্গা লিবারেশন পার্টির (আরএলপি) সম্পাদক ছিলেন।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২৬ এপ্রিল ১৯৬৪ সালে, রোহিঙ্গা জনগণের জন্য একটি স্বায়ত্তশাসিত মুসলিম অঞ্চল তৈরির লক্ষ্যে রোহিঙ্গা ইন্ডিপেন্ডেন্স ফ্রন্ট (RIF) প্রতিষ্ঠিত হয়। দলটির নাম ১৯৬৯ সালে রোহিঙ্গা ইন্ডিপেন্ডেন্স আর্মি (RIA) এবং তারপর ১২ সেপ্টেম্বর ১৯৭৩ সালে রোহিঙ্গা প্যাট্রিয়টিক ফ্রন্ট (RPF) এ পরিবর্তন করা হয়।[৫] ১৯৭৪ সালের জুন মাসে, মুহাম্মদ জাফর হাবিবকে স্ব-নিযুক্ত সভাপতি, নুরুল ইসলাম, একজন রেঙ্গুন -শিক্ষিত আইনজীবীকে ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং মুহাম্মদ ইউনুস, একজন মেডিকেল ডাক্তারকে সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে নিয়ে আরপিএফ পুনর্গঠিত হয়।[৬]

১৯৭৮ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি, জেনারেল নে উইনের সমাজতান্ত্রিক সামরিক জান্তা উত্তর আরাকানে (রাখাইন রাজ্য) অপারেশন নাগামিন ( অপারেশন ড্রাগন কিং ) শুরু করে, যার অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল আরপিএফ সদস্যদের গ্রেপ্তার করা।[৭] অপারেশনটি আরপিএফের মধ্যে মতবিরোধ সৃষ্টি করে, যার ফলে সংগঠনটি কয়েকটি উপদলে বিভক্ত হয়ে পড়ে, যার মধ্যে অনেকগুলি পরে ১৯৮২ সালে রোহিঙ্গা সংহতি সংস্থা (RSO) হয়ে একত্রিত হয়।[৫] ১৯৮৬ সালে, আরপিএফের প্রাক্তন সহ-সভাপতি নুরুল ইসলামের নেতৃত্বে RSO-এর একটি অংশের সাথে একীভূত হয় এবং আরাকান রোহিঙ্গা ইসলামিক ফ্রন্ট (ARIF) হয়।[৮][৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bangladesh Extremist Islamist Consolidation"। by Bertil Lintner। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১২ 
  2. Lintner, Bertil (১৯৯৯)। Burma in Revolt: Opium and Insurgency Since 1948বিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Chiang Mai: Silkworm Books। পৃষ্ঠা 317–8। 
  3. "The Political advancement of the Rohingya People"www.rohingya.org (ইংরেজি ভাষায়)। Arakan Rohingya National Organisation 
  4. Pho Kan Kaung (মে ১৯৯২)। The Danger of Rohingya। Myet Khin Thit Magazine No. 25। পৃষ্ঠা 87–103। 
  5. "The Political advancement of the Rohingya People"www.rohingya.org (ইংরেজি ভাষায়)। Arakan Rohingya National Organisation "The Political advancement of the Rohingya People". www.rohingya.org.
  6. Pho Kan Kaung (মে ১৯৯২)। The Danger of Rohingya। Myet Khin Thit Magazine No. 25। পৃষ্ঠা 87–103। Pho Kan Kaung (May 1992).
  7. Constantine, Greg (১৮ সেপ্টেম্বর ২০১২)। "Bangladesh: The Plight of the Rohingya"Pulitzer Center (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০১৮ 
  8. "Burma/Bangladesh: Burmese Refugees In Bangladesh - Historical Background"www.hrw.org (ইংরেজি ভাষায়)। Human Rights Watch। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০১৮ 
  9. Jilani, A. F. K. (১৯৯৯)। The Rohingyas of Arakan: Their Quest for Justice (ইংরেজি ভাষায়)। Ahmed Jilani। সংগ্রহের তারিখ ২২ মার্চ ২০১৮ 

টেমপ্লেট:Insurgent groups in Myanmar