রাখাইন রাজ্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
রাখাইন রাজ্য
আরাকান রাজ্য।
বার্মার প্রশাসনিক অঞ্চল
মিয়ানমা প্রতিলিপি
 • আরাকানিজ ভাষা রা-খাই-প্রে-নি
রাখাইন রাজ্যের পতাকা
পতাকা
বার্মায় রাখাইন রাজ্যের অবস্থান
বার্মায় রাখাইন রাজ্যের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ১৯°৩০′ উত্তর ৯৪°০′ পূর্ব / ১৯.৫০০° উত্তর ৯৪.০০০° পূর্ব / 19.500; 94.000স্থানাঙ্ক: ১৯°৩০′ উত্তর ৯৪°০′ পূর্ব / ১৯.৫০০° উত্তর ৯৪.০০০° পূর্ব / 19.500; 94.000
রাষ্ট্র  মায়ানমার
অঞ্চল পশ্চিম উপকূল
রাজধানী সিত্তে
সরকার
 • মুখ্য মন্ত্রী মাং মাং ওহন[১] (মিলিটারি)
আয়তন
 • মোট ৩৬৭৭৮.০ কিমি (১৪২০০.১ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১৪ বার্মার আদমশুমারি)
 • মোট ৩১,১৮,৯৬৩
 • ঘনত্ব ৮৫/কিমি (২২০/বর্গমাইল)
Demographics
 • জাতিগোষ্ঠী রোহিঙ্গা, রাখাইন, বাঙালী (হিন্দু), কামান জনগোষ্ঠী
 • ধর্ম ইসলাম, থেরবাদী বৌদ্ধধর্ম, হিন্দু ধর্ম এবং অন্যান্য
সময় অঞ্চল স্থানীয় সময় (ইউটিসি+০৬:৩০)
ওয়েবসাইট rakhinestate.gov.mm

রাখাইন রাজ্য, বর্মী: ရခိုင်ပြည်နယ် রাখাইন উচ্চারণ বর্মী উচ্চারণ: [ɹəkʰàiɴ pɹènè] রাখাইঁ প্রেনে; বর্মী উচ্চারণ: [jəkʰàiɴ pjìnɛ̀] ইয়াখাইঁ পিন্যে; সাবেক আরাকান) বার্মার একটি প্রদেশ, পশ্চিম উপকূলে অবস্থিত। এর উত্তরে চীন, পূর্বে ম্যাগওয়ে অঞ্চল, ব্যাগো অঞ্চল এবং আয়েইয়ারওয়াদি অঞ্চল, পশ্চিমে বঙ্গোপসাগর এবং উত্তর-পশ্চিমে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগ। আরাকান পর্বত, যার সর্বোচ্চ চূড়া ভিক্টোরিয়া শৃঙ্গের উচ্চতা ৩,০৬৩ মিটার (১০,০৪৯ ফু) , রাখাইন প্রদেশকে মূল বার্মা থেকে পৃথক করে রেখেছে। রাখাইন রাজ্যে চেদুবা এবং মাইঙ্গান দ্বীপের মত বড় কিছু দ্বীপ আছে। রাখাইন রাজ্যের আয়তন ৩৬,৭৬২ বর্গকিলোমিটার (১৪,১৯৪ মা) এবং এর রাজধানীর নাম সিত্তে (বর্মী: စစ်တွေ রাখাইন উচ্চারণ সাইক্‌টুয়ে; সিক্‌টুয়ে; সাবেক আকিয়াব)।[২]

শব্দতত্ত্ব[সম্পাদনা]

ধারণা করা হয় রাখাইন শব্দটি এসেছে পালিশব্দ “রাক্ষপুরা” (সংস্কৃতঃ রাক্ষসপুরা) থেকে যার অর্থ রাক্ষসদের দেশ। খুব সম্ভবত এই অঞ্চলে বাস করা নেগ্রিটো অধিবাসিদের জন্য এই নাম দেয়া হয়। রাখাইন রাজ্য নিজেদের ঐতিহ্য এবং নৈতিকতা ধরে রাখতে এই নামটিই বহাল রেখেছে। তাদের ভাষায় রাখাইন শব্দের অর্থ, যে নিজের জাতিসত্ত্বা ধরে রাখে।[৩] রাখাইন ভাষায় তারা তাদের দেশকে রাখাইনপ্রে। রাখাইন আদিবাসিরা অবশ্য বলে রাখাইনথা।
ধারণা করা হয় যে, ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক সময়ে 'রাখাইন' নামটি পোর্তুগীজ অপভ্রংশে 'আরাকান' নামে পরিবর্তিত হয়, যা এখনো ইংরেজীতে সমানভাবে জনপ্রিয়।[৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

শিক্ষাব্যবস্থা[সম্পাদনা]

ইয়াঙ্গুন এবং মান্দালয়ের বাইরে মায়ানমারে শিক্ষাসুবিধা অতি মাত্রায় অপ্রতুল। রাখাইন রাজ্যের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষে সরকারী বিদ্যালয়ের সারাংশ তুলে ধরা হলোঃ[৫]

২০১৩-১৪ শিক্ষাবছর প্রাথমিক মধ্য উচ্চ
বিদ্যালয় ২,৫১৫ ১৩৭ ৬৯
শিক্ষক ১১,০৪৫ ২,৯০৯ ১,৩৩৭
ছাত্র ৩,৭০,৪৩১ ১,০০,৫৬৬ ২৬,৬৭১

রাজ্যের প্রধান বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে সিত্তে বিশ্ববিদ্যালয়।

স্বাস্থ্যসেবা[সম্পাদনা]

মায়ানমারের স্বাস্থ্যসেবার মান খুবই করুণ। সামরিক জান্তা সরকার তাদের জিডিপির শতকরা ০.৫%-৩% স্বাস্থ্যখাতে ব্যয় করে যা পৃথিবী দেশসমূহের মধ্যে সব থেকে কম।[৬][৭] স্বাস্থ্যসেবা বিনামূল্য হলেও সরকারী ক্লিনিক এবং হাসপাতালসমূহে রোগীকে ওষুধ এবং চিকিৎসার খরচ বহন করতে হয়। ইয়াঙ্গুন এবং মান্ডালায় এর বাইরে স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত প্রতিষ্ঠানের দৈন্য দশা, রাখাইন রাজ্যের মত দূর্গম স্থানে নেই বললেই চলে। রাখাইন রাজ্যের হাসপাতালে অল্প কিছু বিছানা আছে। নিচে রাজ্যের সরকারি স্বাস্থ্যসেবার তথ্য তুলে ধরা হলোঃ[৮]

2002–2003 # হাসপাতাল # বিছানা
বিশেষায়িত হাসপাতাল
বিশেষজ্ঞ সেবা সহ জেনারেল হাসপাতাল ২০০
জেনারেল হাসপাতাল ১৬ ৫৫৩
স্বাস্থ্য ক্লিনিক ২৪ ৩৮৪
সর্বমোট ৪১ ১,১৩৭

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mratt Kyaw Thu (২০ জুন ২০১৪)। "Rakhine State Chief Minister resigns"Mizzima। সংগৃহীত ২৩ জুন ২০১৪ 
  2. http://www.themimu.info/docs/MIMU696v01_110707_Planning%20Map%20for%20Rakhine%20State_Eng.pdf Rakhine State Map
  3. စန္ဒမာလာလင်္ကာရ။ ရခိုင်ရာဇဝင်သစ် ရခိုင်သမိုင်း ၊ ၁၅ ၊ ၁၈ ရာစု။
  4. For example, see Staff (2009) "An Introduction To The Toponymy Of Burma" The Permanent Committee of Geographic Names (PCGN), United Kingdom
  5. "United Nations Statistic Department for data for Myanmar"। Education Statistical Year Book, 2013_2014। সংগৃহীত ২০১৫-০১-১৫ 
  6. "PPI: Almost Half of All World Health Spending is in the United States"। ২০০৭-০১-১৭। 
  7. Yasmin Anwar (২০০৭-০৬-২৮)। 06.28.2007 "Burma junta faulted for rampant diseases"। UC Berkeley News। 
  8. "Hospitals and Dispensaries by State and Division"। Myanmar Central Statistical Organization। সংগৃহীত ২০০৯-০৪-১৯ 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

Political Party of Arakan (ALD)

Rakhine independence-affiliated

Arakanese News/Information

Sittwe and Kyaukpyu SEZ routes to Ruili Yunnan