রূপান্তরিত শিলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কোয়ার্টজাইট, এক ধরণের রূপান্তরিত শিলা
ভার্সিকান orogeny এ বিকৃত একটি রূপান্তরিত শিলা। ভ্যাল ডি কার্ডেস, লরিডা, স্পেন

রূপান্তরিত শিলা হচ্ছে পাললিক ও আগ্নেয় শিলার পরিবর্তিত রূপ, যা আগ্নেয়পাললিক শিলা হতে ভিন্নধর্মী। মূল শিলায় (প্রোটোলিথ) ১৫০ থেকে ২০০ °সে (৩০২ থেকে ৩৯২ °ফা)-এর অধিক তাপমাত্রায় ও উচ্চচাপে (১০০ মেগাpascal (১,০০০ bar) বা আরও বেশি) গভীর শারীরিক বা রাসায়নিক পরিবর্তন ঘটে। এই প্রক্রিয়া চলাকালীন বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শিলাগুলো কঠিন অবস্থায় থাকে তবে ধীরে ধীরে একটি নতুন গঠনবিন্যাস বা খনিজ গঠনে পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হয়। [১] এই প্রোটোলিথ আগ্নেয় বা পাললিক শিলা, এমনকি পূর্বে বিদ্যমান রূপান্তরিত শিলাও হতে পারে।

রূপান্তরিত শিলা পৃথিবীর ভূত্বকের একটি বড় অংশ তথা ১২% গঠন করে। [২] প্রোটোলিথ, রাসায়নিক এবং খনিজ রূপ এবং গঠনবিন্যাস অনুসারে রূপান্তরিত শিলাকে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। সাধারণ শিলা মাটির গভীরে চাপা পড়ে উচ্চ তাপ ও উপরের শিলাস্তরের কারণে সৃষ্ট উচ্চ চাপের প্রভাবে গঠিত হতে পারে। এছাড়াও মহাদেশীয় সংঘর্ষের মতো টেকটোনিক পাত সংস্থান প্রক্রিয়ায় সৃষ্ট অনুভূমিক চাপ, ঘর্ষণ এবং বিকৃতির মাধ্যমেও রূপান্তরিত শিলা গঠিত হতে পারে। পৃথিবীর অভ্যন্তর থেকে বের হওয়া ম্যাগমা নামক উত্তপ্ত গলিত শিলা প্রবেশের ফলে কোন শিলা উত্তপ্ত হয়ে গেলে স্থানীয়ভাবে রূপান্তরিত শিলা তৈরি হতে পারে। রূপান্তরিত শিলা সম্পর্কিত অধ্যয়ন (বর্তমানে ক্ষয় ও উত্থানের পরে পৃথিবীর পৃষ্ঠে যা প্রকাশিত হয়েছে) পৃথিবীর ভূত্বকের অভ্যন্তরে গভীরতাতে যে তাপমাত্রা এবং চাপ দেখা দেয় সে সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করে।

রূপান্তরিত শিলাগুলোর কয়েকটি উদাহরণ হল জিনেস, স্লেট, মার্বেল, শিস্ট এবং কোয়ার্টজাইট। স্লেটও কোয়ার্টজাইট টাইল ভবন নির্মাণে ব্যবহৃত হয়।[৩][৪] মার্বেলও ভবন নির্মাণে[৫] এবং ভাস্কর্যে ব্যবহারের কারণে বেশ মূল্যবান। [৬] তবে, সমজাতীয় পদার্থের রূপান্তর (সমরাসায়নিক রূপান্তর) ছাড়াও শিলার রূপান্তর ঘটতে পারে, অথবা মাত্র কয়েক শত মিটার গভীরতাতেও এমন রূপান্তর ঘটতে পারে যেখানে চাপের পরিমাণ তুলনামূলক কম (উদাহরণ স্বরূপ শিলার স্পর্শ রূপান্তর)। [৭]

উৎস[সম্পাদনা]

রূপান্তরিত শিলা হচ্ছে শিলার তিনটি মূল শ্রেণিবিভাগের একটি। এগুলো আগ্নেয় শিলা বা পাললিক শিলা থেকে পৃথক। আগ্নেয় শিলা গলিত ম্যাগমা থেকে গঠিত এবং পাললিক শিলা থেকে গঠিত হয় পলল বা পলি থেকে। [৮]

পূর্বে বিদ্যমান কোন শিলা উচ্চ তাপমাত্রা ও চাপে ভৌত বা রাসায়নিকভাবে পরিবর্তিত হয়ে রূপান্তরিত শিলা গঠিত হয়। অগ্রণী স্কটিশ প্রকৃতিবিদ জেমস হাটন সর্বপ্রথম রূপান্তরিত শিলা গঠনে উত্তাপের গুরুত্ব লক্ষ্য করেন। তাকে প্রায়ই আধুনিক ভূতত্ত্বের জনক বিবেচনা করা হয়। জেমস হাটন ১৯৭৫ সালে লিখেন স্কটিশ পার্বত্য অঞ্চলে বিছানো কিছু শিলা মূলত পাললিক শিলা ছিল। পরবর্তীতে প্রচণ্ড উত্তাপে এগুলো রূপান্তরিত শিলায় পরিণত হয়। [৯]

তিনি আরও অনুমান করেন, শিলার রূপ পরিবর্তনে চাপও গুরুত্বপূর্ণ। তার বন্ধু জেমস হল তার এই মতামতটি পরীক্ষা করে দেখেন। তিনি একটি কামানের ব্যারেল চকে ভর্তি করে অস্থায়ী চাপ তৈরি করে লোহার ফাউন্ড্রি চুল্লীতে উত্তপ্ত করেন। এক্ষেত্রে জেমস হল দেখতে পান মার্বেল সদৃশ একটি উপাদান তৈরি হয়েছে। অন্যদিকে উন্মুক্ত বায়ুতে চক উত্তপ্ত করা হলে সাধারণত কুইকলাইম (ক্যালসিয়াম অক্সাইড) উত্পাদিত হয়। ফরাসি ভূতাত্ত্বিকগণ পরবর্তীকালে শিলার রূপান্তরে সহায়তা করে এমন প্রক্রিয়াগুলোর তালিকায় মেটাসোমাটিজম যোগ করেন। মেটাসোমাটিজম মানে হল মাটি চাপা পড়া পাথরের মাধ্যমে তরল পদার্থ সংবহন । তবে, সমজাতীয় পদার্থের রূপান্তর (সমরাসায়নিক রূপান্তর) ছাড়াও শিলার রূপান্তর ঘটতে পারে, অথবা মাত্র কয়েক শত মিটার গভীরতাতেও এমন রূপান্তর ঘটতে পারে যেখানে চাপের পরিমাণ তুলনামূলক কম (উদাহরণ স্বরূপ শিলার স্পর্শ রূপান্তর)।[৯]

রূপান্তর প্রক্রিয়া রূপান্তরিত শিলার খনিজ রূপ এবং গঠনবিন্যাস পরিবর্তন করে।

খনিজ সংক্রান্ত পরিবর্তনসমূহ[সম্পাদনা]

মেটাসোমাটিজম একটি শিলার বাল্ক কম্পোজিশন পরিবর্তন করতে পারে। পাথরের ছিদ্রের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত উষ্ণ তরল শিলায় বিদ্যমান খনিজগুলোকে দ্রবীভূত করতে এবং নতুন খনিজ বর্ষণ করতে পারে। প্রবাহিত তরলের সাথে সাথে দ্রবীভূত পদার্থগুলোও শিলা থেকে বেরিয়ে যায়। অন্যদিকে শিলায় প্রবেশ করা নতুন তরলের সাথে নতুন পদার্থও পাথরে প্রবেশ করে। এটি স্পষ্টতই পাথরের খনিজরূপ পরিবর্তন করতে পারে। [৯]

তবে শিলার বাল্ক কম্পোজিশন পরিবর্তন না হলেও খনিজ কম্পোজিশনে পরিবর্তন আসতে পারে। এটি সম্ভব কারণ, সব খনিজই কেবল তাপমাত্রা, চাপ ও রাসায়নিক পরিবেশের একটি নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে স্থিতিশীল। উদাহরণস্বরূপ, ১ বায়ুমন্ডলীয় চাপ ও ১৯০ °সে (৩৭৪ °ফা) তাপমাট্রে খনিজ পদার্থ কায়ানাইট আন্দালুসাইটে রূপান্তরিত হয়। একই চাপে তাপমাত্রা প্রায় ৮০০ °সে (১,৪৭০ °ফা) হলে আন্দালুসাইটের পরিবর্তে সিলিমানাইটে রূপান্তরিত হয় । তিনটিরই আণবিক সংকেত AlSiO। অনুরূপভাবে মার্বেলে চাপ ও তাপমাত্রার বিস্তৃত পরিসরে ফোরস্ট্রেরাইট স্থিতিশীল। তবে উচ্চতর চাপ এবং তাপমাত্রায় প্ল্যাজিওক্লেজ থাকা তুলনামূলক বেশি সিলিকেট সমৃদ্ধ শিলায় ফোরস্ট্রেরাইট পাইরক্সিনে রূপান্তরিত হয়। কারণ এর সাথে ফোরস্ট্রেরাইট রাসায়নিক বিক্রিয়া করে থালে। [৯]

এসব খনিজ দ্রভিভূত না হয়েই এদের মধ্যে অনেক জটিল উচ্চ-তাপমাত্রাভিত্তিক বিক্রিয়া ঘটতে পারে। উত্পাদিত প্রতিটি খনিজ সমাবেশ রূপান্তরকালে তাপমাত্রা এবং চাপ সম্পর্কে আমাদেরকে একটি সূত্র সরবরাহ করে। উচ্চতর তাপমাত্রায় পরমাণুর দ্রুত বিচ্ছুরণের কারণে এসব প্রতিক্রিয়া সম্ভব। শিলার ছিদ্রের মধ্যদিয়ে প্রবাহিত তরল খনিজ পদার্থগুলোর মধ্যে পরমাণু আদান-প্রদানের একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। [৯]

গঠনবিন্যাসগত পরিবর্তন[সম্পাদনা]

রূপান্তর প্রক্রিয়া চলাকালীন শিলার কণার আকারের পরিবর্তনকে পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হওয়া বলা হয়। উদাহরণস্বরূপ, পাললিক শিলা চুনাপাথর (লাইমস্টোন) ও চকের ছোট ক্যালসাইট স্ফটিক বৃহৎ্তর স্ফটিকাকৃতির রূপান্তরিত শিলা মার্বেলে পরিবর্তিত হয়। [৯] রূপান্তরিত বেলেপাথরে মূল কোয়ার্টজ বালিকণা পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হওয়ার ফলে প্রায় নিচ্ছিদ্র কোয়ার্টজাইটে পরিণত হয়, যা মেটাকোয়ার্জাইট নামেও পরিচিত। এর মধ্যে প্রায়শই বৃহৎ্‌ কোয়ার্টজ স্ফটি, সংযুক্ত থাকে। [১০] উচ্চ তাপমাত্রা এবং চাপ উভয়ই পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হতে ভূঅভ্র রাখে। উচ্চ তাপমাত্রা শক্ত স্ফটিকগুলোতে পরমাণুআয়ন স্থানান্তরে ভূঅভ্র রাখে। ফলে স্ফটিকগুলো পুনর্গঠিত হয়। অন্যদিকে উচ্চ চাপের ফলে শিলার সংযোগস্থলে স্ফটিকের দ্রবণ তৈরি হয়। [৯]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

স্ট্যামরোলাইট এবং অ্যালামন্ডাইনযুক্ত রূপান্তরিত শিলা

খনিজ রূপ এবং গঠনবিন্যাস অনুসারে রূপান্তরিত শিলা চিহ্নিত করা হয়।

রূপান্তরিত খনিজ[সম্পাদনা]

প্রতিটি খনিজ কেবল নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে স্থিতিশীল থাকে। তাই রূপান্তরিত শিলাগুলোতে নির্দিষ্ট খনিজের উপস্থিতিটি থেকে শিলাটি রূপান্তরিত হওয়ার তাপমাত্রা এবং চাপ নির্ণয় করা সম্ভব। এই খনিজগুলো সূচক খনিজ হিসাবে পরিচিত। উদাহরণ অন্তর্ভুক্ত সিলিমানাইট, কায়ানাইট, স্টোরোলাইট, আন্দালুসাইট এবং কিছু গারনেট[৯]

যেমন অন্য খনিজ, অলিভাইনস, পাইরোসিন্স, হর্নব্লেন্ড, অভ্র, ফেল্ডস্পার, এবং কোয়ার্টজ, রূপান্তরিত শিলা পাওয়া যেতে পারে। কিন্তু এগুলোর মাধ্যমে গঠন বা আকারাদির পরিবর্তন প্রক্রিয়ার ফলাফলের নয়। এই খনিজগুলো আগ্নেয় শিলা স্ফটিকবদ্ধ হওয়ার সময়ও গঠিত হতে পারে। এগুলো উচ্চ তাপমাত্রা এবং চাপে স্থিতিশীল এবং রূপান্তর প্রক্রিয়া চলাকালীন রাসায়নিকভাবে অপরিবর্তিত থাকতে পারে। [১১]

জমিন[সম্পাদনা]

একটি মাইলোনাইট (পেট্রোগ্রাফিক মাইক্রোস্কোপের মাধ্যমে)

রূপান্তরিত শিলাগুলো সাধারণত যে প্রোটোলিথ থেকে তৈরি হয়েছিল তার চেয়ে বেশি মোটা স্ফটিক হয়। একটি স্ফটিকের অভ্যন্তরের পরমাণুগুলো পার্শ্ববর্তী পরমাণুর একটি স্থিতিশীল বিন্যাস দ্বারা ঘিরে থাকে। এটি স্ফটিকের পৃষ্ঠে আংশিকভাবে অনুপস্থিত, এমন একটি পৃষ্ঠতলীয় শক্তি উত্পাদন করে যা উপরিভাগকে তাপীয়ভাবে অস্থির করে তোলে। মোটা স্ফটিকগুলোতে পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হওয়া পৃষ্ঠের ক্ষেত্রফলকে হ্রাস করে এবং তাই পৃষ্ঠের শক্তি হ্রাস করে। [৯]

যদিও শিলাকণার কুঁচকানো রূপান্তরের একটি সাধারণ ফলাফল, তবুও তীব্রভাবে বিকৃত শিলামাইলোনাইট নামক একটি সূক্ষ্ম দানাদার পাথর হিসাবে পুনঃস্ফটিকবদ্ধ করে স্ট্রেন শক্তি হ্রাস করতে পারে । কোয়ার্টজ, কার্বনেট খনিজ বা অলিভাইন সমৃদ্ধ কয়েক ধরণের শিলার বিশেষত মাইলোনাইট তৈরির প্রবণতা রয়েছে, তবে ফেল্ডস্পার এবং গারনেট মাইলোনিটাইজেশন প্রতিরোধী। [৯]

ভাঁজ[সম্পাদনা]

নরওয়ের জেরিঞ্জারফজর্ডের কাছাকাছি একটি রূপান্তরিত শিলায় ভাঁজযুক্ত কল্পনা

বিভিন্ন ধরণের রূপান্তরিত শিলতে ফোলিয়েশন নামে একটি স্বতন্ত্র স্তর দেখা যায় (লাতিন শব্দ ফলিয়া থেকে উদ্ভূত, যার অর্থ "পাতাগুলো")। পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হওয়ার সময় যখন একটি অক্ষের সাথে একটি শিলা সংক্ষিপ্ত করা হয় তখন ফোলিয়েশন বিকাশ ঘটে। এর ফলে প্লাটি খনিজগুলোর স্ফটিক যেমন অভ্র ও ক্লোরাইট এমনভাবে ঘোরানো হয় যে তাদের ছোট অক্ষ সংক্ষিপ্ত করার দিকের সমান্তরাল থাকে। ফলস্বরূপ, শিলাগুলো ডোরাকাটা বা পাতার মতো দাগযুক্ত হয়ে যায়। ডোরাকাটা দাগগুলোতে শিলা গঠনকারী খনিজগুলোর রঙ দেখা যায়। ফোলিয়েটেড শিলা প্রায়ই শিলার বিভাজন তল গঠন করে । স্লেট একটি ফোলিয়েটেড রূপান্তরিত শিলার উদাহরণ। এটি শেল থেকে উদ্ভূত হয় এবং এতে সুগঠিত বিভাজন দেখায় যা স্লেটকে পাতলা তলে বিভক্ত করে। [৯]

যে ধরনের ফোলিয়েশনের বিকাশ ঘটে তা রূপান্তর মানের (মেটামরফিক গ্রেড) উপর নির্ভর করে। উদাহরণস্বরূ, কাদামাটি থেকে শুরু হয়ে, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রার সাথে সাথে বিকাশ লাভ করে। কাদামাটি প্রথমে স্লেটে রূপান্তরিত হয়, এটি খুব সূক্ষ্ম ধরণের, ফোলিয়েটেড রূপান্তরিত শিলা যা খুব নিম্ন মানের রূপান্তর বৈশিষ্ট্য। পরবর্তীতে স্লেট ফিলাইটে রূপান্তরিত হয়, যা সূক্ষ্ম দানাযুক্ত। এটি নিম্ন মানের রূপান্তর অঞ্চলে পাওয়া যায়। শিট মাঝারি থেকে মোটা দানাযুক্ত এবং মাঝারি মানের রূপান্তর অঞ্চলে পাওয়া যায়। শিলার গঠন ও আকারে উচ্চ মানের পরিবর্তন হলে এটি রূপান্তরিত হয়ে নাইসে (Gneiss) পরিণত হয়। যা খুব অপকৃষ্টবুনান করতে মোটা হয়। [১২]

যেসব শিলার উপর চারদিক থেকে প্রায় একই চাপের কাজ করেছে কিংবা বা যেগুলোতে সল্প পরিমান খনিজ রয়েছে। সেগুলোর গায়ে এরকম পাতার মতো দাগ হয় না। মার্বেলে প্লাটি খনিজের অভাব থাকায় এটি সাধারণত দাগযুক্ত হয় না। তাই ভাস্কর্য তৈরি বা স্থাপত্যকলায় মার্বেল খুবই জনপ্রিয়।

শ্রেণিবিন্যাস[সম্পাদনা]

রূপান্তরিত শিলা হচ্ছে শিলার তিনটি মূল শ্রেণিবিভাগের একটি। রূপান্তরিত শিলা বিভিন্ন ধরণের হতে পারে। সাধারণভাবে, যদি কোনও রূপান্তরিত শিলাটির প্রোটোলিথ নির্ধারণ করা যায়, তবে শিলাটি প্রোটোলিথ শিলা নামের শুরুতেমেটা- উপসর্গ যুক্ত করে বর্ণিত হয়। উদাহরণস্বরূপ, যদি প্রোটোলিথ বেসাল্ট হিসাবে পরিচিত হয়, তবে শিলাটির মেটাবাসল্ট হিসাবে বর্ণনা করা হবে। তেমনি, যেই রূপান্তরিত শিলার প্রোটোলিথ কংলোমরেট হিসাবে পরিচিত, তাকে একটি মেটাকংলোমরেট হিসাবে বর্ণনা করা হবে। এই রূপে কোনও রূপান্তরিত শিলাটি শ্রেণিবদ্ধ করার জন্য, প্রোটোলিথটি রূপান্তরিত শিলাটির বৈশিষ্ট্য থেকে সনাক্তযোগ্য। এছাড়া অন্য তথ্য থেকে অনুমান করা সঠিক নয়। [৯] [১৩]

ব্রিটিশ ভূতাত্ত্বিক সোসাইটির শ্রেণিবদ্ধকরণ ব্যবস্থা অনুসারে প্রোটোলিথ সম্পর্কে নির্ধারণ করা যায় তার সবই যেমন পাললিক বা আগ্নেয় শিলার মতো, তাহলে শ্রেণিবিন্যাসটি শিলার খনিজ মোডের ভিত্তিতে হয় (শিলায় থাকা বিভিন্ন খনিজের আয়তনের শতাংশ)। রূপান্তরিত পাললিক (মেটাসেডিমেন্টারি) শিলাগুলো কার্বনেট-সমৃদ্ধ শিলা (মেটাকার্বোনেটস বা ক্যালসিলিকেট-শিলা) ও সল্প-কার্বনেট শিলাতে বিভক্ত করা হয়। পরের ধাপে শিলাগুলোকে এগুলোর গঠনে অভ্রের তুলনামূলক প্রাচুর্যের ভিত্তিতে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। এই সীমাটি সল্প-অভ্র বিশিষ্ট সামাইট থেকে সেমিপাইলাইটের মধ্য দিয়ে উচ্চ-অভ্র বিশিষ্ট পেলাইট পর্যন্ত রয়েছে। বেশিরভাগ কোয়ার্টজ গঠিত প্যাসামিটগুলো কোয়ার্টজাইট হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। আবার আগ্নেয় শিলার মতো রূপান্তরিত শিলাও সিলিকার পরিমাণ অনুসারে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়ে থাকে। এর মধ্যে আছে নিম্ন-সিলিকা সম্পন্ন মেটা-আলট্রাম্যাফিক-শিলা থেকে শুরু করে উচ্চমাত্রায় সিলিকা-সমৃদ্ধ মেটাফেলসিক-শিলা। [১৩]

যেখানে খনিজ মোড নির্ধারণ করা যায় না, অর্থাৎ, প্রথমে শিলা ক্ষেত্রে যখন শিলাটি পরীক্ষা করা হয়, তখন এর শ্রেণিবিন্যাস অবশ্যই টেক্সচারের ভিত্তিতে হওয়া উচিত। টেক্সচার বা জমিনের ভিত্তিতে শিলার প্রকরণগুলো হলো:

  • শিট, যা মাঝারি-দানাযুক্ত দৃঢ়ভাবে বদ্ধ শিলা।
  • নাইস (Gneiss), যা শিটের তুলনায় মোটা দানাদার এবং ৫ মিমি পুরু স্তরযুক্ত শিস্টগুলোর সাথে আরও ঘন ফলশ্রুতি প্রদর্শন করে।
  • গ্রানোফেলস, যাতে কোনও স্পষ্ট পাতার মতো দাগ দেখা যায় না।

হর্নফেলস শিলা হচ্ছে এক ধরণের গ্রানোফেলস যা সংযোগ রূপান্তরের মাধ্যমে উৎপন্ন। স্লেট এক ধরণের সূক্ষ্ম-দানাযুক্ত রূপান্তরিত শিলা যা সহজেই পাতলা প্লেটে বিভক্ত হয় তবে কোনও সুস্পষ্ট কম্পোজিশন কাঠামো প্রদর্শন করে না। এই টার্মটি তখনই ব্যবহৃত হয় যখন খুব কম অন্যরকম শিলা সম্পর্কে জানা যায় যার মাধ্যমে আরও নির্দিষ্ট শ্রেণিবিন্যাস করা যায়। টেক্সচারাল শ্রেণীবিভাগেরও (যেমন paraschist যেমন para-,) পাললিক প্রোটোলিথ বা (যেমন orthogneiss যেমন ortho-,) আগ্নেয় প্রোটোলিথ ইঙ্গিত পূর্বে সমাধান করা যেতে পারে। প্রোটোলিথ সম্পর্কে কিছুই জানা না থাকলে পাঠ্য নামটি উপসর্গ ছাড়া ব্যবহৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, শিস্ট হল শিস্টোজ টেক্সচার সহ একটি শিলা যার প্রোটোলিথ অনিশ্চিত। [১৩]

আগ্নেয় প্রোটোলিথ সহ রূপান্তরিত শিলাগুলোর জন্য বিশেষ শ্রেণিবিন্যাস বিদ্যমান বা ভূ-চ্যুতি বা হাইড্রোথার্মাল সংবহন মাধ্যমেমাধ্যমে গঠিত। অজানা প্রোটোলিথের শিলাগুলির জন্য কয়েকটি বিশেষ নাম ব্যবহৃত হয় তবে পরিচিত মডেল কম্পোজিশন যেমন মার্বেল, ইক্লোজাইট অথবা অ্যাম্ফিবোলাইট । [১৩]

মেটামরফিক ফেসিস[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Metamorphic facies to click
চিত্র ১. চাপ - তাপমাত্রার স্থানের ক্ষেত্রে রূপান্তরিত রূপগুলো দেখায় ডায়াগ্রাম। এর ডোমেন



</br> গ্রাফ পৃথিবীর ভূত্বক এবং উপরের আবরণের মধ্যে অবস্থার সাথে সামঞ্জস্য করে।

একটি রূপান্তরকারী মুখ হ'ল খনিজগুলির স্বতন্ত্র সমাবেশগুলির একটি সেট যা রূপান্তরিত শিলাতে পাওয়া যায় যা চাপ এবং তাপমাত্রার নির্দিষ্ট সংমিশ্রণে গঠিত হয়। নির্দিষ্ট অ্যাসেমব্লেজটি কিছুটা সেই প্রোটোলিথের কম্পোজিশনর উপর নির্ভরশীল, যাতে (উদাহরণস্বরূপ) একটি মার্বেলের অ্যাম্ফিবোলাইট ফেস পেলাইটের অ্যাম্ফিবোলাইট ফেসিসগুলির সাথে অভিন্ন না হয়। তবে, ফেসগুলি এমন ভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে যে রূপান্তরিত শিলাকে বিস্তৃত কম্পোজিশনগুলোর যথাযথ হিসাবে নির্দিষ্ট কোন পক্ষকে নির্ধারিত করা যেতে পারে। রূপান্তরকারী ফেসগুলোর বর্তমান সংজ্ঞা মূলত ফিনিশ ভূতাত্ত্বিক, পেন্টি এসকোলার কাজের উপর ভিত্তি করে পরবর্তী পরীক্ষামূলক কাজের মাধ্যমে নির্ণয় করা হয়েছে। ভূতাত্ত্বিক জর্জ ব্যারো প্রবর্তিত সূচক খনিজগুলির উপর ভিত্তি করে এস্কোলা জোনাল স্কিমগুলো আঁকেন। [৯]

প্রোটোলিথ, খনিজ মোড বা টেক্সচারের উপর ভিত্তি করে রূপান্তরিত শিলাকে শ্রেণিবদ্ধকরণ করার সময় সাধারণত রূপান্তরকৃত দিকগুলো বিবেচনা করা হয় না। তবে, কয়েকটি রূপান্তরকারী ফেসগুলো এ জাতীয় স্বতন্ত্র চরিত্রের শিলা তৈরি করে যে, তখন আরও সুনির্দিষ্ট ভাবে শ্রেণিবদ্ধকরণ সম্ভব হয় না। সেক্ষেত্রে পাথরের নামটি শিলাটির জন্য ব্যবহৃত হয়। এর প্রধান উদাহরণগুলো হল উভচর এবং একলোকাইট। ব্রিটিশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ গ্রানুলাইট ব্যবহার করার জন্য গ্রানুলাইটের শ্রেণিবিন্যাস হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করতে দৃঢ় ভাবে নিরুৎসাহিত করে। পরিবর্তে, এই জাতীয় শিলাটি প্রায়শই গ্রানোফেল হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হবে। এর পরিবর্তে, এই জাতীয় শিলাটি প্রায়শই গ্রানোফেল হিসাবে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়। [১৩]

সংঘটন[সম্পাদনা]

রূপান্তরিত শিলাগুলো পৃথিবীর ভূত্বকের একটি বৃহৎ অংশ তৈরি করে এবং পৃথিবীর ভূমি পৃষ্ঠের ১২% গঠন করে। [২] রূপান্তরিত শিলাটি সেটিংয়ে সংঘটিত হয় তা রূপান্তরিত ধরণের রূপ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়৷ সেগুলো হল সংযোগ বা তাপীয় রূপান্তর, স্থানীয় রূপান্তর, গতিশীল বা ক্যাটাক্লাস্টিক রূপান্তর, জল-তাপীয় রূপান্তর এবং প্রভাব রূপান্তর। [৯]

সংযোগ রূপান্তর[সম্পাদনা]

একটি পরিচিতি রূপান্তরিত শিলা interlayered তৈরি ক্যালসাইট এবং সর্পিল থেকে প্রাককেম্ব্রিয়ান কানাডার। একবার চিন্তা করা pseudofossil নামক Eozoön canadense। মিমি স্কেল।
Rock contact metamorphism eng big text.jpg

ম্যাগমা আশেপাশের শক্ত শিলায় প্রবেশের ফলে সংঘটিত পরিবর্তনই এই রূপান্তর। ম্যাগমা যেখানেই শিলাটির সংস্পর্শে আসে সেদিকে পরিবর্তনগুলো সবচেয়ে বেশি হয়। কারণ তাপমাত্রা এই সীমানায় সর্বোচ্চ থাকে এবং এটি থেকে দূরত্ব হ্রাস পায়। শীতল ম্যাগমা থেকে উদ্ভূত আগ্নেয় শিলার চারপাশে একটি রূপান্তরিত অঞ্চল তৈরি হয়, যা কন্টাক্ট মেটামরফিজম অরিয়ল নামে পরিচিত। অরিয়ল সংযোগের অঞ্চল থেকে কিছুটা দূরে অপরিবর্তিত শিলা পর্যন্ত সমস্ত ডিগ্রি রূপান্তর দেখাতে পারে। গুরুত্বপূর্ণ আকরিক খনিজগুলোর গঠন সংযোগ অঞ্চলে বা তার কাছাকাছি রূপান্তর প্রক্রিয়া দ্বারা ঘটতে পারে।

যখন কোনও শিলার সাথে সংযোগ আগ্নেয় অনুপ্রবেশের দ্বারা পরিবর্তিত হয় তখন এটি প্রায়শই আরও উদ্দীপ্ত ও আরও মোটা স্ফটিক হয়। এই ধরনের অনেক পরিবর্তিত শিলা পূর্বে "হর্নস্টোন" বলা হতো এবং হর্নফেলস শব্দটি ভূতাত্ত্বিকগণ প্রায়ই সংযোগ রূপান্তরের সূক্ষ্ম দানাদার, কমপ্যাক্ট, নন-ফলিত পণ্যগুলি বোঝাতে ব্যবহার করেন। একটি শেল বাদামী বায়োটিটের ছোট প্লেট ভর্তি একটি গাঢ় আর্গিলাসিয়াস হর্নফেল হতে পারে; একটি মার্ল বা অশুদ্ধ চুনাপাথর একটি ধূসর, হলুদ বা সবুজ চুন-সিলিকেট-হর্নফেলবা সিলিসিয়স মার্বেল, কঠিন এবং স্প্লিন্টার, প্রচুর অসাইট, গারনেট, ওলাস্টোনএবং অন্যান্য খনিজ পদার্থ সঙ্গে পরিবর্তিত হতে পারে যেখানে ক্যালসাইট একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। একটি ডায়াবেস বা এন্ডেসাইট নতুন হর্নব্লেন্ড এবং বায়োটিট উন্নয়ন সঙ্গে একটি ডায়াবেস হর্নফেল বা আন্দেসাইট হর্নফেল এবং মূল ফেল্ডস্পার একটি আংশিক পুনঃস্ফটিককরণ হতে পারে। চার্ট বা ফ্লিন্ট একটি সূক্ষ্ম স্ফটিক কোয়ার্টজ পাথর হতে পারে; বেলেপাথর তাদের ক্লাস্টিক কাঠামো হারিয়ে ফেলে এবং কোয়ার্টজ নামক একটি মেটামরফিক পাথরে কোয়ার্টজের ছোট ক্লোজ-ফিটিং শস্যের মোজাইকে রূপান্তরিত হয়।[১৪] নামক একটি রূপান্তরিত শিলা মধ্যে কোয়ার্টজাইট

যদি শিলাটি মূলত ব্যান্ড করা বা ফোলিয়েট করা হয় (উদাহরণস্বরূপ, একটি ল্যামিনেটেড বেলেপাথর বা একটি ফোলিয়েট করা ক্যালক-শিস্ট) এই অক্ষরটি বিলুপ্ত নাও হতে পারে, এবং একটি ব্যান্ডেড হর্নফেল সপণ্য; এমনকি জীবাশ্ম এমনকি তাদের আকৃতি সংরক্ষিত থাকতে পারে, যদিও সম্পূর্ণরূপে স্ফটিক, এবং অনেক যোগাযোগ-পরিবর্তিত লাভা এখনও দৃশ্যমান, যদিও তাদের বিষয়বস্তু সাধারণত নতুন সমন্বয়ে প্রবেশ করেছে খনিজ পদার্থ গঠনের জন্য যা মূলত উপস্থিত ছিল না। যদিও মিনিট স্ট্রাকচারগুলো তাপীয় পরিবর্তন খুব গভীর হয় তবে প্রায়শই সম্পূর্ণভাবে অদৃশ্য হয়ে যায়। এইভাবে একটি শেলের কোয়ার্টজের ছোট ছোট দানাগুলো মাটির পার্শ্ববর্তী কণার সাথে মিশ্রিত হয়ে এবং লাভার সূক্ষ্ম স্থলভর সম্পূর্ণরূপে পুনর্গঠিত হয়। [১৪]

এই পদ্ধতিতে পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হওয়ার মাধ্যমে প্রায়শই খুব স্বতন্ত্র ধরণের বিচিত্র শিলা উত্পাদিত হয়। এইভাবে শেল গুলো কর্ডিরাইট পাথরে যেতে পারে, অথবা আন্দালুসাইট (এবং চিয়াস্টলাইট), স্ট্যারোলাইট, গারনেট, কিয়ানাইট এবং সিলিমানাইটের বড় স্ফটিক দেখাতে পারে, সবগুলোই মূল শেলের আলুমিনাস সামগ্রী থেকে উদ্ভূত। যথেষ্ট পরিমাণ অভ্র (উভয়ই মাসকোভাইট ও বায়োটাইট) একযোগে গঠিত হয় এবং এবং ফলাফল পণ্য অনেক ধরনের শিস্টের সাথে ঘনিষ্ঠ সাদৃশ্য আছে। চুনাপাথর খাঁটি হলে প্রায়ই মোটা স্ফটিকের মার্বেলে পরিণত হয়; তবে যদি মূল শিলায় মাটির বা বালুর সংমিশ্রণ থাকে তবে গারনেট, এপিডোট, আইড্রোকস, ওল্লাস্টোনাইটের মতো খনিজ উপস্থিত থাকবে। স্যান্ডস্টোনস যখন প্রচণ্ড উত্তপ্ত হয় তখন কোয়ার্টজ এর বৃহৎ পরিষ্কার দানার সমন্বয়ে মোটা কোয়ার্টজাইটে পরিবর্তিত হতে পারে। এই পরিবর্তনের আরও তীব্র পর্যায়গুলো সাধারণভাবে আগ্নেয় শিলায় দেখা যায় না। কারণ এসব শিলার খনিজগুলো উচ্চ তাপমাত্রায় তৈরি হওয়য় এত সহজে রূপান্তরিত বা পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হয় না। [১৪]

কিছু ক্ষেত্রে শিলা একে অপরের সঙ্গে সংযুক্ত হয় এবং কালচে কাঁচের পণ্যগুলিতে স্পিনেলের মিনিট স্ফটিক। মাঝে মাঝে শরবতগুলো বেসাল্ট ডাইক দ্বারা পরিবর্তিত হয় এবং ফেল্ডস্প্যাথিক বালির স্টোনগুলো সম্পূর্ণরূপে বিতর্কিত হতে পারে। কয়লা সিল জ্বালিয়ে বা একটি সাধারণ চুল্লি দ্বারাও অনুরূপ পরিবর্তনগুলো শ্যালে উত্সাহিত হতে পারে। [১৪]

আগ্নেয় ম্যাগমা এবং পাললিক শিলার মধ্যেও পারস্পারিক মেটাসোমেটিজমের প্রবণতা রয়েছে। এই প্রকৃয়ায় মাধ্যমে পরস্পরের মধ্যে রাসায়নিক উপাদান বিনিময় হয়। গ্রানাইট শিলা শেলের টুকরো বা বেসাল্টের টুকরো শোষণ করতে পারে। সেক্ষেত্রে, স্কর্ন নামক হাইব্রিড শিলা উৎপন্ন হয়, যার মধ্যে সাধারণ আগ্নেয় বা পাললিক শিলর বৈশিষ্ট্য নেই। কখনও কখনও ধেয়ে আসা গ্রানাইট ম্যাগমা কোয়ার্টজ এবং ফেল্ডস্পারের থ্রেড সহ তাদের সংযোগস্থল এবং নিম্নতল ইত্যাদি ভরাট করে চারপাশের শিলাগুলোতে প্রবেশ করে। এটি অত্যন্ত ব্যতিক্রমী উদাহরণ হলেও এটি বড় পরিসরে সংঘটিত হতে পারে। [১৪]

স্থানীয় রূপান্তর[সম্পাদনা]

ইউটা , ওয়াশাচ পর্বতমালা, বিগ কটনউড ক্যানিয়নে মিসিসিপিয়ার মার্বেল।
গতিশীল রূপান্তর

স্থানীয় রূপান্তর বা গতিশীল রূপান্তর নামেও পরিচিত, এটি বিস্তৃত অঞ্চল জুড়ে শিলার বিশাল গণ-পরিবর্তনের জন্য দেওয়া নাম। পৃথিবীর তলদেশের থাকায়, উচ্চ তাপমাত্রা এবং উপরের শিলাস্তরগুলোর প্রচুর ওজন দ্বারা সৃষ্ট মহাচাপের দ্বারা নিহিত হয়ে শিলাগুলো রূপান্তরিত হয়ে যায়। সাম্প্রতিক আগ্নেয় অনুপ্রবেশ ব্যতীত নিম্নতম মহাদেশীয় ভূত্বকের বেশিরভাগ অংশই রূপান্তরিত শিলা। অনুভূমিক টেকটোনিক সঞ্চালন, যেমন মহাদেশগুলোর সংঘর্ষ অরোজেনিক বলয়ের সাথে শিলাগুলোতে উচ্চ তাপমাত্রা, চাপ এবং বিকৃতি ঘটায়। যদি রূপান্তরিত শিলাগুলি পরবর্তিতে উত্তোলিত হয় এবং ভূমি ক্ষয়ের ফলে এগুলো প্রকাশিত হয়, তাহলে এটি দীর্ঘতাবলয় বা পৃষ্ঠের অন্যান্য বৃহৎ অঞ্চলে দেখা যেতে পারে। রূপান্তর প্রক্রিয়াটি শিলার মূল বৈশিষ্ট্যগুলো ধ্বংস করতে পারে। যার ফলে শিলাটির পূর্ববর্তী ইতিহাস প্রকাশিত হতে পারে না। শিলা পুনঃস্ফটিকবদ্ধ হওয়ার ফলে পাললিক শিলায় উপস্থিত টেক্সচার এবং জীবাশ্ম ধ্বংস হয়ে যায়। মেটামেটিজম শিলার আসল কম্পোজিশনটি পরিবর্তন করে।

স্থানীয় রূপান্তরের ফলে শিলাটিকে আরও অবিকৃত করে তোলে এবং একই সাথে এটিকে একটি ফোলিটেড, শিস্টোজ বা নাইসিক টেক্সচার দেয়, খনিজগুলির একটি প্লানার ব্যবস্থা নিয়ে গঠিত, যাতে অভ্র এবং হর্নব্লেন্ডের মতো প্লাটি বা প্রিসম্যাটিক খনিজগুলি তাদের দীর্ঘতম অক্ষ একে অপরের সমান্তরালে সাজানো থাকে। সেই কারণে এই শিলাগুলির অনেকগুলি অভ্র-বিয়ারিং জোন (শিস্ট) বরাবর এক দিকে সহজেই বিভক্ত হয়ে যায়। নাইসে, খনিজগুলিও ব্যান্ডগুলিতে পৃথক ব্যান্ডগুলিতে পৃথক হয়; এইভাবে একটি শিস্ট, খুব পাতলা, কিন্তু মূলত একটি খনিজ নিয়ে গঠিত কোয়ার্টজ এবং অভ্রের স্তর রয়েছে। নরম বা বিভাজক খনিজের সমন্বয়ে গঠিত খনিজ স্তরগুলির সাথে শিলাগুলি সবচেয়ে সহজেই বিভক্ত হবে এবং সদ্য বিভক্ত নমুনাগুলি এই খনিজটির মুখোমুখি বা প্রলেপ দেওয়া হবে বলে মনে হবে; উদাহরণস্বরূপ, মুখদিয়ে দেখা অভ্র শিস্টের একটি টুকরো সম্পূর্ণভাবে অভ্রের উজ্জ্বল আঁশ নিয়ে গঠিত হতে পারে। নমুনার প্রান্তে দানাদার কোয়ার্টজের সাদা ফোলিয়া দৃশ্যমান হবে। গিনেসেসে পরিবর্তিত ফোলিয়া গুলি কখনও কখনও শিস্টের তুলনায় ঘন এবং কম নিয়মিত হয়, তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণভাবে কম মাইকেশিয়াস; তারা লেন্টিকুলার হতে পারে এবং দ্রুত মারা যেতে পারে। গিনেসিসগুলোও একটি নিয়ম হিসাবে শিস্টের চেয়ে বেশি ফেল্ডস্পার ধারণ করে এবং কঠোর ও কম বিভাজনক্ষম হয়। ফোলিয়েশনের বিকৃতি বা ভেঙে পড়া কোনওভাবেই অস্বাভাবিক নয়, ভঙ্গুর মুখগুলি অন্ডুলোজ বা চুনট হয়। উচ্চ তাপমাত্রায় নির্দেশিত চাপ দ্বারা এবং আন্তঃসংযোগীয় গতিবিধি অথবা অভ্যন্তরীণ প্রবাহ খনিজ কণাগুলি যখন সেই নির্দেশিত চাপ ক্ষেত্রে স্ফটিক হয় তখন সিস্টোসিটি এবং গিনেসেসে ব্যান্ডিং (ফলিয়েশনের দুটি প্রধান ধরণ) গঠিত হয়।[১৪]

যেসব শিলা মূলত পাললিক এবং নিঃসন্দেহে আগ্নেয়, সেগুলো শিস্ট এবং নাইসে রূপান্তরিত হতে পারে। মূলত অনুরূপ কম্পোজিশনটির যদি খুব বেশি রূপান্তর হয় তবে এগুলো একে অপরের থেকে আলাদা করা খুব কঠিন হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, একটি কোয়ার্টজ-পোর্ফাইরি এবং একটি সূক্ষ্ম ফেল্ডস্প্যাথিক বেলেপাথর উভয়ই ধূসর বা গোলাপী অভ্র-শিস্টে রূপান্তরিত হতে পারে। [১৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Yardley, B. W. D. (১৯৮৯)। An introduction to metamorphic petrology। Longman Scientific & Technical। পৃষ্ঠা 5। আইএসবিএন 0582300967 
  2. Wilkinson, Bruce H.; McElroy, Brandon J. (২০০৮)। "Global geologic maps are tectonic speedometers – Rates of rock cycling from area-age frequencies": 760–79। ডিওআই:10.1130/B26457.1  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "Wilkinson2008" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  3. Powell, Darryl। "Quartzite"। Mineral Information Institute। ২০০৯-০৩-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-০৯ 
  4. Schunck, Eberhard, and Hans Jochen Oster. Roof Construction Manual Pitched Roofs.. Basel: De Gruyter, 2003. 12. Print.
  5. Marble Institute of America pp. 223 Glossary
  6. PROCEEDINGS 4th International Congress on "Science and Technology for the Safeguard of Cultural Heritage in the Mediterranean Basin" VOL. I (ইংরেজি ভাষায়)। Angelo Ferrari। পৃষ্ঠা 371আইএসবিএন 9788896680315 
  7. Zhang, Xiao-Ping; Wong, Louis Ngai Yuen (আগস্ট ২০১১)। "Engineering properties of quartz mica schist": 135–149। ডিওআই:10.1016/j.enggeo.2011.04.020 
  8. Levin, Harold L. (২০১০)। The earth through time (9th সংস্করণ)। J. Wiley। পৃষ্ঠা 57। আইএসবিএন 9780470387740 
  9. Yardley 1989
  10. "Metaquartzite"। Glossary of geology. (Fourth সংস্করণ)। American Geological Institute। ১৯৯৭। আইএসবিএন 0922152349 
  11. Klein, Cornelis; Hurlbut, Cornelius S., Jr. (১৯৯৩)। Manual of mineralogy : (after James D. Dana) (21st সংস্করণ)। Wiley। পৃষ্ঠা 449, 480, 483,497, 516, 518, 529, 539, 543। আইএসবিএন 047157452X 
  12. Wicander R. & Munroe J. (২০০৫)। Essentials of Geology। Cengage Learning। পৃষ্ঠা 174–77। আইএসবিএন 978-0495013655 
  13. Robertson, S. (১৯৯৯)। "BGS Rock Classification Scheme, Volume 2: Classification of metamorphic rocks" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "BGS" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "BGS" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "BGS" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ অবৈধ; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "BGS" নাম একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  14.  One or more of the preceding sentences একটি প্রকাশন থেকে অন্তর্ভুক্ত পাঠ্য যা বর্তমানে পাবলিক ডোমেইনেFlett, John Smith (১৯১১)। "Petrology"। চিসাম, হিউ। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ21 (১১তম সংস্করণ)। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। পৃষ্ঠা 332–33। [[বিষয়শ্রেণী:উইকিসংকলনের তথ্যসূত্রসহ ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে একটি উদ্ধৃতি একত্রিত করা হয়েছে]]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]