অভ্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অভ্র
সাধারণ তথ্য
শ্রেণীফাইলোসিলিকেট
রাসায়নিক সূত্রAB২–৩(X, Si)O১০(O, F, OH)
সনাক্তকরণ
বর্ণবেগুনি, গোলাপী, রুপোলি, ধূসর (লেপিডোলাইট); গাঢ় সবুজ, বাদামী, কালো (বায়োটাইট); হলুদাভ বাদামী, সবুজ-সাদা (ফ্লগোপাইট); বর্ণহীন, স্বচ্ছ (মাস্কোভাইট)
বিদারণপ্রায় নিখুঁত
ফাটলস্তরপূর্ণ
কাঠিন্য মাত্রা২.৫–৪ (লেপিডোলাইট); ২.৫–৩ বায়োটাইট; ২.৫–৩ ফ্লগোপাইট; ২–২.৫ মাস্কোভাইট
ঔজ্জ্বল্যমুক্তার মত, চক্চকে
ডোরা বা বর্ণচ্ছটাসাদা, বর্ণহীন
আপেক্ষিক গুরুত্ব২.৮–৩.০
ডায়াগনস্টিক বৈশিষ্ট্যফাটল
তথ্যসূত্র[১][২][৩][৪]
ফ্লগোপাইট যুক্ত একটি পাতলা প্রস্থচ্ছেদের মাইক্রো ছবি। বাম দিকে তির্যক-মেরুকৃত আলোতে, ডানদিকে মসৃণ-মেরুকৃত আলো
পূর্ব অন্টারিও থেকে গাঢ় রঙা মাইকা

অভ্র, কিছু পাতযুক্ত ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত কয়েকটি সিলিকেট ( ফিলোসিলিকেট) খনিজের অন্তর্ভুক্ত, যাদের প্রায় নিখুঁত মূলগত ফাটল আছে। সবগুলিই মোনোক্লিনিক এবং ছদ্ম-ষড়ভুজাকার কেলাসের প্রবণতা আছে, এবং রাসায়নিক গঠন একরকম। প্রায় নিখুঁত বিভাজন, অভ্রের সর্বাধিক লক্ষণীয় বৈশিষ্ট্য, এর পরমাণুর ষড়ভুজাকৃতি পাতের মতো বিন্যাসের ফলে এই বৈশিষ্ট্য গঠিত হয়েছে।


অভ্র বা মাইকা শব্দটি লাতিন শব্দmica থেকে উদ্ভূত হয়েছে, এর অর্থ একটি ক্ষুদ্র টুকরো, এবং সম্ভবত micare দ্বারা প্রভাবিত, এর অর্থ চকচক কর।[৫]

অভ্র সহ শিলা
অভ্রের টুকরো
অভ্র স্ফটিক

প্রাপ্তি এবং উৎপাদন[সম্পাদনা]

অভ্রর প্রাপ্তিস্থান ব্যাপক অঞ্চলে বিস্তৃত এবং এটি আগ্নেয় শিলা, রূপান্তরক এবং পাললিক শিলার মধ্যে পাওয়া যায়। বিভিন্ন কাজের জন্য অভ্রর বড় স্ফটিক ব্যবহৃত হয় এবং এগুলি বিশেষত গ্রানাইটিক পেগমেটাইট থেকে খনন করা হয়।

উনিশ শতক অবধি ইউরোপ থেকে সীমিত সরবরাহের কারণে অভ্রর বড় কেলাসগুলি বেশ বিরল এবং ব্যয়সাপেক্ষ ছিল। তবে, উনিশ শতকের গোড়ার দিকে আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকাতে বড় খনির সন্ধান পাওয়া যায় এবং সেখান থেকে খননের ফলে অভ্রর দাম উল্লেখযোগ্যভাবে কমে গিয়েছিল। কানাডার অন্টারিওর লেসি খনিতে নথিভুক্ত অভ্রের বৃহত্তম একক স্ফটিক (ফ্লগোপাইট) পাওয়া গেছে; এর মাপ ছিল ১০ × ৪.৩ × ৪.৩ মি (৩৩ × ১৪ × ১৪ ফু) ওজন ছিল প্রায় ৩৩০ tonne (৩২০ লং টন; ৩৬০ শর্ট টন)।[৬] রাশিয়ার কারেলিয়াতেও একই আকারের স্ফটিক বা কেলাস পাওয়া গেছে।[৭]

ব্রিটিশ ভূতাত্ত্বিক জরিপ রিপোর্ট করেছে, ২০০৫ সালের হিসাব অনুযায়ী, ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের কোডারমা জেলায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় অভ্রর খনি আছে। এর আগে চীন ছিল অভ্রর শীর্ষস্থানীয় উৎপাদক দেশ, সারা পৃথিবীর এক তৃতীয়াংশ অভ্র সেখানে পাওয়া যেত, এর পরেই ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া এবং কানাডা। ঊনবিংশ শতাব্দী থেকে ১৯৭০ এর দশক পর্যন্ত নিউ ইংল্যান্ডে খনন করে প্রচুর পরিমাণে অভ্র পাত পাওয়া গিয়েছিল। কানেটিকাট, নিউ হ্যাম্প্‌শায়ার, এবং মেইনে বড় বড় খনি রয়েছে।

খুচরো এবং পাত অভ্র সারা বিশ্বে উৎপাদিত হয়। ২০১০ সালে প্রধান উৎপাদক দেশগুলি ছিল রাশিয়া (১০০,০০০ টন), ফিনল্যান্ড (৬৮,০০০ টন), আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র (৫৩,০০০ টন), দক্ষিণ কোরিয়া (৫০,০০০ টন), ফ্রান্স (২০,০০০ টন) এবং কানাডা (১৫,০০০ টন)। সারা বিশ্বে মোট উৎপাদন ছিল ৩৫০,০০০ টন, যদিও চীনের উৎপাদনের কোনও নির্ভরযোগ্য তথ্য পাওয়া যায়নি। বেশিরভাগ পাত অভ্র ভারতে (৩,৫০০ টন) এবং রাশিয়ায় (১,৫০০ টন) উৎপাদিত হয়েছিল।[৮] খুচরো অভ্র বিভিন্ন উৎস থেকে আসে: রূপান্তরিত শিলা শিস্ট থেকে ফেলস্পার এবং সাদামাটির প্রক্রিয়াকরণের সময় একটি উপজাত দ্রব্য হিসেবে, প্লেসার (দামি খনিজ জমা হওয়া) জমা থেকে, এবং পেগমাটাইট থেকে। খুচরো অভ্র থেকে পাত অভ্র কম পাওয়া যায়, এবং মাঝেমধ্যে খুচরো অভ্রর খনি থেকে এটি পাওয়া যায়। অভ্র পাতের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উৎস হল জমা পেগমেটাইট। অভ্র পাতের দাম শ্রেণী অনুযায়ী পরিবর্তিত হয় এবং নিম্নমানের অভ্রর জন্য প্রতি কেজিতে $১ এরও কম দাম হতে পারে, যেখানে সর্বোচ্চ শ্রেণীর জন্য প্রতি কেজি ২০০০ ডলারেরও বেশি হতে পারে।[৯]

বৈশিষ্ট্য এবং ব্যবহার[সম্পাদনা]

অভ্র শ্রেণীটি ৩৭টি ফিলোসিলিকেট খনিজের প্রতিনিধিত্ব করে, যাদের স্তরযুক্ত গঠনবিন্যাস আছে। বাণিজ্যিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ অভ্রগুলি হল মাস্কোভাইট এবং ফ্লগোপাইট, যেগুলি বিভিন্ন রকম কাজে ব্যবহৃত হয়। অভ্রর মান এর বিভিন্ন অনন্য বৈশিষ্ট্যের উপর নির্ভর করে। অভ্রর স্ফটিক কাঠামো স্তরে বিন্যস্ত থাকে, সাধারণত পাথরে ভাঁজের ফলে এই বিন্যাসের সৃষ্টি হয়।। এই স্তরকে পাতলা পাতে বিভক্ত বা বিচ্ছিন্ন করা যেতে পারে। এই পাতগুলি রাসায়নিকভাবে নিষ্ক্রিয়, অস্তরক (ডাইইলেকট্রিক), স্থিতিস্থাপক, নমনীয়, জল দ্বারা আকৃষ্ট, অন্তরক, হাল্কা, পাতলা থালা জাতীয় পাথরের মত, প্রতিফলক, প্রতিসারক, সংক্ষিপ্ত। এগুলি স্বচ্ছ থেকে অস্বচ্ছ পর্যন্ত সবই পাওয়া যায়। বিদ্যুৎ, আলো, আর্দ্রতা এবং চরম তাপমাত্রার সংস্পর্শেও অভ্র স্থিতিশীল থাকে। এটির অন্তরক এবং অস্তরক হিসাবে উচ্চতর বৈদ্যুতিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, এবং তাপের মাধ্যমে ন্যূনতম শক্তি অপচয় করে স্থির বৈদ্যুতিক ক্ষেত্রে থাকতে পারে; এর বৈদ্যুতিক বৈশিষ্ট্য বজায় রেখেও, এটি খুব পাতলা করে বিভক্ত করা যায় (০.০২৫ থেকে ০.১২৫ মিলিমিটার বা তার থেকেও পাতলা), অস্তরক ভাঙ্গন (ব্রেক ডাউন) অনেক বেশি, ৫০০ °সে (৯৩২ °ফা) তাপমাত্রায় স্থিতিশীল, এবং করোনা বিসর্জন প্রতিরোধী। বৈদ্যুতিক শিল্প দ্বারা ব্যবহৃত প্রধান অভ্র, মাস্কোভাইট ধারক (ক্যাপাসিটার) তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এগুলি উচ্চ কম্পাঙ্ক এবং রেডিও কম্পাঙ্কের জন্য আদর্শ। ফ্লগোপাইট অভ্র উচ্চ তাপমাত্রায় স্থিতিশীল থাকে (৯০০ °সে (১,৬৫০ °ফা)) এবং এমন কাজে ব্যবহৃত হয় যেখানে উচ্চ-তাপ স্থায়িত্ব এবং বৈদ্যুতিক বৈশিষ্ট্যের সংমিশ্রণ প্রয়োজন। মাস্কোভাইট এবং ফ্লগোপাইট অভ্র পাত এবং গুঁড়ো এই দুই আকারেই ব্যবহার করা হয়।[৯]


আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mica" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৫-০১-১৬ তারিখে. Minerals Education Coalition.
  2. "The Mica Group" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৫-০৩-০২ তারিখে. Rocks And Minerals 4 U.
  3. "Mica" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৫-০৩-১৭ তারিখে. mineralszone.com.
  4. "Amethyst Galleries – THE MICA GROUP" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৪-১২-৩০ তারিখে. galleries.com.
  5. Kirkpatrick, E. M., সম্পাদক (১৯৮৩)। Chambers 20th Century Dictionary। Schwarz, Davidson, Seaton, Simpson, Sherrard (New সংস্করণ)। Edinburgh: W & R Chambers Ltd। পৃষ্ঠা 793। আইএসবিএন 0550102345 
  6. Rickwood, P. C. (১৯৮১)। "The largest crystals" (PDF)American Mineralogist66: 885–907। ২০১৩-০৮-২৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. "The giant crystal project site"। ২০০৯-০৬-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৬-০৬ 
  8. Mica ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১১-১০-৩০ তারিখে, USGS Mineral Commodity Summaries 2011
  9. Dolley, Thomas P. (2008) "Mica" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১১-১০-৩০ তারিখে in USGS 2008 Minerals Yearbook.

উৎস[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • Mineral Galleries data
  • Mindat
  • CDC – NIOSH Pocket Guide to Chemical Hazards
  •  "Mica"। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ (১১তম সংস্করণ)। ১৯১১। [[বিষয়শ্রেণী:উইকিসংকলনের তথ্যসূত্রসহ ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে একটি উদ্ধৃতি একত্রিত করা হয়েছে]]