মৌলভী আবদুল হক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মৌলভী আবদুল হক
জন্ম ১৬ই নভেম্বর, ১৮৭২
হাপুর, ঘাজিয়াবাদ, ভারত
মৃত্যু আগস্ট ১৬, ১৯৬১(১৯৬১-০৮-১৬) (৮৮ বছর)
করাচী, পাকিস্তান
জাতীয়তা পাকিস্তানী
অন্য নাম উর্দুর জনক
পেশা পণ্ডিত, ভাষাতত্ত্ববিদ
যে জন্য পরিচিত উর্দু ভাষার জনক
একই নামের অন্যান্য ব্যক্তিবর্গের জন্য দেখুন আবদুল হক

মৌলভী আবদুল হক (উর্দু: مولوی عبد الحق) ছিলেন একজন পণ্ডিত এবং ভাষাতত্ত্ববিদ। তিনি​বাবা ই উর্দু (উর্দু: بابائے اردو) বা উর্দুর জনক নামেও পরিচিত ছিলেন। তিনি উর্দুকে পাকিস্তানের জাতীয় ভাষা হিসাবে নির্ধারণ করার পক্ষে ছিলেন।[১]

প্ররম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

শিক্ষা এবং রাজনৈতিক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

পাকিস্তানে অবস্থান[সম্পাদনা]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

উর্দুর জনক(বাবা-ই-উর্দু)[সম্পাদনা]

উর্দু সাহিত্যের বিকাশ এবং উন্নয়নের ক্ষেত্রে তার অবদানের জন্য তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে উর্দুর জনক বা বাবা-ই-উর্দু বলা হয়। তার উল্লেখযোগ্য কাজগুলোর মধ্যে রয়েছে ইংরেজি-উর্দু অভিধান, চাদ হ্যাম আসার, মাক্তবাত, মুকাদ্দিমাত, তাওকিদা, কায়ই-ই-উর্দু, দেবাচা দাসতান রানি কিতকি ইত্যদি। আঞ্জুমান তারিকাহ্‌-ই-উর্দু পাকিস্তানের বুদ্ধিজীবিদের একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা। পাকিস্তানের বিভিন্ন বুদ্ধিজীবি, শিক্ষাবিদ এবং পন্ডিতরা এই প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত আছেন। পাকিস্তানের মুসলমানদের জন্য একটি অন্যন্য ভাষা উর্দুর প্রতিষ্ঠান এবং মুসলিম ঐতিহ্য ও নিদর্শনের উন্নয়নের লক্ষে কাজ করার জন্য এই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে আবদুল হককে সম্মনিত করা হয়।[২]

উর্দু সাহিত্যতে তার বিশেষ অবদানের জন্য পাকিস্তান ডাকবিভাগ ১৬ আগস্ট ২০০৪ সালে একটি স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করে।

উর্দু বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Baba-e-Urdu: Maulvi Abdul Haq
  2. M Ayub Khan (1961). Speeches and Statements. Pakistan Publications.