মিশনারি আসন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ফরাসী চিত্রকর এদুয়ার্দ অঁরি অভ্রিল কর্তৃক আঁকা মিশনারী পজিশনে যৌনমিলন

মিশনারি আসন (মিশনারী পজিশন, মিশনারী অবস্থান, ম্যান অন টপ পজিশন নামেও পরিচিত) হচ্ছে এক প্রকারের যৌনাসন যেখানে নারী সঙ্গী শুয়ে থাকে আর পুরুষ সঙ্গীটি হয় তার উপরে শোয় বা একটু বাঁকা হয়ে তার দিকে শোয়া শোয়া অবস্থায় থাকে।[১][২][৩] এই ধরণের কর্ম সাধারণত স্ত্রীলিঙ্গে শিশ্ন প্রবেশ করানোর জন্য করা হয়।[২] এরূপ যৌনকর্মের নাম মিশনারী আসন হয়েছে খ্রিষ্টানদের দ্বারা, একসময় খ্রিষ্টান ধর্ম প্রচারকেরা ভারতে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন তাদের এরূপ সঙ্গমপদ্ধতির প্রচার করার জন্য, পরে সাধারণ ভারতীয়রা এই সঙ্গমপদ্ধতিকে মিশনারী আসন নাম দেন।[৪] মার্কিন যৌনবিদ আলফ্রেড কিন্সে (১৮৯৪-১৯৫৬) মিশনারী পজিশন শব্দটিকে ইংরেজি ভাষায় চালু করে তুলেছিলেন চল্লিশ এর দশকে তার 'সেক্সুয়াল বিহেভিয়ার ইন হিউম্যান মেইল' বইয়ের মাধ্যমে, এছাড়া ১৯৫৩ সালে তার 'সেক্সুয়াল বিহেভিয়ার ইন হিউম্যান ফিমেইল' নামের আরেকটি বইতেও তিনি অনুরূপ সঙ্গম আসনের কথা বলেন।[৫][৬]

মিশনারী পজিশনে পায়ুকাম[২] এবং সমকামও করা যায়।[৭] আধুনিক যুগে মিশনারী যৌনাসন যৌনসঙ্গমের মূল আসন হিসেবে অতটা ব্যবহৃত হয়না।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Missionary position" (ইংরেজি ভাষায়)। Merriam-Webster। সংগৃহীত জানুয়ারি ২৪, ২০১৩ 
  2. "What is the missionary position?" (ইংরেজি ভাষায়)। Go Ask Alice! (Columbia University)। মে ২৬, ২০১৫। সংগৃহীত ডিসেম্বর ৫, ২০১৫ 
  3. Keath Roberts (২০০৬)। Sex (ইংরেজি ভাষায়)। Lotus Press। পৃ: ১৪৫। আইএসবিএন 8189093592। সংগৃহীত আগস্ট ১৭, ২০১২ 
  4. Roberts, Amanda; Padgett-Yawn, Barbara (১৯৯৮)। Reader's Digest Guide to Love & Sex (ইংরেজি ভাষায়)। Reader's Digest Association। আইএসবিএন 9780762100439। সংগৃহীত ২৭ জুলাই ২০১৫। "The missionary position is so called because it was allegedly the sexual position recommended by Christian missionaries to their Polynesian converts in the era of European colonialism." 
  5. "Assuming the missionary position… again"The Straight Dope (ইংরেজি ভাষায়)। Cecil Adams। ২০০৫-০৬-১৭। 
  6. Priest, Robert J. (২০০১)। "Missionary Positions: Christian, Modernist, and Postmodernist"। Current Anthropology (ইংরেজি ভাষায়) 42 (1): 29–68। ডিওআই:10.1086/318433পিএমআইডি 14992209 
  7. Hite, Shere (২০০৪)। The Hite Report: A Nationwide Study of Female Sexuality। New York, NY: Seven Stories Press। পৃ: ৩২২। আইএসবিএন 1583225692। সংগৃহীত ২ মার্চ ২০১২