নারী-নারী সহবাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মিশনারি আসনে সহবাসরত দুজন নারী

নারী-নারী সহবাস বা নারী-নারী যৌনমিলন হচ্ছে একটি যৌনক্রিয়া যেটাতে সাধারণত একটি নারী অপর একটি নারীর যোনিতে তার নিজের যোনি ঘর্ষণ করেন। এই ধরণের যৌনক্রিয়া সমকামী নারীদের মাঝে খুব জনপ্রিয়। যোনিতে ঘর্ষণ করা ছাড়াও এই ধরণের যৌনক্রিয়াতে একজন নারী তার যোনিকে তার সঙ্গীনারীর উরু, পেট, নিতম্ব, বাহু অথবা শরীরের অন্য কোনো জায়গায় ঘর্ষণ করতে পারেন, তবে সাধারণত মুখে ঘর্ষণ করা হয়না।[১][২][৩][৪] এই ধরণের যৌনক্রিয়ার জন্য অনেক ধরণের যৌন আসন রয়েছে তন্মধ্যে পুরুষ-নারী সহবাসের পদ্ধতি মিশনারি আসনও রয়েছে।[৫][৬]

এই নারী-নারী সহবাসকে ইংরেজি ভাষায় ট্রিব্যাডিজম (Tribadism) বলা হয়। এই ধরণের যৌনমিলনের ধারণা উদ্ভূত হয়েছিলো এই বিশ্বাস থেকে যে একজন নারীও আরেকজন নারীর সঙ্গে যৌনমিলন তার পুরুষসঙ্গীর মতই করতে পারেন।[১][৭][৮] যেসব নারী আগেকার যুগে এই ধরণের যৌনক্রিয়ায় জড়াতেন তাদেরকে নিয়ে সমাজ ঠাট্টা-তামাশা করতো।[১][৮][৯] আধুনিক সময়ে এই ধরণের যৌনক্রিয়া পুরুষদের ঘর্ষকাম এর অনুরূপ একটি যৌনতা হিসেবে স্বীকৃত। এই ধরণের যৌনক্রিয়ায় যোনিতে আঙ্গুল ঢোকানো কিংবা বন্ধনীযুক্ত কৃত্রিম শিশ্ন পরিধান করে পেগিংও করা হতে পারে।[৪][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bonnie Zimmerman (২০০০)। Lesbian histories and cultures: an encyclopedia (Volume 1)। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 776–777। আইএসবিএন 0-8153-1920-7। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০১২ 
  2. Belge, Kathy। "What is Tribadism"About.com। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১৯, ২০১০ 
  3. Cathy Winks & Anne Semans (২০০২)। The Good Vibrations Guide to Sex (3rd সংস্করণ)। Cleis Press। আইএসবিএন 1-57344-158-9 
  4. Janell L. Carroll (২০০৯)। Sexuality Now: Embracing DiversityCengage Learning। পৃষ্ঠা 272। আইএসবিএন 0-495-60274-4। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১২-১৯ 
  5. Hite, Shere (২০০৪)। The Hite Report: A Nationwide Study of Female Sexuality। New York, NY: Seven Stories Press। পৃষ্ঠা 322। আইএসবিএন 1583225692। সংগ্রহের তারিখ ২ মার্চ ২০১২ 
  6. Jude Schell (২০০৮)। Lesbian Sex: 101 Lovemaking PositionsRandom House Digital। পৃষ্ঠা 18। আইএসবিএন 0-495-60274-4। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৪, ২০১২ 
  7. Todd C. Penner; Caroline Vander Stichele (২০০৭)। "Still before sexuality: "Greek" androgyny, the Roman imperial politics of masculinity and the Roman invention of the Tribas"। Mapping gender in ancient religious discourses। Brill। পৃষ্ঠা 11–21। আইএসবিএন 90-04-15447-7। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১২ 
  8. Halberstam, Judith (১৯৯৮)। Female Masculinity। Duke University Press। পৃষ্ঠা 61–62। আইএসবিএন 9780822322436। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-১২-১৯ 
  9. Dena Goodman (২০০৩)। Marie-Antoinette: writings on the body of a queen। Psychology Press। পৃষ্ঠা 144–145। আইএসবিএন 0-415-93395-1। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১২