ভাজা মুরগী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ভাজা মুরগী
Fried-Chicken-Set.jpg
একটি মুরগির বিভিন্ন ভাজা অংশ
প্রকার প্রধান খাবার
পরিবেশন তাপমাত্রা গরম বা ঠান্ডা
প্রধান উপকরণ মুরগি
রান্নার বই: ভাজা মুরগী  উইকিমিডিয়া কমন্সে মিডিয়া: ভাজা মুরগী সম্পর্কিত মিডিয়া রয়েছে

ভাজা মুরগী, (যুক্তরাস্ট্রে বিভিন্ন যায়গায় সাউথ ফ্রাইড চিকেন নামে পরিচিত) মুরগির মাংসের বিভিন্ন অংশের সাথে আটা বা ময়দা মাখিয়ে কিংবা ছোট ছোট টুকরা করে কড়াইয়ে অল্প তেলে, ডুবা তেলে কিংবা কড়া করে ভেজে বানানো হয় । বেশীরভাগ সময় এটি তৈরী করতে ব্রয়লার মুরগি ব্যবহার করা হয়। আটা বা ময়দার অংশটুকু মচমচে একটি আলাদা প্রলেপ তৈরি করে। ভাজা মুরগী তৈরি করার জন্য একটি আস্ত মুরগির চামড়াসহ মাংস ও হাড় অক্ষত রেখে বিভিন্ন অংশে কেটে নেওয়া হয়।

প্রথম দিকে এটি ডুবা তেলে ভাজা হতো যেটা মধ্য যুগে অনেক জনপ্রিয় ছিলো। ইউরোপের মধ্যে সর্বপ্রথম স্কটিসরা এই রেসিপি আবিস্কার করে এবং ঐ সময় সিজনিং ছাড়াই ডুবা তেলে ভাজা হতো । অপরদিকে পশ্চিম আফ্রিকানরা তাদের ঐতিহ্যগত ভাবে এটি সিজনিং (যদিও ছোট ছোট করে তেলে ভাজি করত) করে খেত। দক্ষিন আমেরিকায় আমেরিকান-আফ্রিকানরা স্কটিশদের ভাজি করার কৌশল এবং পশ্চিম আফ্রিকানদের সিজনিং কৌশল একসাথে করে এি রেসিপি তৈরি করত। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগে এটি অনেক দামী খাবার গুলোর মধ্যে একটি ছিল। ১৯৯০ সালের পর এবং ২০০০ এর শুরুতে এর চাহিদা আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে। পরবর্তীতে এর দাম হাতের নাগালেই চলে আসে।

যখন এটি রান্না করা হয় তখন ছোট ছোট অংশে ভাগ করা হয়। মাংসের অংশটুকু সাধারণত ময়দা দিয়ে মাখানো হয়, সাথে ডিম বা দুধও ব্যবহার করা হয়ে থাকে। মেশানোর পর যখন রান্না করার জন্য প্রস্তুত হয় তখন পছন্দ অনুযায়ী (অল্প তেলে, ডুবা তেলে কিংবা কড়া করে) ভাজা হয়।

এই রেসিপি বিভিন্ন ভাবেই পরিবেশন করা যায়। উদাহরণস্বরূপ- কোরিয়ান ফ্রাইড চিকেন। এটি ফাস্টফুড হিসেবে কোরিয়াতে পরিবেশন করা হয় এবং সাধারণ চিকেনের চেয়ে এটি সুস্বাদু।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

প্লেটের উপর একটুকরো শূকরের চর্বি
হাতে তৈরি শূকরের চর্বি

স্কটিস,[১][২][৩] পশ্চিম আফ্রিকানদের ভাজা মুরগী [৪][৫][৬][৭][৮] রন্ধন শিল্পে একটি ঐতিহ্য আছে।[১][২][৩][৪][৫][৬][৭][৮] সেসময়ে স্কটিসদের ভাজা মুরগীতে অনেক চর্বি থাকতো যদিও এটি আনসিজন্ড ছিল। ১৭৩০ সালের এর শুরুতে আফ্রিকান-আমেরিকান মহিলারা মুক্ত অর্থনীতিতে এর ভুমিকা রেখেছিল পোল্ট্রি মুরগির ব্যবসায়ের মাধ্যমে।[৯]

যখন এটি আমেরিকার দক্ষিণে পরিচিত লাভ করে তখন থেকেই এটি জনপ্রিয় হয়ে উঠে। ভাজা মুরগী সেই অঞ্চলে "রবিবারের ডিনারের" জন্য পছন্দের শীর্ষে উঠতে থাকে। স্বাধীনতা দিবসের মত ছুটির দিন ছাড়াও সময়ে এটি রান্না হতো।[১০]

উনিশ শতকে ঢালাই লোহার তৈরি উপকরণ রান্নার ব্যবহারের জন্য সহজলভ্য হয়ে উঠে। বর্তমানে ভাজা মুরগীর যাত্রা শুরু, নিয়ন্ত্রণযোগ্য চুল্লির উপর একটি ভারি কড়াইয়ে ময়দা, তেল/চর্বি ও মুরগী দিয়ে।

বিবরণ[সম্পাদনা]

একটি পাপরিকার বাটি
এক বাটি পাপরিকা যেটি ভাজা মুরগীতে দেওয়া হয়

ভাজা মুরগী 'কুড়মুড়ে','টসটসে'[১১] 'সুস্বাদু' হয়।[১২] একে মশলাযুক্ত খাবারও বলা হয়।[১৩] ভাজা মুরগির উপর পাপরিকা বা গরম সস দিলে এর স্বাদ আরো বেড়ে উঠে।[১৪] ফাস্টফুড রেস্টুরেন্ট এমনকি কেএফসির মত চেইন শপে এটি এখন সহজলভ্য।[১৫] আগে থেকে এই রেসিপিতে আলু, বাধাকপির সালাদ প্রভৃতি পরিবেশন করা হয়। [১৬]

ফাস্টফুডের আউটলেটে আসার পর থেকেই এটি অনেক চর্বি যুক্ত ও অস্বাস্থ্যকর খাবারে পরিণত হয়েছে।.[১১] বিভিন্ন প্রকার প্রাণির মাংস হতে ভাজা মাংস বানানো হয়। মাংসের পাখনার অংশে ১০০ গ্রাম (০.২২ পা) এর মধ্যে ৪০ গ্রাম (০.০৮৮ পা) ই চর্বি থাকে।[১৭] যদিও পুরো ভাজা মাংসের ১০০ গ্রাম (০.২২ পা) এর মধ্যে ১২% অথবা ১২ গ্রাম (০.০২৬ পা) চর্বি থাকে। যার মধ্যে ২৪০ ক্যালোরি শক্তি থাকে।[১৮]

বৈশ্বিক রুপ[সম্পাদনা]

ন্যাশভিল স্টাইল হট চিকেন
তরি নো ক্যারেজ, জাপানি ভাজা মুরগী
স্যাভোরি রেস্টুরেন্ট ফ্রাইড চিকেন (ফিলিপাইন)
ক্যাপিটাল ক্যাফে, মংকক এর হংকং স্টাইল ফ্রাইড চিকেন লেগ

বিশ্বের সর্বত্র, ভাজা মুরগির গন্ধ বৃদ্ধি করতে বিভিন্ন মশলা ব্যবহার করা হয়।[১৯][২০] অঞ্চলভিত্তিকের কারণে এটি দক্ষিণ যুক্টরাষ্ট্রের চেয়ে ভিন্ন স্বাদের হয়।[২১] অনেক যায়গায় এটি আবার ভোক্তার চাহিদা অনুযায়ী তৈরি করা হয়,

উত্তর আমেরিকা[সম্পাদনা]

  • বারবারটোন চিকেনঃ সারবেইয়ান চিকেন নামেও পরিচিত, ওহাইওতে অনেক জনপ্রিয়।[২২]
  • বাফেলো উইংঃ বাফেলো, নিউইয়র্ক শহরের নামে নাম করন হয়।[২৩]
  • চিকেন ফিঙ্গারসঃ চিকেন টেন্ডারস বা চিকেন স্ট্রিপ নামেও পরিচিত।[২৪]
  • চিকেন ফ্রাইসঃ ফ্রেন্স ফ্রাইয়ের আকৃতিতে চিকেন নাগেটস; যেটি চেইন বার্গার, কেএফসিএর মাধ্যমে পরিচিতি পেয়েছে।[২৫]
  • চিকেন মেরিল্যান্ডঃ মেরিল্যান্ড রাজ্যে অনেক সুপরিচিত; যুক্ত্রাস্ট্রের পাশাপাশি ব্রিটেনঅস্ট্রেলিয়াতেও পরিচিতি পায়।[২৬]
  • চিকেন নাগেটসঃ হাড় ছাড়া মাংসের একটি পণ্য যেটি কর্নেল পোল্ট্রির বিজ্ঞানের প্রফেসর রবার্ট বেকার ১৯৫০ সালে আবিস্কার করেন।[২৭]
  • পপকর্ণ চিকেনঃ এটি চিকেন বাইটস নামে পরিচিত।[২৮]
  • চিকেন প্যাটিসঃ স্যান্ডউইচ তৈরিতে ব্যবহার করা হয়।[২৯]
  • কান্ট্রি ফ্রাইড চিকেনঃ মুরগির মাংসের সাথে ময়দা মিশিয়ে তৈরি করা হয়।[৩০]
  • চিকেন এন্ড ওয়াফলসঃ আমেরিকার দক্ষিণে সল ফুড রেস্টুরেন্টে এটি সহজলভ্য।[৩১]
  • হট চিকেনঃ ন্যাশভিল, টেনেসি তে অনেক সুপরিচিত।[৩২]
  • ফ্রাইড চিকেন স্যান্ডউইচঃ ওয়াশিংটনে অনেক জনপ্রিয়।[৩৩]

এশিয়া[সম্পাদনা]

চিকেন ৬৫, ডোবা তেলে ভাজা রেসিপি, ভারত
  • আয়াম গরেংঃ বিভিন্ন প্রকার ইন্দোনেশিয়ান, সিঙ্গাপুরি, মালেশিয়ান মুরগির রেসিপি যেটি তৈরি হয় ডোবা তেলে। দক্ষিন এশিয়ায় মাখন ব্যবহার করা হয় না কিন্তু সুস্বাদু হয়।[৩৪]
  • চিকেন ৬৫ঃ ভারতের ডোবা তেলে তৈরি একটি রেসিপি।[৩৫]
  • ক্রিস্পি ফ্রাইড চিকেনঃ চিনের ক্যানটোনীজ রন্ধনশিল্পের একটি রেসিপি।[৩৬]
  • গার চেওং গাইঃ সিঙ্গাপুরিয়ান চিকেন উইং।[৩৭]
  • চিকেন ক্যারেজঃ জাপানের এক প্রকার ভাজা মুরগী তৈরির পদ্ধতি।[৩৮]
  • তাইওয়ান ফ্রাইড চিকেনঃ তাইওয়ান নাইট মার্কেটে এটি অনেক জনপ্রিয়।[৩৯]
  • চিকেন কাৎসুঃ একটি জাপানি রেসিপি। ডোবা তেলে ভাজার আইটেম যেটি শূকরে মাংস ব্যবহার করা হয়। সাধারণত তরকারি হিসেবে ব্যবহার করা হয়।[৪০]
  • কোরিয়ান ফ্রাইড চিকেনঃ গাঞ্জাং সসের স্বাদের সাথে রসুন ব্যবহৃত ভাজা মুরগী।[৪১]
  • বাল্ডাকঃ কোরিয়ার একটি রেসিপি।[৪২]
  • সুইট এন্ড সর চিকেনঃ ডোবা তেলে ভাজা মাংসের বল।[৪৩]
  • টরিটেনঃ জাপানি টেম্পুরা স্টাইলে ভাজা মুরগী।[৪৪]
  • চিকেন উইথ চিলঃ একটি সিচুয়ান স্টাইলের ভাজা মুরগির রেসিপি।[৪৫]
  • চিকেন ললিপপঃ মাখনে প্রলিপ্ত একটি ভারতীও ভাজা মুরগির স্ন্যাক।[৪৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Sumnu, Servet Gulum; Sahin, Serpil (ডিসেম্বর ১৭, ২০০৮)। Advances in Deep-Fat Frying of Foods (ইংরেজি ভাষায়)। CRC Press। পৃ: 1–2। আইএসবিএন 9781420055597। "The origin of fried chicken is the southern states of America. Fried chicken had been in the diet of Scottish people for a long time, but they did not use seasoning. After African slaves had been hired as cooks, they added seasoning to the fried chicken of the Scottish people. Because slaves were allowed to feed only chickens, fried chicken became the dish that they ate on special occasions. This tradition spread to all African-American communities after the abolition of slavery." 
  2. Mariani, John F. (১৯৯৯)। The Encyclopedia of American Food and Drink। New York: Lebhar-Friedman। পৃ: 305–306। "The Scottish, who enjoyed frying their chickens rather than boiling or baking them as the English did, may have brought the method with them when they settled the South. The efficient and simple cooking process was very well adapted to the plantation life of the southern African-American slaves, who were often allowed to raise their own chickens."  quoted at Lynne Olver। "history notes-meat"। The Food Timeline। সংগৃহীত জুন ২০, ২০০৯ .
  3. Robinson, Kat (Oct ২১, ২০১৪)। Classic Eateries of the Arkansas Delta। The History Press। "Most settlers from Europe were accustomed to having their chicken roasted or stewed. The Scots are believed to have brought the idea of frying chicken in fat to the United States and eventually into the Arkansas Delta in the eighteenth and nineteenth centuries. Similarly, African slaves brought to the South were sometimes allowed to keep chickens, which didn't take up much space. They flour-breaded their pieces of plucked poultry, popped it with paprika and saturated it with spices before putting it into the grease." 
  4. Rice, Kym S.; Katz-Hyman, Martha B. (২০১০)। World of a Slave: Encyclopedia of the Material Life of Slaves in the United States [2 volumes]: Encyclopedia of the Material Life of Slaves in the United States। ABC-CLIO। পৃ: 109–110। আইএসবিএন 978-0-313-34943-0। "Chickens also were considered to be a special dish in traditional West African cuisine. ... Chickens were... fried in palm oil. ... Pieces of chicken fried in oil sold on the street ... would all leave their mark on the developing cuisine of the early South." 
  5. Kein, Sybil (২০০০)। Creole: The History and Legacy of Louisiana's Free People of Color। LSU Press। পৃ: 246–247। আইএসবিএন 978-0-8071-2601-1। "Creole fried chicken is another dish that follows the African technique: "the cook prepared the poultry by dipping it in a batter and deep fat frying it" 
  6. Opie, Frederick Douglass (২০১৩)। Hog and Hominy: Soul Food from Africa to America। Columbia University Press। পৃ: ১১। আইএসবিএন 978-0-231-51797-3। "West African women batter dipped and fried chicken" and "The African-American practice of eating chicken on special occasions is also a West Africanism that survived the slave trade. Among the Igbo, Hausa, and Mande, poultry was eaten on special occasions as part of religious ceremonies." 
  7. Opie, Frederick Douglass (২০১৩)। Hog and Hominy: Soul Food from Africa to America। Columbia University Press। পৃ: ১৮। আইএসবিএন 978-0-231-51797-3। "..the African-American preference for yams and sweet potatoes, pork, chicken, and fried foods also originated in certain West African culinary traditions" 
  8. Worral, Simon (December 21, 2014) "The Surprising Ways That Chickens Changed the World". National Geographic: "When slaves were brought here from West Africa, they came with a deep knowledge of the chicken, because in West Africa the chicken was a common farm animal and also a very sacred animal. The knowledge that African-Americans brought served them very well, because white plantation owners for the most part didn't care much about chicken. In colonial times there were so many other things to eat that chicken was not high on the list."
  9. Rice, Kym S.; Katz-Hyman, Martha B. (২০১০-১২-১৩)। World of a Slave: Encyclopedia of the Material Life of Slaves in the United States [2 volumes]: Encyclopedia of the Material Life of Slaves in the United States (ইংরেজি ভাষায়)। ABC-CLIO। পৃ: 109। আইএসবিএন 9780313349430 
  10. History of Fried Chicken : I Am Welcoming You to Kik Culinary Corner and History of Some Story & Experience. Experienceproject.com (August 19, 2008). Retrieved on 2012-01-30.
  11. "Southern Living's Best Fried Chicken Recipe"NYT Cooking। সংগৃহীত মে ২১, ২০১৬ 
  12. "Adobo-Fried Chicken Recipe"NYT Cooking। সংগৃহীত মে ২১, ২০১৬ 
  13. Eats, Serious। "The Food Lab: The Best Southern Fried Chicken"www.seriouseats.com। সংগৃহীত জুন ৪, ২০১৬ 
  14. "Spicy Fried Chicken With Honey and Pickles"Wall Street Journal। জানুয়ারি ৯, ২০১৪। আইএসএসএন 0099-9660। সংগৃহীত মে ২১, ২০১৬ 
  15. Waxman, Olivia B.। "KFC Introduces Nashville Hot Chicken"TIME.com। সংগৃহীত মে ২১, ২০১৬ 
  16. Bruno, Pat (জানুয়ারি ৩, ১৯৮৬)। "Fried chicken worth clucking about"। Chicago Sun-Times  – via HighBeam (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)। সংগৃহীত সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৬ 
  17. "Moisture and fat content Moisture and fat content of extra crispy fried of extra crispy fried chicken skin from breast, thigh, drum and wing"ars.usda.gov। সংগৃহীত মে ২১, ২০১৬ 
  18. "Chicken, broilers or fryers, light meat, meat and skin, cooked, fried, flour"ndb.nal.usda.gov। সংগৃহীত জুন ৩, ২০১৬ 
  19. "Kentucky Fried Chicken Seasoning Mix Recipe - Deep-fried.Food.com"। সংগৃহীত জুলাই ১৮, ২০১৬ 
  20. Fowler, Damon Lee। "Herb-and-Spice Southern Fried Chicken"Epicurious। সংগৃহীত জুলাই ১৮, ২০১৬ 
  21. Fried Chicken: All-American Favorite, Worldwide Style. Grandparents.com. Retrieved on January 30, 2012.
  22. Edge, John T. (Mar ২০০৩)। "The Barberton Birds"Attachéআসল থেকে ২০০৬-০২-১৬-এ আর্কাইভ করা। 
  23. Horwitz, Jeremy (জানুয়ারি ১, ২০০৮)। "Chicken Wings, or, Why people Know About Buffalo"। Buffalo Chow.com। আসল থেকে ডিসেম্বর ৩১, ২০০৯-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত নভেম্বর ১৮, ২০০৯ 
  24. Ramzy, Austin (মে ৫, ২০১৬)। "KFC, With New Nail Polish, Redefines Chicken Fingers"The New York Timesআইএসএসএন 0362-4331। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  25. Basu, Tanya। "Burger King Introduces a Spicy Version of Its Chicken Fries"TIME.com। সংগৃহীত ২০১৬-০৫-১৯ 
  26. "Maryland chicken with banana fritters and cornbread"BBC Food। সংগৃহীত ২০১৬-০৫-১৯ 
  27. "McNugget makeover? McDonald's tests chicken nuggets without artificial additives"Fox News (en-US ভাষায়)। ২০১৬-০৪-২৮। সংগৃহীত ২০১৬-০৫-১৯ 
  28. "Recipe: Devin Alexander's KFC's Popcorn Chicken"ABC News। এপ্রিল ২৬, ২০০৬। সংগৃহীত মে ১৮, ২০১৬ 
  29. "Cumin-Cilantro Chicken Patties"Washington Post। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  30. "Charles Country Pan Fried Chicken"Village Voice। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  31. Myers, Dan (২০১৫-১০-২৭)। "America's best chicken and waffles"Fox News (en-US ভাষায়)। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  32. Waxman, Olivia B.। "KFC Introduces Nashville Hot Chicken"TIME.com। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  33. "The ultimate guide to the best fried chicken sandwiches in the D.C. area"The Washington Post (en-US ভাষায়)। মার্চ ২৯, ২০১৬। আইএসএসএন 0190-8286। সংগৃহীত মে ১৮, ২০১৬ 
  34. Eckhardt, Robyn (জুন ২৬, ২০০৯)। "Ayam Goreng"Wall Street Journalআইএসএসএন 0099-9660। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  35. Susanna Myrtle Lazarus। "The hows & whys of our chicken 65"The Hindu। সংগৃহীত ৩১ মে ২০১৫ 
  36. "Tyler Florence's Extra Crispy Fried Chicken"। ABC News। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  37. "Har cheong gai (Prawn paste chicken)"www.soshiok.com। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  38. Judkis, Maura (নভেম্বর ১৩, ২০১১)। "Plate Lab: Karaage is like Japanese fried chicken"The Washington Post (en-US ভাষায়)। আইএসএসএন 0190-8286। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  39. Judkis, Maura (মে ১২, ২০১৫)। "Taiwanese fried chicken makes its D.C. debut"The Washington Post (en-US ভাষায়)। আইএসএসএন 0190-8286। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  40. "Chicken katsu curry"BBC Food। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  41. "Korean Fried Chicken Recipe"NYT Cooking। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  42. "Buldak: South Korea's torturous but irresistible dish | CNN Travel"travel.cnn.com। সংগৃহীত মে ১৯, ২০১৬ 
  43. "The best sweet and sour chicken. Period."Washington Post। সংগৃহীত মে ২০, ২০১৬ 
  44. "Tori-Ten Japanese Recipe -"Yen (en-US ভাষায়)। মার্চ ২৮, ২০১৪। সংগৃহীত মে ২০, ২০১৬ 
  45. Wright, Clifford A. (২০০৫)। Some Like It Hot: Spicy Favorites From The World's Hot Zones। Harvard Common Press। পৃ: 480। আইএসবিএন 9781558322691 
  46. "Tandoori chicken lollipop drumsticks with raita dip, Show off Suppers, Series 3, James Martin: Home Comforts – BBC Two"BBC। সংগৃহীত মে ২০, ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Chicken টেমপ্লেট:Deep frying foods টেমপ্লেট:Street food