বিষয়বস্তুতে চলুন

"কলম" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎আধুনিক কলম: বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(→‎আধুনিক কলম: বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
কলমের আধুনিক প্রকারভেদগুলো প্রধানত কলমের নিবের উপরে ভিত্তি করে করা হয়েছে।
[[File:A golden silver ball point pen.jpg|thumb|একটি বিলাসিতা বলপয়েন্ট কলম]]
* '''[[বলপয়েন্ট কলম]]''' - এই কলমের ডগায় বা নিবে ০.৭-১.২ মি.মি. আকারের [[পিতল]], [[ইস্পাত|স্টীল]] বা [[টাংস্টেন]] কার্বাইডের তৈরি একটি ছোট্ট শক্ত বল বা গোলক থাকে যা কলমের ভেতরে থাকা কালিকে কাগজ বা যার উপরে লেখা হচ্ছে তাতে মাখাতে সাহায্য করে<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি| titleশিরোনাম = How does a ballpoint pen work? | workকর্ম = Engineering | publisherপ্রকাশক = HowStuffWorks | dateতারিখ= 1998–2007 | urlইউআরএল = http://science.howstuffworks.com/question683.htm | accessdateসংগ্রহের-তারিখ = 2007-11-16 }}</ref>। বলপয়েন্ট কলমে যে কালি ব্যবহার করা হয় তা একটু ঘন প্রকৃতির এবং তা কাগজের সংস্পর্শে আসতে না আসতেই শুকিয়ে যায়। এই নির্ভরযোগ্য কলমগুলির দামও খুব কম। ফলে সহজেই নিত্যদিনের লেখালেখির কাজে বলপয়েন্ট কলম সবচেয়ে জনপ্রিয় উপকরণ হয়ে উঠেছে।
* '''[[রোলারবল বা জেল কলম]]''' - এই কলমের ডগায়ও বলপয়েন্ট কলমের মত বল থাকে। কিন্তু এই কলমের কালি বলপয়েন্ট কলমের কালির চেয়ে পাতলা বা কম ঘন। এই কম ঘন কালি সহজেই কাগজ শুষে নিতে পারে, এবং কলমও অনেক মসৃণভাবে চলতে পারে। বলপয়েন্ট কলমের সুবিধা এবং ঝর্ণা কলমের কালির ভাবটাকে একত্রিত করার উদ্দেশ্যে জেল কলমের সূত্রপাত হয়েছিল। জেল কালি বিভিন্ন রঙের হয়, এমনকি ধাতব পেইন্ট ও ঝিকিমিকি রঙেরও জেল কালি পাওয়া যায়।
 
* '''[[ঝর্ণা কলম]]''' - এই কলমে পানি ভিত্তিক তরল কালি দিয়ে নিবের সাহায্যে লেখা হয়। কলমের ভেতরে কালিদানিতে থাকা কালি কৈশিক পরিচলন প্রক্রিয়ায় এবং [[অভিকর্ষ|অভিকর্ষের]] সাহায্যে নিবের মাধ্যমে বাইরে আসে। এই নিবে কোন নড়নক্ষম অংশ থাকে না, একটা চিকন ফাটল দিয়ে কালি বেরিয়ে আসে। ভেতরের কালিদানিতে কালি শেষ হয়ে গেলে [[দোয়াত]] থেকে আবার কালি ভরা যায়। অনেকে মনে করেন ফাউন্টেন পেনের বাংলা তরজমা [[ঝর্ণা কলম]] নামটি [[রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর]] দিয়েছেন।
* '''[[ফেল্ট-টিপ কলম]]''' বা '''[[মার্কার কলম]]''' - এই কলমে আঁশ জাতীয় পদার্থের তৈরি [[স্পঞ্জ|স্পঞ্জের]] মত ডগা থাকে। সবচেয়ে ছোট এবং চিকন ডগার মার্কার কলম দিয়ে কাগজের উপরে লেখা হয়। মাঝারি আকারের ডগা সমৃদ্ধ মার্কারগুলো বাচ্চাদের আঁকাআঁকির জন্য ব্যবহৃত হয়। বড় আকারের ডগার মার্কারগুলো অন্য মাধ্যমে (যেমন কার্ডবোর্ডের বাক্স বা হোয়াইটবোর্ডে) লেখার কাজে ব্যবহার হয়। উজ্জ্বল এবং স্বচ্ছ কালিসহ চওড়া ডগার মার্কার লেখা দাগানোর কাজে ব্যবহার করা হয়। এদেরকে "'''হাইলাইটার'''"ও বলা হয়। বাচ্চাদের জন্য বা হোয়াইটবোর্ডে লেখার জন্য যে মার্কারগুলো তৈরি করা হয়, সেগুলোর কালি সাধারণত অস্থায়ী ধরনের হয়। কিছু মার্কার যেগুলো প্যাকেজিং এবং চালানের বাক্সের গায়ে লেখার কাজে ব্যবহার করা হয় তাদের কালি হয় স্থায়ী।
*
 
=== প্রাচীন কলম ===
১,৮৬,১২৭টি

সম্পাদনা