বাংলাদেশী পাসপোর্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(বাংলাদেশ পাসপোর্ট থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাংলাদেশ পাসপোর্ট
Bangladeshi E Passport.jpg
বাংলাদেশের নতুন ই-পাসপোর্ট
প্রচলন শুরুর তারিখ
  • ৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৩ (ঐতিহ্যগত পাসপোর্ট)[১]
  • ১ এপ্রিল ২০১০ (মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট)[২]
  • ২২ জানুয়ারি ২০২০ (ই-পাসপোর্ট)[৩]
প্রদানকারী সংস্থা বাংলাদেশ
ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর
যেখানে ব্যবহার্যইসরায়েল বাদে সব দেশ।
প্রকারপাসপোর্ট
উদ্দেশ্যপরিচয়পত্র
প্রদানের যোগ্যতাবাংলাদেশী নাগরিকত্ব
মেয়াদ
  • ১৮ থেকে ৫৫ বছর বয়সীদের জন্য ১০ বছর মেয়াদী।
  • ১৮ বছরের কম বয়সী বা ৫৫ বছরের বেশি বয়সীদের জন্য ৫ বছর মেয়াদী।
খরচ

বাংলাদেশী পাসপোর্ট হল একটি আইসিএও অনুগামী, মেশিন রিডেবল এবং বায়োমেট্রিক ই-পাসপোর্ট পাসপোর্টধারীর দ্বারা বিদেশে ভ্রমণের উদ্দেশ্যে জারি করা হয় এমন পরিচয়পত্র । বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম দেশ যে দেশ সমস্ত যোগ্য নাগরিকের জন্য ই-পাসপোর্ট ইস্যু করেছে। পাসপোর্ট পুস্তিকাটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর উৎপাদন, মুদ্রন এবং জারি করে। ই-পাসপোর্টে বৈদ্যুতিক মাইক্রোপ্রসেসর চিপ এম্বেসড করা রয়েছে। ই-পাসপোর্টটিতে পাতলা ঝিল্লি স্তরে এম্বেসড হলোগ্রাফিক চিত্রসহ একত্রিশটি আলাদা সুরক্ষা বৈশিষ্ট্য যুক্ত রয়েছে। এই সুরক্ষা বৈশিষ্ট্য আলোর নিচে রঙ পরিবর্তন করে এবং চলন্ত হিসাবে প্রদর্শিত হয়। [৬] ই-পাসপোর্টধারীর ডেমোগ্রাফিক এবং বায়োমেট্রিক তথ্য, যেমন দশটি আঙুলের ফিঙ্গারপ্রিন্ট, আইরিস স্ক্যান, মুখের রঙিন ছবি এবং ডিজিটাল স্বাক্ষর ই-পাসপোর্টে চিপে সংরক্ষণ করা হয়। [৭] আবেদনকারীর বয়সের উপর নির্ভর করে, ই-পাসপোর্টটি পাঁচ বছর বা দশ বছরের জন্য বৈধ করা হয় এবং এটি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার বা এর বিদেশী কূটনৈতিক মিশনের মাধ্যমে জন্মগতভাবে নাগরিকদের বংশোদ্ভূত বা সরাসরি নাগরিকদের মধ্যে যোগ্য বাংলাদেশী নাগরিকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়। [৮]

বাংলাদেশ সরকার তিন ধরনের পাসপোর্ট ইস্যু করে। এর মধ্যে একটি লাল মলাট যা কূটনৈতিক পাসপোর্ট; নীল মলাট যা দাপ্তরিক পাসপোর্ট; এবং সবুজ মলাট যা নিয়মিত বা সাধারণ পাসপোর্ট। পাসপোর্টের মলাট টিয়ার প্রুফ টেক্সটাইল উপাদান দিয়ে তৈরি যা রাসায়নিক, ঘাম, স্যাঁতসেঁতে এবং তাপ প্রতিরোধী। কূটনৈতিক পাসপোর্ট কেবল বাংলাদেশের কূটনীতিকদের দেওয়া হয়। সরকারী পাসপোর্ট কেবলমাত্র বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী, সরকারী কর্মকর্তা এবং দূতদের দেওয়া হয়। বাংলাদেশের অন্যান্য নাগরিকদের নিয়মিত বা সাধারণ পাসপোর্ট দেওয়া হয়। সকল পাসপোর্ট পরিবেশ বান্ধব উপকরণ দিয়ে তৈরি। এটি পাসপোর্টের সমস্ত ফাঁকা ভিসা পৃষ্ঠার সাথে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক চিহ্ন এবং বভবনের চিত্র। পাশাপাশি জনপ্রিয় বাংলাদেশী পর্যটকদের আকর্ষণের জন্য তাদের নাম বাংলা এবং ইংরেজি উভয় ক্ষেত্রেই নকশা করা হয়। পাসপোর্টের পৃষ্ঠা নম্বর দ্বিভাষিক - বাংলা এবং ইংরেজি উভয় ক্ষেত্রেই লেখা হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পরে ১৯৭৩ সালের ৯ নম্বর আইন (বাংলাদেশ পাসপোর্ট ক্রম, ১৯৭৩ নামে পরিচিত) যা ১৯৭৩ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে আইনে স্বাক্ষরিত হয়েছিল। প্রথম পাসপোর্ট তৈরি এবং জারি পরিচালিত করে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ। এই পাসপোর্ট পুস্তিকা ঐতিহ্যবাহী, হস্তাক্ষর বা হস্তচালিত পাসপোর্ট ছিল এবং তখনকার সময়ে প্রাসঙ্গিক আন্তর্জাতিক আইন এবং বিধিবিধানের সাথে অনুগত ছিল। পরবর্তী সময়ে, পাসপোর্ট আবেদনের প্রক্রিয়াটিকে উন্নত করার জন্য পরবর্তী বছরে অতিরিক্ত আইন কার্যকর করা হয়েছিল। এই আইনের মধ্যে রয়েছে একাধিক বৈধ বাংলাদেশী পাসপোর্ট রাখা যাবে না; পাসপোর্টের জন্য নাগরিকত্বের প্রয়োজনীয়তা আছে; প্রভৃতি।

caption
বাংলাদেশের ই-পাসপোর্টের জীবনী সংক্রান্ত তথ্য পৃষ্ঠা

ই-পাসপোর্ট এবং যন্ত্র-পঠনযোগ্য পাসপোর্ট যখন ছিলনা। তখন বাংলাদেশ সরকারের ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তর ঐতিহ্যবাহী হাতে লেখা বা ম্যানুয়াল পাসপোর্ট ইস্যু করত। ২০১০ সালে, বাংলাদেশ সরকার ৬.৬ মিলিয়নের বেশি প্রতিস্থাপনের পরিকল্পনা ঘোষণা করে  নতুন বায়োমেট্রিক যন্ত্র-পঠনযোগ্য হস্তাক্ষর পাসপোর্ট তৈরি করার জন্য। [৯] আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান পরিবহন সংস্থার ( আইসিএও ) নির্দেশিকা অনুসরণ করে বাংলাদেশ সরকার এপ্রিল ২০১০ সালে মেশিন-রিডেবল পাসপোর্ট (এমআরপি) এবং মেশিন-রিডেবল ভিসা (এমআরভি) প্রদান শুরু করে। তবে, সমস্ত ঐতিহ্যবাহী হস্তাক্ষর পাসপোর্টকে সম্মান জানানো হয়েছিল। সম্মানজনকভাবে বাংলাদেশ সরকার তাদের মেয়াদ শেষ হওয়ার তারিখ পর্যন্ত ভ্রমণ নথি জারি করেছে। আইসিএওর নভেম্বরের ২০১৫ সালের আন্তর্জাতিক সময়সীমার আগে সমস্ত ঐতিহ্যবাহী হস্তাক্ষর পাসপোর্টগুলি সফলভাবে সঞ্চালন থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছিল।

২০১৬ সালে বাংলাদেশ সরকার ই-পাসপোর্ট ইস্যু করার জন্য তার পরিকল্পনা ঘোষণা করে। যার কারণে তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আশা করেছিলেন যে বাংলাদেশের পাসপোর্টধারীদের জন্য অভিবাসন, ভ্রমণ এবং ভিসা পদ্ধতি সহজ হবে। [১০] নতুন বাংলাদেশী ই-পাসপোর্ট প্রবেশের সমস্ত বড় বন্দরগুলিতে পঞ্চাশটি ই-গেটের সাথে একটি জার্মান কোম্পানির সহযোগিতায় সরবরাহ করা হচ্ছে। [১১] যন্ত্র-পঠনযোগ্য পাসপোর্টগুলি পর্যায়ক্রমে বেরিয়ে আসছে। ই-পাসপোর্টগুলি সমস্ত যন্ত্র-পঠনযোগ্য পাসপোর্টগুলি পুরোপুরি প্রতিস্থাপন করবে। যাইহোক, সমস্ত যন্ত্র-পঠনযোগ্য পাসপোর্টগুলি মজাদার এবং বৈধ ভ্রমণের প্রমাণ এতে লিখিত হিসাবে সমাপ্তির তারিখ অবধি থাকে। প্রত্যাশিত বৈদ্যুতিক পাসপোর্ট বা ই-পাসপোর্ট চালু হওয়ার মাধ্যমে বাংলাদেশ তার ডিজিটাল রূপান্তরের আরো একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২০ সালের ২২ জানুয়ারী বুধবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে একটি সম্মেলনে ই-পাসপোর্ট বিতরণের জন্য সেটা উদ্বোধন করেছিলেন।

প্রকার[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ সরকার তিনটি বিভিন্ন ধরনের পাসপোর্ট ইস্যু করে। এগুলি হল কূটনৈতিক, দাপ্তরিক এবং নিয়মিত বা সাধারণ পাসপোর্ট।

  •      সাধারণ পাসপোর্ট সবুজ মলাট )এটা আন্তর্জাতিক ভ্রমণের জন্য বাংলাদেশের সাধারণ নিয়মিত নাগরিকদের জন্য জারি করা হয়। যেমন ছুটি, অধ্যয়ন, ব্যবসা ভ্রমণ ইত্যাদি।
  •      দাপ্তরিক পাসপোর্ট, নীল মলাট) সরকারী কর্মচারী, সরকারি কর্মকর্তা ও সরকারী ব্যবসায়ের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারকে প্রতিনিধিত্বকারী ব্যক্তিদের জারি করা হয়েছে।
  •      কূটনৈতিক পাসপোর্ট লাল মলাট ) বাংলাদেশি কূটনীতিকদের শীর্ষস্থানীয় সরকারি কর্মকর্তা ও কূটনৈতিক কুরিয়ার জারি করা হয়।

জুলাই ২০১৯ সাল থেকে ইস্যু করা বাংলাদেশী পাসপোর্ট বায়ো-মেট্রিক এবং মেশিন রিডেবল ই-পাসপোর্ট। [৮]

পাসপোর্টের মধ্যের প্রদত্ত তথ্য[সম্পাদনা]

পাসপোর্ট ধারকের তথ্য ৭টি পৃষ্ঠায় বাংলা এবং ইংরেজিতে লিখিত হয়ে থাকে; কিন্তু আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্যে কিছু পরিচয়ের তথ্য শুধু ইংরেজিতে লিখিত হয়ে থাকে।

ভেতরের প্রথম প্রচ্ছদে জাতীয় স্মৃতিসৌধের ছবি আর তার সাথে জাতীয় সঙ্গীত দেয়া হয়েছে।

প্রথম পাতা

পাসপোর্টের প্রথম পাতাটিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির দ্বারা আদেশক্রম বাংলা এবং ইংরেজিতে উল্লেখ্য হয়ে থাকে:

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির পক্ষে সংশ্লিষ্ট সকলকে এই মর্মে জানান যাইতেছে এবং প্রত্যাশা করা হইতেছে যে, ইহার বাহককে অবাধে ও বিনা প্রতিবন্ধকতায় গমনাগমনের অনুমতি এবং তাহার প্রয়োজনে সকল প্রকার সহায়তা ও নিরাপত্তা প্রদান করা হউক।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে
দ্বিতীয় পাতা

পাসপোর্টের দ্বিতীয় পাতাটিতে মূল তথ্য লিখিত হয়ে থাকে। এটিতে সব তথ্য একটি পাতলা প্লাস্টিকের কাগজে পূর্বে মুদ্রিত থাকে। মুদ্রিত তথ্যগুলি হল:

  • বাহকের ছবি
  • শ্রেণী
  • দেশ কোড
  • পাসপোর্ট নং
  • বংশগত নাম
  • প্রদত্ত নাম
  • জাতীয়তা
  • ব্যক্তিগত নং
  • জন্ম তারিখ
  • পূর্ববর্তী পাসপোর্ট নং
  • লিঙ্গ
  • জন্মস্থান
  • প্রদানের তারিখ
  • প্রদানকারী কর্তৃপক্ষ
  • মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ
  • স্বাক্ষর।

ধারকের অধিক তথ্য অপটিক্যাল ক্যারেক্টার রিকগনিশনসহ সংরক্ষিত থাকে, যেটি শুধুমাত্র একটি বিশেষ যন্ত্র দ্বারা পড়া যায়।

তৃতীয় পাতা

পাসপোর্টের তৃতীয় পাতায় পাসপোর্ট ধারকের জন্য ৮টি নির্দেশাবলী বাংলায় লিখিত হয়ে থাকে। তার সাথে ইংরেজিতে একটি বিবৃতি লিখিত হয়ে থাকে যার মানে হয় "যদি এই পাসপোর্ট-টি বিদেশে হারিয়ে থাকে, তাহলে তার প্রতিষ্ঠাতা-কে কাছের বাংলাদেশী দূতাবাসে এটি জমা দিতে অনুরোধ করা হচ্ছে।"

চতুর্থ পাতা

পাসপোর্টের চতুর্থ পাতায় ধারকের আরো তথ্য লিখিত হয়ে থাকে:

  • নাম
  • পিতার নাম
  • মাতার নাম
  • স্বামী বা স্ত্রী এর নাম
  • স্থায়ী ঠিকানা
  • জরুরী যোগাযোগ
    • নাম
    • সম্পর্ক
    • ঠিকানা
    • টেলিফোন নং

ভিসার প্রয়োজনীয়তা[সম্পাদনা]

২০১৯ সাল অনুযায়ী, বাংলাদেশী নাগরিকগণের ১৭টি দেশ এবং অঞ্চলে ভিসা মুক্ত প্রবেশাধিকার রয়েছে। ভিসা বিধিনিষেধ সূচক অনুযায়ী পাসপোর্ট র‍্যাংকিংয়ে বিশ্বে বাংলাদেশী পাসপোর্টের অবস্থান ১১৯তম।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Bangladesh Passport Order, 1973 (President's Order)."Ministry of Law, Justice and Parliamentary Affairs (ইংরেজি ভাষায়)। Government of Bangladesh। ৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৩। 
  2. "MRP applications from Apr 1"BdNews24.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২৯ মার্চ ২০১০। ২৩ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. "E-passport era begins in Bangladesh"BdNews24.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২২ জানুয়ারি ২০২০। ২৩ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. "Application guide" (PDF)passport.gov.bd 
  5. "E‑Passport Fees"www.epassport.gov.bd (ইংরেজি ভাষায়)। Department of Immigration and Passports, Ministry of Home Affairs। 
  6. "E-Passports set to be on roll in June"The Independent (ইংরেজি ভাষায়)। ১৯ মার্চ ২০১৯। ১১ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. Mamun, Shohel (২২ জুন ২০১৮)। "30 million e-passports for citizens"Dhaka Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। 
  8. "Bangladesh to roll out e-passport with 10-year validity from July"BdNews24.com (ইংরেজি ভাষায়)। ১৬ মে ২০১৯। ২০ মে ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  9. "Bangladesh Pick Passport Partners"Security Documents World। ২২ মার্চ ২০১০। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  10. Islam, Rozina (২৬ জানুয়ারি ২০১৬)। "E-passport on the cards"Prothom Alo 
  11. "ePassports, jobs, infrastructure: Bangladesh's route to the future"Veridos। ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]