বাংলাদেশী পঞ্চাশ পয়সা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(বাংলাদেশী ৫০ পয়সা থেকে পুনর্নির্দেশিত)
৫০ পয়সা
বাংলাদেশ
মূল্য০.৫০
ভর৪.০৫ গ্রাম
ব্যাস২২ মিলিমিটার
পুরুত্ব১.৫৫ মিলিমিটার
আকৃতিগোলাকার (১৯৭৩-২০০১ সাল পর্যন্ত)
অষ্টাভুজাকৃতি (২০০১ সাল থেকে)
গাঠনিক উপাদানইস্পাত
প্রচলনের বছর১৯৭৩ - ২০০১
অভিমুখ
নকশাশাপলা
নকশা প্রচলনের তারিখ১৯৭৩
বিপরীতদিক
নকশাইলিশ মাছ, আনারস, কলামুরগি
নকশা প্রচলনের তারিখ১৯৭৭
নকশা পরিবর্তনের তারিখ২০০১

পঞ্চাশ পয়সা হল বাংলাদেশী টাকার ছোট শ্রেণীর মুদ্রা। পঞ্চাশ পয়সার ধাতব মূদ্রা সর্বপ্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৭৩ সালে।[১] বর্তমানে বাংলাদেশে পঞ্চাশ পয়সার ব্যবহার নেই বললেই চলে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত পাকিস্তানি রুপি ছিল দেশটির প্রচলিত মুদ্রা। বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জনের পর ১৯৭২ সালের ৪ঠা মার্চ সর্বপ্রথম বাংলাদেশী মুদ্রার প্রচলন শুরু হয়।[২] সরকারি মুদ্রার নাম রাখা হয় টাকা, পরবর্তীতে টাকাকে প্রকাশের চিহ্ন বা সংকেত হিসাবে "" কে নির্ধারণ করা হয়। টাকার সর্বনিম্ন একক নির্ধারণ করা হয় এক টাকা। আর এক টাকার শতাংশকে পয়সা নামে অভিহিত করা হয়। অর্থাৎ ৳১ সমান ১০০ পয়সা। ১৯৭৩ সালে ৫ পয়সা, ১০ পয়সা, ২৫ পয়সা৫০ পয়সার প্রচলন শুরু হয়।[২][৩]

নকশা[সম্পাদনা]

পঞ্চাশ পয়সার মুদ্রার ক্ষেত্রে ১৯৭৩ সালের প্রথম প্রচলনের পর থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত এই মুদ্রার তিন ধরনের নকশা দেখা যায়।[৪][৫] তিন ধরনের নকশার প্রতিটির অভিমুখদিকে ছিল বাংলাদেশের জাতীয় প্রতীক। জাতীয় প্রতীকের কেন্দ্রে রয়েছে পানিতে ভাসমান একটি শাপলা ফুল, শাপলা ফুলটিকে বেষ্টন করে আছে ধানের দুটি শীষ। চূড়ায় পাটগাছের পরস্পরযুক্ত তিনটি পাতা এবং পাতার উভয় পার্শ্বে দুটি করে মোট চারটি তারকা। চারটি তারকা চিহ্ন দ্বারা বাংলাদেশের সংবিধানের চারটি মূলনীতিকে (জাতীয়তাবাদ, ধর্মনিরপেক্ষতা, সমাজতন্ত্র এবং গণতন্ত্র) নির্দেশ করা হয়েছে।

১৯৭৩ সালে প্রকাশিত মুদ্রাটির বিপরীতভাগে সবার উপরের দিকে ছিল বাংলাদেশ লেখাটি যার নিচে ছিল মুদ্রাটি প্রকাশের বছর, মাঝের দিকে ছিল শান্তির প্রতীক পায়রা, আর নিচের দিকে ছিল মুদ্রাটির মান অঙ্কে লেখা ও ভাষায় লেখা।[৬]

১৯৭৭ সালে মুদ্রাটির বিপরীতভাগে নকশার পরিবর্তন করা হয়। এ সময় এটি থেকে পায়রাটি সরিয়ে উপরের অংশে থাকে শুধু বাংলাদেশ লেখাটি, মাঝের অংশে থাকে একটি ইলিশ মাছ, একটি আনারস, একটি কলা ও একটি মুরগীর চিত্র, মাঝের অংশের দু'পাশ মিলিয়ে থাকে মুদ্রাটি মুদ্রণের সাল, মুদ্রাটির নিচের দিকে আগের নকশার মত মুদ্রাটির মান অঙ্কে লেখা ও ভাষায় লেখা রয়েছে।[৭]

২০০১ সালে এই নকশাটির আংশিক পরিবর্তন করা হয়। মূল নকশাটি অপরিবর্তিত রেখে এটির গোলাকার বৃত্তাকৃতির বাইরে দিকে একটি অষ্টাভূজ আকৃতি আনা হয়।[৮]

ক্রমিক নং মুদ্রা প্রকাশের সাল মুদ্রার সম্মুখভাগের চিত্র মুদ্রার অপরদিকের চিত্র
১৯৭৩
১৯৭৭
২০০১

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

নকশার পরিবর্তনের সাথে সাথে পঞ্চাশ পয়সার মুদ্রার বৈশিষ্ট্যগত কিছু পরিবর্তন করা হয়। এগুলো হলঃ

ক্রমিক নং মুদ্রা প্রকাশের সাল ধাতব উপাদান মুদ্রার আকৃতি ব্যসার্ধ (মিলিমিটার) পুরুত্ব (মিলিমিটার) ওজন (গ্রাম)
১৯৭৩ ইস্পাত গোলাকার ২১.৯[৯] - ৪.০[১০]
১৯৭৭ ইস্পাত গোলাকার ২২[১১] ১.৫৫[১১] ৪.০৫[১১]
২০০১ ইস্পাত অষ্টাভুজাকৃতি[১২] ১৯.৬[১৩] ২.৬[১৩]

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bangladesh's 50 Poysha"Numismaster। Krause Publications। ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "বাংলাদেশের মুদ্রার ইতিহাস"prezi.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১ 
  3. "BDT | Bangladeshi Taka | OANDA" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১ 
  4. "বাংলাদেশের মুদ্রা"numista। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৭ 
  5. "Bangladesh - free coins catalog online" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৭-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১ 
  6. "১৯৭৩ সালের ৫০ পয়সার মুদ্রা"numista.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৭ 
  7. "৫০ পয়সার মুদ্রা ১৯৭৭ সালের নকশা"numista.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৭ 
  8. "৫০ পয়সার মুদ্রা সর্বশেষ নকশা"numista.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৭ 
  9. Daniel। "Bangladesh 50-Poysha (KM13)" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১ 
  10. "50 Poysha, Bangladesh" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১ 
  11. "50 Poysha, Bangladesh" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১ 
  12. "Currency museum (Coinage)"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১ 
  13. "50 Poysha, Bangladesh" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৮-২১