বড়ওয়ানি জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বড়ওয়ানি জেলা
মধ্যপ্রদেশের জেলা
মধ্যপ্রদেশে বারওয়ানি জেলার অবস্থান
মধ্যপ্রদেশে বারওয়ানি জেলার অবস্থান
দেশভারত
রাজ্যমধ্যপ্রদেশ
বিভাগবড়ওয়ানি
প্রতিষ্ঠিত২৫ মে ১৯৯৮ (1998-05-25)
সদর দপ্তরবড়ওয়ানি
তহশিল
সরকার
আয়তন
 • মোট৫,৪২৭ বর্গকিমি (২,০৯৫ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট১৩,৮৫,৮৮১
 • জনঘনত্ব২৬০/বর্গকিমি (৬৬০/বর্গমাইল)
 • পৌর এলাকা১৪.৭২
জনসংখ্যার উপাত্ত
 • সাক্ষরতা৪৯.০৮%
 • যৌন অনুপাত৯৮২
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
ওয়েবসাইটhttp://barwani.nic.in/

বড়ওয়ানি জেলা হল ভারতের মধ্যপ্রদেশ রাজ্যের একটি জেলা। জেলার প্রশাসনিক সদর দফতর বারওয়ানি শহরে। জেলাটি ইন্দোরের বিভাগের অন্তর্গত। ২০১১ সালের ভারতীয় জনগণনা অনুসারে রামবান জেলা মোট জনসংখ্যা ছিল ১,৩৮৫,৮৮১ জন এবং আয়তনে ৫,৪২৭ বর্গ কিলোমিটার। এই জেলাটি মধ্য প্রদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত;নারমাদা নদী এই জেলার দক্ষিণাঞ্চল বেষ্টন করেছে। সাতপুরা এলাকা এই জেলার দক্ষিণে অবস্থিত। এই জেলার দক্ষিণে মহারাষ্ট্র, পশ্চিমে গুজরাট, উত্তরে ধার জেলা, পূর্বে খারগোন জেলা।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দে ভারতের সাথে দেশীয় রাজ্য বারওয়ানি রাজ্যের সংযোগ হওয়ার পরে, এটি মধ্য ভারত রাজ্যের খরগাঁও জেলার একটি অংশে হিসেবে চিহ্নিত হয়েছিল। ২৫ মে ১৯৯৮-এ বারওয়ানি জেলাটি নির্মিত হয় যখন খরগাঁও জেলার (পশ্চিম নিমার জেলা) থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

২০০৬ সালে ভারত সরকারের পঞ্চয়েত রাজ মন্ত্রণালয় বড়ওয়ানিকে দেশের ২৫০ টি পিছিয়ে পড়া জেলার (মোট ৬৪০ টির মধ্যে) এই জেলাটিকে চিহ্নিত করেছে।[১] এটি মধ্য প্রদেশের ২৪ টি জেলার মধ্যে একটি যা বর্তমানে ব্যাকওয়ার্ড রিজিন্স গ্রান্ট ফান্ড প্রোগ্র্যামের তহবিলের কর্মসূচির (বিআরজিএফ) তহবিল থেকে অনুদান পেয়ে থাকে।[১]

বিভাগ[সম্পাদনা]

জেলাটি দুটি উপ-বিভাগে বিভক্ত দুটি স্থান, বারওয়ানি এবং সেন্দওয়া, যা আরও নয়টি তহশিলে বিভক্ত, বারওয়ানি, সেন্ধওয়া, পানসেমাল, ওয়ারলা (ভারলা)[২] নিওয়ালী,[৩][৪] থিকরি, পাটি, আনজাদ ও রাজপুরে বিভক্ত এবং সাতটি উন্নয়নমূলক ব্লক, বারওয়ানি, পটি, সেন্দওয়া, পানসেমাল, নিওয়ালি, থিকারি এবং রাজপুর। এই জেলার চারটি বিধানসভা কেন্দ্র হল পানসেমাল [পানসেমাল তহশিল + নিওয়ালি তহশিল], বারওয়ানি [বারওয়ানি + পাটি], সেন্দওয়া [সেন্দওয়া তহসিল] এবং রাজপুর [রাজপুর + আনজাদ + থিকারী + বালসামুদ]। বারওয়ানি, সেন্দওয়া, পানসেমাল ও রাজপুর বিধানসভা কেন্দ্রগুলি খরগাঁও লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত।

জেলাটিতে মোট ৪১৭ টি পঞ্চায়েত এবং ৭১৫ টি গ্রাম, ৬৪৯ টি আয়কর কেন্দ্র এবং ৬৯ টি জঙ্গল রয়েছে। এই গ্রামগুলির মধ্যে ৫৬০ জনবহুল এবং ১৬ টি জনবসতিহীন। এই জেলার দুটি পৌরসভা হল বারওয়ানি এবং সেন্দওয়া।

সেন্ধা তহশিল তুলা পরিষ্কার শিল্পের অন্যতম কেন্দ্র। অন্যান্য উল্লেখযোগ্য জায়গাসমূহ হলো:

  • আনযাদ, যেখানে ভিরেষওয়ার মন্দির, গায়াত্রি মন্দির এবং নাগারি মাতা মন্দির, বালাজি মন্দির, ভেরাব মন্দির রয়েছে। ভেরাব মন্দির এই অঞ্চলের বিখ্যাত মন্দির । এখানে অনেক তুলার কারখানা রয়েছে যেখানে সহস্রাধিক স্থানীয় বাসিন্দা কাজ করে, সণ্জয় তুলা কারখানা এই এলাকার বিখ্যাত ও বৃহৎ কারখানা।
  • বাওয়ানগাজা, জৈন সম্প্রদায়ের অন্যতম তীর্থস্থান যেটি বড়ওয়ানি জেলার ৬ কিমি ব্যাপী বিস্তৃত। বিশ্বের সর্ববৃহৎ জৈন তীর্থানকারাআদিনােথা, এই অঞ্চলের গর্ব। এখানে এগারটির মতো ১৫শতকের হিন্দু মন্দির রয়েছে। কথিত আছে এখানে কুমভাকারণা এবং ইন্দ্রজিৎ এখানে সংগঠিত হয়েছে।[৫]
  • ভাওয়ার গড় (বগুড়া) এর প্রাচীণ দুর্গ সাতপুরায় অবস্থিত।যেটি সেন্ধাওয়ারা থেকে১৬ km দূরে অবস্থিত।
  • বেজাসন বাজাসানি (দূর্গা) দেবীর মন্দির যেটি সেন্ধাওয়া থেকে ২০ কিমি দক্ষিণে অবস্থিত।
  • রামগড় (রামগাদ) এর প্রাচীন দুর্গ পানসেমাল থেকে ১৭ কিমি দূরে সাতপুরায় অবস্থিত।
  • প্রাচীণ বানধারেশওয়ার মন্দির এবং ঝর্ণা (জলপ্রপাত) পানসেমাল থেকে ৮কিমি দূরে বানধারা বুজুর্গ গ্রামে অবস্থিত।
  • জালগোন দুর্গ এবং তিন তাল বাওয়াদি (কূপ) পানসেমাল থেকে ৪কিমি দূরে জাগোন গ্রমে অবস্থিত।

জনসংখ্যা[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিক জনসংখ্যা
বছরজন.ব.প্র. ±%
১৯০১১,৪৩,৬২৭—    
১৯১১১,৯৬,০৯৮+৩.১৬%
১৯২১২,১৫,৮৫৩+০.৯৬%
১৯৩১২,৫৫,১৫৭+১.৬৯%
১৯৪১২,৯৩,৫৪১+১.৪১%
১৯৫১৩,২৬,৯৯০+১.০৮%
১৯৬১৪,০৭,৩২৫+২.২২%
১৯৭১৫,১৭,৪৬৮+২.৪২%
১৯৮১৬,৬১,২০৮+২.৪৮%
১৯৯১৮,৩৫,৬২৫+২.৩৭%
২০০১১০,৮৬,৩৬৬+২.৬৬%
২০১১১৩,৮৫,৮৮১+২.৪৬%
উৎস:[৬]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী বড়ওয়ানি জেলার জনসংখ্যা ১৩,৮৫,৮৮১[৭] যা ইসোয়াতিনি[৮] বা হাওয়াইর জনসংখ্যার সমান।[৯] এটি জনসংখ্যার দিক দিয়ে ভারতের (৬৪০ টি জেলার মধ্যে) ৩৫৪তম।[৭] জেলাটির জনসংখ্যার ঘনত্ব ২৫৬ জন প্রতি বর্গকিলোমিটার (৬৬০ জন/বর্গমাইল)।[৭] বড়ওয়ানি জেলায় প্রত্যেক ১০০০জন পুরুষের জন্য নারীর সংখ্যা ৯৮২ জন।[৭] এবং শিক্ষার হার ৪৯.০৮%[৭]

বড়ওয়ানি জেলার রাজনীতিবিদ[সম্পাদনা]

  • বালা বচ্চন (এমএলএ) রাজপুর এবং ২০১৮ সালে মধ্যপ্রদেশ এর মূখ্যমন্ত্রী
  • ধুরসিং কেদার (সারপাঞ্চ) মানকুই
  • রামেশ পাটেল (সাবেক এমএলএ) বড়ওয়ানি
  • গাজেন্দার সিং পাটেল (এমপি) খারগোন-বড়ওয়ানি
  • লাতাবাই গিয়ারশিলাল রাওয়াত (জেপি-সভাপতি)
  • দিওয়ান সিং পাটেল (সাবেক এমএলএ) পানসেমাল
  • প্রেমসিং পাটেল (এমএলএ) বড়ওয়ানি

ভাষা[সম্পাদনা]

২০১১সালের আদমশুমারীর সময় জেলার মোট জনসংখ্যার ৫৮.৫৪% ভিলি ভাষা, ৩৫.৩৭% হিন্দি, ২.১০% খানদেশি, ১.৩১% গুজরাটি, ১.২৬% মারাঠি এবং ০.৬৩% উর্দূ ভাষায় কথা বলে।[১০]

এছাড়াও মধ্য প্রদেশের প্রায় ১০,০০০ মানুষ তিনটি অপ্রচলিত ভাষায় কথা বলে।যেমন: বারেলি ভাষা: বারেলি পালা ভাষা, a ভিল ভাষা;[১১] এবং প্রায় ৬৪,০০০মানুষ বারেলি রাথি ভাষায় কথা বলে।[১২] প্রায় ১,১৫০,০০০ মানুষ অন্যান্য ভাষা যেমন:ভিলালি ভাষায় কথা বলে।[১৩]

ভৌগলিক অবস্থান[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Ministry of Panchayati Raj (সেপ্টেম্বর ৮, ২০০৯)। "A Note on the Backward Regions Grant Fund Programme" (PDF)। National Institute of Rural Development। এপ্রিল ৫, ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১১ 
  2. Singh, Anuraag (২৫ জানুয়ারি ২০১৫)। "MP man who made pistol for D-Company to kill Varun Gandhi arrested"The Times of India (25 January 2015)। The Times of India। TNN। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  3. Sharma, Kapilesh (৭ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Two accused sent to jail, absconding engineer held"The Free Press Journal। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০১৫ 
  4. Ayub, Jamal (২৬ নভেম্বর ২০১২)। "Now, English medium schools for tribals in Madhya Pradesh"The Times of India। TNN। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মার্চ ২০১৫ 
  5. http://bawangaja.com
  6. Decadal Variation In Population Since 1901
  7. "District Census 2011"। Census2011.co.in। ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 
  8. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১০-০১Swaziland 1,370,424 
  9. "2010 Resident Population Data"। U. S. Census Bureau। ১৯ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০Hawaii 1,360,301 
  10. 2011 Census of India, Population By Mother Tongue
  11. M. Paul Lewis, সম্পাদক (২০০৯)। "Bareli, Palya: A language of India"Ethnologue: Languages of the World (16th সংস্করণ)। Dallas, Texas: SIL International। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৮ 
  12. M. Paul Lewis, সম্পাদক (২০০৯)। "Bareli, Rathwi: A language of India"Ethnologue: Languages of the World (16th সংস্করণ)। Dallas, Texas: SIL International। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-২৮ 
  13. M. Paul Lewis, সম্পাদক (২০০৯)। "Bhilali: A language of India"Ethnologue: Languages of the World (16th সংস্করণ)। Dallas, Texas: SIL International। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৯-৩০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]