ফ্রিদা কাহলো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ফ্রিদা কাহলো
কাহলো ১৯৩২ সালে। তার বাবা গুইলারমো কাহলোর তোলা আলোকচিত্র
জন্মের নাম মাগদালেনা কারমেন ফ্রিদা[১] কাহলো ই ক্যালদেরোন
জন্ম (১৯০৭-০৭-০৬) ৬ জুলাই ১৯০৭ (বয়স ১১০)
কোইয়কান, মেক্সিকো সিটি, মেক্সিকো
মৃত্যু জুলাই ১৩, ১৯৫৪(১৯৫৪-০৭-১৩) (৪৭ বছর)
কোইয়কান]], মেক্সিকো সিটি, মেক্সিকো
জাতীয়তা মেক্সিক্যান
আন্দোলন পরাবাস্তববাদ, যাদু বাস্তবতা
কাজ যাদুঘরে:

ফ্রিদা কাহলো ডি রিভেরা (ইংরেজি: Frida Kahlo de Rivera, (স্পেনীয় উচ্চারণ: [ˈfɾiða ˈkalo]; জুলাই ৬, ১৯০৭ – জুলাই ১৩, ১৯৫৪), জন্ম নাম: মাগদালেনা কারমেন ফ্রিদা কাহলো ই ক্যালদেরোন,[১][৩] ছিলেন একজন মেক্সিকান চিত্রশিল্পী, যিনি তার আত্ম-প্রতিকৃতি ঘরণার চিত্রের জন্য আলোচিত।[৪]

কাহলোর জীবন অতিবাহিত হয় মেক্সিকো শহরে, তার বাড়িতে, যেটি "লা কাসা আসুল" বা নীল ঘর নামে পরিচিত। তার কাজ আন্তর্জাতিকভাবে বিখ্যাত মেক্সিকোর জাতীয় ও দেশীয় ঐতিহ্যের প্রতীকস্বরূপ, এবং নারীবাদীদের কাছে তার চিত্রকর্ম খ্যাতি পেয়েছে নারীর অভিজ্ঞতা ও রুপের আপোষহীন প্রকাশের জন্য।.[৫]

ফ্রিদা কাহলোর কাজে মেক্সিক্যান সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্য বেশ গুরুত্ব পেয়েছে, যার কারণে তার চিত্রকর্ম কখনো কখনো অর্বাচীন শিল্প বা লোকশিল্প হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।[৬] তার কাজকে পরাবাস্তবাদ এর অন্তর্গতও করা হয়েছে, এবং ১৯৩৮ সালে পরাবাস্তববাদী আন্দোলনের প্রধান আঁদ্রে ব্রেটন, ফ্রিদার কাজকে "রিবন অ্যারাউন্ড এ বোম্ব" আখ্যা দিয়েছিলেন।[৫] ফ্রিদা, ব্রেটন এর দেওয়া পরাবাস্তববাদী আখ্যা অস্বীকার করেন, কেননা তার মতে, তার চিত্রকর্মে পরাবাস্তব এর চেয়ে তার বাস্তব অবস্থার প্রতিফলনই প্রবল।[৭]

ফ্রিদা কাহলো বিখ্যাত মেক্সিকান চিত্রকর দিয়েগো রিভেরা এর সঙ্গে এক অস্থিতিশীল বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। ফ্রিদা আজীবন বিভিন্ন স্বাস্থ্যজনিত সমস্যা ভুগেছে, যার বেশিভাগই তার শৈশবের এক সড়ক দুর্ঘটনায় হয়েছিলো। তার অসুস্থতার কারণে সে প্রায়ই অন্যান্যদের থেকে দূরে একাকীত্বে থাকতো এবং এটি তার কাজে বেশ প্রভাব ফেলে।

শৈশব[সম্পাদনা]

পেইন্টার হিসেবে ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

1937 photograph by Toni Frissell, from a fashion shoot for Vogue
Frida Kahlo with Diego Rivera in 1932, in a photograph by Carl Van Vechten

বিবাহ (১৯২৯-১৯৫৪)[সম্পাদনা]

Malú Block (left), Frida Kahlo (center), and Diego Rivera were photographed in Manhattan by Carl Van Vechten in 1932 while Rivera was working on a commissioned mural in Rockefeller Center

লা কাসা হুল[সম্পাদনা]

গ্রন্থতালিকা[সম্পাদনা]

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Aguilar, Louis. Detroit was muse to legendary artists Diego Rivera and Frida Kahlo. The Detroit News. April 6, 2011.
  • Barnone, Joshua. Focusing on Women in Surrealism. The New York Times. July 23, 2015.
  • Espinoza, Javier. Frida Kahlo's last secret finally revealed. The Observer at The Guardian. Saturday August 11, 2007.
  • Frida Kahlo, Artist, Diego Rivera's Wife (obituary). The New York Times. Wednesday, July 14, 1954.
  • Farris, Phoebe, ed. Women Artists of color. Farris. 1999.
  • de la Garza, Armida. Adapting Frida Kahlo: The Film-Paintings, in Lucia Nagib and Anne Jerslev (eds.) Impure Cinema. I.B.Tauris, 2014.
  • Griffiths, Jay. Frida Kahlo,.: A life of hope and defiance. The Guardian. March 2014.
  • Grosenick, Uta, ed. Women artists in the 20th and 21st century. Taschen. 2001.
  • Tuchman, Phyllis. The Mexican Artist's myriad faces. Smithsonian Magazine. 2002.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Frieda is a German name from the word for peace (Friede/Frieden); Kahlo began omitting the "e" in her name in about 1935. See Frida biography (archive).
  2. Frieda and Diego Rivera (1931) at SFMOMA
  3. Herrera, Hayden (১৯৮৩)। A Biography of Frida Kahlo। New York: HarperCollins। আইএসবিএন 978-0-06-008589-6 
  4. Klein, Adam G. (২০০৫)। Frida Kahlo। Edina, Minn.: ABDO Pub. Co.। আইএসবিএন 9781596797314। সংগৃহীত ৮ জুলাই ২০১৩ 
  5. Broude, Norma; Garrard, Mary D (১৯৯২)। The Expanding Discourse: Feminism and Art History। পৃ: ৩৯৯। 
  6. Karl, Ruhrberg; Manfred Schneckenburger; Christiane Fricke; Klaus Honnef (২০০০)। Frida Kahlo: Art of the 20th Century: Painting, Sculpture, New Media, Photography। Köln: Benedikt Taschen Verlag GmbH। পৃ: ৭৪৫। আইএসবিএন 3-8228-5907-9 
  7. Herrera। "Hayden"Oxford Online। Oxford University Press। সংগৃহীত ২০১৪-০৯-২৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]