প্যারানথ্রোপাস বয়েজি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Paranthropus boisei
সময়গত পরিসীমা: Pleistocene, .২৩–.১২কোটি
Paranthropus-boisei-Nairobi.JPG
Photograph of KNM ER 406, a male specimen.
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস e
অপরিচিত শ্রেণী (ঠিক করুন): Paranthropus
প্রজাতি: P. boisei
দ্বিপদী নাম
Paranthropus boisei
(Mary Leakey, 1959)
প্রতিশব্দ
  • অস্ট্রালোপিথেকাস বয়েজী
    (ডার্ট, ১৯৩৮)
  • জিঞ্জানথ্রোপাস বয়েজি
    (লুইস লিকি, ১৯৫৯)

প্যারানথ্রোপাস বয়েজি অথবা অস্ট্রালোপিথেকাস বয়েজী অথবা "কার্ল শুভ্র" হচ্ছে প্যারান্থ্রোপাস গণের (স্থুলকায় অস্ট্রালোপিথেসিন) সবচেয়ে বড় প্রাক হোমিনিন প্রজাতি। এটি ২৪ থেকে ১৪ লক্ষ বছর পূর্বে পূর্ব আফ্রিকায় প্লাইস্টোসিন যুগে বাস করত।[১]

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

১৯৫৯ সালের ১৭ জুলাই নৃতত্ত্ববিদ ম্যারী লিকি তানজানিয়ার অলদুভাই গর্জে একটি মাথার খুলি আবিষ্কার করেন। এই জীবাশ্মটি (ডাক নাম "নাটক্র্যাকার ম্যান") বেশ ভালোভাবে সংরক্ষিত ছিল। অনুমান করা হয় এর বয়স সাড়ে ১৭ লক্ষ বছরের পুরোনো। এই স্থুলকায় অস্ট্রালোপিথেসিনের স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য ছিল। ম্যারী এবং তার স্বামী লুইস লিকি এই প্রজাতির নাম জিঞ্জানথ্রোপাস বয়েজি রাখেন। এখানে "জিঞ্জ" শব্দটি মধ্য আফ্রিকার জাঞ্জ এলাকার নাম থেকে উদ্ভুত; আর "এন্থ্রোপাস" ( প্রাচীন গ্রিকে: ἄνθρωπος, এনথ্রোপোস) অর্থ হলো "মানুষ" এবং "বয়েজি" শব্দটি এসেছে; লিকি পরিবারের এই জীবাশ্ম অন্বেষণের জন্য যে অর্থের প্রয়োজন তার পৃষ্ঠপোষকতাকারী চার্লস ওয়াটসন বয়েজীর নাম থেকে।[২]

প্যারানথ্রোপাস বয়েজি (সবশেষে এই নামই নির্ধারণ করা হয়) গুরুত্বপুর্ণ হয়ে উঠে বিশেষ করে যখন লিকি দম্পতির পুত্র রিচার্ড লিকি প্রস্তাবনা করেন; এরাই হোমিনিনের প্রথম প্রজাতি যারা পাথরের হাতিয়ার ব্যবহার করত। ইংল্যাণ্ডের লিভারপুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বার্নাড উড বলেন; ইথিওপিয়ায় আবিষ্কৃত ২৫ লক্ষ বছরের পুরনো পাথরের যন্ত্রাংশ প্যাঃ বয়েজি তৈরী করেছিল।[৩] প্যানিঞ্জ ম্যান্ডিবল নামে পরিচিত বেশ ভালোভাবে সংরক্ষিত চোয়াল রিচার্ড লিকির সহযোগী ক্যামোয়া কিমেউ ১৯৬৪ সালে তানজানিয়ার পেনিনজে আবিষ্কার করেন।[৪][৫] আরেকটি মাথার খুলি; যা কেএনএম ইআর ৪০৬ নামে পরিচিত, তা ১৯৬৯ সালে রিচার্ড কেনিয়ার তুকার্না হ্রদের সন্নিকটে কুব্বি ফোরাতে আবিষ্কার করেন।

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

১৯৫৯ সালের ১৭ জুলাই নৃতত্ত্ববিদ ম্যারী লিকি তানজানিয়ার অলদুভাই গর্জে একটি মাথার খুলি আবিষ্কার করেন। এই জীবাশ্মটি (ডাক নাম "নাটক্র্যাকার ম্যান") বেশ ভালোভাবে সংরক্ষিত ছিল। অনুমান করা হয় এর বয়স সাড়ে ১৭ লক্ষ বছরের পুরোনো। এই স্থুলকায় অস্ট্রালোপিথেসিনের স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য ছিল। ম্যারী এবং তার স্বামী লুইস লিকি এই প্রজাতির নাম জিঞ্জানথ্রোপাস বয়েজি রাখেন। এখানে "জিঞ্জ" শব্দটি মধ্য আফ্রিকার জাঞ্জ এলাকার নাম থেকে উদ্ভুত; আর "এন্থ্রোপাস" ( প্রাচীন গ্রিকে: ἄνθρωπος, এনথ্রোপোস) অর্থ হলো "মানুষ" এবং "বয়েজি" শব্দটি এসেছে; লিকি পরিবারের এই জীবাশ্ম অন্বেষণের জন্য যে অর্থের প্রয়োজন তার পৃষ্ঠপোষকতাকারী চার্লস ওয়াটসন বয়েজীর নাম থেকে।[৬]

প্যারানথ্রোপাস বয়েজি (সবশেষে এই নামই নির্ধারণ করা হয়) গুরুত্বপুর্ণ হয়ে উঠে বিশেষ করে যখন লিকি দম্পতির পুত্র রিচার্ড লিকি প্রস্তাবনা করেন; এরাই হোমিনিনের প্রথম প্রজাতি যারা পাথরের হাতিয়ার ব্যবহার করত। ইংল্যাণ্ডের লিভারপুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বার্নাড উড বলেন; ইথিওপিয়ায় আবিষ্কৃত ২৫ লক্ষ বছরের পুরনো পাথরের যন্ত্রাংশ প্যাঃ বয়েজি তৈরী করেছিল।[৭] প্যানিঞ্জ ম্যান্ডিবল নামে পরিচিত বেশ ভালোভাবে সংরক্ষিত চোয়াল রিচার্ড লিকির সহযোগী ক্যামোয়া কিমেউ ১৯৬৪ সালে তানজানিয়ার পেনিনজে আবিষ্কার করেন।[৮][৫] আরেকটি মাথার খুলি; যা কেএনএম ইআর ৪০৬ নামে পরিচিত, তা ১৯৬৯ সালে রিচার্ড কেনিয়ার তুকার্না হ্রদের সন্নিকটে কুব্বি ফোরাতে আবিষ্কার করেন।

অঙ্গসংস্থান এবং ব্যাখ্যা[সম্পাদনা]

প্যারানথ্রোপাস বয়েজী এর পুনর্গঠন

মস্তিষ্কের আকার অনেক ছোট প্রায় ৫০০ থেকে ৫৫০ সিসি; এই আকার অস্ট্রালোপিথেকাস আফারেন্সিসঅস্ট্রালোপিথেকাস আফ্রিকানাস অথবা আধুনিক শিম্পাঞ্জির চেয়ে অতটা বড় নয়। প্যাঃ বয়েজী এর ফোরামেন ম্যাগনাম প্যাঃ রোবাস্টাস এর চেয়ে ছোট। প্যাঃ বয়েজী এর ক্র্যানিয়াল প্রকরণ অনেক বেশি উচ্চতর।[৯] প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ; নারীর চেয়ে বড় হয়। অর্থাৎ; তাদের মধ্যে যৌন দ্বিরুপকতা প্রকটভাবে দেখা যায়। এমনটা সব অস্ট্রালোপিথেকাসেই দেখা যায়। পুরুষের ওজন হত প্রায় ৪৯ কেজি (১০৮ পা) এবং তাদের উচ্চতা ১.৩৭ মি (৪ ফু ৬ ইঞ্চি) হত, নারীর ওজন হত ৩৪ কেজি (৭৫ পা) এবং ১.২৪ মি (৪ ফু ১ ইঞ্চি) উচ্চতা হত।[১]

তার মাথার খুলি বিশেষায়িতভাবে তৈরী যাতে চাবানোর জন্য দাঁত বেদগ ভারী হত এই বৈশিষ্ট্য আধুনিক কালের গরিলার মধ্যে দেখা যায়। তাদের চর্বণ দাঁত এত বড় হত যে তার আকার আধুনিক মানুষের চেয়ে বড় হত।[১০] The species is sometimes referred to as "Nutcracker Man" because it had the biggest, flattest cheek teeth and the thickest enamel of any known hominin.[১১] P. boisei had large chewing muscles attached to a pronounced sagittal crest. To accommodate their enormous cheek teeth (four times the size of modern human teeth[৯]), প্যাঃ বয়েজী এর প্রশস্ত মুখমণ্ডল ছিল; যদিও তাদের সম্মুখদিকের দাত কাছাকাছি অন্যান্য প্রজাতির তুলনায় ছোট ছিল। ​ Some argue that the craniodental morphology of this taxon (e.g. large postcanine dentition, thick enamel, robust mandibles, sagittal cresting, flaring zygomatic region) is indicative of a diet of hard or tough foods such as ground tubers, nuts and seeds.[১২] However, research on the molar microwear of P. boisei [১৩][১৪] has found a pattern very different from that observed in P. robustus in South Africa, which is thought to have fed on hard foods as a fallback resource.[১৫] This work suggests that hard foods were an infrequent part of P. boisei's diet. Carbon isotope ratios suggest P. boisei had a diet dominated by C4 vegetation, unlike P. robustus in South Africa.

জীবনব্যবস্থা[সম্পাদনা]

খাদ্যপ্রণালী[সম্পাদনা]

Casts of the skull sometimes known as "Nutcracker Man", found by Mary Leakey in 1959, and the jaw known as the Peninj Mandible, found by Kamoya Kimeu in 1964.

প্রায় সব প্রাইমেট এবং হোমিনিডরা সর্বভুক ছিল। অর্থাৎ; তারা ভিন্ন ভিন্ন উৎসের খাবারের উপর নির্ভরশীল ছিল।[১৬]

সর্বজন স্বীকৃত একটি তত্ত্ব হলো প্যাঃ বয়েজী তাদের পুষ্টির জন্য শক্ত খাবারের উপর নির্ভরশীল ছিল।[১৭] প্যাঃ বয়েজী এর ক্ষেত্রে বিবর্তনীয় ভাবে শক্তিশালী চোয়ালের পেশী অভিযোজিত হয়েছে যাতে করে তারা বাদাম, মুলের মত শক্তপোক্ত খাবার খেতে পারে।[১৮] প্যাঃ বয়েজী এর মোলার দাত সংকীর্ণ[১৩]যা দেখে মনে হয়; এই প্রজাতি ছোট শক্ত খাবার খেত। ​ The foods that P. boisei would have ingested can be determined by means of carbon isotope measurements (not to be confused with radiocarbon dating).[১৮] Along with fruits and nuts, carbon isotope data on P. boisei fossils suggest that their diet was largely based on C4 resources, probably grasses or sedges. One study has concluded that the diet of P. boisei actually consisted mostly of grasses and sedges such as tigernut and that it rarely ate fruits and nuts.[১৯][২০] According to another, the addition of tubers to its diet helped P. boisei to meet its daily caloric intake requirement.[২১] In any case, it would appear that P. boisei consumed larger quantities of plant matter than any other hominin studied to date.[১৩] ​ The diet of fruits and nuts that P. boisei would have eaten is reflected by its classification as a cosmopolitan species, meaning that its wide geographic range would result in a diverse diet of different foods.[১৮] The data suggest that this C4 resource centered diet was present over a wide range of period and region,[১৮] with Paranthropus in eastern Africa and southern Africa having different diets.[২২]

জীবাশ্ম[সম্পাদনা]

১৯৯৩ সালে ইথিওপিয়ার কনসোতে আমাজাতে প্যাঃ বয়েজী এর জীবাশ্ম খুঁজে পান। এই আংশিক খুলির নামকরণ করা হয় কেজিএ ১০-৫২৫ যার বয়স অনুমান করা হয় ১৪ লক্ষ বছরের পুরাতন। প্যাঃ বয়েজী এর এটার সবচেয়ে বড় খুলির নমুনা। প্যাঃ বয়েজী এর সবচেয়ে পুরাতন নমুনা (যার নাম রাখা হয়েছে এল.৭৪a-২১) পাওয়া গিয়েছে ইথিওপিউয়ার অমোতে, এর বয়স ২৩ লক্ষ বছরের পুরাতন। অলদুভাই গর্জ থেকে প্রাপ্ত সবচেয়ে তরুন নমুনা (নাম রাখা হয়েছে ওএইচ৩ ও ওএইচ৩৮) যার বয়স ধরা হয়েছে ২১ লক্ষ বছর এবং এটি ১২ লক্ষ বছর পুরাতন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

অন্যান্য সংরক্ষিত নমুনা[সম্পাদনা]

  • ওএইচ ৫ জিনজানথ্রোপাস, "জিঞ্জ" অথবা "নাটক্র্যাকার মানব", প্যাঃ বয়েজী প্রজাতির আবিষ্কৃত প্রথম জীবাশ্ম। এটি ম্যারী লিকি তানজানিয়ার অলদুভাই গর্জে আবিষ্কার করেন; এটি প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষের জীবাশ্ম যার বয়স আনুমানিক সাড়ে সতের লক্ষ বছরের পুরাতন। এখানে বাদামখেকো মানব শব্দটি ভুলভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে। কারণ এটি প্যাঃ বয়েজী এর জন্যই উৎকৃষ্টভাবে প্রয়োগ করা যায়।[২৩]
  • কেএনএম ইআর ৪০৬ হচ্ছে ছোট আংশিক মাথার খুলি; যা রিচার্ড লিকি ও এইচ মুতুয়া কেনিয়ার কুবি-ফোরাতে আবিষ্কার করেন ১৯৬৯ সালে। এর মস্তিষ্কের ধারণ ক্ষমতা ছিল ৫১০ সিসি। যা ১৭ লক্ষ বছরের পুরনো।
  • পেনিঞ্জ ম্যান্ডিবুল একটি ভালোভাবে সংরক্ষিত চোয়াল; যা ক্যামোয়া কিমু ল্যাট্রন হ্রদের এলাকায় আবিষ্কার করেন। এটি ১৫ লক্ষ বছরের প্রাচীন জীবাশ্ম।

অন্যান্য হোমিনিনের সাথে সম্পর্ক[সম্পাদনা]

Hominin species during Pleistocene
Homo (genus)AustralopithecusAustralopithecus sedibaAustralopithecus africanusHomo floresiensisHomo neanderthalensisHomo sapiensHomo heidelbergensisHomo erectusHomo nalediHomo habilisHolocenePleistocenePliocene

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. "Paranthropus boisei Topics"। Smithsonian National Museum of Natural History। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুলাই ২০১২ 
  2. Watson, Peter (২০০২)। The Modern Mind: An Intellectual History of the 20th Century। New York: Perennial। পৃষ্ঠা 486–487। আইএসবিএন 0-06-008438-3 
  3. Friend, Tim (জানুয়ারি ২৩, ১৯৯৭)। "Oldest stone tools yet found in Ethiopia"। USA Today (LIFE): 1। 
  4. Journal of Eastern African Research and Development। East African Literature Bureau। ১৯৭৪। পৃষ্ঠা 129। The mandible was discovered by Kamoya Kimeu in 1964, during an expedition conducted by Richard Leakey and Glynn Isaac. 
  5. Virginia Morell (১১ জানুয়ারি ২০১১)। Ancestral Passions: The Leakey Family and the Quest for Humankind's Beginnings। Simon and Schuster। পৃষ্ঠা 303। আইএসবিএন 978-1-4391-4387-2 
  6. Watson, Peter (২০০২)। The Modern Mind: An Intellectual History of the 20th Century। New York: Perennial। পৃষ্ঠা 486–487। আইএসবিএন 0-06-008438-3 
  7. Friend, Tim (জানুয়ারি ২৩, ১৯৯৭)। "Oldest stone tools yet found in Ethiopia"। USA Today (LIFE): 1। 
  8. Journal of Eastern African Research and Development। East African Literature Bureau। ১৯৭৪। পৃষ্ঠা 129। The mandible was discovered by Kamoya Kimeu in 1964, during an expedition conducted by Richard Leakey and Glynn Isaac. 
  9. Wood, Bernard; Lieberman, Daniel E. (২০০১)। "Craniodental variation in Paranthropus boisei: A developmental and functional perspective"। American Journal of Physical Anthropology116 (1): 13–25। doi:10.1002/ajpa.1097PMID 11536113 
  10. McHenry, Henry M.; Coffing, Katherine (২০০০)। "Australopithecus to Homo: Transformations in Body and Mind" (PDF)Annual Review of Anthropology29 (1): 125–46। doi:10.1146/annurev.anthro.29.1.125জেস্টোর 223418। ২০০৮-১২-১৬ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  11. Findings Challenge Conventional Ideas on Evolution of Human Diet, Natural Selection Newswise, Retrieved on June 26, 2008.
  12. Klein, Richard G. (১৯৯৯)। The Human Career: Human Biological and Cultural Origins (2nd সংস্করণ)। Chicago: University of Chicago Press। আইএসবিএন 0-226-43963-1 [পৃষ্ঠা নম্বর প্রয়োজন]
  13. Ungar, Peter S.; Grine, Frederick E.; Teaford, Mark F. (এপ্রিল ২০০৮)। Petraglia, Michael, সম্পাদক। "Dental Microwear and Diet of the Plio-Pleistocene Hominin Paranthropus boisei"PLoS ONE3 (4): e2044। doi:10.1371/journal.pone.0002044PMID 18446200পিএমসি 2315797অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2008PLoSO...3.2044U 
  14. "Gnashers at Work"। The Economist। ২০০৮-০৫-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৫-০৫ 
  15. Scott, Robert S.; Ungar, Peter S.; Bergstrom, Torbjorn S.; Brown, Christopher A.; Grine, Frederick E.; Teaford, Mark F.; Walker, Alan (২০০৫)। "Dental microwear texture analysis shows within-species diet variability in fossil hominins"। Nature436 (7051): 693–5। doi:10.1038/nature03822PMID 16079844বিবকোড:2005Natur.436..693S 
  16. Wood, Bernard; Schroer, Kes (২০১২)। "Reconstructing the Diet of an Extinct Hominin Taxon: The Role of Extant Primate Models"। International Journal of Primatology33 (3): 716–42। doi:10.1007/s10764-012-9602-7 
  17. Ungar, Peter S.; Sponheimer, Matt (২০১১)। "The Diets of Early Hominins"। Sciencemag Online334 (6053): 190 193। doi:10.1126/science.1207701বিবকোড:2011Sci...334..190U 
  18. Cerling, Thure E.; Mbua, Emma; Kirera, Francis M.; Manthi first5=Frederick E., Fredrick Kyalo; Grine; Leakey, Meave G.; Sponheimer, Matt; Unoa, Kevin T. (২০১১)। "Diet of Paranthropus boisei in the early Pleistocene of East Africa"Proceedings of the National Academy of Sciences108 (23): 9337–41। doi:10.1073/pnas.1104627108PMID 21536914পিএমসি 3111323অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2011PNAS..108.9337C 
  19. New technologies challenge old ideas about early hominid diets[অনির্ভরযোগ্য উৎস?] ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত আগস্ট ৫, ২০১৩ তারিখে
  20. Macho, Gabriele A. (২০১৪)। "Baboon Feeding Ecology Informs the Dietary Niche of Paranthropus boisei"PLoS ONE9 (1): 84942। doi:10.1371/journal.pone.0084942PMID 24416315পিএমসি 3885648অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:2014PLoSO...984942M 
  21. Griffith, Cameron S.; Long, Byron L.; Sept, Jeanne M. (২০১০)। "HOMINIDS: An agent-based spatial simulation model to evaluate behavioral patterns of early Pleistocene hominids"। Ecological Modelling221 (5): 738–60। doi:10.1016/j.ecolmodel.2009.11.009 
  22. Wood, Bernard; Constantino, Paul (২০০৭)। "Paranthropus boisei: Fifty years of evidence and analysis"। American Journal of Physical Anthropology134 (Suppl 45): 106–32। doi:10.1002/ajpa.20732PMID 18046746 
  23. Daegling, David J.; Judex, Stefan; Ozcivici, Engin; Ravosa, Matthew J.; Taylor, Andrea B.; Grine, Frederick E.; Teaford, Mark F.; Ungar, Peter S. (জুলাই ২০১৩)। "Viewpoints: feeding mechanics, diet, and dietary adaptations in early hominins"। American Journal of Physical Anthropology151 (3): 356–71। doi:10.1002/ajpa.22281PMID 23794331 

বহিঃস্থ সংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Human Evolution টেমপ্লেট:Taxonbar