নৌ স্থাপত্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
১৯ শতকের নৌ স্থপতি অফিস, আবারডিন মেরিটাইম যাদুঘরটির পুনর্গঠন
তাশিয়ান প্রিনসেস টরশাভনে, ফ্যারো দ্বীপপুঞ্জ, আগস্ট ২০০৯
Curriculum of Naval Architecture
নৌ স্থাপত্য ডিগ্রির সাধারণ স্টাডির কোর্স

নৌ স্থাপত্য বা নৌ প্রকৌশল হল এমন একটি প্রকৌশল যেখানে যান্ত্রিক, বৈদ্যুতিক, ইলেকট্রনিক, সফটওয়্যার এবং সুরক্ষা প্রকৌশল উপাদানগুলিকে শৃঙ্খলাবদ্ধ করা হয় এবং প্রকৌশল নকশা প্রক্রিয়া, জাহাজ নির্মাণ, রক্ষণাবেক্ষণ, এবং সামুদ্রিক জাহাজ এবং কাঠামো পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয়। [১] নেভাল আর্কিটেকচারে সামুদ্রিক যানের আয়ুর সমস্ত পর্যায়ে মৌলিক এবং ফলিত গবেষণা, নকশা, উন্নয়ন, নকশা মূল্যায়ন (শ্রেণিবিন্যাস) এবং গণনা জড়িত। জাহাজের প্রাথমিক নকশা, বিশদ নকশা, নির্মাণ, পরিক্ষণ, নির্বাহন এবং রক্ষণাবেক্ষণ, লঞ্চিং এবং ড্রাই ডকিং হল এর প্রধান ক্রিয়াকলাপ। জাহাজগুলি সংশোধন (রূপান্তর, পুনর্নির্মাণ, আধুনিকায়ন বা মেরামতের মাধ্যমে ) করার জন্য শিপ ডিজাইনের গণনাগুলিও প্রয়োজনীয়। নেভাল আর্কিটেকচারে সুরক্ষা বিধিমালা এবং ক্ষতি-নিয়ন্ত্রণের বিধি প্রণয়ন এবং বিধিবদ্ধ এবং অ-বিধিবদ্ধ প্রয়োজনীয়তা পূরণের জন্য শিপ ডিজাইনের অনুমোদন এবং প্রমাণপত্র ইত্যাদি জড়িত।

একটি রেসিং ইয়টের হাল(কাঠামো) রক্ষণাবেক্ষণের জন্য পানি থেকে তোলা হচ্ছে

প্রধান বিষয়াবলী[সম্পাদনা]

"জাহাজ" শব্দের মধ্যে জলযানের প্রতিটি বিবরণ যেমন স্থানচ্যুত নয় এমন যান, ডাব্লুআইজি ক্রাফট এবং সমুদ্র বিমান , ব্যবহৃত বা পানিতে পরিবহনের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহৃত হতে সক্ষম, অন্তর্ভুক্ত। নৌ স্থাপত্যের মূল উপাদানগুলি হ'ল:

হাইড্রোস্ট্যাটিক্স[সম্পাদনা]

হাল ফর্মদেখানো একটি জাহাজের বডি প্ল্যান

হাইড্রোস্ট্যাটিকস জাহাজের পানিতে স্থির অবস্থা এবং ভাসমান থাকার সক্ষমতা যাচাইয়ের জন্য নিযুক্ত। এটা প্লবতা, <b>আয়তন</b>এবং অন্যান্য হাইড্রোস্ট্যাটিক বৈশিষ্ট্য যেমন ট্রিম (জাহাজের অনুদৈর্ঘ্য আনতি পরিমাপ) এবং স্থিতিশিলতা (একটি জাহাজ বায়ু, সমুদ্র বা ভার দ্বারা ঝুঁকে যাওয়ার পরে নিজেকে পূর্ব অবস্থানে ফিরিয়ে আনার ক্ষমতা) পরিমাপে জড়িত । [২]

হাইড্রোডায়নামিক্স[সম্পাদনা]

হাইড্রোডাইনামিক্স জাহাজের কাঠামো, জাহাজের অগ্রভাগ এবং পশ্চাৎভাগ, এবং মূল কাঠামোর অংশ যেমন পাখার ব্লেড বা রাডার বা ধাক্কা দেওয়ার টানেল এর চারদিকে পানির প্রবাহ নিয়ে আলোকপাত করে। । প্রতিরোধ - জলের গতির প্রতিরোধ প্রধানত হালের চারদিকে জলের প্রবাহের কারণে ঘটে। শক্তি গণনা এটির ভিত্তিতে করা হয়। প্রোপালশন - প্রোপেলার, থ্রাস্টার, পানির ফিনকি, পাল ইত্যাদি ব্যবহার করে জাহাজকে পানির মধ্যে নাড়ানো। জাহাজের ইঞ্জিন প্রধানত অভ্যন্তরীণ দহন জাতীয় হয়। কিছু জলযান পারমাণবিক বা সৌর শক্তি ব্যবহার করে বৈদ্যুতিক চালিত হয়। শিপ গতি - সমুদ্রপথে জাহাজের গতি এবং তরঙ্গ এবং বাতাসে এর প্রতিক্রিয়া শিপ গতির অন্তর্ভুক্ত। নিয়ন্ত্রণযোগ্যতা (কৌশল) - জাহাজের অবস্থান, দিক নিয়ন্ত্রণ এবং পরিচালনায় নি্যুক্ত।

ভাসন এবং স্থিতিশীলতা[সম্পাদনা]

তরল পৃষ্ঠের উপরে যখন ভাসমান বস্তু চলে তখন তার স্বাধিনতার মাত্রা থাকে 6 যা ঘূর্ণন বা স্থানান্তকরণে শ্রেণিবদ্ধ করা হয়।

  • সামনে এবং পিছনে স্থানান্তকরণকে সার্জ বলে অভিহিত করা হয়।
  • আড়াআড়ি স্থানান্তকরণকে সোয়ে বলা হয়।
  • উল্লম্ব স্থানান্তকরণকে হিভ বলা হয়।
  • আড়াআড়ি অক্ষ বরাবর আবর্তনকে ট্রিম বা পিচ বলা হয়।
  • অগ্রভাগ এবং পশ্চাৎ অক্ষের সাপেক্ষে আবর্তনকে হিল বা রোল বলা হয়।
  • উল্লম্ব অক্ষ বরাবর আবর্তনকে ইয়া বলা হয়।

অনুদৈর্ঘ্য বাঁকের জন্য অনুদৈর্ঘ্য স্থিতিশীলতা, স্থিতিশীলতা ভরকেন্দ্র এবং অনুদৈর্ঘ্য মধ্যবিন্দুর মধ্যবর্তী দূরত্বের উপর নির্ভর করে। অন্য কথায়, জাহাজটি তার ভরকেন্দ্র যে ভিত্তিতে বজায় রাখে সেটা হল জাহাজের পূর্ববর্তী ও পিছনের অংশ উভয় দিক থেকেই ভরকেন্দ্রের দূরত্ব সমান।

যখন কোনও বস্তু কোন তরল পৃষ্ঠের উপরে ভাসে তখনো এটি অভিকর্ষ বল অনুভব করে যা তাকে নিচের দিকে টানে। ভেসে থাকতে এবং ডুবে যাওয়া এড়াতে সেখানে একটি বিপরীত বল কাজ করে যা হাইড্রোস্ট্যাটিক চাপ হিসাবে পরিচিত ।বস্তুর সাম্যাবস্থা বজায় রাখার জন্য এই বলগুলোকে অবশ্যই একই মানের এবং গতির একই সরলরেখা বরাবর হতে হয়। যখন মুক্তভাবে ভাসমান বস্তু স্থির পানিতে থাকে তখনই ভারসাম্যের এই বিবরণটি ঘটে, যখন অন্যান্য অবস্থাগুলো উপস্থিত থাকে যার ফলে এই বল্গুলি সরে গিয়ে বস্তুর তীব্র দোলন গতি তৈরি করে [৩]

প্লবতা বল বস্তুর ওজনের সমান, অন্য কথায়, বস্তুর ভর বস্তু দ্বারা অপসারিত জলের ভরের সমান। এটি বস্তুর উপর একটি উর্ধ্বমূখি বল যোগ করে যার মান পৃষ্টের ক্ষেত্রফল এবং বস্তুর পৃষ্টের ও তরলের পৃষ্টের মধ্যে সাম্যাবস্থা তৈরির জন্য অপসারিত ক্ষেত্রফলের গুণফলের সমান।

বেশিরভাগ অবস্থায় একটি জাহাজের স্থিতিশীলতা উত্তাল সমুদ্রের যে কোনও ধরনের সীমাবদ্ধতা বা প্রতিরোধের মুখোমুখি হতে সক্ষম; যাইহোক, জাহাজের অবাঞ্চিত রোল হওয়ার বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যখন রোল অবস্থায় দোলনের ভারসাম্য, হিভ অবস্থায় দোলনের ভারসাম্যর দ্বিগুণ তখন জাহাজ উলটে যায়। [৪]

একটি তেল ট্যাংকার এর ডেক, পিছন থেকে তাকালে

কাঠামো[সম্পাদনা]

কাঠামোর মধ্যে রয়েছে নির্মাণের উপাদান নির্বাচন, জাহাজের বৈশ্বিক এবং স্থানীয় শক্তির কাঠামোগত বিশ্লেষণ , কাঠামোগত উপাদানগুলির কম্পন এবং সমুদ্রে চলাকালীন সময়ে কাঠামোগত প্রতিক্রিয়া। জাহাজের ধরনের উপর নির্ভর করে কাঠামো এবং নকশাটি্র তারতম্য ঘটে কোন উপাদান ব্যবহার করতে হবে এবং কত দাম এর উপর ভিত্তি করে । কিছু জাহাজ কাঁচের তৈরি যা প্লাস্টিক দ্বারা আরো শক্তিশালি হয় তবে বেশিরভাগই স্টিল সাথে সুপার স্ট্রাকচারে সম্ভবত কিছু অ্যালুমিনিয়াম থাকে। [৩] জাহাজের সম্পূর্ণ কাঠামোটি নকশা করা হয় আয়তাকার কক্ষ আকৃতিতে যার চারটি প্রান্তে স্টিল দ্বারা প্লেটিং করা হয়। বৃহত পৃষ্ঠতল ক্ষেত্র একত্রিত করে গ্রিলেজগুলি ফ্রেমের পারস্পরিক সহায়তা প্রদান করার সময় জাহাজের হাল, ডেক এবং বাল্কহেড তৈরি করে। যদিও জাহাজের কাঠামোটি নিজেকে একত্রে ধরে রাখতে যথেষ্ট দৃঢ়, তবে এটির যে মূল বলটি অতিক্রম করতে হয় তা হল অনুদৈর্ঘ্য বাঁক যা হালের বিপরীতে বিকৃতি সৃষ্টি করে, তার কাঠামোটি অবশ্যই এমনভাবে ডিজাইন করা উচিত যাতে উপাদানটি যতটা সম্ভব সামনে এবং পিছনে বিন্যস্ত করা যায়। প্রধান অনুদৈর্ঘ্য উপাদানগুলি হ'ল ডেক, শেল প্লাটিং, অভ্যন্তরীণ নীচের অংশগুলি গ্রিলেজ আকারে থাকে এবং এগুলিতে অতিরিক্ত অনুদৈর্ঘ্য প্রসারন ঘটে। জাহাজের মাপ বাক্লিং প্রতিরোধে স্টিফেনারদের মধ্যে পর্যাপ্ত ব্যবধান তৈরি করার জন্য দেওয়া থাকে। যুদ্ধজাহাজ গুলো অনুদৈর্ঘ্য স্টিফেনিং ব্যবস্থা ব্যবহার করেছে যা অনেক আধুনিক বাণিজ্যিক জাহাজ গ্রহণ করেছে। এই ব্যবস্থাটি প্রারম্ভিক মার্চেন্ট জাহাজগুলিতে ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়েছিল যেমন এসএস গ্রেট ইস্টার্ণ, তবে পরে অনুপ্রস্থ ফ্রেমযুক্ত কাঠামোতে পরিবর্তিত হয়, জাহাজের হাল নকশার ভিন্ন ধারণা যা আরও কার্যকর হিসেবে প্রমাণিত হয়েছিল। এই ব্যবস্থাটি জনপ্রিয়তার কারণে পরবর্তীকালে ট্যাঙ্কারগুলির মতো আধুনিক জাহাজে প্রয়োগ করা হয়েছিল এবং এটির নামকরণ করা হয়েছিল ইশরউড সিস্টেম। ইশেরউড সিস্টেমের বিন্যাসটি অনুদৈর্ঘ্য অংশগুলো দ্বারা উভয় পাশ এবং নীচে শক্ত ডেক নিয়ে গঠিত, তারা যথেষ্ট পৃথক যাতে তাদের মধ্যে ফ্রেম এবং বীমের মতো একই দূরত্ব থাকে। এই ব্যবস্থাটি কাজ করে অনুপ্রস্থ সদস্য়দের মধ্যে ব্যবধান তৈরি করে যা প্রায় 3 বা 4 মিটার দৈর্ঘ্যকে ভারবহনে সহায়তা করে, প্রশস্ত ব্যবধানগুলো অনুপ্রস্থ শক্তি প্রদান করে যা বাল্কহেড কতৃক সৃষ্ট বলগুলোকে নাড়াতে প্রয়োজন।

ব্যবস্থাপনা[সম্পাদনা]

ব্যবস্থাপনার মধ্যে নকশা ধারণা, বিন্যাস এবং প্রবেশ, অগ্নি সুরক্ষা, স্থান বণ্টন, কর্মদক্ষতা এবং ক্ষমতা জড়িত।

নির্মাণ[সম্পাদনা]

নির্মাণ ব্যবহৃত উপাদানের উপর নির্ভর করে। যখন স্টিল বা অ্যালুমিনিয়াম ব্যবহার করা হয়, এটি স্থাপন ও চালুর পর কাঠামোগত নকশা চিত্র বা গঠন অনুযায়ী ঘূর্ণন, চিহ্নিতকরণ, কাটা এবং বাঁকএর পর প্লেট এবং প্রোফাইলগুলির ওয়েল্ডিং অন্তর্ভুক্ত করে। অন্যান্য উপাদান যেমন ফাইবার রিইনফোর্সড প্লাস্টিক এবং গ্লাস-রিইনফোর্সড প্লাস্টিকের জন্য অন্যান্য যুক্ত করার কৌশল ব্যবহৃত হয়। নির্মাণের প্রক্রিয়াটি, সমস্ত বিষয় যেমন সুরক্ষা, কাঠামোর শক্তি, হাইড্রোডায়নামিক্স এবং জাহাজের ব্যবস্থা্পনা ইত্যাদি বিবেচনার সময় সতর্কতার সাথে চিন্তা করা হয়। বিবেচিত প্রতিটি বিষয় উপকরণগুলির এবং জাহাজের ওরিয়েন্টেশন বিবেচনার জন্য একটি নতুন বিকল্প উপস্থাপন করে। যখন কাঠামোর শক্তি বিবেচনা করা হয় তখন জাহাজের সংঘর্ষের কাজ এমনভাবে বিবেচিত হয় যেন জাহাজের কাঠামোটি পরিবর্তিত হয়। সুতরাং, চালিত জাহাজের প্রয়োগিত উপাদানের স্থিতিস্থাপক বৈশিষ্ট্য রয়েছে বলে উপকরণের বৈশিষ্ট্যগুলি সাবধানতার সাথে বিবেচনা করা হয়, জাহাজটি চালানোর ফলে গ্রহণকৃত শক্তিটি বিপরীত দিক থেকে অপসারণ করা হয়, সুতরাং উভয় জাহাজই পুনরায় ক্ষতি রোধ করার জন্য প্রত্যাবর্তন প্রক্রিয়ায় মধ্য দিয়ে যায়। [৫]

নেভাল স্টেশন পার্ল হারবারে বিমান বাহক ইউএসএস <i id="mwjw">কিটি হক</i> (সিভি -৩৩)

বিজ্ঞান এবং কারুশিল্প[সম্পাদনা]

ঐতিহ্যগতভাবে, নৌ স্থাপত্য বিজ্ঞানের চেয়ে বেশি কারুশিল্প হয়ে আছে। একটি জাহাজের আধো মডেল বা প্রোটোটাইপ দেখে জাহাজের আকারের উপযুক্ততা বিচার করা হত। অসম্পূর্ণ আকার বা আকস্মিক রূপান্তরগুলি ত্রুটিযুক্ত বলে চিহ্নিত করা হয়েছিল। এর মধ্যে কারচুপি, ডেকের ব্যবস্থা এবং এমনকি ফিক্সচারও রয়েছে। বিষদ বর্ণ্নাকারী যেমন অসম্পূর্ণ, স্ফীত এবং সরু বর্তমানে ব্যবহৃত আরো যথাযথ শব্দের বিকল্প হিসেবে ব্যবহৃত হত। একটি জাহাজ ছিল, এবং এখনও এটি একটি 'ন্যায্য' আকৃতি হিসাবে বর্ণনা করা হয়। 'ন্যায্য' শব্দটি বোঝানো হয়েছে কেবল সামনে থেকে পিছন দিকে মসৃণ রূপান্তরই নয়, বরং এমন একটি আকৃতি যা সঠিক । একটি নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে নির্ধারিত সমর্থনকারী বিশ্লেষণের অনুপস্থিতিতে 'সঠিক' কী তা নির্ধারণ করা আজও নৌ স্থাপত্যের শিল্পকে ঘিরে রেখেছে।

আধুনিক স্বল্প মূল্যের ডিজিটাল কম্পিউটার এবং নিবেদিত সফটওয়্যার, পূর্ণ-স্কেল, টোয়িং ট্যাঙ্ক এবং গণনীয় ডেটার মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনের জন্য ব্যাপক গবেষণা সম্পর্কিত সম্পর্কিত গবেষণার সাথে মিলিতভাবে নৌ-স্থপতিদের একটি সামুদ্রিক যানের কর্মদক্ষতা আরও সঠিকভাবে পূর্বাভাস দিতে সক্ষম করেছে। এই সরঞ্জামগুলি স্থিতিশীল স্থায়িত্ব (অক্ষত এবং ক্ষতিগ্রস্থ), গতিশীল স্থায়িত্ব, প্রতিরোধ, কর্মশক্তি, হাল স্থাপন, কাঠামোগত বিশ্লেষণ, সবুজ জলের মডেলিং এবং নিক্ষেপণ বিশ্লেষণের জন্য ব্যবহৃত হয়। ডেটা নিয়মিতভাবে রিনা দ্বারা উত্থাপিত আন্তর্জাতিক সম্মেলন, সোসাইটি অব নেভাল আর্কিটেক্টস এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারস (SNAME) এবং অন্যদের প্রদান করা হয়। একটি অসূচিত সমুদ্রে ভাসমান বস্তুর প্রতিক্রিয়া পূর্বাভাস পাওয়ার জন্য গণ্নীয় ফ্লুইড ডায়নামিক্স প্রয়োগ করা হচ্ছে।

নৌ স্থপতি[সম্পাদনা]

কর্মস্থলে নৌ স্থপতি

সামুদ্রিক পরিবেশে পরিচালনা জনিত জটিলতার কারণে, নৌ স্থাপত্য প্রযুক্তিগতভাবে দক্ষ ব্যক্তি যারা নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ তাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টার গ্রুপ, যা প্রায়শই একজন অধিনায়ক নৌ স্থপতি দ্বারা সমন্বিত হয়ে থাকে। [৬] এই অন্তর্নিহিত জটিলতার অর্থ হ'ল বিমান, গাড়ি এবং এমনকি মহাকাশযানের নকশা তৈরির জন্য যে বিশ্লেষণীয় সরঞ্জামগুলি রয়েছে তার তুলনায় নৌস্থাপত্যে খুব কম প্রকাশিত হয়েছে। এটি মূলত পরিবেশের উপর সমুদ্রের যানের কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় পরিবেশের ডেটাগুলির অভাবে এবং একটি সামুদ্রিক কাঠামোতে তরঙ্গ এবং বাতাসের মিথস্ক্রিয়াজনিত জটিলতার কারণে ঘটে।

নৌ আর্কিটেক্ট হলেন এমন এক প্রকৌশলী যিনি জাহাজ, নৌকা, অন্যান্য সামুদ্রিক যান এবং সমুদ্রতীরের কাঠামোর নকশা, শ্রেণিবিন্যাস, সমীক্ষা, নির্মাণ, এবং / অথবা মেরামতের জন্য দায়বদ্ধ বাণিজ্যিক ও সামরিক সহ উভয় ক্ষেত্রেই:

ভেটেরান ক্লাস এমটি৪৬ ট্যাঙ্কারের ১/১০০ স্কেল মডেল। ফ্লোরিডা

এর মধ্যে কয়েকটি জাহাজের মধ্যে রয়েছে বৃহত্তম (যেমন সুপারট্যাঙ্কারস ), সবচেয়ে জটিল (যেমন বিমান বাহক ) এবং মানবজাতির দ্বারা সৃষ্ট অত্যন্ত মূল্যবান চলমান কাঠামো। এগুলি সাধারণত বিশ্বের কাঁচামাল এবং পণ্য পরিবহনের সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতি। এই স্কেলটিতে আধুনিক ইঞ্জিনিয়ারিং মূলত একটি দলীয় ক্রিয়াকলাপ যা বিশেষজ্ঞ দ্বারা স্ব স্ব ক্ষেত্র ও নিয়মে পরিচালিত। নৌ স্থপতিরা এই ক্রিয়াকলাপগুলিকে একত্র করে। এই দরকারি নেতৃত্বের ভূমিকার জন্য প্রয়োজন হয় পরিচালনাগত গুণাবলীর এবং বিভিন্ন নকশার প্রায়-পরস্পরবিরোধী চাহিদাগুলো একত্রে আনার ক্ষমতা বাধ্য করে এমন বস্তু তৈরি করতে যা তার উদ্দেশ্যের জন্য উপযুক্ত। [৭]

এই নেতৃত্বের ভূমিকা ছাড়াও, একজন নৌ স্থপতির একটি সুরক্ষিত, অর্থনৈতিক, পরিবেশগতভাবে উপকারী এবং সমুদ্রোপযোগী নকশা তৈরি করা হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য বিশেষ কর্তব্য রয়েছে। এই সমস্ত কাজ সম্পাদন করার জন্য, একজন নৌ স্থপতির অবশ্যই ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অনেক শাখার উপর ধারণা থাকতে হবে এবং অবশ্যই উচ্চ প্রযুক্তির ক্ষেত্রে সর্বাগ্রে থাকতে হবে।।তিনি অবশ্যই বিজ্ঞানী, আইনজীবী, হিসাবরক্ষক এবং বিভিন্ন ধরনের ব্যবসায়ীদের দ্বারা প্রদত্ত সেবাগুলি কার্যকরভাবে ব্যবহার করতে সক্ষম হবেন।

নৌ আর্কিটেক্টরা সাধারণত শিপইয়ার্ড, শিপ মালিক, ডিজাইন ফার্ম এবং উপদেষ্টা, সরঞ্জাম প্রস্তুতকারক, ক্লাসিফিকেশন সোসাইটি, নিয়ন্ত্রক সংস্থা ( নৌবিভাগ আইন ), নৌবাহিনী ও সরকা্রের জন্য কাজ করে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Careers in Naval Architecture"www.rina.org.uk 
  2. "EN342"www.usna.edu 
  3. Tupper, Eric (১৯৯৬)। Introduction to Naval Architecture। Butterworth-Heinemann। 
  4. Neves, M. A. S. (২০১৬)। "Dynamic stability of ships in regular and irregular seas - An Overview": 362–370। 
  5. Prabowo, A. R. (২০১৭)। "Effects of the rebounding of a striking ship on structural crashworthiness during ship-ship collision": 225–239। 
  6. American Society of Naval Engineers ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ডিসেম্বর ২৬, ২০০৮ তারিখে. Naval engineering brochure.
  7. "Job Family Standard for Professional Work in the Engineering and Architecture Group, U.S. Office of Personnel Management, pp. 43–45" (PDF)। ২০০৯-০৫-১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Ferreiro, Larrie D. (২০০৭)। Ships and Science: The Birth of Naval Architecture in the Scientific Revolution, 1600–1800। MIT Press। আইএসবিএন 978-0-262-06259-6 978-0-262-06259-6
  • পাশ, এইচ। ডিকশনারি অফ নেভাল শর্তাদি, কেয়েল থেকে ট্রাক পর্যন্ত । লন্ডন: জি ফিলিপ অ্যান্ড সোন, 1908।