ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
"ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে"
প্রাণ সজনী অ্যালবাম থেকে
এন্ড্রু কিশোর কর্তৃক একক সঙ্গীত
ভাষাবাংলা
মুক্তিপ্রাপ্ত১৯৭৯
ধারা
দৈর্ঘ্য০৪:৩৩
লেবেলঅনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া
গান লেখকসৈয়দ আসাদউদ্দৌলা শিরাজী
সুরকারআলম খান
প্রযোজকআলম খান
সঙ্গীত ভিডিও
ইউটিউবে "ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে"

"ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে" বাংলা ভাষায় রচিত চলচ্চিত্রের একটি সঙ্গীত। এই সঙ্গীত বা গানটি ১৯৭৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত বাংলাদেশী চলচ্চিত্র প্রাণ সজনী-এর অন্তর্গত।[১] সৈয়দ আসাদউদ্দৌলা শিরাজী এই মরমী গানের মূল গীতিকার ছিলেন। চলচ্চিত্রে গানটির গীতিকার হিসেবে মনিরুজ্জামান মনিরকে কৃতিত্ব দেয়া হয়েছিল। আলম খানের সুর ও সংগীত আয়োজনে এই গানে কণ্ঠ দেন এন্ড্রু কিশোর[২] এই গানে কন্ঠদানের মাধ্যমে এন্ড্রু কিশোরকে চলচ্চিত্রের নেপথ্য সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে আরো জনপ্রিয় হয়েছিলেন। জনপ্রিয়তার নিরিখে গানটি বেশ কয়েকবার পুনরুৎপাদিত হয়েছে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সৈয়দ আসাদউদ্দৌলা শিরাজী গানটির প্রকৃত গীতিকার ছিলেন। ১৯৬৫ সালে শিরাজী তার একটি গ্রন্থে গানটি প্রকাশ করেছিলেন। প্রাণ সজনী চলচ্চিত্রে ৬টি গান ব্যবহার করা হয়েছিল; এর মধ্যে ৫টি গানের গীতিকার ছিলেন মনিরুজ্জামান মনির। সেসময় এইগানের গীতিকার হিসেবে শিরাজী'র নাম অজানা থাকায় মনিরুজ্জামান মনিরকে সকল গানের গীতিকার হিসেবে কৃতিত্ব দেয়া হয়েছিল। ছায়াছবি মুক্তির ৩৯ বছর গানটির প্রকৃত গীতিকার হিসেবে শিরাজী স্বীকৃতি পান।[৩] চলচ্চিত্রের জন্য গানটির সঙ্গীতায়োজন করেছিলেন আলম খান।[৪] উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র থাকা অবস্থায় এন্ড্রু কিশোর এইগানে কন্ঠ দিয়েছিলেন।[৫]

জনপ্রিয়তা ও প্রভাব[সম্পাদনা]

ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে প্রকাশের পর জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। এটি বাংলাদেশের শহরের গন্ডি ছেড়ে গ্রামাঞ্চলে দ্রুত জনপ্রিয় হয়।[৫] গানটি এন্ড্রু কিশোরের সঙ্গীত জীবনের অন্যতম জনপ্রিয় গান হিসেবে বিবেচিত;[৬] এই গানের মাধ্যমে চলচ্চিত্রের নেপথ্য কন্ঠশিল্পী হিসেবে এন্ড্রু কিশোর তার অবস্থান মজবুত করেছিলেন।[৫] আসাদউদ্দৌলা শিরাজী'র সমাধিতে গানটি নিয়মিত পরিবেশিত হয়।[২]

পুনরুৎপাদন[সম্পাদনা]

বহিঃ মিডিয়া
অডিও
সাউন্ডক্লাউডে "আনিলা সংস্করণ"(ইংরেজি)
ভিডিও
ইউটিউবে "প্রাণ সজনী সংস্করণ"
ইউটিউবে "গান বাংলা সংস্করণ"
  • ১৯৯৬ সালে প্রাণ সজনী পুনর্নিমাণের সময় আলম খানের মূল সুর ঠিক রেখে রকেট মন্ডলের সঙ্গীতায়োজন করেছিলেন। এন্ড্রু কিশোরের কন্ঠে গানটি পুনরায় ব্যবহার করা হয়। চলচ্চিত্রে তাপস পালকে নিয়ে চিত্রায়ন করা হয়। ২০২০ সালে গানটির গীতিকবিতা ও সঙ্গীতচিত্র অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া[৭] ও সিডি প্লাসের[৮] পরিবেশনায় ইউটিউবে প্রকাশিত হয়।
  • ২০০৬ সালে ফুয়াদ আল মুক্তাদিরের সঙ্গীতায়োজনে 'ভেরিয়েশন নং ২৫' এ্যালবামে আনিলা নাজ চৌধুরীর কন্ঠে গানটির নবসংস্করণ জি-সিরিজের ব্যানারে প্রকাশিত হয়।[৯] ২০১৮ সালের ৮ জানুয়ারি, জি-সিরিজ এই সংস্করণটির গীতচিত্র ইউটিউবে উম্মুক্ত করে।[১০]
  • ২০১৯ সালে মূল সুর ও গীতি ঠিক রেখে গান বাংলা টেলিভিশন চ্যানেল তাদের 'উইন্ড অব চেঞ্জ' অনুষ্ঠানের জন্য কৌশিক হোসেন তাপসের সঙ্গীতায়োজনে কৈলাশ খেরের কন্ঠে ধারণ করা হয়। এই সংস্করণটি টেলিভিশনে প্রচারের পাশাপাশি গান বাংলা'র পরিবেশনায় ২০১৯ সালের ৫ জুন ইউটিউবে প্রকাশিত হয়।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "পাওয়া গেল 'ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে' গানের আসল গীতিকারকে"জাগো নিউজ। ২০২১-০২-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-১০ 
  2. "'ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে'র গীতিকার কে? বের হলো চাঞ্চল্যকর তথ্য"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ২০২১-০২-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ 
  3. "৩৯ বছর পর 'ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে'র আসল তথ্য"দ্য ডেইলি স্টার। ২০২১-০২-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-১০ 
  4. "'ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে' গানের আসল গীতিকার কে?"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ২০২১-০২-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ 
  5. বিশ্বাস, আলম (২০১৫-০৯-১৭)। "'ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে' গানটি বদলে দেয় এন্ড্রু কিশোরকে"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ 
  6. "এন্ড্রু কিশোর: ভেঙ্গেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা"চ্যানেল আই অনলাইন। ২০২০-০৭-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ 
  7. "ডাক দিয়াছেন দয়াল"অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া। ২০২০-০২-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ইউটিউব-এর মাধ্যমে। 
  8. "ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে"সিডি প্লাস। ২০২০-০৩-২১। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ – ইউটিউব-এর মাধ্যমে। 
  9. "Recording "Daak Diachen" by Anila - MusicBrainz"মিউজিক ব্রেইঞ্জ। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ 
  10. "ডাক দিয়াছেন দয়াল"জি-সিরিজ। ২০১৮-০১-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৯ – ইউটিউব-এর মাধ্যমে। 
  11. "DAAK DIYACHEN DOYAL AMAREY - TAPOSH FEAT. KAILASH KHER : OMZ WIND OF CHANGE [ S:05 ] - YouTube"গান বাংলা। ২০১৯-০৬-০৫। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০২-০৮ – ইউটিউব-এর মাধ্যমে।