জি. এইচ. ডি সিলভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জেনারেল

গেরার্ড হেক্টর ডি সিলভা

রণ বিক্রম পদক, বিশিষ্ট সেবা বিভূষণ, উত্তম সেবা পদক
আনুগত্য শ্রীলঙ্কা
সার্ভিস/শাখা শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনী
কার্যকাল১৯৬২-১৯৯৬
পদমর্যাদাজেনারেল
ইউনিটজেমুনু ওয়াচ
নেতৃত্বসমূহশ্রীলঙ্কার সেনা কমান্ডার
পুরস্কারRana wickrama medal.svg রণ বিক্রম পদক
Vishista Seva Vibhushanaya medal bar.svg বিশিষ্ট সেবা বিভূষণ
Uttama Seva ribbon bar.svg উত্তম সেবা পদক
অন্য কাজপাকিস্তানে নিযুক্ত শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত

জি. এইচ. ডি সিলভা (জন্মঃ ৩১ মে ১৯৪০) যিনি গেরি ডি সিলভা নামেও পরিচিত শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত জেনারেল। তিনি শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীর ১৩তম কমান্ডার ছিলেন, অবসরপ্রাপ্তির পর তিনি পাকিস্তানে শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ পান।[১]

পূর্ব জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

গেরির বাবাও শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীতে ছিলেন তবে তিনি ওয়ারেন্ট অফিসার ছিলেন, গেরিরা ছিলেন পাঁচ ভাই বোন। গেরি সেন্ট জোসেফ কলেক, কলম্বোতে পড়েছিলেন। কলেজে গেরি ওয়াটার পোলো এবং সাঁতার খুব ভালো করে পারতেন।[২][৩]

সামরিক জীবন[সম্পাদনা]

পূর্ব জীবন[সম্পাদনা]

১৯৬০ সালের ৬ মে তারিখে গেরি ক্যাডেট হিসেবে ব্রিটেনের রয়্যাল মিলিটারি একাডেমী, স্যান্ডহার্স্টে যোগ দেন, ১৯৬২ সালের ৩ আগস্ট গেরি সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট হিসেবে 'সিলন সিনহা রেজিমেন্ট'-এ কমিশন পান, এক বছর তিনি নবগঠিত জেমুনু ওয়াচ রেজিমেন্টে বদলী হন। ১৯৭১ সালে ক্যাপ্টেন ডি সিলভা মোনারাগালা এলাকাতে কাউন্টার ইন্সার্জেন্সী অপারেশনে নিযুক্ত হন, তখন ১৯৭১ সালের সাম্যবাদী রাজনৈতিক দল জেভিপির সশস্ত্র বিদ্রোহ বিরোধী সরকারী অভিযানে সেনাবাহিনীর কাজ চলছিলো, গেরি টাস্ক ফোর্স অ্যান্টি ইলিসিট ইমিগ্রেশনে জেমুনু ওয়াচ রেজিমেন্টের হয়ে কাজ করেন। তিনি পাকিস্তান থেকে জুনিয়র কমান্ড কোর্স এবং ভারতের আর্মি ওয়ার কলেজ থেকে সিনিয়র কমান্ড কোর্স করেন।

উচ্চতর নেতৃত্ব[সম্পাদনা]

১৯৮১ সালে লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসেবে তিনি জাফনাতে অফিসার কমান্ডিং, ট্রুপস হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি কমব্যাট ট্রেনিং স্কুলের কমান্ড্যান্ট এবং ইনফ্যান্ট্রি ট্রেনিং স্কুলের প্রথম কমান্ড্যান্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৫ সালে কর্নেল পদবীতে তিনি কমান্ডার, নর্দার্ন কমান্ড হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ব্রিগেডিয়ার জি. এইচ. ডি সিলভা জয়েন্ট অপারেশন্স কমান্ডের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার, ২ ব্রিগেড গ্রুপের অধিনায়কত্ব এবং ১৯৮৭ সালে ভাদামারাচ্চি সেনা অভিযানে ওভারঅল অপারেশনাল কমান্ডার হিসেবে দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। ১৯৮৮ সাল থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত তিনি জেমুনু ওয়াচ রেজিমেন্টের কর্নেল অব দ্য রেজিমেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং ১৯৮৯ সালে ভারতের ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ থেকে কোর্স করেন। ভারত থেকে দেশে ফিরে এসে ১৯৯০ সালের জানুয়ারীতে তিনি নবগঠিত ৩ ডিভিশনের অধিনায়ক এবং পরে ২ ডিভিশনের অধিনায়কের দায়িত্ব পান। এরপর তিনি শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনীর ভলান্টারিয়ার ফোর্সের কমান্ড্যান্ট এবং সেনাবাহিনীর চীফ অব স্টাফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সেনাবাহিনী কমান্ডার[সম্পাদনা]

১৯৯৪ সালের ১ জানুয়ারী তিনি সেনাবাহিনী কমান্ডারের দায়িত্ব পান। তিনি সেনা কমান্ডার থাকাকালীন মেজর জেনারেল রোহণ দালুওয়াত্তের নেতৃত্বে শ্রীলঙ্কা সেনাবাহিনী এলটিটিইর বিরুদ্ধে 'অপারেশন রিভিরেসা' নামের সামরিক অভিযান পরিচালনা করে। ১৯৯৬ সালের ৩০ এপ্রিল গেরি সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যান এবং রোহণ দালুওয়াত্তে তার স্থলাভিষিক্ত হন। [৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Commandants"। ceylondatabase.net। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৪ 
  2. Obituaries, DE SILVA ETTA ANNA BIANCA (nee Cramer)
  3. "You learn, you serve and then you lead: General Gerry De Silva, Sandhurst Alumni"। Sunday Observer। সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০২০ 
  4. Ferdinando, Shamindra। "Gerry de Silva remembers army's most humiliating day"। Island। সংগ্রহের তারিখ ১৪ এপ্রিল ২০২০