জলসিঁড়ি আবাসন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জলসিঁড়ি আবাসন
আর্মি হাউজিং স্কিম
জলসিঁড়ি আবাসন প্রকল্পের লোগো
জলসিঁড়ি আবাসন প্রকল্পের লোগো
দেশবাংলাদেশ
বিভাগঢাকা
জেলানারায়ণগঞ্জ
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+০৬:০০)
পাখির চোখে জলসিঁড়ি আবাসন প্রকল্পের দৃশ্য

জলসিঁড়ি আবাসন একটি আবাসিক অঞ্চল, নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলায় সেনা অফিসার আবাসন প্রকল্পের ভগ্নি কর্পোরেশন, জলসিঁড়ি আবাসন কর্পোরেশন দ্বারা নির্মিত। এটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের জন্য বিশেষভাবে নির্মিত। এটিকে অতীতে আর্মি হাউজিং স্কিম নামে উল্লেখ করা হয়েছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২০১০ সালে সেনা আবাসন প্রকল্পটি জলসিঁড়ি আবাসিক প্রকল্পের জন্য ১৪০০ বিঘা জমি কিনেছিল। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কোয়ার্টার মাস্টার জেনারেল এই প্রকল্পের চেয়ারম্যান ছিলেন। নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলায় ১৩ হাজার বিঘা বা ৪৩৩৩ একর জমি পর্যন্ত ক্রয়ের পরিকল্পনা ছিল।[১] ২০১০ সালের ২৪ অক্টোবর রূপগঞ্জের সাত হাজার বাসিন্দা আর্মি হাউজিং স্কিমের সাথে জড়িত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তনমুশুরী ক্যাম্পে অবরোধ করে। বিক্ষোভকারীরা আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। পরবর্তী সহিংসতায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যরা গুলিবিদ্ধ ১৫ জনসহ ৫০ জন আহত হয়েছেন। বাংলাদেশ পুলিশ জানিয়েছে যে তাদের কর্মীরা কোন রাউন্ড গুলি চালায়নি। সেনা অফিসারদের বিমান থেকে ক্যাম্পের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। এরপর বিক্ষোভকারীরা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ক্যাম্প এবং দুটি গাড়ি পুড়িয়ে দেয়।[২]

বিক্ষোভকারীরা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে জোর করে তাদের জমি কেনার অভিযোগ করে। তারা স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন যে সেনা কর্মকর্তারা বাজার দরের কম দামে রূপগঞ্জে জমি কিনতে সাহায্য করছে। গাজী তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেন এবং বিরোধী দলের ষড়যন্ত্র হিসেবে বর্ণনা করেন।[২] বিক্ষোভের পর র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন তিন থেকে চার হাজার লোকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। শান্তি বজায় রাখার জন্য বাংলাদেশ পুলিশ ও সশস্ত্র পুলিশ ব্যাটালিয়নের সদস্যদের সেখানে মোতায়েন করা হয়। মামলা দায়েরের পরে রুপগঞ্জের পুরুষ বাসিন্দারা গ্রেপ্তারের ভয়ে আত্মগোপনে চলে যান। রূপগঞ্জে দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং নির্জন চেহারা বহন করা হয়। সংঘর্ষের পর তিনজন গ্রামবাসী নিখোঁজ ছিল।[৩] মোস্তফা জামাল হায়দার নামে একজন বিক্ষোভকারী জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে বুলেটের আঘাতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তারা বলেন, সেনা কর্মকর্তারা বেসরকারি উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য সরকারী যানবাহন এবং সম্পদ ব্যবহার করছেন। আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ মারা যায় শিবিরগুলো ছিল সেনা ছাউনি, উর্দিধারী কর্মীদের দ্বারা পরিচালিত হওয়া সত্ত্বেও, এবং তাদেরকে অস্থায়ী প্রজেক্ট সাইট অফিস বলে অভিহিত করে। একজন নিখোঁজ ব্যক্তিকে সেনাবাহিনীর হেফাজতে পাওয়া গেছে এবং সে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ছিল। সেনা কর্মীরা তাকে নিয়ে গিয়েছিল যখন তাদের ক্যাম্প থেকে বের করে আনা হচ্ছিল।[৪]

ডেইলি স্টার স্থানীয় ভূমি রেজিস্ট্রি অফিসে বিক্রয় জমি পর্যবেক্ষণের সময় সেনা কর্মকর্তাদের উপস্থিতির সমালোচনা করেছে। এটি একটি বেসরকারি কর্পোরেশন পরিচালনাকারী সেনা কর্মকর্তাদের যথাযথতা এবং উন্নয়ন প্রকল্পের আইনি ভিত্তি নিয়েও প্রশ্নবিদ্ধ করেছিল।[১] ৩০ অক্টোবর রূপগঞ্জ থানায় বিক্ষোভের ঘটনায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ৫০-৬০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে। নিখোঁজদের আত্মীয়রা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে নিখোঁজদের গুলি এবং তাদের মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ এনেছে।[৫] বাংলাদেশ সেনাবাহিনী রূপগঞ্জ উপজেলায় বেশ কয়েকটি ক্যাম্প স্থাপন করে। তারা স্থানীয় ভূমি রেজিস্ট্রি অফিসে একটি উপস্থিতি স্থাপন করে এবং জনগণকে সেনাবাহিনী ছাড়া অন্য কারো কাছে তাদের জমি বিক্রি করতে দিতে অস্বীকার করে। সেনাবাহিনী এছাড়াও বাজার দরের চেয়ে কম দামে ক্রয়ের প্রস্তাব করেছে। সেনাবাহিনী এই প্রকল্পে তাদের ভূমিকাকে সরকার অনুমোদিত বলে বর্ণনা করে, কিন্তু দেশের গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী আব্দুল মান্নান খান এই প্রকল্পের কোন জ্ঞান অস্বীকার করেন।[৬] সেনাবাহিনী ভূমি অফিসে সব বিক্রয় রেকর্ড করে। তারা ওয়াকফ সম্পত্তি হিসেবে জমি, ঈদের নামাজের মাঠ নিবন্ধন করতে বাধা দেয়। প্রকল্পে বিক্রি করা জমি কর ফাঁকি দেওয়ার বিক্রয় মূল্যের চেয়ে কম মূল্যে রেকর্ড করা হয়।[৭]

২৮ শে অক্টোবর, ২০১০-তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেনা আবাসন প্রকল্পের অনুমোদন করেন এবং স্থানীয়দের সাথে যাতে কোন দ্বন্দ্ব না হয় তা নিশ্চিত করতে বলেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বিক্ষোভের আলোকে প্রকল্পটি কমিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেয়[৮] জলসিঁড়ি আবাসন কোম্পানি আইন, ২০১১ এর অধীনে ১১ এপ্রিল ২০১১ তারিখে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এর নেতৃত্বে রয়েছেন পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল আবু সৈয়দ মোঃ মাসুদ। ঢাকার উপকণ্ঠে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলায় ২১০০ একর জমির উন্নয়ন গড়ে তোলার দায়িত্ব দেওয়া হয়।[৯]

৪ জুন, ২০১৯ তারিখে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ আদমজী পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড এন্ড কলেজ এবং জলসিঁড়ি পাবলিক অ্যান্ড কলেজের জলসিঁড়ি আবাসনে ভবন নির্মাণের উদ্বোধন করেন।[১০]

পরিবেশগত প্রভাব[সম্পাদনা]

সাইটটি ঢাকার একটি নির্দিষ্ট বন্যার প্রবাহ অঞ্চল অবস্থিত। ঢাকা মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট প্ল্যান অনুযায়ী এই এলাকার উন্নয়ন বা নির্মাণ করা যাবে না। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল হুদা বলেন, সেনা কর্মকর্তারা তাদের সঙ্গে পরামর্শ করেননি বা প্রকল্পটি নির্মাণের জন্য তাদের অনুমোদন চাননি। মেজর জেনারেল ইকবাল করিম ভূঁইয়া ২০১০ সালে এই প্রকল্পের চেয়ারম্যান ছিলেন।[১১] পরিবেশ অধিদফতর ২০১৫ সালে পরিবেশ ছাড়পত্রের অভাবে জলসিঁড়ি আবাসনকে জরিমানা করেছে। ঢাকার বিভাগীয় সদর দফতরে শুনানি শেষে এটি জরিমানা করা হয়। [১২] ২০১৫ সালে এনভায়রনমেন্ট ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেটের অভাবে পরিবেশ অধিদপ্তর জলসিঁড়ি আবাসনকে জরিমানা করে। ঢাকায় বিভাগীয় সদর দপ্তরে শুনানির পর তাকে জরিমানা করা হয়। জলসিঁড়ি আবাসনের চেয়ারম্যান ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে রিয়েল এস্টেট এজেন্ট এবং রাজধানী উন্নায়ন কর্তৃপক্ষের সাথে এক বৈঠকে বিস্তারিত এলাকা পরিকল্পনা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। ডেভেলপাররা জলাভূমি এবং পানি রক্ষণাবেক্ষণ এলাকার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে।[১৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Army Housing Scheme"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ অক্টোবর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  2. "Rupganj flies into fury"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২৪ অক্টোবর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  3. "Rupganj males on the run"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২৬ অক্টোবর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  4. "Rupganj still tense"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২৫ অক্টোবর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  5. "Army sues 50-60 for Rupganj violence"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ অক্টোবর ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  6. Munim, Rifat (১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১১)। "Forced to Sell their Land"thedailystar.net। Star Weekend Magazine। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  7. Roy, Pinaki (২৫ অক্টোবর ২০১০)। "Army officials kept track of land sale"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  8. Manik, Julfikar Ali; Liton, Shakhawat (২৮ অক্টোবর ২০১০)। "Green light from PM"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  9. "Jolshiri Abashon"jolshiriabashon.com। ১৯ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  10. "Army chief inaugurates construction work of three educational institutions"New Age (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  11. "Project area includes flood flow zone"archive.thedailystar.net। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  12. Abdullah, Shaikh। "Government agency fines Bangladesh Army's housing project in Narayanganj for harming environment"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 
  13. "Dhaka doesn't need wetland!"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২ নভেম্বর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]