ছোট খাটাশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ছোট খাটাশ
Small Indian civet
Viverricula indica schlegelii 1868.jpg
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: কর্ডাটা
শ্রেণী: Mammalia
বর্গ: মাংশাশী
পরিবার: Viverridae
উপপরিবার: Viverrinae
গণ: Viverricula
Hodgson, 1838
প্রজাতি: V. indica
দ্বিপদী নাম
Viverricula indica
Geoffroy Saint-Hilaire, 1803
Subspecies
Small Indian Civet area.png
Small Indian civet range
(green - extant,
pink - probably extant)

ছোট খাটাশ বা ভাম বা কলকাট[২] বা খাটাশ বা ছোট বাঘডাশ[৩] (ইংরেজি: Small Indian civet) (বৈজ্ঞানিক নাম:Viverricula indica) হচ্ছে ভিভেরিডি পরিবারের ভিভেরিকুলা গণের একটি গন্ধগোকুল জাতীয় প্রাণী।[২]

বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনের রক্ষিত বন্যপ্রাণীর তালিকার তফসিল-১ অনুযায়ী এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।[৩]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

ছোট খাটাশ আকারে বড় বাঘডাশের মতো অত বড় নয় । এদের কান ছোট, বাঘডাশের তুলনায় এদের কান মাথার উপরের দিকে অপেক্ষাকৃত কাছাকাছি সন্নিবিষ্ট । এই প্রজাতির মাথাসহ দেহের দৈর্ঘ্য ৭৫ সে.মি. ও লেজ ৪৫ সে.মি. । এদের ওজনেও তারতম্য থাকে এবং ওজনের পরিসর ২-৪ কেজি হয়ে থাকে। ছেলেদের তুলনায় মেয়েরা সাধারণত ছোট ও হালকা হয়ে থাকে। বাদামি শরীরে এদের ছাই ও হালকা হলুদাভ আভা থাকে । পিঠের ওপর ও দুই পাশে টানা পাঁচ-ছয়টি বাদামি কালো রেখা । শরীরের উভয় পাশে গোল গোল একই রঙের বুটি আঁকা । বয়সভেদে লেজে পাঁচ-সাতটি চওড়া বলয় থাকে । ছোট খাটাশ গন্ধগোকুল নামেও এলাকাভেদে পরিচিত । নিজেরা গর্ত করে আশ্রয়স্থল বানায় এবং সেখানেই বাচ্চা প্রসব করে। ছানারা জন্ম নেয় চোখ খোলা অবস্থাতেই। এরা নিশাচর । পূর্ণবয়স্ক খাটাশ খোশমেজাজে থাকলে টিকটিক আওয়াজ করতে থাকে। ভয় পেলে সিভেট-গ্রন্থি থেকে দুর্গন্ধ ছড়ায় । [২]

বিস্তৃতি ও বাসস্থান[সম্পাদনা]

ছোট খাটাশ বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, মায়ানমার, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, চীন, হংকং, কম্বোডিয়া, ইন্দোনেশিয়া, লাওস, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনামে পাওয়া যায়। এছাড়া এরা ইয়েমেন এবং জাঞ্জিবার, পেম্বা, সকট্রা, মাদাগাস্কার এবং ফিলিপাইন দ্বীপপুঞ্জে অনুপ্রবেশ করেছে । বাঁশবন-ঘাসবন, শুকনো কাশবন, খড়বন, জালিবেতঝাড়, ইটের পাঁজা ও ঝোপঝাড় হচ্ছে ছোট খাটাশের আবাসস্থল । আবাসভূমি ধ্বংস ও হাঁস-মুরগি বাঁচানোর জন্য ব্যাপক নিধনের জন্যই এরা বিপন্ন । [২]

খাদ্যাভাস[সম্পাদনা]

প্রায় সব ধরনের ফল, বিভিন্ন ছোট প্রাণী ও পতঙ্গ, তাল-খেজুরের রস ইত্যাদি। গাছে উঠতে পারলেও মাটিতেই শিকার ধরে এবং ইঁদুর, কাঠবিড়ালী, ছোট পাখি, টিকটিকি, কীটপতঙ্গ ও সেগুলির লার্ভা খেয়ে থাকে। গৃহস্থের হাঁস-মুরগি চুরি করে। দেশভেদে এদের খাবারের তারতম্য দেখা যায় । কফি এদের অন্যতম প্রিয় একটি খাদ্য ।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Duckworth, J. W., Timmins, R. J. and Muddapa, D. (২০০৮)। "Viverricula indica"বিপদগ্রস্ত প্রজাতির আইইউসিএন লাল তালিকা। সংস্করণ 2012.2প্রকৃতি সংরক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন 
  2. জিয়া উদ্দিন আহমেদ (সম্পা.), বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ: স্তন্যপায়ী, খণ্ড: ২৭ (ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি, ২০০৯), পৃ. ১৩৪-১৩৫।
  3. বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জুলাই ১০, ২০১২, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, পৃষ্ঠা-১১৮৪৯৬