চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজ
অন্যান্য নাম
চাঁদপুর মহিলা কলেজ
নীতিবাক্যশিক্ষা ইমান সেবা
ধরনসরকারি কলেজ
স্থাপিত১৪ আগষ্ট,১৯৬৪
প্রতিষ্ঠাতাহোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী
অধিভুক্তিজাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
অধ্যক্ষপ্রফেসর মো: মাসুদুর রহমান
আবুল খায়ের খান (উপাধ্যক্ষ) [১]
শিক্ষার্থী১৪,০০০+
স্নাতকB.A, B.S.S, B.B.A, B.Sc
স্নাতকোত্তরM.A, M.S.S, M.B.A, M.Sc
ঠিকানা
কলেজ রোড, নাজিরপাড়া
, , ,
শিক্ষাঙ্গনশহুরে
ভাষাবাংলাইংরেজি
সংক্ষিপ্ত নামCGMC
ওয়েবসাইট[১]

চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজ বাংলাদেশের চাঁদপুর জেলার একটি পুরোনো ও ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এককভাবে নারী শিক্ষায় জেলার প্রথম কলেজ হিসেবে এটি পরিচিত। এ কলেজটি ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

প্রতিষ্ঠার পটভূমি[সম্পাদনা]

চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজের ভিত্তিপ্রস্তর হয় ২৪ আগস্ট ১৯৬৪ সালে । [২]

সরকারি করণ[সম্পাদনা]

১ মার্চ, ১৯৮০ সালে কলেজটি সরকারি করণ করা হয়।

ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

কলেজে ২৮ জন শিক্ষকসহ মোট ২৪০০ শিক্ষার্থী এই প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম চলছে। নারীদের কলেজ হিসেবে পর্যাপ্ত সুরক্ষা ও নিরাপত্তাসহ কলেজ আঙ্গিনায় ২৫০ জন শিক্ষার্থী বসবাসের উপযোগী করে তিনটি হোস্টেল রয়েছে।

অনুষদ ও বিভাগসমুহ[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে বিএ এবং বিবিএস কোর্স চালু করা হয়। ১৯৮৪ সালে, কলেজ জাতীয়করণ এবং এইভাবে একটি সরকারি কলেজ হয়ে ওঠে। ২০০৬-০৭ শিক্ষাবর্ষে বাংলা ও ইতিহাসে এবং ২০০৯ -১০ সালে ইংরেজী ও সমাজকল্যাণে সম্মাননা কোর্স শুরু হয়। একই বছরে (২০০৯-১০) এইচএসসি স্তরের বিজনেস স্টাডিজও চালু করা হয়।

উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণি[সম্পাদনা]

স্নাতক (পাস) শ্রেণি[সম্পাদনা]

স্নাতক (সম্মান) শ্রেণি[সম্পাদনা]

কলেজটিতে মোট ১৭টি বিষয়ে অনার্স ও ১৪টি বিষয়ে মাস্টার্স কোর্স চালু আছে। সেগুলো হলো -

একাডেমিক সুযোগ সুবিধা[সম্পাদনা]

কলেজটিতে বিভিন্ন ধরনের একাডেমিক সুযোগ সুবিধা রয়েছে। যেমন একাডেমিক ভবন, গ্রন্থাগার ইত্যাদি। এছাড়া এখানে পড়াশুনার পাশাপাশি মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে বৃত্তির ব্যবস্থা।

একাডেমিক ভবন[সম্পাদনা]

কলেজটিতে মোট পাঁচটি ভবন রয়েছে।

  • মূল ভবন
  • একাডেমিক ভবন
  • ভবন -২
  • ভবন -৩
  • রাজু ভবন

লাইব্রেরি[সম্পাদনা]

মূল ভবনে একটি কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার অবস্থিত। এখানে ছাত্র এবং ছাত্রীদের আলাদা রুমে পড়ার সুযোগ রয়েছে। ১৫০ (প্রায়) শিক্ষার্থী একসাথে পড়তে ও বই সংগ্রহ করতে পারে। গ্রন্থাগারে ২০০০+ বই সংগৃহীত আছে। নিয়মিত জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিক সমূহ সংগ্রহ করা হয়।

বোটানিক্যাল গার্ডেন[সম্পাদনা]

কলেজের সুযোগ সুবিধা[সম্পাদনা]

কলেজটিতে বিভিন্ন ধরনের সুযোগ সুবিধা রয়েছে। ছাত্রছাত্রীদের থাকার জন্য রয়েছে হোস্টেল এবং ছাত্রছাত্রীদের খেলার জন্য রয়েছে এক বিশাল খেলার মাঠ।

হোস্টেল[সম্পাদনা]

কলেজটিতে ছাত্রদের জন্য রয়েছে দুটি হল।

  • শেরে-বাংলা হল।
  • শহীদ জিয়া হল।

ছাত্রীদের জন্য রয়েছে দুটি হল।

  • শেখ হাসিনা ছাত্রীনিবাস।
  • নির্মাণাধীন হল যার নাম এখনও ঠিক হয়নি।

খেলার মাঠ[সম্পাদনা]

কলেজের নিজস্ব একটি মাঠ রয়েছে।

মসজিদ[সম্পাদনা]

সহশিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজে বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের সহশিক্ষা কার্যক্রম চালু রয়েছে:

সাংস্কৃতিক কার্যক্রম[সম্পাদনা]

প্রাক্তন শিক্ষার্থী[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "পদোন্নতির আদেশ" (PDF)মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ শিক্ষা মন্ত্রণালয় অফিসিয়াল সাইট। সংগ্রহের তারিখ ২৬ জুন ২০১৯ 
  2. চাঁদপুর সরকারি মহিল কলেজ